মালামাল না কিনেই টাকা লোপাট

ঠিকাদারি কাজে মালামাল গ্রহণ না করে চালানে স্বাক্ষর, মোট বিলের শতকরা ৩৫ ভাগ কমিশন গ্রহণ, চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীকে দিয়ে চাহিদাপত্র তৈরি করে ২ কোটি টাকার বেশি লোপাটসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে পশ্চিমাঞ্চল রেলের হাসপাতালের বিরুদ্ধে। এ দুর্নীতি দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে। ওষুধ চুরি করে হাতেনাতে ধরা পড়ার পরও কর্মচারীরা আছেন বহাল তবিয়তে। ওষুধ কেনার সময় নির্দিষ্ট ওষুধ কোম্পানি থেকে নেওয়া হচ্ছে মোটা অঙ্কের কমিশন। হাসপাতালের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনাতেও হচ্ছে নয়-ছয়। অনুসন্ধানে জানা যায়, পশ্চিমাঞ্চলের চিফ মেডিকেল অফিসার (সিএমও) ডা. সুজিৎ কুমার রায় এ বছর অবসরে যাচ্ছেন। এরই মধ্যে ফাঁস হয়ে যায় তার কয়েক কোটি টাকা লোপাটের ঘটনা। ডা. সুজিৎ কুমার রায় পাকশী ডিভিশনের ডিএমও থেকে পদোন্নতি পেয়ে ১৩ ডিসেম্বর ২০২০ সালে সিএমও (পশ্চিম) হিসেবে যোগদান করেন। সিএমও হিসেবে যোগদানের পর তিনি স্যানিটারি ইন্সপেক্টরের শূন্যপদে অতিরিক্ত দায়িত্ব দেন চতুর্থ শ্রেণির জমাদার, ড্রেসার, খালাসিদের। এ সময় লালমনিরহাট, পাকশী ও রাজশাহীর শুধু স্যানিটারি বিভাগ থেকেই এ চক্র হাতিয়ে নিয়েছে ৬ কোটি টাকা। জানা যায়, পাকশী ডিভিশনে পাঁচটি স্যানিটারি ইন্সপেক্টর পদ আছে। পাঁচ পদের মধ্যে একজন স্যানিটারি ইন্সপেক্টর আছেন। এ ছাড়া অন্য চারটিতে অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে দেওয়া আছে চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের। এরা হলেন রাজশাহীতে জুয়েল সরকার, ঈশ্বরদীতে আকরাম, খুলনায় অয়ন সরকার ও পাকশীতে জগবন্ধু বিশ্বাস- যারা সবাই স্যানিটারি ইন্সপেক্টর পদে অতিরিক্ত দায়িত্ব নিয়ে কর্মরত। এরা ডা. সুজিতের আস্থাভাজন।  ডা. সুজিত যখন পাকশীর ডিএমও ছিলেন, তখন থেকেই বর্তমানে পাকশীর স্যানিটারি ইন্সপেক্টর জগবন্ধু বিশ্বাস তার আস্থাভাজন। সেই সুবাদে গত দুই বছরে ২ কোটি টাকার ওপরে মালামালের চাহিদা নেওয়া হয়েছে তার কাছ থেকে। যদিও চাহিদাপত্রে একজন চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী স্বাক্ষর করার এখতিয়ার রাখেন না। তবুও জগবন্ধু তাতে স্বাক্ষর করেছেন। মালামাল কেনা না হলেও শুধু হাতবদল হয়েছে টাকার। স্টোরে খাতা-কলম ঠিক থাকলেও মালামাল নেই স্টোরগুলোতে। পাকশী ডিভিশনে স্যানিটারি ইন্সপেক্টর পদে দায়িত্ব পালন করা অন্য কেউই এমন মালামাল না কিনলেও শুধু পাকশীর দায়িত্বে থাকা জগবন্ধু বিশ্বাস মালামাল কিনেছেন ২ কোটি টাকার। লালমনিরহাট ডিভিশনে স্যানিটারি ইন্সপেক্টর সারাফাত। তিনি একাই গত কয়েক বছরে ৩০-৩৫ কোটি টাকার মালামাল কিনেছেন। সেখানেও সিএমও সুজিৎ কুমার রায় ৩৫ ভাগ কমিশন নিয়েছেন। এ ছাড়া সিএমও রাজশাহী দফতরে তার নিজস্ব ক্ষমতাবলে করেছেন কয়েক কোটি টাকার কাজ। ৫ লাখ টাকার চাহিদাপত্রের বিপরীতে ৫০ হাজার টাকা কমিশন ও মালামাল গ্রহণ না করেই ৩৫ ভাগ কমিশন নিয়েছেন তিনি। চলতি বছর ৪ এপ্রিল জগবন্ধুর চাহিদাপত্রের বিপরীতে পাকশী ডিভিশনের ডিএমও ডা. শাকিল আহমেদ চারটি চাহিদাপত্র প্রদান করেন। সেই চার চাহিদাপত্রে অ্যারোসল ¯ন্ডেপ্র, হুইল ব্যারো, ¯ন্ডেপ্র মেশিন, হ্যান্ডওয়াশ, হারপিক লিকুইড, ভিম লিকুইড, ফুলের ঝাডু, ডি অয়েল, ল্যাটিন বাকেট, গ্লাস ক্লিনার, বাঁশের টুকরি ইত্যাদি বাবদ ব্যয় ধরা হয় ৪৫ লাখ টাকা, যা শুধু কাগজ-কলমেই সীমাবদ্ধ। ৩ জানুয়ারি দুটি চাহিদাপত্রে ৩৩ লাখ ২৯ হাজার ৫০০ টাকার মালামাল ক্রয় দেখানো হয়, যেখানে হ্যান্ডওয়াশ, রাবার পাইপ, ড্যামফিক্স, ল্যাট্রিন ব্রাশ, সাবান, লাইজল ফ্লোর ক্লিনার, ফ্লোর সোয়াইব, তোয়ালে, বেডশিট, আসবাবপত্র কেনার কথা বলা হয়েছে। কেনা দামেও আছে বাজারদরের পার্থক্য।

এ ছাড়া ৯ জুন ১৬ লাখ ৭৫ হাজার ৯২০ টাকা, ১৭ জুলাই ৩ লাখ ৮৯ হাজার টাকা, ২০২১ সালের ১৯ ডিসেম্বর ২৫ লাখ টাকা, ১১ আগস্ট ১০ লাখ ২৮ হাজার ৩০০ টাকা, ১০ অক্টোবর ১২ লাখ ৫৫ হাজার ৩৫০ টাকার মালামাল কেনা হয়।  সূএ : বাংলাদেশ প্রতিদিন

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» নারী পুলিশ অত্যন্ত দক্ষতার সাথে দেশে-বিদেশে দায়িত্ব পালন করছে : শিক্ষামন্ত্রী

» শেখ মনির জন্মদিন উপলক্ষে যুবলীগের তিন দিনের কর্মসূচি

» সরকারকে কঠোর হতে বাধ্য করবেন না: বিএনপিকে তথ্য ও  সম্প্রচার মন্ত্রীর

» অস্ত্র-গুলিসহ ৩০ মামলার আসামি গ্রেফতার

» ১৬ সোনারবারসহ এক চোরাকারবারী আটক

» গাইবান্ধা-৫ আসনে উপ-নির্বাচনের তারিখ আগামী সপ্তাহে: সিইসি

» ৫০ কোটি মানুষকে ডিজিটাল আর্থিক সেবার আওতায় আনতে কাজ করবে হুয়াওয়ে

» বায়োলজিক ওষুধের ব্যবহার বাড়াতে সব পর্যায়ে সচেতনতা প্রয়োজন

» বীরগঞ্জে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মাঝে ভেড়া বিতরণ

» জুমার নামাজের গুরুত্ব ও ফজিলত

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

মালামাল না কিনেই টাকা লোপাট

ঠিকাদারি কাজে মালামাল গ্রহণ না করে চালানে স্বাক্ষর, মোট বিলের শতকরা ৩৫ ভাগ কমিশন গ্রহণ, চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীকে দিয়ে চাহিদাপত্র তৈরি করে ২ কোটি টাকার বেশি লোপাটসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে পশ্চিমাঞ্চল রেলের হাসপাতালের বিরুদ্ধে। এ দুর্নীতি দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে। ওষুধ চুরি করে হাতেনাতে ধরা পড়ার পরও কর্মচারীরা আছেন বহাল তবিয়তে। ওষুধ কেনার সময় নির্দিষ্ট ওষুধ কোম্পানি থেকে নেওয়া হচ্ছে মোটা অঙ্কের কমিশন। হাসপাতালের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনাতেও হচ্ছে নয়-ছয়। অনুসন্ধানে জানা যায়, পশ্চিমাঞ্চলের চিফ মেডিকেল অফিসার (সিএমও) ডা. সুজিৎ কুমার রায় এ বছর অবসরে যাচ্ছেন। এরই মধ্যে ফাঁস হয়ে যায় তার কয়েক কোটি টাকা লোপাটের ঘটনা। ডা. সুজিৎ কুমার রায় পাকশী ডিভিশনের ডিএমও থেকে পদোন্নতি পেয়ে ১৩ ডিসেম্বর ২০২০ সালে সিএমও (পশ্চিম) হিসেবে যোগদান করেন। সিএমও হিসেবে যোগদানের পর তিনি স্যানিটারি ইন্সপেক্টরের শূন্যপদে অতিরিক্ত দায়িত্ব দেন চতুর্থ শ্রেণির জমাদার, ড্রেসার, খালাসিদের। এ সময় লালমনিরহাট, পাকশী ও রাজশাহীর শুধু স্যানিটারি বিভাগ থেকেই এ চক্র হাতিয়ে নিয়েছে ৬ কোটি টাকা। জানা যায়, পাকশী ডিভিশনে পাঁচটি স্যানিটারি ইন্সপেক্টর পদ আছে। পাঁচ পদের মধ্যে একজন স্যানিটারি ইন্সপেক্টর আছেন। এ ছাড়া অন্য চারটিতে অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে দেওয়া আছে চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের। এরা হলেন রাজশাহীতে জুয়েল সরকার, ঈশ্বরদীতে আকরাম, খুলনায় অয়ন সরকার ও পাকশীতে জগবন্ধু বিশ্বাস- যারা সবাই স্যানিটারি ইন্সপেক্টর পদে অতিরিক্ত দায়িত্ব নিয়ে কর্মরত। এরা ডা. সুজিতের আস্থাভাজন।  ডা. সুজিত যখন পাকশীর ডিএমও ছিলেন, তখন থেকেই বর্তমানে পাকশীর স্যানিটারি ইন্সপেক্টর জগবন্ধু বিশ্বাস তার আস্থাভাজন। সেই সুবাদে গত দুই বছরে ২ কোটি টাকার ওপরে মালামালের চাহিদা নেওয়া হয়েছে তার কাছ থেকে। যদিও চাহিদাপত্রে একজন চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী স্বাক্ষর করার এখতিয়ার রাখেন না। তবুও জগবন্ধু তাতে স্বাক্ষর করেছেন। মালামাল কেনা না হলেও শুধু হাতবদল হয়েছে টাকার। স্টোরে খাতা-কলম ঠিক থাকলেও মালামাল নেই স্টোরগুলোতে। পাকশী ডিভিশনে স্যানিটারি ইন্সপেক্টর পদে দায়িত্ব পালন করা অন্য কেউই এমন মালামাল না কিনলেও শুধু পাকশীর দায়িত্বে থাকা জগবন্ধু বিশ্বাস মালামাল কিনেছেন ২ কোটি টাকার। লালমনিরহাট ডিভিশনে স্যানিটারি ইন্সপেক্টর সারাফাত। তিনি একাই গত কয়েক বছরে ৩০-৩৫ কোটি টাকার মালামাল কিনেছেন। সেখানেও সিএমও সুজিৎ কুমার রায় ৩৫ ভাগ কমিশন নিয়েছেন। এ ছাড়া সিএমও রাজশাহী দফতরে তার নিজস্ব ক্ষমতাবলে করেছেন কয়েক কোটি টাকার কাজ। ৫ লাখ টাকার চাহিদাপত্রের বিপরীতে ৫০ হাজার টাকা কমিশন ও মালামাল গ্রহণ না করেই ৩৫ ভাগ কমিশন নিয়েছেন তিনি। চলতি বছর ৪ এপ্রিল জগবন্ধুর চাহিদাপত্রের বিপরীতে পাকশী ডিভিশনের ডিএমও ডা. শাকিল আহমেদ চারটি চাহিদাপত্র প্রদান করেন। সেই চার চাহিদাপত্রে অ্যারোসল ¯ন্ডেপ্র, হুইল ব্যারো, ¯ন্ডেপ্র মেশিন, হ্যান্ডওয়াশ, হারপিক লিকুইড, ভিম লিকুইড, ফুলের ঝাডু, ডি অয়েল, ল্যাটিন বাকেট, গ্লাস ক্লিনার, বাঁশের টুকরি ইত্যাদি বাবদ ব্যয় ধরা হয় ৪৫ লাখ টাকা, যা শুধু কাগজ-কলমেই সীমাবদ্ধ। ৩ জানুয়ারি দুটি চাহিদাপত্রে ৩৩ লাখ ২৯ হাজার ৫০০ টাকার মালামাল ক্রয় দেখানো হয়, যেখানে হ্যান্ডওয়াশ, রাবার পাইপ, ড্যামফিক্স, ল্যাট্রিন ব্রাশ, সাবান, লাইজল ফ্লোর ক্লিনার, ফ্লোর সোয়াইব, তোয়ালে, বেডশিট, আসবাবপত্র কেনার কথা বলা হয়েছে। কেনা দামেও আছে বাজারদরের পার্থক্য।

এ ছাড়া ৯ জুন ১৬ লাখ ৭৫ হাজার ৯২০ টাকা, ১৭ জুলাই ৩ লাখ ৮৯ হাজার টাকা, ২০২১ সালের ১৯ ডিসেম্বর ২৫ লাখ টাকা, ১১ আগস্ট ১০ লাখ ২৮ হাজার ৩০০ টাকা, ১০ অক্টোবর ১২ লাখ ৫৫ হাজার ৩৫০ টাকার মালামাল কেনা হয়।  সূএ : বাংলাদেশ প্রতিদিন

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com