মালদ্বীপে ভারত-নেপালের শ্রমবাজার উন্মুক্ত, বন্ধ বাংলাদেশের

ভারত মহাসাগরের দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশ মালদ্বীপ। দেশটির আয়তন মাত্র তিনশ’ বর্গকিলোমিটার। জনসংখ্য পাঁচ লাখ। আয়তনে ছোট হলেও শ্রমবাজারের অপার সম্ভাবনা রয়েছে। বৈধ-অবৈধ মিলিয়ে দেশটিতে বাংলাদেশি শ্রমিক রয়েছেন লাখের বেশি। অবকাঠামো নির্মাণ ও পর্যটন খাতেই অধিকাংশ বাংলাদেশি শ্রমিক কাজ করেন।

 

তবে অনেকেরই নেই বৈধ কাগজপত্র। ফলে তারা পাচ্ছেন না উপযুক্ত শ্রমের মূল্য। কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হলে বাড়বে প্রবাসী আয়। কিন্তু কোনো এক অজানা কারণে ২০১৯ সাল থেকে দেশটির শ্রমবাজারটি বন্ধ হয়ে যায়। ভিসা বন্ধ থাকায় এই শ্রমবাজার হাতছাড়া হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের। এই সুযোগে ভারতীয়দের দখলে চলে যাচ্ছে এই শ্রমবাজার। মালদ্বীপ প্রবাসী বাংলাদেশিরা জানিয়েছেন এমন তথ্য।

মালদ্বীপের দূতাবাস সূত্র বলছে, মালদ্বীপে প্রায় এক লাখ বাংলাদেশি রয়েছেন। এর মধ্যে ৫০ শতাংশই অবৈধ। যারা অবৈধ (অনিয়মিত) তাদের নিয়মিত করতে ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর থেকে সুযোগ দেওয়া হয়। ওই সময় তখন ৪০ হাজার অনিয়মিত বাংলাদেশি রেজিস্ট্রেশন করেন। ওই সময় রেজিস্ট্রেশন করলে আটক করে দেশে পাঠিয়ে দিতে পারে এমন আশঙ্কায় ২০ হাজার কর্মী রেজিস্ট্রেশনই করেননি।

 

এতে বৈধ হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন প্রায় ৪০ হাজার বাংলাদেশি শ্রমিক। যদিও ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক আনা সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেয় দেশটি। এরপর করোনায় দেশটির অবকাঠামো নির্মাণকাজ প্রায় বন্ধই ছিল। এখন আবার সব কিছু স্বাভাবিক হয়েছে, কিন্তু সম্ভাবনাময় মালদ্বীপের শ্রমবাজারে বন্ধ আছে অদক্ষ বাংলাদেশি শ্রমিক নেওয়া।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন বাংলাদেশি জানান, ভারতের ষড়যন্ত্রে ২০১৯ সালে মালদ্বীপ সরকার এক বছর বাংলাদেশ থেকে কোনো কর্মী না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এক বছর পার হয়ে গেলেও ওই সিদ্ধান্ত স্বাভাবিকভাবেই বাতিল হয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু ভারত কোনোভাবেই চাইছে না নতুন করে বাংলাদেশ থেকে কাউকে এখানে ওয়ার্ক পারমিট দেওয়া হোক।

 

তারা জানান, তাই এখনো মালদ্বীপে বাংলাদেশের শ্রম বাজার আটকে আছে। কিন্তু প্রতিনিয়ত, ভারত, নেপাল, শ্রীলঙ্কা থেকে শ্রমিক নেয় মালদ্বীপে। যা বাংলাদেশের জন্য খুবই দুঃখজনক। মালদ্বীপের শ্রম বাজারের অন্যতম আস্থার নাম ছিল বাংলাদেশ। সেই দেশে এখন বাংলাদেশি শ্রমিক যাওয়া বন্ধ আছে।

মালদ্বীপের রাজধানীতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেওয়া নাম কামলা বাজারে গিয়ে দেখা যায়, সেই কামলা বাজারে শুধুমাত্র বাংলাদেশি প্রবাসী শ্রমিক। শ্রমিকদের কাছে জানতে চাওয়া হয় মালদ্বীপ সরকার আপনাদের বৈধ হওয়ার জন্য সময় দিয়েছে বৈধ হচ্ছেন না কেন? কারণ হিসেবে অনিয়মিত অনেক প্রবাসী বলেন, এখানে বৈধ হতে গেলে অনেক টাকার প্রয়োজন যা বাংলাদেশের টাকায় দুই থেকে তিন লাখ টাকা খরচ হয়। এত টাকা দিয়ে অনেকের পক্ষে সম্ভব নয়। তাই তারা নিয়মিত হচ্ছে না।

 

জানা গেছে, কিছু প্রবাসী বাংলাদেশি ইচ্ছাকৃত নিয়মিত হচ্ছে না। কারণ হিসেবে তারা মালিকের, কিংবা কোম্পানির নামে অল্প বেতনে কাজ করেন। আর কামলা বাজার থেকে কাজে গেলে বেশি টাকা উপার্জন করা যায়। দেশটিতে আয়ের খাতও সীমিত। শুধু পর্যটন খাতকেই অর্থনীতির প্রধান উৎস হিসেবে ধরে এগিয়েছে অনেকটা পথ। এই খাতকে আধুনিকায়নের ফলে খুব অল্প সময়েই দেশটির অর্থনৈতিক মেরুদণ্ড হয়েছে শক্তিশালী। বর্তমানে মাথাপিছু আয় দাঁড়িয়েছে প্রায় ১৭ হাজার ডলারে।

মালদ্বীপে বাংলাদেশি শ্রমবাজারে প্রতিবন্ধকতা ভারত

মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ২০১৮ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর অপ্রত্যাশিত জয় পায় ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ। তিনি দায়িত্ব নিয়েই ভারত প্রীতিতে জড়ান। আর ভারতও দীর্ঘদিন বাংলাদেশের দখলে থাকা মালদ্বীপের শ্রম বাজারকে নিজেদের করে নেওয়ার কূটচাল শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশি শ্রমিকদের প্রতি বৈরি আচরণ শুরু করে মালদ্বীপ সরকার। যদিও ইব্রাহিম সলিহ ভারতীয় সেনাদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত বলেই ভারত সরাসরি মালদ্বীপে হস্তক্ষেপ করতে পারছে বলে মনে করেন প্রবাসী শ্রমিকরা।

 

আর ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ দায়িত্ব নেওয়ার দিন থেকেই শুরু হয় ওই দেশে থাকা বাংলাদেশি শ্রমিকদের নতুন যুদ্ধ। মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিনের সময় মালদ্বীপের শ্রম বাজারের অন্যতম আস্থার নাম ছিল বাংলাদেশ। বাংলাদেশি শ্রমিকদের দুরাবস্থা বাড়ে ২০১৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি যখন অর্থ পাচারের অভিযোগে মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিনকে গ্রেফতার করা হয়।

 

তবে আবারও সুদিন ফিরবে বলে আশায় আছেন বাংলাদেশি শ্রমিকরা। কারণ মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিনের সাজা সে দেশের সুপ্রিমকোর্ট গত ৩০ নভেম্বর বাতিল করে তাকে মুক্তি দেয়। আবদুল্লাহ ইয়ামিন মুক্তির পর গত ৬ ডিসেম্বর প্রত্যাবর্তনকে কেন্দ্র করে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম রাজনৈতিক সমাবেশে মালদ্বীপে ভারতীয় সেনাদের অপসারণের আহ্বান জানান।

 

মালদ্বীপের বাংলাদেশ হাইকমিশন বলছে, ২০২০ সালে বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারি ছড়িয়ে পড়ার আগে মালদ্বীপে অবস্থানরত বাংলাদেশি অনিয়মিত (অবৈধ) শ্রমিকদের নিয়মিত করার উদ্যোগ নেয় দেশটির সরকার। এরপর করোনা শুরু হয়ে গেলে মালদ্বীপের অর্থনীতির ওপর মারাত্মক প্রভাব পড়ে। এ সময় কর্মহীন হয়ে পড়েন প্রচুর বাংলাদেশি। তখন অনেক বাংলাদেশিকে টিকিট দিয়ে দেশে ফেরত পাঠানো হয়। তাদের ফিরে আসা আর হয়নি।

 

করোনা শেষের দিকে। এজন্য মালদ্বীপে সবপ্রতিষ্ঠান চালু হয়েছে। নির্মাণকাজও শুরু হয়েছে। এই সবকাজে বাংলাদেশি শ্রমিকদের ব্যাপক চাহিদা ও সুনাম রয়েছে। তারা অন্য দেশের শ্রমিকদের মতো নয়। মালিক যখনই তাদের কাজের জন্য বলে তারা কাজে সম্মতি দেয়। প্রচুর পরিশ্রমীও তারা। আসলে মালদ্বীপ সরকার এখন চাচ্ছে দক্ষ জনশক্তি আমদানি করতে। বাংলাদেশি শ্রমিকরা এই সারিতে পড়ে না। তাই তাদের আসা বন্ধ রয়েছে। দ্রুতই এই সমস্যা কাটানো যাবে। সূএ:জাগোনিউজ২৪.কম

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» সরকার সুষম ও টেকসই উন্নয়নে বিশ্বাস করে: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

» আগামীকাল বঙ্গবাজার মার্কেটসহ ৪ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

» দেশের বাজারে বিশ্বের নাম্বার ওয়ান স্মার্টফোন অনার ম্যাজিক ৬ প্রো

» হাতে লেখা বিশ্বের সর্ববৃহৎ আল-কুরআনের মোড়ক উন্মোচন করেন ধর্মমন্ত্রী

» এমপি আনার হত্যা: তিন আসামি ৮ দিনের রিমান্ডে

» নেতানিয়াহুর গ্রেপ্তারি পরোয়ানায় পূর্ণ সমর্থন রয়েছে বাংলাদেশের: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

» রাজনীতি শুরু করেছি, করব: এমপি আজিমের মেয়ে

» এমপি আনার হত্যা : তিন আসামির ১০ দিনের রিমান্ড চেয়েছে ডিবি

» ঈদে ট্রেনযাত্রা : অগ্রিম আসন বিক্রি হতে পারে ২ জুন থেকে

» হিলি স্থলবন্দর দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি শুরু

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

মালদ্বীপে ভারত-নেপালের শ্রমবাজার উন্মুক্ত, বন্ধ বাংলাদেশের

ভারত মহাসাগরের দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশ মালদ্বীপ। দেশটির আয়তন মাত্র তিনশ’ বর্গকিলোমিটার। জনসংখ্য পাঁচ লাখ। আয়তনে ছোট হলেও শ্রমবাজারের অপার সম্ভাবনা রয়েছে। বৈধ-অবৈধ মিলিয়ে দেশটিতে বাংলাদেশি শ্রমিক রয়েছেন লাখের বেশি। অবকাঠামো নির্মাণ ও পর্যটন খাতেই অধিকাংশ বাংলাদেশি শ্রমিক কাজ করেন।

 

তবে অনেকেরই নেই বৈধ কাগজপত্র। ফলে তারা পাচ্ছেন না উপযুক্ত শ্রমের মূল্য। কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হলে বাড়বে প্রবাসী আয়। কিন্তু কোনো এক অজানা কারণে ২০১৯ সাল থেকে দেশটির শ্রমবাজারটি বন্ধ হয়ে যায়। ভিসা বন্ধ থাকায় এই শ্রমবাজার হাতছাড়া হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের। এই সুযোগে ভারতীয়দের দখলে চলে যাচ্ছে এই শ্রমবাজার। মালদ্বীপ প্রবাসী বাংলাদেশিরা জানিয়েছেন এমন তথ্য।

মালদ্বীপের দূতাবাস সূত্র বলছে, মালদ্বীপে প্রায় এক লাখ বাংলাদেশি রয়েছেন। এর মধ্যে ৫০ শতাংশই অবৈধ। যারা অবৈধ (অনিয়মিত) তাদের নিয়মিত করতে ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর থেকে সুযোগ দেওয়া হয়। ওই সময় তখন ৪০ হাজার অনিয়মিত বাংলাদেশি রেজিস্ট্রেশন করেন। ওই সময় রেজিস্ট্রেশন করলে আটক করে দেশে পাঠিয়ে দিতে পারে এমন আশঙ্কায় ২০ হাজার কর্মী রেজিস্ট্রেশনই করেননি।

 

এতে বৈধ হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন প্রায় ৪০ হাজার বাংলাদেশি শ্রমিক। যদিও ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক আনা সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেয় দেশটি। এরপর করোনায় দেশটির অবকাঠামো নির্মাণকাজ প্রায় বন্ধই ছিল। এখন আবার সব কিছু স্বাভাবিক হয়েছে, কিন্তু সম্ভাবনাময় মালদ্বীপের শ্রমবাজারে বন্ধ আছে অদক্ষ বাংলাদেশি শ্রমিক নেওয়া।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন বাংলাদেশি জানান, ভারতের ষড়যন্ত্রে ২০১৯ সালে মালদ্বীপ সরকার এক বছর বাংলাদেশ থেকে কোনো কর্মী না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এক বছর পার হয়ে গেলেও ওই সিদ্ধান্ত স্বাভাবিকভাবেই বাতিল হয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু ভারত কোনোভাবেই চাইছে না নতুন করে বাংলাদেশ থেকে কাউকে এখানে ওয়ার্ক পারমিট দেওয়া হোক।

 

তারা জানান, তাই এখনো মালদ্বীপে বাংলাদেশের শ্রম বাজার আটকে আছে। কিন্তু প্রতিনিয়ত, ভারত, নেপাল, শ্রীলঙ্কা থেকে শ্রমিক নেয় মালদ্বীপে। যা বাংলাদেশের জন্য খুবই দুঃখজনক। মালদ্বীপের শ্রম বাজারের অন্যতম আস্থার নাম ছিল বাংলাদেশ। সেই দেশে এখন বাংলাদেশি শ্রমিক যাওয়া বন্ধ আছে।

মালদ্বীপের রাজধানীতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেওয়া নাম কামলা বাজারে গিয়ে দেখা যায়, সেই কামলা বাজারে শুধুমাত্র বাংলাদেশি প্রবাসী শ্রমিক। শ্রমিকদের কাছে জানতে চাওয়া হয় মালদ্বীপ সরকার আপনাদের বৈধ হওয়ার জন্য সময় দিয়েছে বৈধ হচ্ছেন না কেন? কারণ হিসেবে অনিয়মিত অনেক প্রবাসী বলেন, এখানে বৈধ হতে গেলে অনেক টাকার প্রয়োজন যা বাংলাদেশের টাকায় দুই থেকে তিন লাখ টাকা খরচ হয়। এত টাকা দিয়ে অনেকের পক্ষে সম্ভব নয়। তাই তারা নিয়মিত হচ্ছে না।

 

জানা গেছে, কিছু প্রবাসী বাংলাদেশি ইচ্ছাকৃত নিয়মিত হচ্ছে না। কারণ হিসেবে তারা মালিকের, কিংবা কোম্পানির নামে অল্প বেতনে কাজ করেন। আর কামলা বাজার থেকে কাজে গেলে বেশি টাকা উপার্জন করা যায়। দেশটিতে আয়ের খাতও সীমিত। শুধু পর্যটন খাতকেই অর্থনীতির প্রধান উৎস হিসেবে ধরে এগিয়েছে অনেকটা পথ। এই খাতকে আধুনিকায়নের ফলে খুব অল্প সময়েই দেশটির অর্থনৈতিক মেরুদণ্ড হয়েছে শক্তিশালী। বর্তমানে মাথাপিছু আয় দাঁড়িয়েছে প্রায় ১৭ হাজার ডলারে।

মালদ্বীপে বাংলাদেশি শ্রমবাজারে প্রতিবন্ধকতা ভারত

মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ২০১৮ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর অপ্রত্যাশিত জয় পায় ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ। তিনি দায়িত্ব নিয়েই ভারত প্রীতিতে জড়ান। আর ভারতও দীর্ঘদিন বাংলাদেশের দখলে থাকা মালদ্বীপের শ্রম বাজারকে নিজেদের করে নেওয়ার কূটচাল শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশি শ্রমিকদের প্রতি বৈরি আচরণ শুরু করে মালদ্বীপ সরকার। যদিও ইব্রাহিম সলিহ ভারতীয় সেনাদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত বলেই ভারত সরাসরি মালদ্বীপে হস্তক্ষেপ করতে পারছে বলে মনে করেন প্রবাসী শ্রমিকরা।

 

আর ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ দায়িত্ব নেওয়ার দিন থেকেই শুরু হয় ওই দেশে থাকা বাংলাদেশি শ্রমিকদের নতুন যুদ্ধ। মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিনের সময় মালদ্বীপের শ্রম বাজারের অন্যতম আস্থার নাম ছিল বাংলাদেশ। বাংলাদেশি শ্রমিকদের দুরাবস্থা বাড়ে ২০১৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি যখন অর্থ পাচারের অভিযোগে মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিনকে গ্রেফতার করা হয়।

 

তবে আবারও সুদিন ফিরবে বলে আশায় আছেন বাংলাদেশি শ্রমিকরা। কারণ মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিনের সাজা সে দেশের সুপ্রিমকোর্ট গত ৩০ নভেম্বর বাতিল করে তাকে মুক্তি দেয়। আবদুল্লাহ ইয়ামিন মুক্তির পর গত ৬ ডিসেম্বর প্রত্যাবর্তনকে কেন্দ্র করে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম রাজনৈতিক সমাবেশে মালদ্বীপে ভারতীয় সেনাদের অপসারণের আহ্বান জানান।

 

মালদ্বীপের বাংলাদেশ হাইকমিশন বলছে, ২০২০ সালে বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারি ছড়িয়ে পড়ার আগে মালদ্বীপে অবস্থানরত বাংলাদেশি অনিয়মিত (অবৈধ) শ্রমিকদের নিয়মিত করার উদ্যোগ নেয় দেশটির সরকার। এরপর করোনা শুরু হয়ে গেলে মালদ্বীপের অর্থনীতির ওপর মারাত্মক প্রভাব পড়ে। এ সময় কর্মহীন হয়ে পড়েন প্রচুর বাংলাদেশি। তখন অনেক বাংলাদেশিকে টিকিট দিয়ে দেশে ফেরত পাঠানো হয়। তাদের ফিরে আসা আর হয়নি।

 

করোনা শেষের দিকে। এজন্য মালদ্বীপে সবপ্রতিষ্ঠান চালু হয়েছে। নির্মাণকাজও শুরু হয়েছে। এই সবকাজে বাংলাদেশি শ্রমিকদের ব্যাপক চাহিদা ও সুনাম রয়েছে। তারা অন্য দেশের শ্রমিকদের মতো নয়। মালিক যখনই তাদের কাজের জন্য বলে তারা কাজে সম্মতি দেয়। প্রচুর পরিশ্রমীও তারা। আসলে মালদ্বীপ সরকার এখন চাচ্ছে দক্ষ জনশক্তি আমদানি করতে। বাংলাদেশি শ্রমিকরা এই সারিতে পড়ে না। তাই তাদের আসা বন্ধ রয়েছে। দ্রুতই এই সমস্যা কাটানো যাবে। সূএ:জাগোনিউজ২৪.কম

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com