নিউইয়র্কে পুলিশের হাতে বাংলাদেশি হত্যায় ফুসছে কমিউনিটি

ফাইল ছবি

 

৩২ ঘণ্টা পরও উইন রোজারিয়োকে (১৯) গুলি করে হত্যার ফুটেজ প্রকাশ না করায় ক্ষোভ ক্রমেই বাড়ছে প্রবাসীদের মধ্যে। ২৭ মার্চ দুপুর পৌণে দু’টার দিকে নিউইয়র্ক সিটির ওজোনপার্ক এলাকায় নিজ বাসায় মা এবং ছোট ভাইয়ের সামনেই নিউইয়র্কের পুলিশ কয়েক রাউন্ড গুলিতে হত্যা করে উইনকে। মানসিক ভারসাম্যহীন উইন নাকি রান্না ঘরের কাঁচি নিয়ে পুলিশকে আক্রমণের চেষ্টা করেছিলেন-এমন অজুহাতে তাকে হত্যা করা হয়-এ দাবি পুলিশের। কিন্তু উইনের মা এবং ছোট ভাই তা মানতে নারাজ।

 

এ হত্যাকাণ্ড নিয়ে পুলিশ এবং সিটি প্রশাসনের রহস্যজনক নিরবতার নিন্দা উঠেছে কমিউনিটিতে। নিউইয়র্ক অঞ্চলের সবচেয়ে বৃহৎ সংগঠন ‘বাংলাদেশ সোসাইটি’র পক্ষ থেকে পুলিশী আচরণের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অন্য সকল সংগঠন নিয়ে শিগগিরই বড় ধরনের একটি বিক্ষোভের হুমকি দেয়া হয়েছে। ২৮ মার্চ উইনের বাসায় গিয়ে তার মা-বাবাকে শান্তনার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন নিউইয়র্কের কন্সাল জেনারেল নাজমুল হুদা। কম্যুনিটির বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার ক্ষুব্ধ মানুষেরাও উইনের বাবা ফ্রান্সিস রোজারিয়োর সাথে সাক্ষাৎ এবং টেলিফোনে সমবেদনার পাশাপাশি এমন হত্যাকাণ্ডে জড়িত পুলিশ অফিসারের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জন্য করণীয় সবকিছু করার আশ্বাস দিচ্ছেন।

 

উইনের লাশ স্থানীয় সময় শুক্রবার সকাল পর্যন্ত হাসপাতালের মর্গেই রয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে তা মা-বাবার কাছে হস্তান্তর করার কথা এদিনই।

 

ফ্রান্সিস রোজারিয়ো দম্পতি যে চার্চে নিয়মিত যাতায়াত করেন সেখানকার কর্মকর্তা ডা. টমাস দুলু রায় জানান, যথাযথ তদন্তে এ হত্যাকাণ্ডের মোটিভ উদঘাটন ও দোষী ব্যক্তিদের শাস্তির দাবিতে আমরা সোচ্চার।

গাজিপুরের সন্তান ফ্রান্সিস রোজারিয়ো সপরিবারে ২০১৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রে এসেছেন। ফ্রান্সিস ও ইভা উভয়েই কাজ করেন জেএফকে এয়ারপোর্টে। পুলিশ ডাকাডাকি ও উইনকে গুলি করে হত্যার সময় ফ্রান্সিস ছিলেন কাজে।  সূএ: বাংলাদেশ  প্রতিদিন

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» পাসওয়ার্ড তৈরির গোপন কৌশল জানুন

» উপজেলা পরিষদ নির্বাচন, মনোনয়ন জমার শেষ দিন সোমবার

» বিয়েবাড়ির মতো খাসির মাংস ভুনা করবেন যেভাবে

» বাংলাদেশ এখন দুর্নীতি চাষের উর্বর ভূমি: রিজভী

» ইলিশের দামে নববর্ষের হাওয়া

» ধর্ষণ মামলায় প্রধান পলাতক আসামি গ্রেফতার

» বাংলা নববর্ষ উদযাপন : হামলা-নাশকতা ঠেকাতে প্রস্তুত র‍্যাব

» হঠাৎ কেন মেজাজ হারালেন শ্বেতা?

» মুস্তাফিজের চেন্নাইকে টপকে অনন্য রেকর্ড মুম্বাইয়ের

» ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দেওয়ার পথে ইউরোপের তিন দেশ

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

নিউইয়র্কে পুলিশের হাতে বাংলাদেশি হত্যায় ফুসছে কমিউনিটি

ফাইল ছবি

 

৩২ ঘণ্টা পরও উইন রোজারিয়োকে (১৯) গুলি করে হত্যার ফুটেজ প্রকাশ না করায় ক্ষোভ ক্রমেই বাড়ছে প্রবাসীদের মধ্যে। ২৭ মার্চ দুপুর পৌণে দু’টার দিকে নিউইয়র্ক সিটির ওজোনপার্ক এলাকায় নিজ বাসায় মা এবং ছোট ভাইয়ের সামনেই নিউইয়র্কের পুলিশ কয়েক রাউন্ড গুলিতে হত্যা করে উইনকে। মানসিক ভারসাম্যহীন উইন নাকি রান্না ঘরের কাঁচি নিয়ে পুলিশকে আক্রমণের চেষ্টা করেছিলেন-এমন অজুহাতে তাকে হত্যা করা হয়-এ দাবি পুলিশের। কিন্তু উইনের মা এবং ছোট ভাই তা মানতে নারাজ।

 

এ হত্যাকাণ্ড নিয়ে পুলিশ এবং সিটি প্রশাসনের রহস্যজনক নিরবতার নিন্দা উঠেছে কমিউনিটিতে। নিউইয়র্ক অঞ্চলের সবচেয়ে বৃহৎ সংগঠন ‘বাংলাদেশ সোসাইটি’র পক্ষ থেকে পুলিশী আচরণের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অন্য সকল সংগঠন নিয়ে শিগগিরই বড় ধরনের একটি বিক্ষোভের হুমকি দেয়া হয়েছে। ২৮ মার্চ উইনের বাসায় গিয়ে তার মা-বাবাকে শান্তনার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন নিউইয়র্কের কন্সাল জেনারেল নাজমুল হুদা। কম্যুনিটির বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার ক্ষুব্ধ মানুষেরাও উইনের বাবা ফ্রান্সিস রোজারিয়োর সাথে সাক্ষাৎ এবং টেলিফোনে সমবেদনার পাশাপাশি এমন হত্যাকাণ্ডে জড়িত পুলিশ অফিসারের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জন্য করণীয় সবকিছু করার আশ্বাস দিচ্ছেন।

 

উইনের লাশ স্থানীয় সময় শুক্রবার সকাল পর্যন্ত হাসপাতালের মর্গেই রয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে তা মা-বাবার কাছে হস্তান্তর করার কথা এদিনই।

 

ফ্রান্সিস রোজারিয়ো দম্পতি যে চার্চে নিয়মিত যাতায়াত করেন সেখানকার কর্মকর্তা ডা. টমাস দুলু রায় জানান, যথাযথ তদন্তে এ হত্যাকাণ্ডের মোটিভ উদঘাটন ও দোষী ব্যক্তিদের শাস্তির দাবিতে আমরা সোচ্চার।

গাজিপুরের সন্তান ফ্রান্সিস রোজারিয়ো সপরিবারে ২০১৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রে এসেছেন। ফ্রান্সিস ও ইভা উভয়েই কাজ করেন জেএফকে এয়ারপোর্টে। পুলিশ ডাকাডাকি ও উইনকে গুলি করে হত্যার সময় ফ্রান্সিস ছিলেন কাজে।  সূএ: বাংলাদেশ  প্রতিদিন

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com