দল সামলাচ্ছেন পাকিস্তানের অধিনায়ক, সঙ্গে বাচ্চাও

অভূতপূর্ব দৃশ্যের অবতারণা হলো মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে স্টেডিয়ামের বাইরে। বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে পাকিস্তানের ম্যাচ। দলটির অধিনায়ক বিসমাহ মারুফ টিম বাস থেকে নামতেই দেখা গেল, তার কোলে লাল পোশাকে ফুটফুটে এক শিশু। সন্তান নিয়েই মাঠে এসেছেন পাকিস্তানের অধিনায়ক। তার সতীর্থ ঠেলছেন বেবি ট্রলি।

 

পাকিস্তান জাতীয় দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার পাশাপাশি স্ত্রী ও মায়ের দায়িত্বও ভালোভাবে সামাল দিচ্ছেন বিসমাহ। মহামারি ও বায়ো-বাবলের কারণে সন্তান নিয়ে মাঠে আসার বিষয়টি বিতর্কিত হতে পারে, কিন্তু প্যারেন্টাল পলিসি অনুযায়ী আইসিসি এই সুবিধা দিয়েছে।

 

বিসমাহ বলেছেন, ‘একটি বাচ্চার মাকে প্রয়োজন। আমি যদি আমার ক্যারিয়ার চালিয়ে যেতে চাই, প্রশ্ন উঠতে পারে আমার বাচ্চা কোথায় যাবে? এবং যদি আমি মাঠে থাকি তাহলে কে বাচ্চার দেখভাল করবে? একজন ন্যানিকে ভাড়া করা এবং তাকে নিয়ে সব জায়গায় ঘোরাঘুরি করা ব্যয়বহুল। একজন নারী ক্রিকেটার হিসেবে আমাদের ওত বিলাসিতা করার সুযোগ নেই। আমাদের চুক্তি আমাদের বাঁচিয়ে রাখে এবং তা দিয়ে জীবন যাপন করি, কিন্তু প্যারেন্টাল পলিসি ছাড়া, সন্তান নিয়ে খেলে যাওয়া খুব কঠিন।’

 

ছোট্ট বাচ্চা নিয়ে মায়ের দায়িত্ব পালন করতে হয়। পাশাপাশি ফিটনেস, ব্যাটিং ও অধিনায়কত্বও নিয়েও ভাবতে হয়। কীভাবে সামলান বিসমাহ? বললেন, ফাতিমা খুব ভালো বাচ্চা, যে কি না রাতে দুই বা তিনবারের বেশি জাগায় না মাকে।

 

বিসমাহ বললেন, ‘আমি চেষ্টা করি যেন প্র্যাকটিসে যাওয়ার আগে ফাতিমা না জেগে যায়। যদি সে জাগে আমার মা ও ফাতিমা দুজনেই আমাদের সঙ্গে থাকে। কিন্তু বেশিরভাগ সময়, আমি প্র্যাকটিস থেকে ফিরে তার সঙ্গে দেখা করি। যতক্ষণ আমাকে না দেখে, ততক্ষণ স্বাভাবিক আচরণই করে। কিন্তু আমি যখন সামনে আসি তখন আমাকে ছাড়তে চায় না। সবসময় সে সঙ্গে থাকতে চায়। শুকরিয়া যে সে খুব ভালো মেয়ে। ১০-১১টার মধ্যে সে ঘুমিয়ে যায়। সে ওত সমস্যা তৈরি করে না যতটা আমি অন্য বাচ্চাদের ব্যাপারে শুনি।’

 

পাকিস্তানের এই ব্যাটসম্যান চলতি বিশ্বকাপে খেলতে আসা আট মায়ের একজন। তবে প্রথম পাকিস্তানি হিসেবে মাতৃত্বের পর জাতীয় দলের দায়িত্ব পালন করতে যাচ্ছেন।

 

যে দেশে বেশিরভাগ নারী ক্রিকেটারের বিয়ের পরই ক্যারিয়ার শেষ হয়ে যায়, সেখানে বিসমাহর গল্প অন্যরকম। তারও একই শঙ্কা জেগেছিল। কিন্তু সৌভাগ্যবশত পরিবারের সমর্থনে এগিয়ে যাচ্ছেন তিনি, ‘আমি আমার পরিবারের সমর্থন পেয়েছিলাম, বিশেষ করে আমার স্বামীর বিশ্বাস আমি অন্য মেয়েদের জন্য অনুপ্রেরণা হতে পারি যারা মা হওয়ার পরও খেলতে চায়।

 

ছয় মাস বয়সী ফাতিমার উপস্থিতি পাকিস্তানের বিশ্বকাপ ক্যাম্পকে মাতিয়ে রেখেছে। দলকে উজ্জীবিত করে রেখেছে সে। অধিনায়কের বিশ্বাস, এটি তাদের জন্য ইতিবাচক দিক, ‘সঙ্গে একজন বাচ্চা আছে, এটা দলের জন্য ভিন্ন এক শক্তি, প্রত্যেকে চিন্তামুক্ত থাকে। যখন আপনি একটি জিনিস নিয়েই ভাবতে থাকেন, তখন সেটি চাপ তৈরি করে। কিন্তু একজন বাচ্চা পাশে থাকলে অহেতুক দুশ্চিন্তা থাকে না। আমার দলেও সেই অবস্থা, তারা আমাকে অনেক সহায়তা করছে কেউ বাচ্চাকে কোলে নিয়ে কিংবা ব্যাগ নিয়ে। এটি আমাদের প্রতিযোগিতায় এগিয়ে যেতে সহায়তা করবে।’

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» সৌদি আরবকে হারিয়ে আর্জেন্টিনার ওপর চাপ বাড়ালো পোল্যান্ড

» চাঁদপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ জন নিহত

» ইতালিতে ভূমিধসে নিখোঁজ ১৩

» সরকারকে ঘাড় ধরে নামাতে দেশের মানুষ ঐক্যবদ্ধ : মির্জা আব্বাস

» কেরাণীগঞ্জে বাস থেকে ৬৩৭ ভরি স্বর্ণসহ ১২ জন আটক

» সবাইকে ডোপ টেস্টের আওতায় আনা দরকার: ডেপুটি স্পিকার

» মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চুমকি, সম্পাদক শিলা

» সমাবেশের নামে আস্ফালন সহ্য করা হবে না: হানিফ

» পাঁচবিবি প্রেসক্লাবের সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত 

» জমাদিউল আউয়াল মাসের গুরুত্ব ও ফজিলত

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

দল সামলাচ্ছেন পাকিস্তানের অধিনায়ক, সঙ্গে বাচ্চাও

অভূতপূর্ব দৃশ্যের অবতারণা হলো মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে স্টেডিয়ামের বাইরে। বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে পাকিস্তানের ম্যাচ। দলটির অধিনায়ক বিসমাহ মারুফ টিম বাস থেকে নামতেই দেখা গেল, তার কোলে লাল পোশাকে ফুটফুটে এক শিশু। সন্তান নিয়েই মাঠে এসেছেন পাকিস্তানের অধিনায়ক। তার সতীর্থ ঠেলছেন বেবি ট্রলি।

 

পাকিস্তান জাতীয় দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার পাশাপাশি স্ত্রী ও মায়ের দায়িত্বও ভালোভাবে সামাল দিচ্ছেন বিসমাহ। মহামারি ও বায়ো-বাবলের কারণে সন্তান নিয়ে মাঠে আসার বিষয়টি বিতর্কিত হতে পারে, কিন্তু প্যারেন্টাল পলিসি অনুযায়ী আইসিসি এই সুবিধা দিয়েছে।

 

বিসমাহ বলেছেন, ‘একটি বাচ্চার মাকে প্রয়োজন। আমি যদি আমার ক্যারিয়ার চালিয়ে যেতে চাই, প্রশ্ন উঠতে পারে আমার বাচ্চা কোথায় যাবে? এবং যদি আমি মাঠে থাকি তাহলে কে বাচ্চার দেখভাল করবে? একজন ন্যানিকে ভাড়া করা এবং তাকে নিয়ে সব জায়গায় ঘোরাঘুরি করা ব্যয়বহুল। একজন নারী ক্রিকেটার হিসেবে আমাদের ওত বিলাসিতা করার সুযোগ নেই। আমাদের চুক্তি আমাদের বাঁচিয়ে রাখে এবং তা দিয়ে জীবন যাপন করি, কিন্তু প্যারেন্টাল পলিসি ছাড়া, সন্তান নিয়ে খেলে যাওয়া খুব কঠিন।’

 

ছোট্ট বাচ্চা নিয়ে মায়ের দায়িত্ব পালন করতে হয়। পাশাপাশি ফিটনেস, ব্যাটিং ও অধিনায়কত্বও নিয়েও ভাবতে হয়। কীভাবে সামলান বিসমাহ? বললেন, ফাতিমা খুব ভালো বাচ্চা, যে কি না রাতে দুই বা তিনবারের বেশি জাগায় না মাকে।

 

বিসমাহ বললেন, ‘আমি চেষ্টা করি যেন প্র্যাকটিসে যাওয়ার আগে ফাতিমা না জেগে যায়। যদি সে জাগে আমার মা ও ফাতিমা দুজনেই আমাদের সঙ্গে থাকে। কিন্তু বেশিরভাগ সময়, আমি প্র্যাকটিস থেকে ফিরে তার সঙ্গে দেখা করি। যতক্ষণ আমাকে না দেখে, ততক্ষণ স্বাভাবিক আচরণই করে। কিন্তু আমি যখন সামনে আসি তখন আমাকে ছাড়তে চায় না। সবসময় সে সঙ্গে থাকতে চায়। শুকরিয়া যে সে খুব ভালো মেয়ে। ১০-১১টার মধ্যে সে ঘুমিয়ে যায়। সে ওত সমস্যা তৈরি করে না যতটা আমি অন্য বাচ্চাদের ব্যাপারে শুনি।’

 

পাকিস্তানের এই ব্যাটসম্যান চলতি বিশ্বকাপে খেলতে আসা আট মায়ের একজন। তবে প্রথম পাকিস্তানি হিসেবে মাতৃত্বের পর জাতীয় দলের দায়িত্ব পালন করতে যাচ্ছেন।

 

যে দেশে বেশিরভাগ নারী ক্রিকেটারের বিয়ের পরই ক্যারিয়ার শেষ হয়ে যায়, সেখানে বিসমাহর গল্প অন্যরকম। তারও একই শঙ্কা জেগেছিল। কিন্তু সৌভাগ্যবশত পরিবারের সমর্থনে এগিয়ে যাচ্ছেন তিনি, ‘আমি আমার পরিবারের সমর্থন পেয়েছিলাম, বিশেষ করে আমার স্বামীর বিশ্বাস আমি অন্য মেয়েদের জন্য অনুপ্রেরণা হতে পারি যারা মা হওয়ার পরও খেলতে চায়।

 

ছয় মাস বয়সী ফাতিমার উপস্থিতি পাকিস্তানের বিশ্বকাপ ক্যাম্পকে মাতিয়ে রেখেছে। দলকে উজ্জীবিত করে রেখেছে সে। অধিনায়কের বিশ্বাস, এটি তাদের জন্য ইতিবাচক দিক, ‘সঙ্গে একজন বাচ্চা আছে, এটা দলের জন্য ভিন্ন এক শক্তি, প্রত্যেকে চিন্তামুক্ত থাকে। যখন আপনি একটি জিনিস নিয়েই ভাবতে থাকেন, তখন সেটি চাপ তৈরি করে। কিন্তু একজন বাচ্চা পাশে থাকলে অহেতুক দুশ্চিন্তা থাকে না। আমার দলেও সেই অবস্থা, তারা আমাকে অনেক সহায়তা করছে কেউ বাচ্চাকে কোলে নিয়ে কিংবা ব্যাগ নিয়ে। এটি আমাদের প্রতিযোগিতায় এগিয়ে যেতে সহায়তা করবে।’

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com