যে দেশে কোনো শিশুর জন্ম হয় না

ছবি সংগৃহীত

 

বিশ্বের একেক প্রান্তে মানুষের আচরণ, বৈশিষ্ট্য, সংস্কৃতি একেবারেই আলাদা। আবার একেক জায়গায়, গ্রাম বা পাড়ার মানুষের মধ্যেও আছে ভিন্নতা। এই পার্থক্যের অন্যতম একটি কারণ তাদের বিশ্বাস। যা যুগ যুগ ধরে চলে আসছে। বিশ্বের এমন এক জায়গা আছে যেখানে কোনো শিশুর জন্ম হয় না।

 

বিশ্বের জনসংখ্যা উদ্বেগজনক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং জাতিসংঘের জনসংখ্যার অনুমান অনুসারে বিশ্বের বর্তমানে জনসংখ্যা ৮ বিলিয়ন বা ৮০০ কোটির বেশি। তবে এর মধ্যে একটি অনন্য ব্যতিক্রম রয়েছে, পৃথিবীতে এমন একটি দেশ রয়েছে, যেখানে কোনো শিশুর জন্ম হয় না। তা হলো ভ্যাটিকান সিটি।

সেই দেশে অভিভাবকত্ব কঠোরভাবে নিষিদ্ধ। বিশ্বের এমন একটি ছোট দেশ, যেখানে সন্তানের জন্ম দেওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। নবজাতকদের যত্ন নেওয়ার জন্য হাসপাতালের অভাব রয়েছে সে দেশে।

 

বিশ্বের সবচেয়ে ছোট দেশ হিসেবে পরিচিত এ দেশে কোনো হাসপাতাল নেই বলে এখানে কোনো প্রাণের জন্ম হয় না। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সন্তান প্রসবের জন্য অন্যত্র পাঠিয়ে দেওয়া হয় নারীদের। তাই এ দেশে জন্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেওয়া হয় না। সবাইকে তা অর্জন করতে হয়। যাঁরা কর্মসূত্রে সেখানে থাকেন, তাদের নাগরিকত্ব দেওয়া হয়।

 

বসবাসের জন্য গড়ে ওঠেনি বলেই খেলার মাঠ বা স্কুলের মতো পরিষেবাও তেমন নেই। যা একটি শিশুর বড় হয়ে ওঠার জন্য অপরিহার্য। সে দেশে জনসংখ্যার অধিকাংশই আসলে ধর্মীয় গুরু বলে বিয়ে করা বা সন্তানের জন্ম দেওয়ার উপর কঠোরতা রয়েছে। কিন্তু অনেক সময়েই নিয়মভঙ্গ হয়েছে, আর তাই কালক্রমে শিশুর জন্মও হয়েছে।

 

এই শিশুদের মধ্যে কিছু যাজক এবং সাধারণ নারীর বিয়ে হওয়ায় শিশুদের জন্ম হয়েছে। কিছু হাই-প্রোফাইল কেস হওয়া সত্ত্বেও, সংখ্যাগরিষ্ঠ জনসাধারণের দৃষ্টির বাইরে থাকে এই সব ঘটনা। ভ্যাটিকান সিটি ভ্যাটিকান প্রাসাদের জন্যও বিখ্যাত, যা পোপের বাসস্থান। ওই দেশে অভিভাবকত্বের উপর নিষেধাজ্ঞা ছাড়াও, মিনি স্কার্ট, শর্টস এবং স্লিভলেস পোশাকের উপর নিষেধাজ্ঞা আছে। পুরুষ এবং নারী উভয়ের জন্য নির্দিষ্ট পোশাক নির্দেশিত আছে।

যারা শহরের মধ্যে কাজ করেন, তাদেরই নাগরিকত্ব দেওয়া হয়। ভ্যাটিকান সিটিতে বসবাসকারী বেশিরভাগ নারীই এক এক পেশার মানুষের স্ত্রী। শিক্ষক, সাংবাদিক বা অন্যান্য কর্মচারীদের বউ হিসেবেই থাকেন। তারা সেখানে পুরো জীবন কাটান না। এই ক্ষুদ্র দেশে প্রায় ৮০০ মানুষের বাসস্থানের বন্দোবস্ত আছে। তার মধ্যে মাত্র ৩০ জন নারী।

ভ্যাটিকান পোপ এবং তার প্রাসাদের নিরাপত্তায় সুইস আর্মি থেকে প্রায় ১৩০ জনকে নিয়ে গঠিত। তাদের বয়স ৩০ বছরেরও কম। ভ্যাটিকান সিটিতে গণপরিবহনেরও অভাব রয়েছে। পণ্য পরিবহনের জন্য শুধু ৩০০ মিটার দীর্ঘ রেলপথ ব্যবহার করা হয়। এই দেশটি ৪৯ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে। এবং এর নাগরিকদের পাসপোর্ট এবং লাইসেন্স-সহ সীমিত সুবিধা রয়েছে। এই অনন্য শহর-রাজ্যে অনেক আধুনিক সুযোগ-সুবিধা রাখা হয়নি।  সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ঈদ নিরাপত্তায় যেসব পরামর্শ দিল পুলিশ

» আজ শনিবার রাজধানীর যেসব এলাকা-মার্কেট বন্ধ

» সোনামসজিদ স্থলবন্দরে ৭ দিন আমদানি-রপ্তানি বন্ধ

» ফাঁকা বাজারে চোখ রাঙাচ্ছে সবজি

» রবিবার যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় ঈদ

» বিশেষ অভিযান চালিয়ে মাদকবিরোধী অভিযানে বিক্রি ও সেবনের অপরাধে ২১জন গ্রেপ্তার

» বিএনপির টপ টু বটম সবাই দুর্নীতিবাজ, তারেক এর বরপুত্র : কাদের

» কালোবাজারিদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে ১০ জন গ্রেফতার

» চামড়া সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে র‌্যাবের কঠোর হুঁশিয়ারি

» সোনালি দিনের চিত্রনায়িকা সুনেত্রা আর নেই

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

যে দেশে কোনো শিশুর জন্ম হয় না

ছবি সংগৃহীত

 

বিশ্বের একেক প্রান্তে মানুষের আচরণ, বৈশিষ্ট্য, সংস্কৃতি একেবারেই আলাদা। আবার একেক জায়গায়, গ্রাম বা পাড়ার মানুষের মধ্যেও আছে ভিন্নতা। এই পার্থক্যের অন্যতম একটি কারণ তাদের বিশ্বাস। যা যুগ যুগ ধরে চলে আসছে। বিশ্বের এমন এক জায়গা আছে যেখানে কোনো শিশুর জন্ম হয় না।

 

বিশ্বের জনসংখ্যা উদ্বেগজনক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং জাতিসংঘের জনসংখ্যার অনুমান অনুসারে বিশ্বের বর্তমানে জনসংখ্যা ৮ বিলিয়ন বা ৮০০ কোটির বেশি। তবে এর মধ্যে একটি অনন্য ব্যতিক্রম রয়েছে, পৃথিবীতে এমন একটি দেশ রয়েছে, যেখানে কোনো শিশুর জন্ম হয় না। তা হলো ভ্যাটিকান সিটি।

সেই দেশে অভিভাবকত্ব কঠোরভাবে নিষিদ্ধ। বিশ্বের এমন একটি ছোট দেশ, যেখানে সন্তানের জন্ম দেওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। নবজাতকদের যত্ন নেওয়ার জন্য হাসপাতালের অভাব রয়েছে সে দেশে।

 

বিশ্বের সবচেয়ে ছোট দেশ হিসেবে পরিচিত এ দেশে কোনো হাসপাতাল নেই বলে এখানে কোনো প্রাণের জন্ম হয় না। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সন্তান প্রসবের জন্য অন্যত্র পাঠিয়ে দেওয়া হয় নারীদের। তাই এ দেশে জন্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেওয়া হয় না। সবাইকে তা অর্জন করতে হয়। যাঁরা কর্মসূত্রে সেখানে থাকেন, তাদের নাগরিকত্ব দেওয়া হয়।

 

বসবাসের জন্য গড়ে ওঠেনি বলেই খেলার মাঠ বা স্কুলের মতো পরিষেবাও তেমন নেই। যা একটি শিশুর বড় হয়ে ওঠার জন্য অপরিহার্য। সে দেশে জনসংখ্যার অধিকাংশই আসলে ধর্মীয় গুরু বলে বিয়ে করা বা সন্তানের জন্ম দেওয়ার উপর কঠোরতা রয়েছে। কিন্তু অনেক সময়েই নিয়মভঙ্গ হয়েছে, আর তাই কালক্রমে শিশুর জন্মও হয়েছে।

 

এই শিশুদের মধ্যে কিছু যাজক এবং সাধারণ নারীর বিয়ে হওয়ায় শিশুদের জন্ম হয়েছে। কিছু হাই-প্রোফাইল কেস হওয়া সত্ত্বেও, সংখ্যাগরিষ্ঠ জনসাধারণের দৃষ্টির বাইরে থাকে এই সব ঘটনা। ভ্যাটিকান সিটি ভ্যাটিকান প্রাসাদের জন্যও বিখ্যাত, যা পোপের বাসস্থান। ওই দেশে অভিভাবকত্বের উপর নিষেধাজ্ঞা ছাড়াও, মিনি স্কার্ট, শর্টস এবং স্লিভলেস পোশাকের উপর নিষেধাজ্ঞা আছে। পুরুষ এবং নারী উভয়ের জন্য নির্দিষ্ট পোশাক নির্দেশিত আছে।

যারা শহরের মধ্যে কাজ করেন, তাদেরই নাগরিকত্ব দেওয়া হয়। ভ্যাটিকান সিটিতে বসবাসকারী বেশিরভাগ নারীই এক এক পেশার মানুষের স্ত্রী। শিক্ষক, সাংবাদিক বা অন্যান্য কর্মচারীদের বউ হিসেবেই থাকেন। তারা সেখানে পুরো জীবন কাটান না। এই ক্ষুদ্র দেশে প্রায় ৮০০ মানুষের বাসস্থানের বন্দোবস্ত আছে। তার মধ্যে মাত্র ৩০ জন নারী।

ভ্যাটিকান পোপ এবং তার প্রাসাদের নিরাপত্তায় সুইস আর্মি থেকে প্রায় ১৩০ জনকে নিয়ে গঠিত। তাদের বয়স ৩০ বছরেরও কম। ভ্যাটিকান সিটিতে গণপরিবহনেরও অভাব রয়েছে। পণ্য পরিবহনের জন্য শুধু ৩০০ মিটার দীর্ঘ রেলপথ ব্যবহার করা হয়। এই দেশটি ৪৯ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে। এবং এর নাগরিকদের পাসপোর্ট এবং লাইসেন্স-সহ সীমিত সুবিধা রয়েছে। এই অনন্য শহর-রাজ্যে অনেক আধুনিক সুযোগ-সুবিধা রাখা হয়নি।  সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com