মালয়েশিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় আহত বাংলাদেশি অর্থের অভাবে আটকে রয়েছে হাসপাতালে

বিনা চিকিৎসায় হাসপাতালে মৃত্যুর প্রহর গুনছেন মালয়েশিয়া প্রবাসী খলিলুর রহমান। দেশ ও নিজের ভাগ্য বদলাতে মালয়েশিয়ায় এসে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে হাসপাতালের বেডে প্রহর গুণছেন।

হাসপাতালের বকেয়া ৪ লক্ষ টাকা এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য আরো অনেক অর্থের প্রয়োজন। জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে নিজের প্রিয়জনকে দেখার সৌভাগ্য কি আমার হবে না? আমি কি দেশে যেতে পারবো না?

যেকোন লোক দেখতে গেলেই তাকে এই প্রশ্ন করে বসেন খলিল। অথচ রেমিটেন্স যোদ্ধাদের কারণে আজ বাংলাদেশ স্বাবলম্বী। আর তারাইকি বিনা চিকিৎসায় মারা যাবে দেশে-বিদেশে। বলছিলেন আর এক প্রবাসী বাংলাদেশী আশরাফুল।

মালয়েশিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে আহত হয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে মোঃ খলিলুর রহমান (৪৮) নামে এক রেমিট্যান্স যোদ্ধা। পেনাংয়ের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

জানুয়ারীর ৭ তারিখে মালয়েশিয়ার পেনাংয়ে সাইকেলে চড়ে নিজ কর্মস্থলে যাওয়ার পথে পেছন থেকে একটি গাড়ী তাকে ধাক্কা দিলে মারাত্নকভাবে আহত হন। আহত অবস্থায় স্থানীয় ও প্রবাসী বাংলাদেশীদের সহায়তায় হাসপাতালে ভর্তি করে। আহত খলিলুর রহমান পাসপোর্ট নং- BC 01874040 ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলা নবীনগর থানার গৌলতপুর নয়াহাটি এলাকার মৃত মহুরম আলীর ছেলে।

মালয়েশিয়াস্থ ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলা এসোসিয়েশন এর সভাপতি মোঃ নাজমুল হাসান বাবুল জানান, খলিলুর মুমূর্ষু অবস্থায় পেনাংয়ের একটি হাসপাতালে ভর্তি আছে খলিল এবং ইতিমধ্যে তার চিকিৎসায় ২০ হাজার রিংগিত হাসপাতালের বিল বাকি হয়ে গেছে এবং তাকে দেশে ফেরত পাঠাতে প্রয়োজন আরও ১৫ হাজার রিংগিত কিন্তু। দরিদ্র পরিবারের পক্ষ থেকে এই বিল পরিশোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। তার অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় তাকে দ্রুত দেশে ফেরত পাঠানো প্রয়োজন। মূমুর্ষ অসহায় খলিলুর রহমান কে দেশে ফেরত পাঠাতে চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রী, প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়সহ আমরা সকলের সহযোগিতা কামনা করছি ।

যারা সাহায্য পাঠাতে চান এই নাম্বারে যোগাযোগ করার আহবান জানানো হয়েছে মোঃ নাজমুল ইসলাম বাবুল, সভাপতি, ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলা এসোসিয়েশন মালয়েশিয়া, মোবাইল, ০০৬০১২৩১০০৪৭২ এবং ইঞ্জিঃ রাহাত উজ জামান, সাধারণ সম্পাদক, ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলা এসোসিয়েশন মালয়েশিয়া, মোবাইল, ০০৬০১৬২৮৬২৫৪৮

জানা গেছে, অসুস্থ প্রবাসী মোঃ খলিলুর রহমান ২০০৭ সালে কলিং ভিসায় কাজ নিয়ে মালয়েশিয়ায় আসে। তার স্ত্রী ও চার মেয়ে রয়েছে বড় মেয়ে এসএসসি পরিক্ষার্থী। ইতিমধ্যে তার চিকিৎসা বাবদ মোটা অংকের টাকা খরচ হয়ে গেছে। মালয়েশিয়ায় তার কোন নিকট আত্মীয় না থাকার কারণে সেবা শুশ্রূষা করে তার চিকিৎসা বা খরচ চালিয়ে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি খলিলুর রহমান এর কিছু হলে তার পরিবার পথে বসার উপক্রম হবে।

এমতাবস্থায় তার অসহায় পরিবার সকল হৃদয়বান প্রবাসীদের কাছে খলিলুরের জীবন বাচাঁতে সহযোগিতার হাত বাড়ানোর জন্য অনুরোধ করেছেন।

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» শরীয়তপুরে আড়াই বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ,১জন আটক

» বরিশালে জমির বিরোধের সংঘর্ষে নিহত ১

» ডাকসু নির্বাচনে ছাত্রদলের মনোনয়ন বিতরণ চলছে

» রাসায়নিকের গুদাম না সরানো দুঃখজনক: প্রধানমন্ত্রী

» লিভার সিরোসিস কখন হয়?

» বয়স ‘কমাবে’ করলা!

» মালয়েশিয়ান তরুণীকে ছুরিকাঘাত, বাংলাদেশির ২০ বছরের জেল

» গাড়িতে গাড়িতে ‘গ্যাস বোমা’

» অভিনয়ে ফিরছেন তমালিকা

» অগ্নিকাণ্ডের ঝুঁকিতে ৪২২ হাসপাতাল

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,

উপদেষ্টা -আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক

ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিল

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০,০১৯১১৪৯০৫০৫

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

মালয়েশিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় আহত বাংলাদেশি অর্থের অভাবে আটকে রয়েছে হাসপাতালে

বিনা চিকিৎসায় হাসপাতালে মৃত্যুর প্রহর গুনছেন মালয়েশিয়া প্রবাসী খলিলুর রহমান। দেশ ও নিজের ভাগ্য বদলাতে মালয়েশিয়ায় এসে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে হাসপাতালের বেডে প্রহর গুণছেন।

হাসপাতালের বকেয়া ৪ লক্ষ টাকা এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য আরো অনেক অর্থের প্রয়োজন। জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে নিজের প্রিয়জনকে দেখার সৌভাগ্য কি আমার হবে না? আমি কি দেশে যেতে পারবো না?

যেকোন লোক দেখতে গেলেই তাকে এই প্রশ্ন করে বসেন খলিল। অথচ রেমিটেন্স যোদ্ধাদের কারণে আজ বাংলাদেশ স্বাবলম্বী। আর তারাইকি বিনা চিকিৎসায় মারা যাবে দেশে-বিদেশে। বলছিলেন আর এক প্রবাসী বাংলাদেশী আশরাফুল।

মালয়েশিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে আহত হয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে মোঃ খলিলুর রহমান (৪৮) নামে এক রেমিট্যান্স যোদ্ধা। পেনাংয়ের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

জানুয়ারীর ৭ তারিখে মালয়েশিয়ার পেনাংয়ে সাইকেলে চড়ে নিজ কর্মস্থলে যাওয়ার পথে পেছন থেকে একটি গাড়ী তাকে ধাক্কা দিলে মারাত্নকভাবে আহত হন। আহত অবস্থায় স্থানীয় ও প্রবাসী বাংলাদেশীদের সহায়তায় হাসপাতালে ভর্তি করে। আহত খলিলুর রহমান পাসপোর্ট নং- BC 01874040 ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলা নবীনগর থানার গৌলতপুর নয়াহাটি এলাকার মৃত মহুরম আলীর ছেলে।

মালয়েশিয়াস্থ ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলা এসোসিয়েশন এর সভাপতি মোঃ নাজমুল হাসান বাবুল জানান, খলিলুর মুমূর্ষু অবস্থায় পেনাংয়ের একটি হাসপাতালে ভর্তি আছে খলিল এবং ইতিমধ্যে তার চিকিৎসায় ২০ হাজার রিংগিত হাসপাতালের বিল বাকি হয়ে গেছে এবং তাকে দেশে ফেরত পাঠাতে প্রয়োজন আরও ১৫ হাজার রিংগিত কিন্তু। দরিদ্র পরিবারের পক্ষ থেকে এই বিল পরিশোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। তার অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় তাকে দ্রুত দেশে ফেরত পাঠানো প্রয়োজন। মূমুর্ষ অসহায় খলিলুর রহমান কে দেশে ফেরত পাঠাতে চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রী, প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়সহ আমরা সকলের সহযোগিতা কামনা করছি ।

যারা সাহায্য পাঠাতে চান এই নাম্বারে যোগাযোগ করার আহবান জানানো হয়েছে মোঃ নাজমুল ইসলাম বাবুল, সভাপতি, ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলা এসোসিয়েশন মালয়েশিয়া, মোবাইল, ০০৬০১২৩১০০৪৭২ এবং ইঞ্জিঃ রাহাত উজ জামান, সাধারণ সম্পাদক, ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলা এসোসিয়েশন মালয়েশিয়া, মোবাইল, ০০৬০১৬২৮৬২৫৪৮

জানা গেছে, অসুস্থ প্রবাসী মোঃ খলিলুর রহমান ২০০৭ সালে কলিং ভিসায় কাজ নিয়ে মালয়েশিয়ায় আসে। তার স্ত্রী ও চার মেয়ে রয়েছে বড় মেয়ে এসএসসি পরিক্ষার্থী। ইতিমধ্যে তার চিকিৎসা বাবদ মোটা অংকের টাকা খরচ হয়ে গেছে। মালয়েশিয়ায় তার কোন নিকট আত্মীয় না থাকার কারণে সেবা শুশ্রূষা করে তার চিকিৎসা বা খরচ চালিয়ে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি খলিলুর রহমান এর কিছু হলে তার পরিবার পথে বসার উপক্রম হবে।

এমতাবস্থায় তার অসহায় পরিবার সকল হৃদয়বান প্রবাসীদের কাছে খলিলুরের জীবন বাচাঁতে সহযোগিতার হাত বাড়ানোর জন্য অনুরোধ করেছেন।

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,

উপদেষ্টা -আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক

ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিল

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০,০১৯১১৪৯০৫০৫

Design & Developed BY ThemesBazar.Com