মাতৃত্বকালীন হৃৎপিন্ডের মাংসপেশির রোগ

ছবি সংগৃহীত

 

ডা. এ এইচ এম ওয়ালিউল ইসলাম :গর্ভকালীন দুশ্চিন্তা, শারীরিক ও মানসিক চাপ রক্তনালিতে dissection করে, এতে হৃৎপিণ্ডের মাংসপেশিতে প্রদাহ তৈরি করে। তিনটি মূল রক্তনালির যে কোনোটাই আক্রান্ত হতে পারে

 

হৃদরোগ বলতে হৃৎপিন্ডের রক্তনালিসহ অন্তঃপ্রাচীরের পর্দার ভিতরে চর্বি জমা (cholesterol deposition under intima) বা রক্তনালিসহ মাংস কোষের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ার ফলে smooth muscle cell proliferation), রক্তনালির অন্তঃপ্রকোষ্ঠের নালার (lumen) সরু হওয়ার ফলে মাংসপেশিতে (myocardium) প্রয়োজনীয় অক্সিজেন ও রক্ত সরবরাহে বিঘ্ন ঘটে যা হৃদযন্ত্রের প্রদাহ তৈরি করে। জন্মগত বা প্রকৃতিগতভাবে পুরুষের চেয়ে নারীরা কম ঝুঁকিতে থাকেন বিশেষ করে ঋতুস্রাব বন্ধ (menopause) হওয়া পর্যন্ত।

 

অর্থাৎ ৪০-৪৫ বছর বয়স পর্যন্ত মহিলাদের হার্ট অ্যাটাকের আশঙ্কা কম থাকে। তবে মাতৃত্বকালীন বা গর্ভাবস্থায় হৃৎপিন্ডের রক্তনালির অন্তর দেয়ালে ফাটল (spontaneous coronary artery dissection), রক্তনালির অস্বাভাবিক ফুলে যাওয়া (takotsubo disease), হদযন্ত্রের মাংসপেশির দেয়াল ফুলে বড় হয়ে দুর্বল হওয়া (peripartum or postpartum cardiom -yopathy) উল্লেখযোগ্য!

 

এই তিন রোগকেই Broken Heart Syndrome বলা হয়। Spontaneous Coronary artery dissection ফলে গর্ভবতী মা বুকে অস্বাভাবিক প্রদাহ ও সঙ্গে শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে থাকেন। উপসর্গ অনেকটা হার্ট অ্যাটাকের মতোই বুকে ব্যথা অনুভব করেন। পুরুষ মহিলা নির্বিশেষে ১%-৪% ও শুধু ৫০-এর নিচের মহিলাদের ক্ষেত্রে শতকরা ৩৫% বা হার্ট অ্যাটাকের কারণ হয়ে থাকে এবং ৪৩% গর্ভবতী মা এই সমস্যায় ভুগে থাকেন। গর্ভকালীন দুশ্চিন্তা, শারীরিক ও মানসিক চাপ রক্তনালিতে dissection করে, এতে করে হৃৎপিন্ডের মাংসপেশিতে প্রদাহ তৈরি করে। তিনটি মূল রক্তনালির যে কোনোটাই আক্রান্ত হতে পারে।

 

বিশেষ করে LAD বাঁদিকের মূল রক্তনালি 32-46%, LAD, Diagonal I Septal 45-61%, LCX, Ramus , OM 10-39%, LM বা বাঁয়ের মূল রক্তনালির মুখের অংশ ৪% আক্রান্ত হতে পারে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সবগুলোই আক্রান্ত হতে পারে। রোগী ভর্তি হয়ে যে প্রতিষ্ঠানে করোনারি এনজিওগ্রাম সুবিধা আছে তাতে আক্রান্ত রক্তনালিতে Stent বা রিং বসিয়ে চিকিৎসা করা যেতে পারে। যেখানে সুবিধা নেই সেখানে প্রতিরোধমূলক (prophylactic) চিকিৎসা দেওয়া উত্তম; কেননা তাতে করে অনাকাক্সিক্ষত রক্তক্ষরণ বা মাতৃগর্ভস্থিত শিশুর ওপর ক্ষতিকর প্রভাব হতে মা ও শিশুকে রক্ষা করা যেতে পারে।

 

গর্ভকালীন সময় হার্টের মাংসপেশির ফুলে যাওয়ার ফলে প্রকোষ্ট অস্বাভাবিক বৃদ্ধি  হওয়া (cardiomyopathy) যা সাধারণত সন্তান প্রসবের এক মাস আগে ও পরের ছয় মাসে হয়ে থাকে। এর ফলে হার্ট নির্দিষ্ট পরিমাপে রক্ত পাম্প করতে না পারার ফলে হার্ট ফেইলিওর হতে পারে, এতে করে অক্সিজেনযুক্ত রক্ত কম সরবরাহের ফলে হৃৎপিন্ডের মাংসপেশির প্রদাহ তথা ফুসফুসে ও পায়ে পানি জমা ও শ্বাসকষ্ট, অল্পে হাঁপিয়ে উঠতে পারেন। অবসাদ অনুভব করা, বুক ধড়পড় করা, রাতে ঘন ঘন প্রস্রাব, নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট অনুভব, পায়ের গোড়ালিতে পানি জমা ও রক্তচাপ কমে আসা।

 

তবে অধিকাংশ রোগী ৫০-৬০% প্রথমেই রোগের নির্ণয় ও যথাবিহীত ডাক্তারের পরামর্শে তিন-ছয় মাসের মধ্যে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠতে পারেন। কিছু ওষুধ, সহজে হজম হয় এমন খাবার, ০.৮-১.০ লিটার বা ৪ গ্লাস পানি বা তরল খাবার, সহনীয় মাত্রায় হাঁটা চলাফেরা করা ও নিয়মিত চেকআপ সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠতে সহায়তা করে। ঋতস্রাব বন্ধের ঠিক আগে বা পরে Takotsubo heart disease যা কিনা হার্টের মাংসপেশিতে ক্ষত তৈরি করে বেলুনের মতো ফুলে ওঠে। মানসিক চাপ ও হরমোনের তারতম্যের কারণে। সূএ: বাংলাদেশ প্রতিদিন

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» নির্মাণ কাজে টেকসই উপকরণ ব্যবহার করার আহ্বান ভূমিমন্ত্রীর

» বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সিঁড়ি বেয়ে বাংলাদেশ সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাচ্ছে-ধর্মমন্ত্রী

» সোহেলের মাস্টার্স পরীক্ষা দেওয়া হলো না

» টফি-তে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সিনেমা “ওরা ৭ জন”

» ছেলের বটির আঘাতে মায়ের মৃত্যুর অভিযোগ

» বিএনপি-জামায়াত ইহুদিদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

» মার্চ নয়, ফেব্রুয়ারি থেকেই বিদ্যুতের নতুন দাম কার্যকর

» যখনই যেটার দরকার পুলিশকে সেই ভূমিকা পালন করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

» বাড়ছে মন্ত্রিসভার আকার, শপথ কবে?

» ৫০ কোটি টাকা দিয়ে ড. ইউনূসকে আপিল করতে হবে: হাইকোর্ট

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

মাতৃত্বকালীন হৃৎপিন্ডের মাংসপেশির রোগ

ছবি সংগৃহীত

 

ডা. এ এইচ এম ওয়ালিউল ইসলাম :গর্ভকালীন দুশ্চিন্তা, শারীরিক ও মানসিক চাপ রক্তনালিতে dissection করে, এতে হৃৎপিণ্ডের মাংসপেশিতে প্রদাহ তৈরি করে। তিনটি মূল রক্তনালির যে কোনোটাই আক্রান্ত হতে পারে

 

হৃদরোগ বলতে হৃৎপিন্ডের রক্তনালিসহ অন্তঃপ্রাচীরের পর্দার ভিতরে চর্বি জমা (cholesterol deposition under intima) বা রক্তনালিসহ মাংস কোষের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ার ফলে smooth muscle cell proliferation), রক্তনালির অন্তঃপ্রকোষ্ঠের নালার (lumen) সরু হওয়ার ফলে মাংসপেশিতে (myocardium) প্রয়োজনীয় অক্সিজেন ও রক্ত সরবরাহে বিঘ্ন ঘটে যা হৃদযন্ত্রের প্রদাহ তৈরি করে। জন্মগত বা প্রকৃতিগতভাবে পুরুষের চেয়ে নারীরা কম ঝুঁকিতে থাকেন বিশেষ করে ঋতুস্রাব বন্ধ (menopause) হওয়া পর্যন্ত।

 

অর্থাৎ ৪০-৪৫ বছর বয়স পর্যন্ত মহিলাদের হার্ট অ্যাটাকের আশঙ্কা কম থাকে। তবে মাতৃত্বকালীন বা গর্ভাবস্থায় হৃৎপিন্ডের রক্তনালির অন্তর দেয়ালে ফাটল (spontaneous coronary artery dissection), রক্তনালির অস্বাভাবিক ফুলে যাওয়া (takotsubo disease), হদযন্ত্রের মাংসপেশির দেয়াল ফুলে বড় হয়ে দুর্বল হওয়া (peripartum or postpartum cardiom -yopathy) উল্লেখযোগ্য!

 

এই তিন রোগকেই Broken Heart Syndrome বলা হয়। Spontaneous Coronary artery dissection ফলে গর্ভবতী মা বুকে অস্বাভাবিক প্রদাহ ও সঙ্গে শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে থাকেন। উপসর্গ অনেকটা হার্ট অ্যাটাকের মতোই বুকে ব্যথা অনুভব করেন। পুরুষ মহিলা নির্বিশেষে ১%-৪% ও শুধু ৫০-এর নিচের মহিলাদের ক্ষেত্রে শতকরা ৩৫% বা হার্ট অ্যাটাকের কারণ হয়ে থাকে এবং ৪৩% গর্ভবতী মা এই সমস্যায় ভুগে থাকেন। গর্ভকালীন দুশ্চিন্তা, শারীরিক ও মানসিক চাপ রক্তনালিতে dissection করে, এতে করে হৃৎপিন্ডের মাংসপেশিতে প্রদাহ তৈরি করে। তিনটি মূল রক্তনালির যে কোনোটাই আক্রান্ত হতে পারে।

 

বিশেষ করে LAD বাঁদিকের মূল রক্তনালি 32-46%, LAD, Diagonal I Septal 45-61%, LCX, Ramus , OM 10-39%, LM বা বাঁয়ের মূল রক্তনালির মুখের অংশ ৪% আক্রান্ত হতে পারে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সবগুলোই আক্রান্ত হতে পারে। রোগী ভর্তি হয়ে যে প্রতিষ্ঠানে করোনারি এনজিওগ্রাম সুবিধা আছে তাতে আক্রান্ত রক্তনালিতে Stent বা রিং বসিয়ে চিকিৎসা করা যেতে পারে। যেখানে সুবিধা নেই সেখানে প্রতিরোধমূলক (prophylactic) চিকিৎসা দেওয়া উত্তম; কেননা তাতে করে অনাকাক্সিক্ষত রক্তক্ষরণ বা মাতৃগর্ভস্থিত শিশুর ওপর ক্ষতিকর প্রভাব হতে মা ও শিশুকে রক্ষা করা যেতে পারে।

 

গর্ভকালীন সময় হার্টের মাংসপেশির ফুলে যাওয়ার ফলে প্রকোষ্ট অস্বাভাবিক বৃদ্ধি  হওয়া (cardiomyopathy) যা সাধারণত সন্তান প্রসবের এক মাস আগে ও পরের ছয় মাসে হয়ে থাকে। এর ফলে হার্ট নির্দিষ্ট পরিমাপে রক্ত পাম্প করতে না পারার ফলে হার্ট ফেইলিওর হতে পারে, এতে করে অক্সিজেনযুক্ত রক্ত কম সরবরাহের ফলে হৃৎপিন্ডের মাংসপেশির প্রদাহ তথা ফুসফুসে ও পায়ে পানি জমা ও শ্বাসকষ্ট, অল্পে হাঁপিয়ে উঠতে পারেন। অবসাদ অনুভব করা, বুক ধড়পড় করা, রাতে ঘন ঘন প্রস্রাব, নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট অনুভব, পায়ের গোড়ালিতে পানি জমা ও রক্তচাপ কমে আসা।

 

তবে অধিকাংশ রোগী ৫০-৬০% প্রথমেই রোগের নির্ণয় ও যথাবিহীত ডাক্তারের পরামর্শে তিন-ছয় মাসের মধ্যে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠতে পারেন। কিছু ওষুধ, সহজে হজম হয় এমন খাবার, ০.৮-১.০ লিটার বা ৪ গ্লাস পানি বা তরল খাবার, সহনীয় মাত্রায় হাঁটা চলাফেরা করা ও নিয়মিত চেকআপ সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠতে সহায়তা করে। ঋতস্রাব বন্ধের ঠিক আগে বা পরে Takotsubo heart disease যা কিনা হার্টের মাংসপেশিতে ক্ষত তৈরি করে বেলুনের মতো ফুলে ওঠে। মানসিক চাপ ও হরমোনের তারতম্যের কারণে। সূএ: বাংলাদেশ প্রতিদিন

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com