বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল দিবস আজ

বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল দিবস আজ সোমবার (১৪ ফেব্রুয়ারি)। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

 

বাণীতে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের পক্ষ থেকে ‘বাংলাদেশে প্রেস কাউন্সিল দিবস-২০২২’ উদযাপনের উদ্যোগকে স্বাগত জানান রাষ্ট্রপতি। একইসঙ্গে অনুসন্ধানী ও সৃজনশীল প্রতিবেদনের জন্য বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল পদকপ্রাপ্ত গণমাধ্যমকর্মীদের আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দনও জানান তিনি।

রাষ্ট্রপতি বলেন, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা, তথ্যের অবাধ প্রবেশাধিকার ও জনগণের ক্ষমতায়ন পারস্পরিক সম্পর্কযুক্ত। গণতন্ত্রের বিকাশসহ এর প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে স্বাধীন ও নিরপেক্ষ সংবাদপত্রের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। স্বাধীন ও মুক্ত গণমাধ্যম গণতন্ত্রকে সুসংহত করার পাশাপাশি মানবাধিকার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় ইতিবাচক অবদান রাখতে পারে।

 

দিবসটি উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণমাধ্যমসংশ্লিষ্ট সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে অনুরূপ বাণীতে বলেন, বর্তমান সরকার সবসময় গণমাধ্যমবান্ধব। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যখনই সরকার গঠন করেছে গণমাধ্যমের উন্নয়নে কাজ করেছে।

তিনি বলেন, সৎ সাংবাদিকতায় উৎসাহিত করতে ২০১৮ সাল থেকে সংবাদপত্র ও সাংবাদিকদের মধ্যে দেওয়া হচ্ছে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল পদক। আগামীতেও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রক্ষা ও মানোন্নয়নে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল আরও অগ্রণী ভূমিকা রাখবে প্রত্যাশা করছি।

 

সরকারপ্রধান বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রেসের স্বাধীনতা রক্ষা, সংবাদপত্র ও সংবাদ সংস্থার মানোন্নয়নের উদ্দেশ্যে যে প্রেস কাউন্সিল আইন প্রণয়ন করেছিলেন, এরই ফসল আজকের বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল। ১৯৭৪ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে গঠিত সরকারের আমলে প্রেস কাউন্সিল অ্যাক্ট গেজেট আকারে প্রকাশ হয়। এ তারিখেই বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল দিবস উদযাপন করা হচ্ছে, যা আনন্দের।

 

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল হলো একটি আধা বিচার বিভাগীয় সংস্থা, যা বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল আইনের অধীনে সংবাদপত্র নিয়ন্ত্রণ ও বাকস্বাধীনতা রক্ষা করে।

প্রতিষ্ঠার পর থেকে প্রতি বছর ১৪ ফেব্রুয়ারি ‘বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল দিবস’ হিসেবে উদযাপিত হয়ে আসছে। সংবাদপত্রের গুণগত মান নিশ্চিতকরণের পাশাপাশি হলুদ সাংবাদিকতা রোধে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

 

২০১৬ সালে বাংলাদেশ আইন কমিশন সুপারিশ করেছে প্রেস কাউন্সিলকে সাময়িকভাবে যে কোনো সংবাদপত্র বন্ধ করার ক্ষমতা দেওয়া হবে। সংবাদপত্র ও সংবাদ সংস্থার মান বজায় রাখা, সংশোধন, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা সংরক্ষণ ও সুরক্ষার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল প্রতিষ্ঠা করা হয়।

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» চিনির উৎপাদন বৃদ্ধি সময়ের দাবি- ধর্মমন্ত্রী

» কৃষি জমি রক্ষায় ভূমি জোনিং ও সুরক্ষা আইনের খসড়া চূড়ান্ত পর্যায়ে – ভূমিমন্ত্রী

» ইসলামপুরে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী উদ্বোধন

» বেসিস নির্বাচনে ওয়ান টিমের প্যানেল ঘোষণা

» জয়পুরহাটে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শন -২০২৪

» বোতলজাত সয়াবিনের দাম বাড়ল, কমল খোলা তেলের

» নানার বাড়িতে শিশুকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগে ১জন আটক

» নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে: ইসি আলমগীর

» অপপ্রচার রোধে ভারতের সহযোগিতা চাইলো বাংলাদেশ

» উপজেলা নির্বাচনে নেতাদের হস্তক্ষেপ বন্ধে কঠোর নির্দেশনা আ.লীগের : কাদের

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল দিবস আজ

বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল দিবস আজ সোমবার (১৪ ফেব্রুয়ারি)। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

 

বাণীতে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের পক্ষ থেকে ‘বাংলাদেশে প্রেস কাউন্সিল দিবস-২০২২’ উদযাপনের উদ্যোগকে স্বাগত জানান রাষ্ট্রপতি। একইসঙ্গে অনুসন্ধানী ও সৃজনশীল প্রতিবেদনের জন্য বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল পদকপ্রাপ্ত গণমাধ্যমকর্মীদের আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দনও জানান তিনি।

রাষ্ট্রপতি বলেন, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা, তথ্যের অবাধ প্রবেশাধিকার ও জনগণের ক্ষমতায়ন পারস্পরিক সম্পর্কযুক্ত। গণতন্ত্রের বিকাশসহ এর প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে স্বাধীন ও নিরপেক্ষ সংবাদপত্রের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। স্বাধীন ও মুক্ত গণমাধ্যম গণতন্ত্রকে সুসংহত করার পাশাপাশি মানবাধিকার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় ইতিবাচক অবদান রাখতে পারে।

 

দিবসটি উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণমাধ্যমসংশ্লিষ্ট সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে অনুরূপ বাণীতে বলেন, বর্তমান সরকার সবসময় গণমাধ্যমবান্ধব। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যখনই সরকার গঠন করেছে গণমাধ্যমের উন্নয়নে কাজ করেছে।

তিনি বলেন, সৎ সাংবাদিকতায় উৎসাহিত করতে ২০১৮ সাল থেকে সংবাদপত্র ও সাংবাদিকদের মধ্যে দেওয়া হচ্ছে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল পদক। আগামীতেও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রক্ষা ও মানোন্নয়নে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল আরও অগ্রণী ভূমিকা রাখবে প্রত্যাশা করছি।

 

সরকারপ্রধান বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রেসের স্বাধীনতা রক্ষা, সংবাদপত্র ও সংবাদ সংস্থার মানোন্নয়নের উদ্দেশ্যে যে প্রেস কাউন্সিল আইন প্রণয়ন করেছিলেন, এরই ফসল আজকের বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল। ১৯৭৪ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে গঠিত সরকারের আমলে প্রেস কাউন্সিল অ্যাক্ট গেজেট আকারে প্রকাশ হয়। এ তারিখেই বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল দিবস উদযাপন করা হচ্ছে, যা আনন্দের।

 

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল হলো একটি আধা বিচার বিভাগীয় সংস্থা, যা বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল আইনের অধীনে সংবাদপত্র নিয়ন্ত্রণ ও বাকস্বাধীনতা রক্ষা করে।

প্রতিষ্ঠার পর থেকে প্রতি বছর ১৪ ফেব্রুয়ারি ‘বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল দিবস’ হিসেবে উদযাপিত হয়ে আসছে। সংবাদপত্রের গুণগত মান নিশ্চিতকরণের পাশাপাশি হলুদ সাংবাদিকতা রোধে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

 

২০১৬ সালে বাংলাদেশ আইন কমিশন সুপারিশ করেছে প্রেস কাউন্সিলকে সাময়িকভাবে যে কোনো সংবাদপত্র বন্ধ করার ক্ষমতা দেওয়া হবে। সংবাদপত্র ও সংবাদ সংস্থার মান বজায় রাখা, সংশোধন, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা সংরক্ষণ ও সুরক্ষার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল প্রতিষ্ঠা করা হয়।

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com