বন্ধুকে খুন না করেও ৬ মাস ধরে কারাগারে

সিনেমার গল্পকেও হার মানিয়েছে ঢাকার ধামরাইয়ের শাহাদাত হত্যার ঘটনা। আসল খুনি প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও বন্ধুকে খুন না করেও ৬ মাস ধরে জেল খাটছে বন্ধু। তবে সম্প্রতি র‌্যাব ছায়া তদন্তের মাধ্যমে আসল খুনিকে গ্রেফতার করেছে। তারা খুন করার কথাটি স্বীকার করেছেন বলে র‌্যাব জানিয়েছেন।

 

বিনা দোষে জেল খাটা যুবক জাহিদের বাবার অভিযোগ, পুলিশের সঠিক তদন্তের অবহেলায় নিরাপরাধ আমার সন্তান জেল খাটছে। শুধু তাই নয় তাকে রিমান্ডে এনে ব্যাপক মারধরও করা হয়েছে।

 

জানা গেছে, ধামরাইয়ের যাদবপুর ইউনিয়নের আমড়াইল গ্রামের কোহিনুর ইসলামের একমাত্র ছেলে শাহাদাত হোসেন (২৪) গত ২ আগষ্ট নিজ বাড়ি থেকে বেড়িয়ে নিখোঁজ হন। এরপর ৮ আগস্ট পাশের কালিয়াকৈর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন তার পরিবার। ১২ আগস্ট ধামরাইয়ের আমড়াইল গ্রামের একটি পরিত্যক্ত ভিটায় গাছের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় শাহাদাত হোসেনের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের বাবা ধামরাই থানায় হত্যা মামলা করতে চাইলেও পুলিশ অপমৃত্যুর মামলা রেকর্ড করেন। এরপর প্রায় দেড় মাস পর গত ২২ সেপ্টেম্বর শাহাদাত হোসেনের মৃত্যুর ময়না তদন্তের প্রতিবেদন হাতে পান ধামরাই থানা পুলিশ। প্রতিবেদনে জানা যায়, শাহাদাত হোসেন আত্মহত্যা করেনি, তাকে শ্বাসরোধে ও পিটিয়ে ও একটি চোখ উপড়ে হত্যার পর লাশ গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছিল। এরপর ২৩ সেপ্টেম্বর শাহাদাতের মা বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামি করে ধামরাই থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পরে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ধামরাই থানার এসআই সেকেন্দার আলী সঠিত তদন্ত না করেই সন্দেহজনকভাবে একই গ্রামের শাহাদাত হোসেনের বন্ধু জাহিদুল ইসলাম জাহিদকে গত ৩০ সেপ্টেম্বর গ্রেফতার করে ৩ দিনের রিমান্ডে নেয়। রিমান্ডে জাহিদ হত্যার কথা স্বীকার না করায় তাকে জেলহাজতে প্রেরণ করে।

পরে র‌্যাব ওই ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি ও ছায়া তদন্ত শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাবের গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-৪ এর একটি দল সম্প্রতি সাভারের আশুলিয়া থানাধীন বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে চাঞ্চল্যকর শাহাদাত হত্যাকান্ডের মূলহোতা জাহিদুল ইসলাম জাহিদ (২২), তার বন্ধু আবু তাহের (২৪), সবুজ হোসেনকে (২৮) গ্রেফতার করে।
নিরাপরাধ অপর জাহিদের বাবা শাজাহান পীর জানান, তদন্তকারী কর্মকর্তা সঠিক তদন্ত করলে আজ আমার নিষ্পাপ ছেলের জেল খাটতে হয় না। আমি গরীব টাকা দিতে না পারায় আমার সন্তান এখনও জেলে। তিনি র‌্যাবের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, পুলিশ না করলেও র‌্যাব ঠিকই খুনিদের গ্রেফতার করেছেন। এখন তিনি তার সন্তানের দ্রুত মুক্তি কামনা করেন। এদিকে, গ্রামবাসী দ্রুত প্রকৃত খুনিদের ফাঁসির দাবি জানান।

 

তৎকালীন সময়ের মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই সেকান্দার আলী জানান, বাদীর অভিযোগের ভিক্তিতেই খুন হওয়া শাহাদাতের বন্ধু জাহিদকে গ্রেফতার করা হয়। সূএ:বাংলাদেশ প্রতিদিন

 

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» চিনির উৎপাদন বৃদ্ধি সময়ের দাবি- ধর্মমন্ত্রী

» কৃষি জমি রক্ষায় ভূমি জোনিং ও সুরক্ষা আইনের খসড়া চূড়ান্ত পর্যায়ে – ভূমিমন্ত্রী

» ইসলামপুরে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী উদ্বোধন

» বেসিস নির্বাচনে ওয়ান টিমের প্যানেল ঘোষণা

» জয়পুরহাটে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শন -২০২৪

» বোতলজাত সয়াবিনের দাম বাড়ল, কমল খোলা তেলের

» নানার বাড়িতে শিশুকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগে ১জন আটক

» নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে: ইসি আলমগীর

» অপপ্রচার রোধে ভারতের সহযোগিতা চাইলো বাংলাদেশ

» উপজেলা নির্বাচনে নেতাদের হস্তক্ষেপ বন্ধে কঠোর নির্দেশনা আ.লীগের : কাদের

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

বন্ধুকে খুন না করেও ৬ মাস ধরে কারাগারে

সিনেমার গল্পকেও হার মানিয়েছে ঢাকার ধামরাইয়ের শাহাদাত হত্যার ঘটনা। আসল খুনি প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও বন্ধুকে খুন না করেও ৬ মাস ধরে জেল খাটছে বন্ধু। তবে সম্প্রতি র‌্যাব ছায়া তদন্তের মাধ্যমে আসল খুনিকে গ্রেফতার করেছে। তারা খুন করার কথাটি স্বীকার করেছেন বলে র‌্যাব জানিয়েছেন।

 

বিনা দোষে জেল খাটা যুবক জাহিদের বাবার অভিযোগ, পুলিশের সঠিক তদন্তের অবহেলায় নিরাপরাধ আমার সন্তান জেল খাটছে। শুধু তাই নয় তাকে রিমান্ডে এনে ব্যাপক মারধরও করা হয়েছে।

 

জানা গেছে, ধামরাইয়ের যাদবপুর ইউনিয়নের আমড়াইল গ্রামের কোহিনুর ইসলামের একমাত্র ছেলে শাহাদাত হোসেন (২৪) গত ২ আগষ্ট নিজ বাড়ি থেকে বেড়িয়ে নিখোঁজ হন। এরপর ৮ আগস্ট পাশের কালিয়াকৈর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন তার পরিবার। ১২ আগস্ট ধামরাইয়ের আমড়াইল গ্রামের একটি পরিত্যক্ত ভিটায় গাছের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় শাহাদাত হোসেনের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের বাবা ধামরাই থানায় হত্যা মামলা করতে চাইলেও পুলিশ অপমৃত্যুর মামলা রেকর্ড করেন। এরপর প্রায় দেড় মাস পর গত ২২ সেপ্টেম্বর শাহাদাত হোসেনের মৃত্যুর ময়না তদন্তের প্রতিবেদন হাতে পান ধামরাই থানা পুলিশ। প্রতিবেদনে জানা যায়, শাহাদাত হোসেন আত্মহত্যা করেনি, তাকে শ্বাসরোধে ও পিটিয়ে ও একটি চোখ উপড়ে হত্যার পর লাশ গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছিল। এরপর ২৩ সেপ্টেম্বর শাহাদাতের মা বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামি করে ধামরাই থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পরে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ধামরাই থানার এসআই সেকেন্দার আলী সঠিত তদন্ত না করেই সন্দেহজনকভাবে একই গ্রামের শাহাদাত হোসেনের বন্ধু জাহিদুল ইসলাম জাহিদকে গত ৩০ সেপ্টেম্বর গ্রেফতার করে ৩ দিনের রিমান্ডে নেয়। রিমান্ডে জাহিদ হত্যার কথা স্বীকার না করায় তাকে জেলহাজতে প্রেরণ করে।

পরে র‌্যাব ওই ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি ও ছায়া তদন্ত শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাবের গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-৪ এর একটি দল সম্প্রতি সাভারের আশুলিয়া থানাধীন বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে চাঞ্চল্যকর শাহাদাত হত্যাকান্ডের মূলহোতা জাহিদুল ইসলাম জাহিদ (২২), তার বন্ধু আবু তাহের (২৪), সবুজ হোসেনকে (২৮) গ্রেফতার করে।
নিরাপরাধ অপর জাহিদের বাবা শাজাহান পীর জানান, তদন্তকারী কর্মকর্তা সঠিক তদন্ত করলে আজ আমার নিষ্পাপ ছেলের জেল খাটতে হয় না। আমি গরীব টাকা দিতে না পারায় আমার সন্তান এখনও জেলে। তিনি র‌্যাবের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, পুলিশ না করলেও র‌্যাব ঠিকই খুনিদের গ্রেফতার করেছেন। এখন তিনি তার সন্তানের দ্রুত মুক্তি কামনা করেন। এদিকে, গ্রামবাসী দ্রুত প্রকৃত খুনিদের ফাঁসির দাবি জানান।

 

তৎকালীন সময়ের মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই সেকান্দার আলী জানান, বাদীর অভিযোগের ভিক্তিতেই খুন হওয়া শাহাদাতের বন্ধু জাহিদকে গ্রেফতার করা হয়। সূএ:বাংলাদেশ প্রতিদিন

 

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com