পুতিনের পরবর্তী নিশানার শঙ্কায় মলদোভা

ইউক্রেনে চলছে রুশ সামরিক অভিযান। সাবেক সোভিয়েত দেশ মলদোভা সীমান্ত থেকে মাত্র ৬০ কিলোমিটার দূরে দক্ষিণ ইউক্রেনের ওডেসা শহরে সামরিক অভিযান শুরু করেছে রাশিয়া। ফলে রুশ হামলার পরবর্তী লক্ষ্যবস্তু হওয়ার শঙ্কা প্রকাশ করেছে পূর্ব ইউরোপীয় দেশটি।

 

৩০ বছরের বেশি সময় ধরে ইউক্রেন সীমান্তবর্তী অঞ্চলের ট্রান্সনিস্ট্রিয়ার বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে সম্পর্কের উত্তাপ রয়েছে দেশটির। ১৯৯১ সাল থেকে রুশ সমর্থিত ট্রান্সনিস্ট্রিয়ান বিচ্ছিন্নতাবাদীরা চালিয়ে আসছে বিদ্রোহ। ৯২’র যুদ্ধ বিরতি চুক্তির পর থেকেই অঞ্চলটিতে রুশ সৈন্য মোতায়েন রয়েছে।

 

ট্রান্সনিস্ট্রিয়াতে মোতায়েনকৃত রুশ সেনারা সেন্ট পিটার্সবার্গে অবস্থিত রাশিয়ান সেনাবাহিনীর পশ্চিম সামরিক দফতরের আওতাধীন। অঞ্চলটির কোবাসনা গ্রামে রয়েছে পুরানো সোভিয়েত-শৈলীর গোলাবারুদ ডিপো।

 

কোবাসনায় প্রায় ২০ হাজার টন সোভিয়েত যুগের গোলাবারুদ মজুত রয়েছে। রয়েছে বার্লিন প্রাচীরের পতনের পর জার্মানি এবং সাবেক চেকোস্লোভাকিয়া থেকে মলদোভায় আনা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ-যুগের সোভিয়েত বিস্ফোরক সামগ্রীও।

 

নিজ সীমান্তের নিকটে এত বড় রুশ সামরিক উপস্থিতি এবং বিপুল গোলাবারুদ থাকায় ইউক্রেনে যুদ্ধের ঘনঘোরে মলদোভানদের কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়া স্বাভাবিক। দেশটির প্রাক্তন প্রতিরক্ষামন্ত্রী ভিটালি মারিনুটা বলছেন, ‘‘উত্তেজনা তীব্রতর হচ্ছে। তাই, আমি মনে করি আজকাল আমাদের উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ আছে।’’

দেশটি রাশিয়ার পরবর্তী লক্ষ্যবস্তু হওয়ার পেছনে গুরুতর যুক্তি দিয়েছেন সামরিক বিশ্লেষক এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নাটালিয়া আলবু। ওডেসার কাছে আসা রাশিয়ান সৈন্যরা ট্রান্সনিস্ট্রিয়ান অঞ্চলের সঙ্গে একটি সামরিক করিডোর তৈরি করতে চায় বলে মত তার।

আলবু বলেন, ‘‘যদিও আমাদের ট্রান্সনিস্ট্রিয়ান বিচ্ছিন্নতাবাদী অঞ্চলে একটি সুপ্ত পরিস্থিতি রয়েছে, তবু বলা যাচ্ছে এই মুহূর্তে সেখানে শান্তি এবং শান্ত রয়েছে। এটি ইউক্রেনের পরিস্থিতি কীভাবে বিকশিত হবে তার উপর নির্ভর করে। যদি রাশিয়ানরা ওডেসায় যায় তবে এই সংযোগ বিপজ্জনক।’’ তিনি বলেন, ‘‘রাশিয়ার লক্ষ্য অঞ্চলটিতে একটি করিডোর তৈরি করা যা মস্কো নিয়ন্ত্রণ করে।’’

 

৩ মার্চ ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যপদ পাওয়ার জন্য আবেদন দাখিল করেছিল মলদোভা। একই কারণে ইউক্রেনের ওপর খড়গ হস্ত হয়েছে রাশিয়া। ফলে দেশটির নাগরিকরা এই ভেবে আতঙ্কগ্রস্ত হচ্ছেন, রাশিয়ার পরবর্তী লক্ষ্য মলদোভা। অনুরূপ আবেদনের পর প্রতিবেশি জর্জিয়ার ওপর রাশিয়ার প্রতিক্রিয়া স্মরণে রয়েছে তাদের।

 

মলদোভান একাডেমি অব সায়েন্সেসের গবেষক ফর ভ্লাদ শঙ্কা প্রকাশ করেছেন, ইউক্রেনের পর সোভিয়েত ইউনিয়নের অন্যান্য প্রাক্তন অঞ্চলগুলোতে আক্রমণ প্রসারিত করতে পারে মস্কো। ভ্লাদ বলছেন, ‘‘রাশিয়ানরা ওডেসায় নাও থামতে পারে, ট্রান্সনিস্ট্রিয়া এবং মলদোভায় আসতে পারে। আমি আশা করি এটি ঘটবে না, তবে সম্ভাবনা সবসময়ই আছে।’’  সূত্র: ইউরোনিউজ

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ব্যাংকান্স্যুরেন্স ব্যবসা শুরুর অনুমতি পেল প্রাইম ব্যাংক পিএলসি

» বিএটি বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে শেহজাদ মুনীমের স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন মনীষা আব্রাহাম

» পাঁচবিবিতে পুকুরের পানি সেচ দিতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু

» এমপি-মন্ত্রীর স্বজনদের প্রার্থী না হওয়ার নির্দেশনা রাজনৈতিক : ইসি আলমগীর

» রেললাইনে মোবাইলফোনে কথার সময় ট্রেনের ধাক্কায় রেল কর্মচারীর মৃত্যু

» ১৭ বছর বয়সে অভিনয়ে হাতেখড়ি, এখন তিনি কয়েকশো কোটি টাকার মালিক

» তীব্র গরমে উচ্চ আদালতে আইনজীবীদের গাউন পরতে হবে না

» নিবন্ধন ও আবেদনের বাইরে থাকা পোর্টালগুলো বন্ধ করা হবে : তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী

» জ্ঞান-বিজ্ঞানে এগিয়ে যেতে শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান আইজিপির

» ইরানে ইসরায়েলের হামলা নিয়ে মুখে কুলুপ বাইডেন প্রশাসনের

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

পুতিনের পরবর্তী নিশানার শঙ্কায় মলদোভা

ইউক্রেনে চলছে রুশ সামরিক অভিযান। সাবেক সোভিয়েত দেশ মলদোভা সীমান্ত থেকে মাত্র ৬০ কিলোমিটার দূরে দক্ষিণ ইউক্রেনের ওডেসা শহরে সামরিক অভিযান শুরু করেছে রাশিয়া। ফলে রুশ হামলার পরবর্তী লক্ষ্যবস্তু হওয়ার শঙ্কা প্রকাশ করেছে পূর্ব ইউরোপীয় দেশটি।

 

৩০ বছরের বেশি সময় ধরে ইউক্রেন সীমান্তবর্তী অঞ্চলের ট্রান্সনিস্ট্রিয়ার বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে সম্পর্কের উত্তাপ রয়েছে দেশটির। ১৯৯১ সাল থেকে রুশ সমর্থিত ট্রান্সনিস্ট্রিয়ান বিচ্ছিন্নতাবাদীরা চালিয়ে আসছে বিদ্রোহ। ৯২’র যুদ্ধ বিরতি চুক্তির পর থেকেই অঞ্চলটিতে রুশ সৈন্য মোতায়েন রয়েছে।

 

ট্রান্সনিস্ট্রিয়াতে মোতায়েনকৃত রুশ সেনারা সেন্ট পিটার্সবার্গে অবস্থিত রাশিয়ান সেনাবাহিনীর পশ্চিম সামরিক দফতরের আওতাধীন। অঞ্চলটির কোবাসনা গ্রামে রয়েছে পুরানো সোভিয়েত-শৈলীর গোলাবারুদ ডিপো।

 

কোবাসনায় প্রায় ২০ হাজার টন সোভিয়েত যুগের গোলাবারুদ মজুত রয়েছে। রয়েছে বার্লিন প্রাচীরের পতনের পর জার্মানি এবং সাবেক চেকোস্লোভাকিয়া থেকে মলদোভায় আনা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ-যুগের সোভিয়েত বিস্ফোরক সামগ্রীও।

 

নিজ সীমান্তের নিকটে এত বড় রুশ সামরিক উপস্থিতি এবং বিপুল গোলাবারুদ থাকায় ইউক্রেনে যুদ্ধের ঘনঘোরে মলদোভানদের কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়া স্বাভাবিক। দেশটির প্রাক্তন প্রতিরক্ষামন্ত্রী ভিটালি মারিনুটা বলছেন, ‘‘উত্তেজনা তীব্রতর হচ্ছে। তাই, আমি মনে করি আজকাল আমাদের উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ আছে।’’

দেশটি রাশিয়ার পরবর্তী লক্ষ্যবস্তু হওয়ার পেছনে গুরুতর যুক্তি দিয়েছেন সামরিক বিশ্লেষক এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নাটালিয়া আলবু। ওডেসার কাছে আসা রাশিয়ান সৈন্যরা ট্রান্সনিস্ট্রিয়ান অঞ্চলের সঙ্গে একটি সামরিক করিডোর তৈরি করতে চায় বলে মত তার।

আলবু বলেন, ‘‘যদিও আমাদের ট্রান্সনিস্ট্রিয়ান বিচ্ছিন্নতাবাদী অঞ্চলে একটি সুপ্ত পরিস্থিতি রয়েছে, তবু বলা যাচ্ছে এই মুহূর্তে সেখানে শান্তি এবং শান্ত রয়েছে। এটি ইউক্রেনের পরিস্থিতি কীভাবে বিকশিত হবে তার উপর নির্ভর করে। যদি রাশিয়ানরা ওডেসায় যায় তবে এই সংযোগ বিপজ্জনক।’’ তিনি বলেন, ‘‘রাশিয়ার লক্ষ্য অঞ্চলটিতে একটি করিডোর তৈরি করা যা মস্কো নিয়ন্ত্রণ করে।’’

 

৩ মার্চ ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যপদ পাওয়ার জন্য আবেদন দাখিল করেছিল মলদোভা। একই কারণে ইউক্রেনের ওপর খড়গ হস্ত হয়েছে রাশিয়া। ফলে দেশটির নাগরিকরা এই ভেবে আতঙ্কগ্রস্ত হচ্ছেন, রাশিয়ার পরবর্তী লক্ষ্য মলদোভা। অনুরূপ আবেদনের পর প্রতিবেশি জর্জিয়ার ওপর রাশিয়ার প্রতিক্রিয়া স্মরণে রয়েছে তাদের।

 

মলদোভান একাডেমি অব সায়েন্সেসের গবেষক ফর ভ্লাদ শঙ্কা প্রকাশ করেছেন, ইউক্রেনের পর সোভিয়েত ইউনিয়নের অন্যান্য প্রাক্তন অঞ্চলগুলোতে আক্রমণ প্রসারিত করতে পারে মস্কো। ভ্লাদ বলছেন, ‘‘রাশিয়ানরা ওডেসায় নাও থামতে পারে, ট্রান্সনিস্ট্রিয়া এবং মলদোভায় আসতে পারে। আমি আশা করি এটি ঘটবে না, তবে সম্ভাবনা সবসময়ই আছে।’’  সূত্র: ইউরোনিউজ

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com