নৃশংস হত্যাকাণ্ডে অংশ নিয়েও স্বাভাবিক ছিলেন অনজিৎ-অসীত!

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে ফার্মেসির ভেতরে প্রবাসীর স্ত্রীর ছয় টুকরা লাশের রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

 

এ ঘটনায় জড়িত মূলহোতাসহ তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এরপরেই হত্যার চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন জিতেশ চন্দ্র গোপ (৩০), অনজিৎ চন্দ্র গোপ (৩৮) ও অসীত চন্দ্র গোপ (৩৬)।

 

জগন্নাথপুর পৌর শহরের ব্যবসায়ী ও স্থানীয়দের মধ্যে এখন প্রশ্ন-কী করে একজন নারীকে কেটে ছয় টুকরা করে হত্যার পরও অতি স্বাভাবিকভাবে সংঘটিত ক্রাইম স্পটের পাশেই ব্যবসা পরিচালনা করছে খুনিরা! আতঙ্কের কোনো ছাপ ছিল না তাদের চেহারায়। এ তো সিনেমা বা নাটকের গল্পকেও হার মানায়। এসব কথা এখন ঘুরে বেড়াচ্ছে সাধারণ মানুষের মধ্যে।

গত ১৬ ফেব্রুয়ারি বুধবার ওষুধ কেনার কথা বলে বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হয়েছিলেন এক সৌদিপ্রবাসীর স্ত্রী।

 

পরদিন পৌর শহরের একটি তালাবদ্ধ ফার্মেসি থেকে ওই নারীর ছয় টুকরা মরদেহ উদ্ধার করা হয়। শনিবার সিআইডির পক্ষ থেকে জানানো হয় হত্যাকাণ্ডের কারণ। জড়িত তিনজনের মধ্যে জিতেশ ঘটনার পর পলাতক ছিল। তাকে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে ঢাকায় গ্রেফতার করে সিআইডি। অপর গ্রেফতারকৃত অনজিৎ গোপ ও অসীত এ দু’জন বীভৎস হত্যাকাণ্ডের পরও স্বাভাবিকভাবে ব্যবসা পরিচালনা করছিল নিজ নিজ দোকানে।

 

এ বিষয়ে জগন্নাথপুর বাজারের ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা জানান, নিহত নারীর মরদেহ উদ্ধারের সময় ফার্মেসির পাশেই নিজ মুদি দোকানে ব্যবসা পরিচালনা করছিল অনজিৎ গোপ। অন্যান্য দিনের মতোই স্বাভাবিক ছিল সে। তার মতোই স্বাভাবিক ছিল পাশের দোকানের অরূপ ফার্মেসির মালিক অসীত গোপও। শুক্রবার রাতে দু’জনকে সিআইডি পুলিশ ধরে নিয়ে যায়। হত্যাকাণ্ডে এ দুজন জড়িত-এ খবর ছড়িয়ে পড়লে হতবাক হয়ে যায় ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা।

 

স্থানীয় এক ব্যক্তি বলেন, ‌’মরদেহ উদ্ধারের সময় ফার্মেসির পাশেই মুদি দোকানে অনজিৎকে দেখেছি একদম স্বাভাবিক। জিতেশ ঘটনার রাতে সাড়ে ৯টার দিকে তার দোকান থেকে আলু কিনে নিয়ে গেছে অনজিৎ। এ খুনের ঘটনায় অনজিৎও জড়িত শুনে হতবাক আমি। কী করে এমন নৃশংস হত্যাকাণ্ডে জড়িত থেকেও মানুষ অতি স্বাভাবিক থাকতে পারে!’

গোবিন্দ নামে এক ব্যবসায়ী বলেন, ‘লাশ উদ্ধারের সময় অসীতও তার ওষুধের দোকানে স্বাভাবিক অবস্থায় ছিল। একটি বীভৎস হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে এত স্বাভাবিক থাকতে পারা বিশ্বাসই হয় না। এমন ঘটনায় সিনেমাকেও হার মানায়।

জগন্নাথপুর বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাহির উদ্দিন বলেন, ‘লোমহর্ষক এ হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের ফাঁসি দাবি করছি।

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» সামগ্রিক উন্নয়নে তৃণমূলে নারীদের স্বাবলম্বী করতে হবে: স্পিকার

» মণ্ডপে জঙ্গি হামলার ঝুঁকি উড়িয়ে দেওয়া যায় না : ডিএমপি কমিশনার

» আন্দোলনের ঘোষণায় ১৩ বছর, মানুষ বাঁচে কয় বছর: বিএনপিকে ওবায়দুল কাদের

» শেখ হাসিনা হাল না ধরলে যুগ যুগ ধরে মিলিটারি শাসন থাকত : পরশ

» তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থায় ফিরে যাওয়ার সুযোগ নেই: আইনমন্ত্রী

» সালমান খানের ভয়ে কাঁপেন, কেন বললেন জারিন খান

» যানজট এড়াতে যে শহরে চালু হচ্ছে হেলিকপ্টার সেবা

» শাহবাগ থেকে ১ হাজার ইয়াবাসহ মাদক কারবারি গ্রেফতার

» বিএনপির আন্দোলনে সারাদেশে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে : গয়েশ্বর

» মা হওয়ার জন্য বাবা জরুরি নয়: জ্যোতি

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

নৃশংস হত্যাকাণ্ডে অংশ নিয়েও স্বাভাবিক ছিলেন অনজিৎ-অসীত!

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে ফার্মেসির ভেতরে প্রবাসীর স্ত্রীর ছয় টুকরা লাশের রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

 

এ ঘটনায় জড়িত মূলহোতাসহ তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এরপরেই হত্যার চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন জিতেশ চন্দ্র গোপ (৩০), অনজিৎ চন্দ্র গোপ (৩৮) ও অসীত চন্দ্র গোপ (৩৬)।

 

জগন্নাথপুর পৌর শহরের ব্যবসায়ী ও স্থানীয়দের মধ্যে এখন প্রশ্ন-কী করে একজন নারীকে কেটে ছয় টুকরা করে হত্যার পরও অতি স্বাভাবিকভাবে সংঘটিত ক্রাইম স্পটের পাশেই ব্যবসা পরিচালনা করছে খুনিরা! আতঙ্কের কোনো ছাপ ছিল না তাদের চেহারায়। এ তো সিনেমা বা নাটকের গল্পকেও হার মানায়। এসব কথা এখন ঘুরে বেড়াচ্ছে সাধারণ মানুষের মধ্যে।

গত ১৬ ফেব্রুয়ারি বুধবার ওষুধ কেনার কথা বলে বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হয়েছিলেন এক সৌদিপ্রবাসীর স্ত্রী।

 

পরদিন পৌর শহরের একটি তালাবদ্ধ ফার্মেসি থেকে ওই নারীর ছয় টুকরা মরদেহ উদ্ধার করা হয়। শনিবার সিআইডির পক্ষ থেকে জানানো হয় হত্যাকাণ্ডের কারণ। জড়িত তিনজনের মধ্যে জিতেশ ঘটনার পর পলাতক ছিল। তাকে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে ঢাকায় গ্রেফতার করে সিআইডি। অপর গ্রেফতারকৃত অনজিৎ গোপ ও অসীত এ দু’জন বীভৎস হত্যাকাণ্ডের পরও স্বাভাবিকভাবে ব্যবসা পরিচালনা করছিল নিজ নিজ দোকানে।

 

এ বিষয়ে জগন্নাথপুর বাজারের ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা জানান, নিহত নারীর মরদেহ উদ্ধারের সময় ফার্মেসির পাশেই নিজ মুদি দোকানে ব্যবসা পরিচালনা করছিল অনজিৎ গোপ। অন্যান্য দিনের মতোই স্বাভাবিক ছিল সে। তার মতোই স্বাভাবিক ছিল পাশের দোকানের অরূপ ফার্মেসির মালিক অসীত গোপও। শুক্রবার রাতে দু’জনকে সিআইডি পুলিশ ধরে নিয়ে যায়। হত্যাকাণ্ডে এ দুজন জড়িত-এ খবর ছড়িয়ে পড়লে হতবাক হয়ে যায় ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা।

 

স্থানীয় এক ব্যক্তি বলেন, ‌’মরদেহ উদ্ধারের সময় ফার্মেসির পাশেই মুদি দোকানে অনজিৎকে দেখেছি একদম স্বাভাবিক। জিতেশ ঘটনার রাতে সাড়ে ৯টার দিকে তার দোকান থেকে আলু কিনে নিয়ে গেছে অনজিৎ। এ খুনের ঘটনায় অনজিৎও জড়িত শুনে হতবাক আমি। কী করে এমন নৃশংস হত্যাকাণ্ডে জড়িত থেকেও মানুষ অতি স্বাভাবিক থাকতে পারে!’

গোবিন্দ নামে এক ব্যবসায়ী বলেন, ‘লাশ উদ্ধারের সময় অসীতও তার ওষুধের দোকানে স্বাভাবিক অবস্থায় ছিল। একটি বীভৎস হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে এত স্বাভাবিক থাকতে পারা বিশ্বাসই হয় না। এমন ঘটনায় সিনেমাকেও হার মানায়।

জগন্নাথপুর বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাহির উদ্দিন বলেন, ‘লোমহর্ষক এ হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের ফাঁসি দাবি করছি।

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com