15 August shok banner

দলের হাইব্রিড ও আগাছারাই সরকারের জন্য বিপজ্জনক

হাসিনা আকতার নিগার:পেটে ভাতে দিন চলে গেলেই হলো – এমন মানসিকতা এখন দেশের সাধারণ মানুষের। বিশেষ করে কোভিড-১৯ সারা পৃথিবীকে বদলে দিয়েছে। মৃত্যুভয় তাড়া করে সর্বক্ষণ। আর্থিকভাবে মানুষের টানাপোড়ন নিত্যকার জীবনের চালচিত্র। এ অবস্থায় দেশ-রাজনীতি হয়ে গেছে বিশেষ কিছু মানুষের আলোচ্য বিষয়। আর সে দলে রাজনৈতিক আদর্শের চেয়ে নিজের স্বার্থসিদ্ধ করার লোক সংখ্যাই বেশি। তবে এ অবস্থার জন্য দায়ী হলো, শুদ্ধ রাজনৈতিক চর্চার অভাব। 

 

বিশেষভাবে সরকার সমর্থিত আওয়ামী লীগের কর্মী ও সমর্থক এখন সারাদেশে এতো বেশি যে, তা দেখে মনে হয় দেশে আর কোন দল নাই। এর কারণ একটাই দীর্ঘ মেয়াদি আওয়ামী সরকার। চিন্তা-চেতনা ও মননে আওয়ামী লীগার না হয়েও প্রকাশ্যে আওয়ামী প্রেমীর ভান ধরে পদ-পদবি ধারণ করে ব্যবসা বাণিজ্য কিংবা ক্ষমতার অপব্যবহার করার এখন সহজলভ্য। কারণ পদ পেতে আজকাল আর দলের আদর্শ বা ত্যাগী নেতা হতে হয় না। বরং স্বর্ণলতার মত পরগাছা হয়েই সুযোগ-সুবিধা বেশি পাওয়া সম্ভব। তাই আওয়ামী রাজনীতিতে আগাছাদের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। আর এই আগাছারই সরকার, প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর জন্য ক্রমশ বিপদজনক হয়ে উঠছে।

 

সাধারণ মানুষ নীরবে সব কিছু হয়তো বা সহ্য করছে। তবে এ সহ্যশক্তি কতদিন ধরে রাখতে পারবে তা ভাবতে হবে দলকে। এলাকাভিত্তিক রাজনীতি বলতে গেলে এখন নিয়ন্ত্রণহীন। উঠতি যুব সমাজের দাপট দেখে দলের পুরনো ত্যাগী নেতাকর্মীরা ও হতবাক হয়। এমন কি সরকারের প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর উপর তাদের এতটাই প্রভাব যা দেখে সাধারণ মানুষ আতঙ্কিত হয়। মিথ্যে আওয়ামী লেবাসে এসব ব্যক্তির   নিজেকে জাহির করার প্রবণতা ব্যক্তি নয় দলকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে জনগণের কাছে। এক সময় বলা হতো দল হাইব্রিডদের দখল। আর এখন বলা যায় হাইব্রিডদের পাশাপাশি দল আগাছাদেরও কবলে। এ আগাছারা কোন দিন দলের দুঃসময়ের বন্ধু হবে না। এরা কেবল সরকারের উন্নয়নের পথ চলাতে বন্ধুরতা সৃষ্টি করছে। যদি দেশে সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন হয় তবে তার প্রমাণ মিলবে আগামী নির্বাচনে।

যেখানে সরকার প্রধান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনগণের জীবনযাত্রার উন্নয়নের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে; সেখানে একটা মুজিব কোট পরিধান করেই রাতারাতি আওয়ামী লীগ বনে যাওয়া ব্যক্তিদের বিশ্বাস করা ভুল। কারণ এরা তাদের কার্যকলাপে বারবার প্রমাণ করে ‘বাঁশের চেয়ে কঞ্চি বড়।’ তা না হলে দেশে দুর্নীতি শব্দটা এতোদিনে হারিয়ে যেতে, যদি প্রধানমন্ত্রীর দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের নীতি অনুসরণ করতো।

 

প্রশাসন, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীসহ অন্যান্য সেক্টরে যে ধরনের অন্যায়, দুর্নীতি বিদ্যমান তার অন্তরালে কারা কিভাবে কাজ করছে তা খতিয়ে দেখা খুবই জরুরি দলের স্বার্থে। কারণ সরকার আসে সরকার যায়। কিন্তু দল টিকে থাকে তার আদর্শ আর ত্যাগী নেতা কর্মীদের সংগ্রাম ও সাধারণ মানুষের ভালোবাসা নিয়ে। দেশের সব মানুষ সরাসরি রাজনীতি করে না। কিন্তু তারা নিজেদের বিশ্বাস, ভালোবাসা, দেশপ্রেম, দলের আদর্শ ও নেতা কর্মীদের কর্ম দিয়ে দলের সমর্থক হয়। নির্বাচনে ভোট দিয়ে দলকে জয় করে দলে জনগণের জন্য কাজ করবে এ চিন্তা করে।

 

দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, বর্তমানে দেশের মানুষ মনে করে, ‘সরকার দলে আছি’ এ কথাটা কোনভাবেই প্রকাশ করতে পারলে একটু ভালো থাকতে পারবো। এখানে  মুক্তিযুদ্ধ, দেশ প্রেম, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু এতো কিছু নিয়ে চিন্তার প্রয়োজন নেই। নিজেকে সমস্যা মুক্ত রাখতে আওয়ামী লীগ করাই শ্রেয়। কারণ সারা দেশ আওয়ামী লীগ আর কে সত্যিকারের আওয়ামী লীগ তা কেউ দেখার নেই।

 

অন্যদিকে যারা সরকার দলের লেবাস নিয়ে অনিয়ম দুর্নীতির সাথে হাত মিলিয়ে বিত্তশালী হয়ে উঠেছে তারা রাজনৈতিক অঙ্ক কষে আগামী নির্বাচন নিয়ে চিন্তা করে না। তাদের ভাবনা হলো আওয়ামী সরকার ক্ষমতায় না আসলে তাদের ধস নামবে। কারণ এরা ত্যাগী নেতাকর্মী কিংবা হাইব্রিড নয়, এরা হলো দলের আগাছা। এদের কাছে শেখ হাসিনা আর আওয়ামী লীগ রাজনৈতিক দর্শন নয়। বরং আওয়ামী সরকার হলো তাদের মিথ্যা লেবাসে ক্ষমতা পাওয়ার সিঁড়ি। আর এ সিঁড়ি যে কোনভাবে নির্বাচনে করে আবার ক্ষমতা এলে তাদের জীবনের ভোগ বিলাস বাড়বে বৈ কমবে না। তাই এরা জনগণের ভোটাধিকারকে বিঘ্ন ঘটাতে ও কুণ্ঠাবোধ করে না। যার প্রমাণ দেখা যায় জাতীয় ও স্থানীয় নির্বাচনে। সুতরাং কালক্ষেপণ না করে দলের নাম আর মুজিব কোটধারী এসব আগাছাকে উপড়ে ফেলার দিকে দৃষ্টি দেয়াটা উচিত সরকার ও দলের সত্যিকারের নেতাকর্মীদের।

লেখক : কলামিস্ট।  সূএ:বাংলাদেশ প্রতিদিন

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ব্রাজিলের বিশ্বকাপ জার্সি উন্মোচন করলেন রোনালদো

» রাজনীতিতে জনবিচ্ছিন্নদের ৭ দলীয় জোট গুরুত্বহীন: তথ্য ও সম্প্রচার

» যতই ষড়যন্ত্র করুক না কেন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের ঊর্ধ্ব সোপানে এগিয়ে যাবেই-ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

» নওগাঁয় ডিবি’র অভিযানে ১০ কেজি গাঁজাসহ আটক-২

» ইসলামপুরে প্রাণিসম্পদ দপ্তরে মোবাইল ভেটেরিনারি ক্লিনিক উদ্বোধন 

» মাসখানেক পর সব ঠিক হয়ে যাবে: পরিকল্পনামন্ত্রী

» জিএম কাদেরের সঙ্গে মার্কিন দূতাবাস প্রতিনিধিদলের সাক্ষাৎ

» হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় লেফটেন্যান্ট কর্নেল ইসমাইল মারা গেছেন

» কালো শাড়িতে নজর কাড়লেন শ্রাবন্তী, নেটিজেনরা বললেন- মনটা সাদা তো?

» নিরাপদে বাড়ি ফেরার গ্যারান্টি নেই: মির্জা ফখরুল

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

দলের হাইব্রিড ও আগাছারাই সরকারের জন্য বিপজ্জনক

হাসিনা আকতার নিগার:পেটে ভাতে দিন চলে গেলেই হলো – এমন মানসিকতা এখন দেশের সাধারণ মানুষের। বিশেষ করে কোভিড-১৯ সারা পৃথিবীকে বদলে দিয়েছে। মৃত্যুভয় তাড়া করে সর্বক্ষণ। আর্থিকভাবে মানুষের টানাপোড়ন নিত্যকার জীবনের চালচিত্র। এ অবস্থায় দেশ-রাজনীতি হয়ে গেছে বিশেষ কিছু মানুষের আলোচ্য বিষয়। আর সে দলে রাজনৈতিক আদর্শের চেয়ে নিজের স্বার্থসিদ্ধ করার লোক সংখ্যাই বেশি। তবে এ অবস্থার জন্য দায়ী হলো, শুদ্ধ রাজনৈতিক চর্চার অভাব। 

 

বিশেষভাবে সরকার সমর্থিত আওয়ামী লীগের কর্মী ও সমর্থক এখন সারাদেশে এতো বেশি যে, তা দেখে মনে হয় দেশে আর কোন দল নাই। এর কারণ একটাই দীর্ঘ মেয়াদি আওয়ামী সরকার। চিন্তা-চেতনা ও মননে আওয়ামী লীগার না হয়েও প্রকাশ্যে আওয়ামী প্রেমীর ভান ধরে পদ-পদবি ধারণ করে ব্যবসা বাণিজ্য কিংবা ক্ষমতার অপব্যবহার করার এখন সহজলভ্য। কারণ পদ পেতে আজকাল আর দলের আদর্শ বা ত্যাগী নেতা হতে হয় না। বরং স্বর্ণলতার মত পরগাছা হয়েই সুযোগ-সুবিধা বেশি পাওয়া সম্ভব। তাই আওয়ামী রাজনীতিতে আগাছাদের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। আর এই আগাছারই সরকার, প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর জন্য ক্রমশ বিপদজনক হয়ে উঠছে।

 

সাধারণ মানুষ নীরবে সব কিছু হয়তো বা সহ্য করছে। তবে এ সহ্যশক্তি কতদিন ধরে রাখতে পারবে তা ভাবতে হবে দলকে। এলাকাভিত্তিক রাজনীতি বলতে গেলে এখন নিয়ন্ত্রণহীন। উঠতি যুব সমাজের দাপট দেখে দলের পুরনো ত্যাগী নেতাকর্মীরা ও হতবাক হয়। এমন কি সরকারের প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর উপর তাদের এতটাই প্রভাব যা দেখে সাধারণ মানুষ আতঙ্কিত হয়। মিথ্যে আওয়ামী লেবাসে এসব ব্যক্তির   নিজেকে জাহির করার প্রবণতা ব্যক্তি নয় দলকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে জনগণের কাছে। এক সময় বলা হতো দল হাইব্রিডদের দখল। আর এখন বলা যায় হাইব্রিডদের পাশাপাশি দল আগাছাদেরও কবলে। এ আগাছারা কোন দিন দলের দুঃসময়ের বন্ধু হবে না। এরা কেবল সরকারের উন্নয়নের পথ চলাতে বন্ধুরতা সৃষ্টি করছে। যদি দেশে সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন হয় তবে তার প্রমাণ মিলবে আগামী নির্বাচনে।

যেখানে সরকার প্রধান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনগণের জীবনযাত্রার উন্নয়নের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে; সেখানে একটা মুজিব কোট পরিধান করেই রাতারাতি আওয়ামী লীগ বনে যাওয়া ব্যক্তিদের বিশ্বাস করা ভুল। কারণ এরা তাদের কার্যকলাপে বারবার প্রমাণ করে ‘বাঁশের চেয়ে কঞ্চি বড়।’ তা না হলে দেশে দুর্নীতি শব্দটা এতোদিনে হারিয়ে যেতে, যদি প্রধানমন্ত্রীর দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের নীতি অনুসরণ করতো।

 

প্রশাসন, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীসহ অন্যান্য সেক্টরে যে ধরনের অন্যায়, দুর্নীতি বিদ্যমান তার অন্তরালে কারা কিভাবে কাজ করছে তা খতিয়ে দেখা খুবই জরুরি দলের স্বার্থে। কারণ সরকার আসে সরকার যায়। কিন্তু দল টিকে থাকে তার আদর্শ আর ত্যাগী নেতা কর্মীদের সংগ্রাম ও সাধারণ মানুষের ভালোবাসা নিয়ে। দেশের সব মানুষ সরাসরি রাজনীতি করে না। কিন্তু তারা নিজেদের বিশ্বাস, ভালোবাসা, দেশপ্রেম, দলের আদর্শ ও নেতা কর্মীদের কর্ম দিয়ে দলের সমর্থক হয়। নির্বাচনে ভোট দিয়ে দলকে জয় করে দলে জনগণের জন্য কাজ করবে এ চিন্তা করে।

 

দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, বর্তমানে দেশের মানুষ মনে করে, ‘সরকার দলে আছি’ এ কথাটা কোনভাবেই প্রকাশ করতে পারলে একটু ভালো থাকতে পারবো। এখানে  মুক্তিযুদ্ধ, দেশ প্রেম, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু এতো কিছু নিয়ে চিন্তার প্রয়োজন নেই। নিজেকে সমস্যা মুক্ত রাখতে আওয়ামী লীগ করাই শ্রেয়। কারণ সারা দেশ আওয়ামী লীগ আর কে সত্যিকারের আওয়ামী লীগ তা কেউ দেখার নেই।

 

অন্যদিকে যারা সরকার দলের লেবাস নিয়ে অনিয়ম দুর্নীতির সাথে হাত মিলিয়ে বিত্তশালী হয়ে উঠেছে তারা রাজনৈতিক অঙ্ক কষে আগামী নির্বাচন নিয়ে চিন্তা করে না। তাদের ভাবনা হলো আওয়ামী সরকার ক্ষমতায় না আসলে তাদের ধস নামবে। কারণ এরা ত্যাগী নেতাকর্মী কিংবা হাইব্রিড নয়, এরা হলো দলের আগাছা। এদের কাছে শেখ হাসিনা আর আওয়ামী লীগ রাজনৈতিক দর্শন নয়। বরং আওয়ামী সরকার হলো তাদের মিথ্যা লেবাসে ক্ষমতা পাওয়ার সিঁড়ি। আর এ সিঁড়ি যে কোনভাবে নির্বাচনে করে আবার ক্ষমতা এলে তাদের জীবনের ভোগ বিলাস বাড়বে বৈ কমবে না। তাই এরা জনগণের ভোটাধিকারকে বিঘ্ন ঘটাতে ও কুণ্ঠাবোধ করে না। যার প্রমাণ দেখা যায় জাতীয় ও স্থানীয় নির্বাচনে। সুতরাং কালক্ষেপণ না করে দলের নাম আর মুজিব কোটধারী এসব আগাছাকে উপড়ে ফেলার দিকে দৃষ্টি দেয়াটা উচিত সরকার ও দলের সত্যিকারের নেতাকর্মীদের।

লেখক : কলামিস্ট।  সূএ:বাংলাদেশ প্রতিদিন

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com