চার বছরে দ্বিগুণ দাম, সয়াবিনের বিকল্প ভাবছেন ক্রেতারা!

চার বছরের ব্যবধানে দ্বিগুণ হয়েছে সয়াবিন তেলের দাম। ২০১৮ সালে নিত্য প্রয়োজনীয় এই পণ্যটির বাজার মূল্য ছিল শতকের নিচে। সেসময় প্রতিলিটার খোলা সয়াবিন তেল মিলেছে ৮২ থেকে ৮৫ টাকায়। আর চার বছরে ধাপে ধাপে দাম বাড়তে বাড়তে সে দর দাঁড়িয়েছে ১৬৮ টাকায়। অর্থাৎ চার বছরে তেলের দাম হয়েছে দ্বিগুণ।

 

সয়াবিন তেলের এইমূল্য বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে বিকল্প ভাবছেন ক্রেতারা। সরকারকে এ ব্যাপারে উদ্যোগী হবে বলে আশা করছেন তারা। সরেজমিনে রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে তেলের দামের খোঁজ নিতে গেলে এমনই আশার কথা জানা যায় ক্রেতাদের কাছে।

 

বাজার মূল্যের সর্বশেষ অবস্থা দেখতে গতকাল রাজধানীর বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায় প্রতিলিটার খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকায়। আর বোতলজাত সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৬৮ টাকা দরে।

 

ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বর্তমানে বাজারে নতুন আসা এক লিটার তেলের বোতলে মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১৬৫ থেকে ১৬৮ টাকা, যা দুই সপ্তাহ আগে ছিল ১৬০ টাকা। একই সময়ে বেড়েছে পাঁচ লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম। ৭৬০ টাকা থেকে বেড়ে দাম বাড়িয়েছে ৭৮৫ থেকে ৮০০ টাকায়।

 

বোতলজাতের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে খোলা তেলের দাম। খুচরা বাজারে প্রতিলিটার সয়াবিন তেল কিনতে ক্রেতাকে গুনতে হচ্ছে ১৫৫ থেকে ১৬০ টাকা। দুই সপ্তাহ আগেও এই দামছিল ১৫০ থেকে ১৫৫ টাকা। ১৩০ থেকে ১৩৫ টাকা দরে দুই সপ্তাহ আগে বিক্রি হওয়া পাম অয়েল তেলের দাম এখন ১৩৫-১৪০ টাকা।

 

নিত্যপণ্যের এমন দর বৃদ্ধির কারণে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের মানুষের মধ্যে অসন্তোষ দেখা গেছে। ক্রেতারা বলছেন, ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের মুখে সরকারের অবস্থান আরও শক্ত করা প্রয়োজন।

 

রাজধানীর মোহাম্মদপুরের শিয়া মসজিদ বাজারে শুক্রবার সকালে বাজার করতে আসা মো. সোহেল ঢাকাটাইমসকে জানান, বাজার খরচের একটা বড় এখনই এখন চলে যাচ্ছে তেল কিনতে।

 

সোহেল বলেন, ‘চার বছরে একটা পণ্যের দাম লিটারে ২০-২৫ টাকা বাড়তে পারে। সেটা মানা যায়। কিন্তু দ্বিগুণ হয়ে গেল, সেটা তো মানা যায় না।

 

তেলের মূল্য বৃদ্ধির পেছনে বরাবরই বড় ব্যবসায়ীরা আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের কাঁচামালের দর বৃদ্ধির অজুহাত দিচ্ছেন। সয়াবিনের বিকল্প ভাবতে সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন সাধারণ মানুষ।

 

খিলগাঁও কাঁচাবাজারে বাজার করতে আসা রবিন হাসান ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আমাদের মা-খালারা ছোট বেলায় সরিষার তেল দিয়ে রান্না করত। কিন্তু সরিষার তেলটাকে এখন নাগালের বাইরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সে জায়গাটা নিল সয়াবিন। স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর হলেও মানুষ খাচ্ছে। এখন সেটারও এভাবে দাম বাড়ালে কীভাবে হবে? সরকার কি এর বিকল্প কিছু ভাবতে পারছে না?

 

একইবাজারে বাজার করতে আসা সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘কিছুদিন পরপরই তেলের দাম বাড়ে। ১৬০ টাকা করে তেল কিনতে হচ্ছে। করোনার মধ্যে এভাবে দাম বাড়তে থাকলে আমাদের তো জীবিকা কঠিন হয়ে যাবে।

 

একই ক্ষোভের কথা জানান হারুণ-অর-রশিদ নামের আরেক ক্রেতা। তিনি বলেন, ‘যেভাবে তেলের দাম বাড়ছে, কিছুদিন পর দেখা যাবে ২০০ টাকায় গিয়ে ঠেকেছে।এখন বিকল্প ভাবতে হবে।

সূএ:ঢাকাটাইমস ডটকম

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» দুর্ভিক্ষের আগে দুর্বৃত্ত সরকারকে বিদায় দিতে হবে: নুর

» কলা হাতে কী বার্তা দিলেন শ্রীলেখা?

» ‘সুস্থ মানবসম্পদ তৈরির অন্যতম মাধ্যম খেলাধুলা’

» ভোটকেন্দ্র কমিটি করে এখন থেকেই প্রস্তুতি নিন: ফারুক খান

» জনসভায় যাওয়ার চিন্তা থাকলে খালেদা জেলে যাবেন: তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী

» কোম্পানীগঞ্জে আ.লীগের নেতৃত্বে কাদের মির্জা-বাদল

» পাড়া উৎস হবে ঢাকা শহরের সব এলাকায় : আতিক

» রাজধানীতে বাবার সঙ্গে অভিমানে ছেলের আত্মহত্যা

» পাঁচবিবিতে মেয়র কাপ মিনি ফুটবল নাইট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন

» পাহাড়ের পরিবেশ অশান্ত করেছেন জিয়া: সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

চার বছরে দ্বিগুণ দাম, সয়াবিনের বিকল্প ভাবছেন ক্রেতারা!

চার বছরের ব্যবধানে দ্বিগুণ হয়েছে সয়াবিন তেলের দাম। ২০১৮ সালে নিত্য প্রয়োজনীয় এই পণ্যটির বাজার মূল্য ছিল শতকের নিচে। সেসময় প্রতিলিটার খোলা সয়াবিন তেল মিলেছে ৮২ থেকে ৮৫ টাকায়। আর চার বছরে ধাপে ধাপে দাম বাড়তে বাড়তে সে দর দাঁড়িয়েছে ১৬৮ টাকায়। অর্থাৎ চার বছরে তেলের দাম হয়েছে দ্বিগুণ।

 

সয়াবিন তেলের এইমূল্য বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে বিকল্প ভাবছেন ক্রেতারা। সরকারকে এ ব্যাপারে উদ্যোগী হবে বলে আশা করছেন তারা। সরেজমিনে রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে তেলের দামের খোঁজ নিতে গেলে এমনই আশার কথা জানা যায় ক্রেতাদের কাছে।

 

বাজার মূল্যের সর্বশেষ অবস্থা দেখতে গতকাল রাজধানীর বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায় প্রতিলিটার খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকায়। আর বোতলজাত সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৬৮ টাকা দরে।

 

ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বর্তমানে বাজারে নতুন আসা এক লিটার তেলের বোতলে মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১৬৫ থেকে ১৬৮ টাকা, যা দুই সপ্তাহ আগে ছিল ১৬০ টাকা। একই সময়ে বেড়েছে পাঁচ লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম। ৭৬০ টাকা থেকে বেড়ে দাম বাড়িয়েছে ৭৮৫ থেকে ৮০০ টাকায়।

 

বোতলজাতের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে খোলা তেলের দাম। খুচরা বাজারে প্রতিলিটার সয়াবিন তেল কিনতে ক্রেতাকে গুনতে হচ্ছে ১৫৫ থেকে ১৬০ টাকা। দুই সপ্তাহ আগেও এই দামছিল ১৫০ থেকে ১৫৫ টাকা। ১৩০ থেকে ১৩৫ টাকা দরে দুই সপ্তাহ আগে বিক্রি হওয়া পাম অয়েল তেলের দাম এখন ১৩৫-১৪০ টাকা।

 

নিত্যপণ্যের এমন দর বৃদ্ধির কারণে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের মানুষের মধ্যে অসন্তোষ দেখা গেছে। ক্রেতারা বলছেন, ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের মুখে সরকারের অবস্থান আরও শক্ত করা প্রয়োজন।

 

রাজধানীর মোহাম্মদপুরের শিয়া মসজিদ বাজারে শুক্রবার সকালে বাজার করতে আসা মো. সোহেল ঢাকাটাইমসকে জানান, বাজার খরচের একটা বড় এখনই এখন চলে যাচ্ছে তেল কিনতে।

 

সোহেল বলেন, ‘চার বছরে একটা পণ্যের দাম লিটারে ২০-২৫ টাকা বাড়তে পারে। সেটা মানা যায়। কিন্তু দ্বিগুণ হয়ে গেল, সেটা তো মানা যায় না।

 

তেলের মূল্য বৃদ্ধির পেছনে বরাবরই বড় ব্যবসায়ীরা আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের কাঁচামালের দর বৃদ্ধির অজুহাত দিচ্ছেন। সয়াবিনের বিকল্প ভাবতে সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন সাধারণ মানুষ।

 

খিলগাঁও কাঁচাবাজারে বাজার করতে আসা রবিন হাসান ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আমাদের মা-খালারা ছোট বেলায় সরিষার তেল দিয়ে রান্না করত। কিন্তু সরিষার তেলটাকে এখন নাগালের বাইরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সে জায়গাটা নিল সয়াবিন। স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর হলেও মানুষ খাচ্ছে। এখন সেটারও এভাবে দাম বাড়ালে কীভাবে হবে? সরকার কি এর বিকল্প কিছু ভাবতে পারছে না?

 

একইবাজারে বাজার করতে আসা সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘কিছুদিন পরপরই তেলের দাম বাড়ে। ১৬০ টাকা করে তেল কিনতে হচ্ছে। করোনার মধ্যে এভাবে দাম বাড়তে থাকলে আমাদের তো জীবিকা কঠিন হয়ে যাবে।

 

একই ক্ষোভের কথা জানান হারুণ-অর-রশিদ নামের আরেক ক্রেতা। তিনি বলেন, ‘যেভাবে তেলের দাম বাড়ছে, কিছুদিন পর দেখা যাবে ২০০ টাকায় গিয়ে ঠেকেছে।এখন বিকল্প ভাবতে হবে।

সূএ:ঢাকাটাইমস ডটকম

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com