আমার কাছে বোন আছে, বললেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী

অতীতের সুপারহিট বলিউড সিনেমা দিওয়ারের বিখ্যাত সংলাপকে সামান্য বদল করে বলছেন প্রিয়াঙ্কা। যারা দিওয়ার দেখেছেন, তারা জানেন, শশী কাপুর ওই সিনেমায় পুলিশ অফিসারের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন। তার ভাই অমিতাভ বচ্চন অসৎ পথে বহু অর্থ রোজগার করেছেন। এরপর অমিতাভ ভাইকে প্রশ্ন করছেন, আমার কাছে গাড়ি, বাংলো, ধনসম্পদ সব আছে, তোর কাছে কি আছে? শশী কাপুরের জবাব ছিল, আমার কাছে মা আছে। সিনেমায় সেই মায়ের শক্তিতে অমিতাভকে ছাপিয়ে গিয়েছিলেন শশী। আর প্রিয়াঙ্কা বোনের শক্তিতে নির্বাচনী যুদ্ধে জিততে চাইছেন।

 

প্রিয়াঙ্কার বোন

ভোট প্রচারে নেমে প্রিয়াঙ্কা যে সগর্বে বলছেন, ‘আমার কাছে বোন আছে’,  এই বোন তার সহোদরা নন, এই বোন হলেন ভারতের উত্তরপ্রদেশের নারীরা, যাদের ভরসায় প্রিয়াঙ্কা এবার কংগ্রেসের হাল ফেরাতে চাইছেন। গতবার সাতটি আসনে জেতা কংগ্রেসকে উজ্জীবাত করতে চাইছেন।

 

প্রচারে নেমে বাড়ি বাড়ি ঘুরছেন প্রিয়াঙ্কা। সোজা চলে যচ্ছেন অন্দরমহলে মা-বোনেদের কাছে। এমনিতেই প্রিয়াঙ্কার পাশের বাড়ির মেয়ের ভাবমূর্তি আছে। ফলে তিনি অন্দরমহলে মা-বোনেদের কাছে পৌঁছে যাচ্ছেন সহজেই।

 

এই প্রথম

সম্ভবত এই প্রথম কংগ্রেস কোনো বড় রাজ্যে ৪০ শতাংশ নারী প্রার্থী দিয়েছে। আর তাদের মধ্যে অনেকেই লড়াকু নারী। উন্নাওয়ের ধর্ষিতার মা আছেন, আশা কর্মী আছেন, নাগরিকত্ব আইন নিয়ে প্রতিবাদ করে জেলে যাওয়া অভিনেত্রী আছেন, আর আছেন লড়াকু মেয়েরা, যাদের প্রিয়াঙ্কা ও তার সঙ্গীরা বাছাই করেছেন।

 

মেয়েদের গুরুত্ব

ভারতের অধিকাংশ রাজ্যেই পুরুষ ও নারী ভোটারদের সংখ্যা প্রায় সমান। উত্তরপ্রদেশে গত কয়েকটি নির্বাচনের দিকে তাকালে দেখা যাবে, সেখানে নারীদের ভোট দেয়ার প্রবণতা বেড়েছে। গত বিধানসভায় মোট নারী ভোটদাতার ৬৩ শতাংশ ভোট দিয়েছিলেন। ফলে উত্তরপ্রদেশে মেয়েদের ভোটের গুরুত্ব বাড়ছে। এই মেয়েদের পাশে পেতেই প্রিয়াঙ্কা স্লোগান দিয়েছেন, ‘ম্যায় লড়কি হুঁ, ম্যায় লড় সকতি হুঁ’। মানে ‘আমি মেয়ে, আমি লড়তে পারি’।

 

কতটা সফল হবেন প্রিয়াঙ্কা?

গতবার উত্তরপ্রদেশে কংগ্রেস পেয়েছিল সাতটি আসন। প্রিয়াঙ্কা তার থেকে কতটা উন্নতি করতে পারবেন? তিনি মেয়েদের কতটা পাশে পাবেন? উত্তরপ্রদেশ বিশেষজ্ঞ প্রবীণ সাংবাদিক শরদ গুপ্তার মতে, ”কংগ্রেস খুব বেশি হলে ১০-১২টা আসন পাবে। তার বেশি নয়। তবে লক্ষ্য থাকবে, কংগ্রেসের ভোটপ্রাপ্তির হার কতটা বাড়ে তার উপর।”

 

শরদের প্রশ্ন, ”উত্তরপ্রদেশে কংগ্রেস ৪০ শতাংশ নারী প্রার্থী দিলেও গোয়া, পাঞ্জাব, মণিপুর, উত্তরাখণ্ডে কেন তারা মাত্র ১০ শতাংশ মেয়ে প্রার্থী দাঁড় করালো? কেন তারা ওই রাজ্যেও ৪০ শতাংশ মেয়েকে প্রার্থী করলো না?”  সূত্র : ডয়চে ভেলে, এনডিটিভি, পিটিআই 

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জুনেই পাওয়া যাবে আইএমএফের তৃতীয় কিস্তির টাকা: অর্থমন্ত্রী

» মরদেহ উদ্ধারে কলকাতা পুলিশকে সহযোগিতা করব : ডিবি প্রধান

» কী চমক নিয়ে আসছে স্যামসাং গ্যালাক্সি রিং?

» ‘সন্ধ্যা থেকে সোমবার সকাল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে বঙ্গবন্ধু টানেল’

» সাংবাদিক হেনস্তার ব্যাপারে আমরা সতর্ক আছি : কাদের

» ব্যাটারিচালিত রিকশাচালককে হত্যা

» বিশেষ অভিযান চালিয়ে মাদকবিরোধী অভিযানে বিক্রি ও সেবনের অপরাধে ২২জন গ্রেপ্তার

» একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন শুরু

» আইপিএল ফাইনালে আজ মুখোমুখি কলকাতা-হায়দরাবাদ

» চাঁদপুর-ঢাকা রুটে সব ধরনের নৌযান চলাচল বন্ধ

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

আমার কাছে বোন আছে, বললেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী

অতীতের সুপারহিট বলিউড সিনেমা দিওয়ারের বিখ্যাত সংলাপকে সামান্য বদল করে বলছেন প্রিয়াঙ্কা। যারা দিওয়ার দেখেছেন, তারা জানেন, শশী কাপুর ওই সিনেমায় পুলিশ অফিসারের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন। তার ভাই অমিতাভ বচ্চন অসৎ পথে বহু অর্থ রোজগার করেছেন। এরপর অমিতাভ ভাইকে প্রশ্ন করছেন, আমার কাছে গাড়ি, বাংলো, ধনসম্পদ সব আছে, তোর কাছে কি আছে? শশী কাপুরের জবাব ছিল, আমার কাছে মা আছে। সিনেমায় সেই মায়ের শক্তিতে অমিতাভকে ছাপিয়ে গিয়েছিলেন শশী। আর প্রিয়াঙ্কা বোনের শক্তিতে নির্বাচনী যুদ্ধে জিততে চাইছেন।

 

প্রিয়াঙ্কার বোন

ভোট প্রচারে নেমে প্রিয়াঙ্কা যে সগর্বে বলছেন, ‘আমার কাছে বোন আছে’,  এই বোন তার সহোদরা নন, এই বোন হলেন ভারতের উত্তরপ্রদেশের নারীরা, যাদের ভরসায় প্রিয়াঙ্কা এবার কংগ্রেসের হাল ফেরাতে চাইছেন। গতবার সাতটি আসনে জেতা কংগ্রেসকে উজ্জীবাত করতে চাইছেন।

 

প্রচারে নেমে বাড়ি বাড়ি ঘুরছেন প্রিয়াঙ্কা। সোজা চলে যচ্ছেন অন্দরমহলে মা-বোনেদের কাছে। এমনিতেই প্রিয়াঙ্কার পাশের বাড়ির মেয়ের ভাবমূর্তি আছে। ফলে তিনি অন্দরমহলে মা-বোনেদের কাছে পৌঁছে যাচ্ছেন সহজেই।

 

এই প্রথম

সম্ভবত এই প্রথম কংগ্রেস কোনো বড় রাজ্যে ৪০ শতাংশ নারী প্রার্থী দিয়েছে। আর তাদের মধ্যে অনেকেই লড়াকু নারী। উন্নাওয়ের ধর্ষিতার মা আছেন, আশা কর্মী আছেন, নাগরিকত্ব আইন নিয়ে প্রতিবাদ করে জেলে যাওয়া অভিনেত্রী আছেন, আর আছেন লড়াকু মেয়েরা, যাদের প্রিয়াঙ্কা ও তার সঙ্গীরা বাছাই করেছেন।

 

মেয়েদের গুরুত্ব

ভারতের অধিকাংশ রাজ্যেই পুরুষ ও নারী ভোটারদের সংখ্যা প্রায় সমান। উত্তরপ্রদেশে গত কয়েকটি নির্বাচনের দিকে তাকালে দেখা যাবে, সেখানে নারীদের ভোট দেয়ার প্রবণতা বেড়েছে। গত বিধানসভায় মোট নারী ভোটদাতার ৬৩ শতাংশ ভোট দিয়েছিলেন। ফলে উত্তরপ্রদেশে মেয়েদের ভোটের গুরুত্ব বাড়ছে। এই মেয়েদের পাশে পেতেই প্রিয়াঙ্কা স্লোগান দিয়েছেন, ‘ম্যায় লড়কি হুঁ, ম্যায় লড় সকতি হুঁ’। মানে ‘আমি মেয়ে, আমি লড়তে পারি’।

 

কতটা সফল হবেন প্রিয়াঙ্কা?

গতবার উত্তরপ্রদেশে কংগ্রেস পেয়েছিল সাতটি আসন। প্রিয়াঙ্কা তার থেকে কতটা উন্নতি করতে পারবেন? তিনি মেয়েদের কতটা পাশে পাবেন? উত্তরপ্রদেশ বিশেষজ্ঞ প্রবীণ সাংবাদিক শরদ গুপ্তার মতে, ”কংগ্রেস খুব বেশি হলে ১০-১২টা আসন পাবে। তার বেশি নয়। তবে লক্ষ্য থাকবে, কংগ্রেসের ভোটপ্রাপ্তির হার কতটা বাড়ে তার উপর।”

 

শরদের প্রশ্ন, ”উত্তরপ্রদেশে কংগ্রেস ৪০ শতাংশ নারী প্রার্থী দিলেও গোয়া, পাঞ্জাব, মণিপুর, উত্তরাখণ্ডে কেন তারা মাত্র ১০ শতাংশ মেয়ে প্রার্থী দাঁড় করালো? কেন তারা ওই রাজ্যেও ৪০ শতাংশ মেয়েকে প্রার্থী করলো না?”  সূত্র : ডয়চে ভেলে, এনডিটিভি, পিটিআই 

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। (দপ্তর সম্পাদক)  
উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা
 সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ,
ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন,
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু,
নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল :০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com