আগামী ৫০ বছরেও বিএনপির রাষ্ট্রের ক্ষমতায় আসার কোনো সুযোগ নেই :হানিফ

আগামী ৫০ বছরেও বিএনপির রাষ্ট্রের ক্ষমতায় আসার কোনো সুযোগ নেই। এ কারণে তারা হতাশ। আর হতাশ হয়েই তারা নানা ধরনের মিথ্যাচার করে রাস্তায় নামছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ।

 

তিনি বলেন, একের পর এক ধ্বংসাত্মক কর্মসূচি দিয়ে দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা তারা অব্যাহত রেখেছে। কারণ তারা জানে উন্নয়ন-অগ্রগতির ধারা যদি অব্যাহত থাকে এ দেশের জনগণ সবসময় শেখ হাসিনার প্রতি আস্থাশীল থাকবে।

শনিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গণে আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় তিনি এই কথা বলেন।

মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, কিছুদিন আগে বিএনপির নেতারা বললেন বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে, রাজনৈতিক কর্মসূচিও দেওয়া শুরু করলেন। তারা বিএনপি নেত্রীর মুক্তি চাইলেন। খালেদা জিয়া একজন দণ্ডপ্রাপ্ত কয়েদি। কারা বিধান অনুযায়ী তিনি সকল সুযোগ সুবিধা পেয়ে যাচ্ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর মানবিক দিক বিবেচনায় তিনি কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে বাসায় চিকিৎসা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এরপর বিএনপি নেতারা দাবি করলেন, খালেদা জিয়া জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে, তাকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য পাঠাতে হবে। কিন্তু বেগম খালেদা জিয়া সুস্থ হয়ে এখন বাড়িতে আছেন।

 

তারা নতুন ইস্যু তৈরি করলেন নির্বাচন কমিশন নিয়ে। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর নির্বাচন কমিশন গঠনে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে সর্বোচ্চ পন্থা অবলম্বন করেছেন। আমাদের দেশে যেহেতু নির্বাচন কমিশন আইন ছিল না, রাষ্ট্রপতি সব দলের সঙ্গে আলোচনা করলেন। পরামর্শ করে তাদের দেওয়া নামের ভিত্তিতে সার্চ কমিটি গঠন করে; সার্চ কমিটির নামগুলো যাচাই-বাছাই করে নির্বাচন কমিশন গঠন করেছেন। এটাই ছিল গণতান্ত্রিক পদ্ধতির সবচেয়ে উত্তম পন্থা।

 

বিএনপি তখন বেঁকে বসলো, তারা আলোচনায় অংশগ্রহণ করলেন না। দাবি করলেন নির্বাচন কমিশন আইনের। নির্বাচন কমিশন আইন সংসদে উত্থাপিত হলো। সেখানে তাদের দেওয়া ২২টি বিষয়ে সংশোধন করা হলো। ইতোপূর্বে বাংলাদেশের ইতিহাসে এমন নজির নেই, যেখানে বিরোধী দলের আপত্তি করা এতগুলো বিষয় সংশোধন করা হয়েছে। তারা সকালে এক কথা বলে, দুপুরে আরেক কথা বলে, দুপুরে বললে রাতে আরেক কথা বলে।

 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর ও বিজয়নগর) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি র. আ. ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিশেষ বর্ধিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয় সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী এবং আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ (নাসিরনগর) বি. এম. ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ (নবীনগর) আসনের সংসদ সদস্য এবাদুল করিম বুলবুল, সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম শিউলি আজাদ। বর্ধিত সভা সঞ্চালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার।

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» অবাধ সন্ত্রাসে নির্বাচন সুষ্ঠু হতে পারে না: জিএম কাদের

» জাতির পিতার সমাধিতে রাষ্ট্রপতির শ্রদ্ধা

» রিপনকে নির্বাচিত করলে সব সমস্যার সমাধান হবে : নানক

» রাজধানীর বনানীর স্টার কাবাব ভবনের আগুন নিয়ন্ত্রণে

» এক বা দুই বছর নয়, ৫০০ বছরেও বাড়ি ভাড়া বাড়েনি যে শহরে

» রাজধানীর বনানীর স্টার কাবাব ভবনে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ২ ইউনিট

» ডিসি-এসপিদের সঙ্গে শনিবার বৈঠকে বসবে ইসি

» আদিতমারী আ.লীগের সম্মেলন উপলক্ষে বর্ণিল সাজ

» দুর্গোৎসব শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হওয়ায় ফুলপুরবাসীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন ওসি মামুন

» মুরগির খামারের পাশে অভিনব কায়দায় লুকিয়ে রাখা বিদেশি অস্ত্র উদ্ধার,৩ যুবক গ্রেফতার

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

আগামী ৫০ বছরেও বিএনপির রাষ্ট্রের ক্ষমতায় আসার কোনো সুযোগ নেই :হানিফ

আগামী ৫০ বছরেও বিএনপির রাষ্ট্রের ক্ষমতায় আসার কোনো সুযোগ নেই। এ কারণে তারা হতাশ। আর হতাশ হয়েই তারা নানা ধরনের মিথ্যাচার করে রাস্তায় নামছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ।

 

তিনি বলেন, একের পর এক ধ্বংসাত্মক কর্মসূচি দিয়ে দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা তারা অব্যাহত রেখেছে। কারণ তারা জানে উন্নয়ন-অগ্রগতির ধারা যদি অব্যাহত থাকে এ দেশের জনগণ সবসময় শেখ হাসিনার প্রতি আস্থাশীল থাকবে।

শনিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গণে আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় তিনি এই কথা বলেন।

মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, কিছুদিন আগে বিএনপির নেতারা বললেন বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে, রাজনৈতিক কর্মসূচিও দেওয়া শুরু করলেন। তারা বিএনপি নেত্রীর মুক্তি চাইলেন। খালেদা জিয়া একজন দণ্ডপ্রাপ্ত কয়েদি। কারা বিধান অনুযায়ী তিনি সকল সুযোগ সুবিধা পেয়ে যাচ্ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর মানবিক দিক বিবেচনায় তিনি কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে বাসায় চিকিৎসা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এরপর বিএনপি নেতারা দাবি করলেন, খালেদা জিয়া জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে, তাকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য পাঠাতে হবে। কিন্তু বেগম খালেদা জিয়া সুস্থ হয়ে এখন বাড়িতে আছেন।

 

তারা নতুন ইস্যু তৈরি করলেন নির্বাচন কমিশন নিয়ে। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর নির্বাচন কমিশন গঠনে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে সর্বোচ্চ পন্থা অবলম্বন করেছেন। আমাদের দেশে যেহেতু নির্বাচন কমিশন আইন ছিল না, রাষ্ট্রপতি সব দলের সঙ্গে আলোচনা করলেন। পরামর্শ করে তাদের দেওয়া নামের ভিত্তিতে সার্চ কমিটি গঠন করে; সার্চ কমিটির নামগুলো যাচাই-বাছাই করে নির্বাচন কমিশন গঠন করেছেন। এটাই ছিল গণতান্ত্রিক পদ্ধতির সবচেয়ে উত্তম পন্থা।

 

বিএনপি তখন বেঁকে বসলো, তারা আলোচনায় অংশগ্রহণ করলেন না। দাবি করলেন নির্বাচন কমিশন আইনের। নির্বাচন কমিশন আইন সংসদে উত্থাপিত হলো। সেখানে তাদের দেওয়া ২২টি বিষয়ে সংশোধন করা হলো। ইতোপূর্বে বাংলাদেশের ইতিহাসে এমন নজির নেই, যেখানে বিরোধী দলের আপত্তি করা এতগুলো বিষয় সংশোধন করা হয়েছে। তারা সকালে এক কথা বলে, দুপুরে আরেক কথা বলে, দুপুরে বললে রাতে আরেক কথা বলে।

 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর ও বিজয়নগর) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি র. আ. ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিশেষ বর্ধিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয় সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী এবং আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ (নাসিরনগর) বি. এম. ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ (নবীনগর) আসনের সংসদ সদস্য এবাদুল করিম বুলবুল, সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম শিউলি আজাদ। বর্ধিত সভা সঞ্চালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার।

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com