সব মৌসুমি ফল মেলে যে বাজারে

প্রচণ্ড গরমে হাঁসফাঁস নাগরিক জীবন। এ অবস্থায় কিছুটা স্বস্তি এনে দিতে পারে যে কোনো রসালো ফল কিংবা ফলের সরবত। তবে সব ধরনের মৌসুমি ফল এক জায়গায় পাওয়া এখন দুরুহ ব্যাপার।

 

কিন্তু এ ঝামেলা থেকে পরিত্রাণ দিয়েছে খুলনা নগরীর হেলাতলা মোড়ে বসা আধাবেলার ভ্রাম্যমাণ ফলের বাজার। যে কোনো মৌসুমি ফল মেলে এ বাজারে। মাঝে মধ্যে অসময়েরও অনেক ফল পাওয়া যায়। প্রতিদিন দুপুর থেকে বিভিন্ন ফল নিয়ে এখানে বসেন প্রায় অর্ধশত বিক্রেতা। ভিড় জমে ক্রেতাদেরও।

খুলনার হেলাতলা মোড়ের ৩০-৪০ গজের এ ফলের বাজারে এখন মিলছে আতা, কাঁঠাল, তরমুজ, দুষ্প্রাপ্য বেতফল, আঁশফল, জামরুল, বাঙি, পেয়ারা, সফেদা, কলা, পেঁপে, বেল, খিরাই, আনারস, মালটা, আপেল, কমলা, ডাব।

 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, খুলনার আশপাশের রূপসা, তেরখাদা, নোয়াল, ডুমুরিয়া, দিঘলিয়া উপজেলা থেকে এ বাজারে দেশী ফল আসে। শুধু খুলনা নয়, মাঝে মধ্যে বাগেরহাট, যশোর ও সাতক্ষীরা জেলা থেকেও এখানে বিভিন্ন প্রকার মৌসুমি ফল আসে।

 

ফল কিনতে আসা রোজিনা জামান বলেন, সব ফল পাওয়া যায় এখানে। অনেক সময় অসময়েরও কিছু কিছু ফল মেলে। এসব ফলের দাম একটু বেশি হলেও কিনতে মন চায়। এছাড়া অন্য মৌসুমি ফলের দাম এখানে কিছুটা কমে পাওয়া যায়।

ইফতারের জন্য ফল কিনতে আসা বটিয়াঘাটা উপজেলার চক্রাখালী এলাকার বাসিন্দা হেলাল মোল্লা বলেন, এখানে যে ফল পাওয়া যায় তা অনেক সময় খুলনার সব বাজার ঘুরেও মেলে না। বড় বাজারে যারা আসেন তারাই এখান থেকে ফল কিনে নিয়ে যান।

 

তিনি আরও বলেন, প্রায় সময় তিনি অফিসের কাজ শেষ করে এখান থেকে ফল কিনেন। দাম কম আর মানও ভালো।

 

ফল বিক্রেতা আবেদ আলী বলেন, এ গরমে ফল মানবদেহের জন্য খুবই উপকারী। সে কারণে এখন একটু বেশি বেচাকেনা হচ্ছে। রাত ৮টার মধ্যেই প্রায় সব ফল বিক্রি হয়ে যায়।

 

তিনি জানান, বাজারে পেঁপে কেজি প্রতি ৬০-১০০ টাকা কেজি, সফেদা ৫০-৬০ টাকা, জামরুল ১২০ টাকা, মালটা ১৮০ টাকা, আপেল ২০০ টাকা, বাঙি ৩৫ টাকা কেজি, তরমুজ ৩৫ টাকা, আতা ১২০ টাকা, বেতফল ১০০ গ্রাম ৫০ টাকা, বেল আকার ভেদে ৫০-১০০ টাকা, আনারস আকারভেদে ২০ থেকে ৫০ টাকা, ডাব প্রতি পিস ৬০-৭০ টাকা, কাঁঠাল আকার ভেদে ২০০ থেকে ৪০০ টাকা, কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

 

স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা মো. সামছুজ্জামান মিয়া স্বপন জাগো নিউজকে বলেন, এ ফলের বাজার অনেক আগে থেকেই এখানে বসে। তবে কিছুদিন বন্ধ ছিল। আবারও বসছে। এখানে দেশি জাতের প্রায় সব ফলই বিক্রি হয়।

কাউন্সিলর আরও বলেন, বাজারে যেন কারো কোনো সমস্যা না হয় সে ব্যাপারে বিশেষ নজরদারি করা হয়। সূএ:জাগোনিউজ২৪.কম

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিক্রি ও সেবনের অপরাধে ৮৩ জন আটক

» মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ কী করবেন?

» রাজধানীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু

» বগুড়ার ১৪ এলাকায় ৩ দিন গ্যাস থাকবে না

» যাক্কুম, এক বীভৎস ফলের গাছ

» নবম শ্রেণির বাদ পড়া শিক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশন ও সংশোধন শুরু

» গর্ভপাত শব্দটি বলতে পারবেন না ফেসবুক কর্মীরা

» ফরিদপুর থেকে ফেন্সিডিলসহ এক মাদক ব্যাবসায়ী আটক

» বেগমগঞ্জে ইয়াবাসহ কারবারি গ্রেপ্তার

» আজ বিশ্ব জীববৈচিত্র্য দিবস

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

সব মৌসুমি ফল মেলে যে বাজারে

প্রচণ্ড গরমে হাঁসফাঁস নাগরিক জীবন। এ অবস্থায় কিছুটা স্বস্তি এনে দিতে পারে যে কোনো রসালো ফল কিংবা ফলের সরবত। তবে সব ধরনের মৌসুমি ফল এক জায়গায় পাওয়া এখন দুরুহ ব্যাপার।

 

কিন্তু এ ঝামেলা থেকে পরিত্রাণ দিয়েছে খুলনা নগরীর হেলাতলা মোড়ে বসা আধাবেলার ভ্রাম্যমাণ ফলের বাজার। যে কোনো মৌসুমি ফল মেলে এ বাজারে। মাঝে মধ্যে অসময়েরও অনেক ফল পাওয়া যায়। প্রতিদিন দুপুর থেকে বিভিন্ন ফল নিয়ে এখানে বসেন প্রায় অর্ধশত বিক্রেতা। ভিড় জমে ক্রেতাদেরও।

খুলনার হেলাতলা মোড়ের ৩০-৪০ গজের এ ফলের বাজারে এখন মিলছে আতা, কাঁঠাল, তরমুজ, দুষ্প্রাপ্য বেতফল, আঁশফল, জামরুল, বাঙি, পেয়ারা, সফেদা, কলা, পেঁপে, বেল, খিরাই, আনারস, মালটা, আপেল, কমলা, ডাব।

 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, খুলনার আশপাশের রূপসা, তেরখাদা, নোয়াল, ডুমুরিয়া, দিঘলিয়া উপজেলা থেকে এ বাজারে দেশী ফল আসে। শুধু খুলনা নয়, মাঝে মধ্যে বাগেরহাট, যশোর ও সাতক্ষীরা জেলা থেকেও এখানে বিভিন্ন প্রকার মৌসুমি ফল আসে।

 

ফল কিনতে আসা রোজিনা জামান বলেন, সব ফল পাওয়া যায় এখানে। অনেক সময় অসময়েরও কিছু কিছু ফল মেলে। এসব ফলের দাম একটু বেশি হলেও কিনতে মন চায়। এছাড়া অন্য মৌসুমি ফলের দাম এখানে কিছুটা কমে পাওয়া যায়।

ইফতারের জন্য ফল কিনতে আসা বটিয়াঘাটা উপজেলার চক্রাখালী এলাকার বাসিন্দা হেলাল মোল্লা বলেন, এখানে যে ফল পাওয়া যায় তা অনেক সময় খুলনার সব বাজার ঘুরেও মেলে না। বড় বাজারে যারা আসেন তারাই এখান থেকে ফল কিনে নিয়ে যান।

 

তিনি আরও বলেন, প্রায় সময় তিনি অফিসের কাজ শেষ করে এখান থেকে ফল কিনেন। দাম কম আর মানও ভালো।

 

ফল বিক্রেতা আবেদ আলী বলেন, এ গরমে ফল মানবদেহের জন্য খুবই উপকারী। সে কারণে এখন একটু বেশি বেচাকেনা হচ্ছে। রাত ৮টার মধ্যেই প্রায় সব ফল বিক্রি হয়ে যায়।

 

তিনি জানান, বাজারে পেঁপে কেজি প্রতি ৬০-১০০ টাকা কেজি, সফেদা ৫০-৬০ টাকা, জামরুল ১২০ টাকা, মালটা ১৮০ টাকা, আপেল ২০০ টাকা, বাঙি ৩৫ টাকা কেজি, তরমুজ ৩৫ টাকা, আতা ১২০ টাকা, বেতফল ১০০ গ্রাম ৫০ টাকা, বেল আকার ভেদে ৫০-১০০ টাকা, আনারস আকারভেদে ২০ থেকে ৫০ টাকা, ডাব প্রতি পিস ৬০-৭০ টাকা, কাঁঠাল আকার ভেদে ২০০ থেকে ৪০০ টাকা, কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

 

স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা মো. সামছুজ্জামান মিয়া স্বপন জাগো নিউজকে বলেন, এ ফলের বাজার অনেক আগে থেকেই এখানে বসে। তবে কিছুদিন বন্ধ ছিল। আবারও বসছে। এখানে দেশি জাতের প্রায় সব ফলই বিক্রি হয়।

কাউন্সিলর আরও বলেন, বাজারে যেন কারো কোনো সমস্যা না হয় সে ব্যাপারে বিশেষ নজরদারি করা হয়। সূএ:জাগোনিউজ২৪.কম

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com