সব বিষয়ে ধারাবাহিক মূল্যায়নের চিন্তা করা হচ্ছে: শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক:শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানিয়েছেন, সব বিষয়ে আংশিকভাবে ধারাবাহিক মূল্যায়নের চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে।

 

শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) আয়োজিত ‘ই-লার্নিং’ শীর্ষক ওয়েবিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা ইতোমধ্যে মাধ্যমিক পর্যায়ে তিনটি বিষয়ে ধারাবাহিক মূল্যায়ন শুরু করেছি।

 

আমরা পাইলটিং করেছি, অস্বাভাবিক রকমের সাড়া পেয়েছি। আগামী বছর থেকে ওই তিনটি বিষয় তো বটেই, অন্যান্য বিষয়গুলোও ধারাবাহিক মূল্যায়নে নেওয়ার চেষ্টা করছি।

 

২০২১ সালের ডিগ্রি নিয়ে লোকজনের সমালোচনা বিষয় তুলে ধরে আলোচনা সভায় তিনি বলেন, আমার মতে, ২০২১ সালের কোভিড পরিস্থিতির মধ্যে যারা ডিগ্রি অর্জন করবে তারা কী করে খাপ খাইয়ে নিতে হয়, কী করে ক্রাইসিস মোকাবিলা করতে হয় এগুলো শিখছে।

 

আর বড় বিষয় এই পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীরা মনের দরজা-জানালা খোলা রাখতে পেরেছে। অনলাইনের শিক্ষার মূল বাধা যেটা দেখেছি সেটা তারা সেটা থেকে উত্তোলন ঘটাচ্ছে। ফলে এই পরিস্থিতিতে যারা বেরুবে তাদের ছোট করে দেখার সুযোগ নেই।

 

কারণ তারা অনেক রকমের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছে। তারা যে অনিশ্চয়তা মোকাবিলা করছে তাতে শুধু ডিগ্রি নয় অনেক কিছুই অর্জন করছে।

 

পরীক্ষা সর্বস্ব, সনদ সর্বস্ব শিক্ষা ও জিপিএ-৫ নিয়ে উন্মাদনার শিক্ষা থেকে সত্যিকারের জ্ঞান অর্জনে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের প্রতিও আহ্বান জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

 

তিনি বলেন, পরীক্ষা সর্বস্ব, সনদ সর্বস্ব শিক্ষা ও জিপিএ-৫ নিয়ে উন্মাদনার শিক্ষা আমরা চাই না। সত্যিকারের জ্ঞান অর্জন, সত্যিকারের মানুষ তৈরি করা প্রয়োজন, তা আমরা পরীক্ষা সর্বস্ব, সনদ সর্বস্ব শিক্ষা দিয়ে পারবো না।

 

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীদের সহজে শিক্ষা চালিয়ে নিতে শিক্ষা ঋণ দেয়া যেতে পারে। আমি সংসদে বলেছি, প্রধানমন্ত্রী মাথা নেড়ে সম্মতি জানিয়েছেন।

 

আমরা এখন থেকে শিক্ষা ঋণ দেয়ার কথা ভাবছি।

 

কীভাবে শিক্ষার্থীদের সক্ষম করে তুলবো, যেখানে যতটুকু প্রয়োজন আছে সেটা যেন তারা মেটাতে পারে। এসব বিষয় নিয়ে আমরা কাজ করছি। কোনোভাবেই যেন শিক্ষার্থীরা বৈষম্যের শিকার না হয়।

 

ডা. দীপু বলেন, আমাদের বর্তমান শিক্ষানীতি ২০১০ সালে প্রণয়ন করা হয়েছে, সেটাকে যুগোপোযোগীকরণ এবং সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। শিক্ষানীতিতে ই-লার্নিং কে আরো বেশি গুরুত্ব দেয়া হবে।

 

তিনি আরো জানান, এদেশের মানুষ অত্যন্ত প্রযুক্তি বান্ধব, যার কারণে বিশেষকরে শিক্ষাকার্যক্রমে ই-লার্নিং-এর ব্যবহার বৃদ্ধিতে আমাদের জন্য খুব বেশি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে না।

 

তিনি বলেন, সামনের দিনগুলোতে ক্লাশরুমে সরাসরি শিক্ষাদান কার্যক্রম পরিচালনার পাশাপাশি অনলাইনের মাধ্যমে ‘ই-লার্নিং’ কার্যক্রম চালু রাখতে হবে এবং শিক্ষার্থীদের নতুন নতুন বিষয়ে দক্ষতা উন্নয়নে ‘ই-লার্নিং’ কার্যক্রম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

 

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের মানুষ নানান প্রতিকূলতার মধ্যে দিয়ে এ পর্যায়ে এসে পৌঁছেছে এবং কোভিড মহামারি মোকাবিলায় এদেশের মানুষ সাহসিকতার পরিচয় দিবে।

 

তিনি জানান, সামনের দিনগুলোতে কি ধরনের দক্ষ লোকবল প্রয়োজন হবে, তার একটি প্রাক নির্বাচনের মাধ্যমে সে অনুযায়ী আমাদের শিক্ষা কার্যক্রম, অবকাঠামো এবং শিক্ষকবৃন্দের দক্ষতা উন্নয়ন করতে হবে।

 

অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা আরো সম্প্রসারণে মানসিকতা একটি বড় বাধা বলে তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন।

 

তিনি বলেন, মেধাবীদের শিক্ষাক্রমে নিয়ে আসার জন্য এ পেশাটিকে আরো আকর্ষণীয় করে তুলতে হবে এবং শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আরো দক্ষ করে তুলতে হবে।

 

শিক্ষামন্ত্রী বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আরো বেশি হারে গবেষণা পরিচালনার উপর জোরারোপ করেন।

 

তিনি জানান, বর্তমানে দেশের ১৭ শতাংশ শিক্ষার্থী কারিগরি শিক্ষা কার্যক্রমের আওতায় রয়েছে। তিনি পরীক্ষা এবং সনদ সর্বস্ব শিক্ষার মাধ্যমে প্রকৃত মানুষ গড়ে তোলা সম্ভব নয়, বলে মত প্রকাশ করেন এবং শিল্পখাত ও শিক্ষাব্যবস্থার মধ্যে সমন্বয় আরো বাড়ানো প্রয়োজন বলে অভিমত ব্যক্ত করেন।

 

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-উর রশিদ, আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটি বাংলাদেশ-এর উপাচার্য প্রফেসর ড. কারম্যান জেড লামাংনা, বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড-এর চেয়ারম্যান ড. মো. মুরাদ হোসেন মোল্লা, ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটির ইলেকট্রিকাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. খাজা ইফতেখার উদ্দিন আহমদ, নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একাউন্টিং অ্যান্ড ফিন্যান্স বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ইশতিয়াক আজিম প্রমুখ এই ওয়েবিনারে আলোচক হিসেবে যোগদান করেন।

Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» টাঙ্গাইলের ইয়াবা ও অস্ত্রসহ ৪ সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার

» যুব-সমাজের কিছু কর্মকাণ্ডে রাজনীতি কলঙ্কিত হচ্ছে: ফারুক খান

» যুব উন্নয়নে কর্মসংস্থান ব্যাংকের ‘বঙ্গবন্ধু যুব ঋণ’ কার্যকর পদক্ষেপ: স্পিকার

» ঝালকাঠির গ্রামীণ জনপদে গড়ে উঠছে হাঁসের খামার

» নওগাঁয় শরৎ বন্দনা ও নৃত্যানুষ্ঠান পালিত

» পাঁচবিবিতে ফেন্সিডিল সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

» লালমনিরহাটে শুভ হত্যার বিচার দাবীতে এলাকাবাসীর বিক্ষোভ!

» ‘আমরা সৌভাগ্যবান, শেখ হাসিনার মতো রাষ্ট্রনায়ক পেয়েছি’

» স্বয়ংক্রিয়ভাবে গুগল ড্রাইভের তথ্য মুছে যাবে!

» বগি লাইনচ্যুত, নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা রেল যোগাযোগ বন্ধ

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা – মাকসুদা লিসা।

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

সব বিষয়ে ধারাবাহিক মূল্যায়নের চিন্তা করা হচ্ছে: শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক:শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানিয়েছেন, সব বিষয়ে আংশিকভাবে ধারাবাহিক মূল্যায়নের চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে।

 

শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) আয়োজিত ‘ই-লার্নিং’ শীর্ষক ওয়েবিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা ইতোমধ্যে মাধ্যমিক পর্যায়ে তিনটি বিষয়ে ধারাবাহিক মূল্যায়ন শুরু করেছি।

 

আমরা পাইলটিং করেছি, অস্বাভাবিক রকমের সাড়া পেয়েছি। আগামী বছর থেকে ওই তিনটি বিষয় তো বটেই, অন্যান্য বিষয়গুলোও ধারাবাহিক মূল্যায়নে নেওয়ার চেষ্টা করছি।

 

২০২১ সালের ডিগ্রি নিয়ে লোকজনের সমালোচনা বিষয় তুলে ধরে আলোচনা সভায় তিনি বলেন, আমার মতে, ২০২১ সালের কোভিড পরিস্থিতির মধ্যে যারা ডিগ্রি অর্জন করবে তারা কী করে খাপ খাইয়ে নিতে হয়, কী করে ক্রাইসিস মোকাবিলা করতে হয় এগুলো শিখছে।

 

আর বড় বিষয় এই পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীরা মনের দরজা-জানালা খোলা রাখতে পেরেছে। অনলাইনের শিক্ষার মূল বাধা যেটা দেখেছি সেটা তারা সেটা থেকে উত্তোলন ঘটাচ্ছে। ফলে এই পরিস্থিতিতে যারা বেরুবে তাদের ছোট করে দেখার সুযোগ নেই।

 

কারণ তারা অনেক রকমের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছে। তারা যে অনিশ্চয়তা মোকাবিলা করছে তাতে শুধু ডিগ্রি নয় অনেক কিছুই অর্জন করছে।

 

পরীক্ষা সর্বস্ব, সনদ সর্বস্ব শিক্ষা ও জিপিএ-৫ নিয়ে উন্মাদনার শিক্ষা থেকে সত্যিকারের জ্ঞান অর্জনে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের প্রতিও আহ্বান জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

 

তিনি বলেন, পরীক্ষা সর্বস্ব, সনদ সর্বস্ব শিক্ষা ও জিপিএ-৫ নিয়ে উন্মাদনার শিক্ষা আমরা চাই না। সত্যিকারের জ্ঞান অর্জন, সত্যিকারের মানুষ তৈরি করা প্রয়োজন, তা আমরা পরীক্ষা সর্বস্ব, সনদ সর্বস্ব শিক্ষা দিয়ে পারবো না।

 

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীদের সহজে শিক্ষা চালিয়ে নিতে শিক্ষা ঋণ দেয়া যেতে পারে। আমি সংসদে বলেছি, প্রধানমন্ত্রী মাথা নেড়ে সম্মতি জানিয়েছেন।

 

আমরা এখন থেকে শিক্ষা ঋণ দেয়ার কথা ভাবছি।

 

কীভাবে শিক্ষার্থীদের সক্ষম করে তুলবো, যেখানে যতটুকু প্রয়োজন আছে সেটা যেন তারা মেটাতে পারে। এসব বিষয় নিয়ে আমরা কাজ করছি। কোনোভাবেই যেন শিক্ষার্থীরা বৈষম্যের শিকার না হয়।

 

ডা. দীপু বলেন, আমাদের বর্তমান শিক্ষানীতি ২০১০ সালে প্রণয়ন করা হয়েছে, সেটাকে যুগোপোযোগীকরণ এবং সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। শিক্ষানীতিতে ই-লার্নিং কে আরো বেশি গুরুত্ব দেয়া হবে।

 

তিনি আরো জানান, এদেশের মানুষ অত্যন্ত প্রযুক্তি বান্ধব, যার কারণে বিশেষকরে শিক্ষাকার্যক্রমে ই-লার্নিং-এর ব্যবহার বৃদ্ধিতে আমাদের জন্য খুব বেশি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে না।

 

তিনি বলেন, সামনের দিনগুলোতে ক্লাশরুমে সরাসরি শিক্ষাদান কার্যক্রম পরিচালনার পাশাপাশি অনলাইনের মাধ্যমে ‘ই-লার্নিং’ কার্যক্রম চালু রাখতে হবে এবং শিক্ষার্থীদের নতুন নতুন বিষয়ে দক্ষতা উন্নয়নে ‘ই-লার্নিং’ কার্যক্রম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

 

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের মানুষ নানান প্রতিকূলতার মধ্যে দিয়ে এ পর্যায়ে এসে পৌঁছেছে এবং কোভিড মহামারি মোকাবিলায় এদেশের মানুষ সাহসিকতার পরিচয় দিবে।

 

তিনি জানান, সামনের দিনগুলোতে কি ধরনের দক্ষ লোকবল প্রয়োজন হবে, তার একটি প্রাক নির্বাচনের মাধ্যমে সে অনুযায়ী আমাদের শিক্ষা কার্যক্রম, অবকাঠামো এবং শিক্ষকবৃন্দের দক্ষতা উন্নয়ন করতে হবে।

 

অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা আরো সম্প্রসারণে মানসিকতা একটি বড় বাধা বলে তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন।

 

তিনি বলেন, মেধাবীদের শিক্ষাক্রমে নিয়ে আসার জন্য এ পেশাটিকে আরো আকর্ষণীয় করে তুলতে হবে এবং শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আরো দক্ষ করে তুলতে হবে।

 

শিক্ষামন্ত্রী বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আরো বেশি হারে গবেষণা পরিচালনার উপর জোরারোপ করেন।

 

তিনি জানান, বর্তমানে দেশের ১৭ শতাংশ শিক্ষার্থী কারিগরি শিক্ষা কার্যক্রমের আওতায় রয়েছে। তিনি পরীক্ষা এবং সনদ সর্বস্ব শিক্ষার মাধ্যমে প্রকৃত মানুষ গড়ে তোলা সম্ভব নয়, বলে মত প্রকাশ করেন এবং শিল্পখাত ও শিক্ষাব্যবস্থার মধ্যে সমন্বয় আরো বাড়ানো প্রয়োজন বলে অভিমত ব্যক্ত করেন।

 

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-উর রশিদ, আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটি বাংলাদেশ-এর উপাচার্য প্রফেসর ড. কারম্যান জেড লামাংনা, বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড-এর চেয়ারম্যান ড. মো. মুরাদ হোসেন মোল্লা, ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটির ইলেকট্রিকাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. খাজা ইফতেখার উদ্দিন আহমদ, নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একাউন্টিং অ্যান্ড ফিন্যান্স বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ইশতিয়াক আজিম প্রমুখ এই ওয়েবিনারে আলোচক হিসেবে যোগদান করেন।

Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা – মাকসুদা লিসা।

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com