শিশু কথা শোনে না? জেনে নিন করণীয়

শিশুকে শাসন করার প্রসঙ্গ এলে মা-বাবা হিসাবে আপনাকে সব রকম উপায় অবলম্বন করতে হবে। কখনো নরম গলায় বা সহজ-সরলভাবে বুঝিয়ে আবার কখনো বা তিরস্কার করে এবং কঠোরভাবে শাসিয়ে, কোনটি সবচেয়ে ভালো কাজ করে তা পরীক্ষা করার জন্য এমনটা করা হয়।

 

কিন্তু যখন আপনার সন্তান এসব শাসন বারণ অবহেলার দৃষ্টিতে দেখে বা তাদের কাছে তুচ্ছ ব্যাপার মনে হয়, তখন কী করবেন? যেসব শিশু প্রায় সময়ই বকাঝকা শোনে বা শাস্তি পায়, এক পর্যায়ে নিয়মিত শাস্তি পাওয়াটা তাদের অভ্যাসে পরিণত হয়। এর ফলে তারা বিরক্ত হয়, রেগে যায় এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ‘যাই হোক না কেন’ বলে আপনাকে উপেক্ষা করবে। এ ধরণের আচরণের ক্ষেত্রে মা-বাবার জন্য কয়েকটি কার্যকরী করণীয় প্রকাশ করছে টাইমস অফ ইন্ডিয়া।

কার্যকরী উপায়
শাস্তির ধরণ কেমন হবে তা নির্ভর করে একেকটি শিশুর স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যের ওপর। যেমন- বকাঝকা করা বা রুমে পাঠিয়ে দেয়া হয়তো কারো জন্য বড় ধরণের শাস্তিও হতে পারে। আবার আরেকজনের কাছে এটি বিচ্ছিন্ন ব্যাপার হতে পারে। আপনার শিশুর জন্য কী ধরণের শাস্তি কার্যকরী সেদিকে নজর দিন এবং তা কেবল যখন শিশু অবাধ্য হয়ে যায় তখনই এটি অবলম্বন করুন। তবে এত বেশি কঠোর হবেন না, যা তার পক্ষে বহন করা সম্ভব নয়।

 

ভাব-প্রকাশের সুযোগ দিন
আপনার শিশুকে ব্যাপারটি বুঝতে দিন। যখন সে কথা বলার সময় খারাপ ব্যবহার বা অমার্জিত আচরণ করে তখন আপনি কেমন বোধ করেন। তার আচার-আচরণ বা কথা-বার্তায় কীভাবে সে মানুষের মনে ব্যথা দিতে পারে সে ব্যাপারে সচেতন করে তুলুন। মাঝে মাঝে মনোবিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়ে শিশুর আচরণের প্রবণতা বুঝতে পারেন, যা সময়মতো তার আচরণটি সংশোধন করতে সহায়তা করে।

শিশুর সাথে আলোচনা করুন
আপনার শিশু যে ভুল করেছে তা বোঝাতে আপনার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজটি হলো, বিষয়টি নিয়ে তার সঙ্গে আলোচনা করা। আপনার শিশুকে কখনোই তর্ক-বিতর্কের যাওয়ার সুযোগ দেবেন না, কারণ এটি আগুনে জ্বালানী হিসেবে কাজ করে। অতি রাগান্বিত হলে থেমে যান আর না হয় আপনার সন্তানের কাছে পরিষ্কার করুন যে, আপনি এ ধরণের আচরণ আশা করেননি। ঝামেলা মিটে গেলে আপনি বিষয়টি নিয়ে আসতে পারেন এবং এ নিয়ে আপনার শিশুর সাথে বিস্তারিত আলোচনা করতে পারেন।

 

প্রশংসা করুন
শিশুর সামনে তাকে নিয়ে প্রশংসা করুন। তবে বেশি প্রশংসা আবার ক্ষতির কারণও হতে পারে। যখন ব্যাপারগুলো সীমা লঙ্ঘন করে এবং অন্য কোনো সমাধান পাওয়া যায় না তখন আপনি কেবল শাস্তির আশ্রয় নেবেন। আপনার শিশুর সাথে কথা বলুন এবং যখনই সে কোনো ভালো কাজ করে তখন তার প্রশংসা করুন। তার আচরণকে সংযত করতে শেখান এবং রাগের সময়ও যেন পিন-পতন নীরব থাকে সেই অভ্যাসও তৈরি করুন।

Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভূমিকা জনমনে আস্থার সৃষ্টি করেছে

» লালমনিরহাটের ২টিতে আওয়ামী লীগ, একটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী

» মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হলেন মিছবাহুর রহমান

» লক্ষ্মীপুরের তিন ইউপিতে নৌকার প্রার্থীরা জয়ী

» রাতে শুরু হচ্ছে চ্যাম্পিয়নস লিগ

» হাসপাতাল থেকে মেয়র আতিকের ভিডিও বার্তা

» সমন্বিতভাবে বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ সম্ভব: স্পিকার

» ‘ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে গিয়ে’ করোনায় আক্রান্ত তথ্যমন্ত্রী

» ধর্ষণকারী আমাদের কেউ হতে পারেনা!!!

» সুষ্ঠু ভাবে লালমনিরহাটের ইউনিয়ন উপ-নির্বাচন সম্পূর্ণ

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

শিশু কথা শোনে না? জেনে নিন করণীয়

শিশুকে শাসন করার প্রসঙ্গ এলে মা-বাবা হিসাবে আপনাকে সব রকম উপায় অবলম্বন করতে হবে। কখনো নরম গলায় বা সহজ-সরলভাবে বুঝিয়ে আবার কখনো বা তিরস্কার করে এবং কঠোরভাবে শাসিয়ে, কোনটি সবচেয়ে ভালো কাজ করে তা পরীক্ষা করার জন্য এমনটা করা হয়।

 

কিন্তু যখন আপনার সন্তান এসব শাসন বারণ অবহেলার দৃষ্টিতে দেখে বা তাদের কাছে তুচ্ছ ব্যাপার মনে হয়, তখন কী করবেন? যেসব শিশু প্রায় সময়ই বকাঝকা শোনে বা শাস্তি পায়, এক পর্যায়ে নিয়মিত শাস্তি পাওয়াটা তাদের অভ্যাসে পরিণত হয়। এর ফলে তারা বিরক্ত হয়, রেগে যায় এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ‘যাই হোক না কেন’ বলে আপনাকে উপেক্ষা করবে। এ ধরণের আচরণের ক্ষেত্রে মা-বাবার জন্য কয়েকটি কার্যকরী করণীয় প্রকাশ করছে টাইমস অফ ইন্ডিয়া।

কার্যকরী উপায়
শাস্তির ধরণ কেমন হবে তা নির্ভর করে একেকটি শিশুর স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যের ওপর। যেমন- বকাঝকা করা বা রুমে পাঠিয়ে দেয়া হয়তো কারো জন্য বড় ধরণের শাস্তিও হতে পারে। আবার আরেকজনের কাছে এটি বিচ্ছিন্ন ব্যাপার হতে পারে। আপনার শিশুর জন্য কী ধরণের শাস্তি কার্যকরী সেদিকে নজর দিন এবং তা কেবল যখন শিশু অবাধ্য হয়ে যায় তখনই এটি অবলম্বন করুন। তবে এত বেশি কঠোর হবেন না, যা তার পক্ষে বহন করা সম্ভব নয়।

 

ভাব-প্রকাশের সুযোগ দিন
আপনার শিশুকে ব্যাপারটি বুঝতে দিন। যখন সে কথা বলার সময় খারাপ ব্যবহার বা অমার্জিত আচরণ করে তখন আপনি কেমন বোধ করেন। তার আচার-আচরণ বা কথা-বার্তায় কীভাবে সে মানুষের মনে ব্যথা দিতে পারে সে ব্যাপারে সচেতন করে তুলুন। মাঝে মাঝে মনোবিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়ে শিশুর আচরণের প্রবণতা বুঝতে পারেন, যা সময়মতো তার আচরণটি সংশোধন করতে সহায়তা করে।

শিশুর সাথে আলোচনা করুন
আপনার শিশু যে ভুল করেছে তা বোঝাতে আপনার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজটি হলো, বিষয়টি নিয়ে তার সঙ্গে আলোচনা করা। আপনার শিশুকে কখনোই তর্ক-বিতর্কের যাওয়ার সুযোগ দেবেন না, কারণ এটি আগুনে জ্বালানী হিসেবে কাজ করে। অতি রাগান্বিত হলে থেমে যান আর না হয় আপনার সন্তানের কাছে পরিষ্কার করুন যে, আপনি এ ধরণের আচরণ আশা করেননি। ঝামেলা মিটে গেলে আপনি বিষয়টি নিয়ে আসতে পারেন এবং এ নিয়ে আপনার শিশুর সাথে বিস্তারিত আলোচনা করতে পারেন।

 

প্রশংসা করুন
শিশুর সামনে তাকে নিয়ে প্রশংসা করুন। তবে বেশি প্রশংসা আবার ক্ষতির কারণও হতে পারে। যখন ব্যাপারগুলো সীমা লঙ্ঘন করে এবং অন্য কোনো সমাধান পাওয়া যায় না তখন আপনি কেবল শাস্তির আশ্রয় নেবেন। আপনার শিশুর সাথে কথা বলুন এবং যখনই সে কোনো ভালো কাজ করে তখন তার প্রশংসা করুন। তার আচরণকে সংযত করতে শেখান এবং রাগের সময়ও যেন পিন-পতন নীরব থাকে সেই অভ্যাসও তৈরি করুন।

Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com