লাফিয়ে বাড়ছে ভোজ্য তেলের দাম.

রাজধানীর খুচরা ও পাইকারি বাজারে সব ধরনের ভোজ্য তেলের দাম বেড়েছে। এ ছাড়া বেশ কয়েকটি নিত্যপণ্যের দামেও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। তবে ভোজ্য তেলের দাম বেড়েছে দফায় দফায়। গত বছরের শেষের দিকে প্রতি লিটার বোতলজাত ভোজ্য তেল যেখানে ছিল ১০০ টাকার মধ্যে। এখন তা দাঁড়িয়েছে ১১৫-১২০ টাকা পর্যন্ত। সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) প্রতিবেদনেও এ তথ্য উঠে এসেছে।
টিসিবি’র তথ্য অনুযায়ী, এক সপ্তাহে ব্যবধানে লুজ সয়াবিন তেলের দাম প্রতি লিটারে বেড়েছে এক টাকা। আর মাসের হিসেবে বেড়েছে ৬ টাকা বা ৬.৩৪ শতাংশ। বর্তমানে প্রতি লিটার ১০৮ থেকে ১১০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এক বছরে বেড়েছে ১৮.৪৮ শতাংশ। বোতলের ৫ লিটার সয়াবিন তেলের দাম ০.৯০ শতাংশ বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৫৪০ থেকে ৫৮০ টাকায়। সপ্তাহের ব্যবধানে ৫ লিটারে বেড়েছে ১০ টাকা। মাসের ব্যবধানে বেড়েছে ৮.৭৪ শতাংশ। আর বছরের ব্যবধানে বেড়েছে ১৩.৭১ শতাংশ। এ ছাড়া বোতলজাত এক লিটার সয়াবিন তেলের দাম ২.৫ শতাংশ বেড়ে ১২০ থেকে ১৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সপ্তাহের ব্যবধানে এক লিটারে বেড়েছে ৫ টাকা। মাসের ব্যবধানে বেড়েছে ৮.৭১ শতাংশ। আর বছরের ব্যবধানে বেড়েছে ১৯.০৫ শতাংশ। এক লিটার লুজ পাম অয়েলের দাম ২.১৩ শতাংশ বেড়ে ৯৫ থেকে ৯৭ টাকা হচ্ছে। মাসের ব্যবধানে বেড়েছে ৪.৯২ শতাংশ। আর বছরের ব্যবধানে বেড়েছে ১৮.৫২ শতাংশ। আর এক লিটার সুপার পাম অয়েলের দাম ৩.০৯ শতাংশ বেড়ে হচ্ছে ৯৮ থেকে ১০২ টাকা।
এদিকে রাজধানীর সুপার শপগুলোতে খুচরা বাজারের চেয়ে আরো বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে সয়াবিন তেল। দেশের শীর্ষ সুপার শপগুলোর সয়াবিন তেলের দাম পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, স্বপ্ন সুপার শপে ফ্রেস ব্র্যান্ডের প্রতি ৫ লিটার সয়াবিন তেলের বোতল বিক্রি হচ্ছে ৬১৫ টাকায়। একই পরিমাণ রূপচাদা ব্র্যান্ডের দাম রাখা হচ্ছে ৬৩৫ টাকা। সাফোলা ব্র্যান্ডের (৫ লিটার) দাম রাখা হচ্ছে ১১৫০ টাকা। বসুন্ধরা ব্র্যান্ডের দাম রাখা হচ্ছে ৬৩০ টাকা। আর স্বপ্নের নিজস্ব ব্র্যান্ডের (৫ লিটার) দাম রাখা হচ্ছে ৫৮০ টাকা। এ ছাড়া ২ লিটার বোতল তীর ব্র্যান্ডের ২৫২ টাকা, রূপচাঁদা ব্র্যান্ডের ২৩৪ টাকা ও বসুন্ধরা ব্র্যান্ডের ২৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর এক লিটার বিক্রি হচ্ছে ১২৫ টাকায়। এদিকে মিনা বাজারে ৫ লিটার বোতলের দাম রাখা হচ্ছে (বসুন্ধরা) ৬২৫ টাকা। অন্যদিকে আগোরায় ৫ লিটার ফ্রেস ও তীর ব্র্যান্ডের দাম রাখা হচ্ছে ৫৮০ টাকা। তবে রূপচাঁদা ব্র্যান্ডের (৫ লিটার) দাম রাখা হচ্ছে ৫৯৫ টাকা।
গত রোববার সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থানে যাচ্ছি। অসাধু ব্যবসায়ীরা যেন সুযোগ না নেয়, সেজন্য জনমত সৃষ্টি করতে হবে। মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে আমরা শক্ত অবস্থানে যাচ্ছি, বিভিন্ন বৈঠকে এ বিষয়ে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ভোজ্য তেলের ব্যাপারে আমরা অবজার্ভ করছি, আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্য তেলের দাম বেড়ে গেছে। সেজন্যই দামের প্রভাবটা আমাদের দেশে পড়েছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সচিবসহ সংশ্লিষ্টরা বারবার তাদের সঙ্গে বৈঠক করছেন। আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কী পরিমাণ বাড়ছে এবং দেশের বাজারে কী পরিমাণ বাড়ছে, সেটা খেয়াল করা হচ্ছে।
গত এক সপ্তাহে খোলা সয়াবিন তেলের দাম কেজিতে ৫ টাকা বেড়েছে বলে দাবি করেছে কাওরান বাজারের কয়েকজন মুদি দোকানি। দোকানদার হানিফ বলেন, এক লিটার সয়াবিন তেল আজ থেকে ১ মাস আগে ১০০ টাকার নিচে ছিল। সেটা এখন বেড়ে ১২০ টাকায় এসেছে। আরেক বিক্রেতা বলেন, গত সপ্তাহে সয়াবিন তেলে দাম ছিল প্রতিকেজি ১১৫ টাকা। এই সপ্তাহে তা বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা। আসলে তেলের দাম কয়েক মাস ধরে বাড়তি।
দেশে ভোগ্যপণ্যের সবচেয়ে বড় পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কয়েক দশকের মধ্যে দেশের বাজারে সর্বোচ্চ দামে লেনদেন হয়েছে ভোজ্য তেল। ২০০৮ সালে বৈশ্বিক দর বৃদ্ধিজনিত কারণে দেশের বাজারে ভোজ্য তেলের (সয়াবিন) মণপ্রতি (৩৭.৩২ কেজি) দাম সর্বোচ্চ ৩ হাজার ৮৫০ টাকা পর্যন্ত ওঠে। সর্বশেষ ডিসেম্বরের শেষ দিকে সয়াবিনের পাইকারি দাম মণপ্রতি ৪ হাজার ২৩০ থেকে ৪ হাজার ২৪০ টাকা পর্যন্ত ওঠে।সূএ:মানবজমিন

Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করায় বাংলাদেশ ক্রিকেট দলেকে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

» ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ বাংলাদেশের

» নৌশ্রমিকদের ধর্মঘট প্রত্যাহার, সবধরনের নৌযান চলাচল স্বাভাবিক

» বিলে রাষ্ট্রপতির সম্মতি, যেকোনো দিন এইচএসসির ফল

» এবার এসএসসি-এইচএসসিতে অটোপাস সম্ভব নয়: শিক্ষামন্ত্রী

» ঝাঁপা ইউনিয়নবাসি বর্তমান চেয়ারম্যান সামছুল হক মন্টুকে আবারও চেয়ারম্যান হিসাবে দেখতে চায়

» মনকাড়া সরিষা ফুলের সৌন্দর্য্যে হারিয়ে যান 

» লক্ষ্মীপুরে শীতার্ত মানুষের খোঁজে ওসি!

» চার ছবিতে মাহি

» টিকার অঙ্গীকার নামায় এমন তথ্য কেন?

<script async src=”https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js”></script>
<ins class=”adsbygoogle”
style=”display:block”
data-ad-format=”fluid”
data-ad-layout-key=”-ef+6k-30-ac+ty”
data-ad-client=”ca-pub-6746894633655595″
data-ad-slot=”3184959554″></ins>
<script>
(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
</script>

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

লাফিয়ে বাড়ছে ভোজ্য তেলের দাম.

রাজধানীর খুচরা ও পাইকারি বাজারে সব ধরনের ভোজ্য তেলের দাম বেড়েছে। এ ছাড়া বেশ কয়েকটি নিত্যপণ্যের দামেও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। তবে ভোজ্য তেলের দাম বেড়েছে দফায় দফায়। গত বছরের শেষের দিকে প্রতি লিটার বোতলজাত ভোজ্য তেল যেখানে ছিল ১০০ টাকার মধ্যে। এখন তা দাঁড়িয়েছে ১১৫-১২০ টাকা পর্যন্ত। সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) প্রতিবেদনেও এ তথ্য উঠে এসেছে।
টিসিবি’র তথ্য অনুযায়ী, এক সপ্তাহে ব্যবধানে লুজ সয়াবিন তেলের দাম প্রতি লিটারে বেড়েছে এক টাকা। আর মাসের হিসেবে বেড়েছে ৬ টাকা বা ৬.৩৪ শতাংশ। বর্তমানে প্রতি লিটার ১০৮ থেকে ১১০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এক বছরে বেড়েছে ১৮.৪৮ শতাংশ। বোতলের ৫ লিটার সয়াবিন তেলের দাম ০.৯০ শতাংশ বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৫৪০ থেকে ৫৮০ টাকায়। সপ্তাহের ব্যবধানে ৫ লিটারে বেড়েছে ১০ টাকা। মাসের ব্যবধানে বেড়েছে ৮.৭৪ শতাংশ। আর বছরের ব্যবধানে বেড়েছে ১৩.৭১ শতাংশ। এ ছাড়া বোতলজাত এক লিটার সয়াবিন তেলের দাম ২.৫ শতাংশ বেড়ে ১২০ থেকে ১৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সপ্তাহের ব্যবধানে এক লিটারে বেড়েছে ৫ টাকা। মাসের ব্যবধানে বেড়েছে ৮.৭১ শতাংশ। আর বছরের ব্যবধানে বেড়েছে ১৯.০৫ শতাংশ। এক লিটার লুজ পাম অয়েলের দাম ২.১৩ শতাংশ বেড়ে ৯৫ থেকে ৯৭ টাকা হচ্ছে। মাসের ব্যবধানে বেড়েছে ৪.৯২ শতাংশ। আর বছরের ব্যবধানে বেড়েছে ১৮.৫২ শতাংশ। আর এক লিটার সুপার পাম অয়েলের দাম ৩.০৯ শতাংশ বেড়ে হচ্ছে ৯৮ থেকে ১০২ টাকা।
এদিকে রাজধানীর সুপার শপগুলোতে খুচরা বাজারের চেয়ে আরো বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে সয়াবিন তেল। দেশের শীর্ষ সুপার শপগুলোর সয়াবিন তেলের দাম পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, স্বপ্ন সুপার শপে ফ্রেস ব্র্যান্ডের প্রতি ৫ লিটার সয়াবিন তেলের বোতল বিক্রি হচ্ছে ৬১৫ টাকায়। একই পরিমাণ রূপচাদা ব্র্যান্ডের দাম রাখা হচ্ছে ৬৩৫ টাকা। সাফোলা ব্র্যান্ডের (৫ লিটার) দাম রাখা হচ্ছে ১১৫০ টাকা। বসুন্ধরা ব্র্যান্ডের দাম রাখা হচ্ছে ৬৩০ টাকা। আর স্বপ্নের নিজস্ব ব্র্যান্ডের (৫ লিটার) দাম রাখা হচ্ছে ৫৮০ টাকা। এ ছাড়া ২ লিটার বোতল তীর ব্র্যান্ডের ২৫২ টাকা, রূপচাঁদা ব্র্যান্ডের ২৩৪ টাকা ও বসুন্ধরা ব্র্যান্ডের ২৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর এক লিটার বিক্রি হচ্ছে ১২৫ টাকায়। এদিকে মিনা বাজারে ৫ লিটার বোতলের দাম রাখা হচ্ছে (বসুন্ধরা) ৬২৫ টাকা। অন্যদিকে আগোরায় ৫ লিটার ফ্রেস ও তীর ব্র্যান্ডের দাম রাখা হচ্ছে ৫৮০ টাকা। তবে রূপচাঁদা ব্র্যান্ডের (৫ লিটার) দাম রাখা হচ্ছে ৫৯৫ টাকা।
গত রোববার সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থানে যাচ্ছি। অসাধু ব্যবসায়ীরা যেন সুযোগ না নেয়, সেজন্য জনমত সৃষ্টি করতে হবে। মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে আমরা শক্ত অবস্থানে যাচ্ছি, বিভিন্ন বৈঠকে এ বিষয়ে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ভোজ্য তেলের ব্যাপারে আমরা অবজার্ভ করছি, আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্য তেলের দাম বেড়ে গেছে। সেজন্যই দামের প্রভাবটা আমাদের দেশে পড়েছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সচিবসহ সংশ্লিষ্টরা বারবার তাদের সঙ্গে বৈঠক করছেন। আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কী পরিমাণ বাড়ছে এবং দেশের বাজারে কী পরিমাণ বাড়ছে, সেটা খেয়াল করা হচ্ছে।
গত এক সপ্তাহে খোলা সয়াবিন তেলের দাম কেজিতে ৫ টাকা বেড়েছে বলে দাবি করেছে কাওরান বাজারের কয়েকজন মুদি দোকানি। দোকানদার হানিফ বলেন, এক লিটার সয়াবিন তেল আজ থেকে ১ মাস আগে ১০০ টাকার নিচে ছিল। সেটা এখন বেড়ে ১২০ টাকায় এসেছে। আরেক বিক্রেতা বলেন, গত সপ্তাহে সয়াবিন তেলে দাম ছিল প্রতিকেজি ১১৫ টাকা। এই সপ্তাহে তা বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা। আসলে তেলের দাম কয়েক মাস ধরে বাড়তি।
দেশে ভোগ্যপণ্যের সবচেয়ে বড় পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কয়েক দশকের মধ্যে দেশের বাজারে সর্বোচ্চ দামে লেনদেন হয়েছে ভোজ্য তেল। ২০০৮ সালে বৈশ্বিক দর বৃদ্ধিজনিত কারণে দেশের বাজারে ভোজ্য তেলের (সয়াবিন) মণপ্রতি (৩৭.৩২ কেজি) দাম সর্বোচ্চ ৩ হাজার ৮৫০ টাকা পর্যন্ত ওঠে। সর্বশেষ ডিসেম্বরের শেষ দিকে সয়াবিনের পাইকারি দাম মণপ্রতি ৪ হাজার ২৩০ থেকে ৪ হাজার ২৪০ টাকা পর্যন্ত ওঠে।সূএ:মানবজমিন

Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com