মৃত্যুর পর সুখ-শান্তি কিংবা শাস্তি কখন শুরু হবে?

পরকালের প্রথম মনজিল হলো কবর। কবর থেকেই কি মানুষ তার কৃতকর্মের সুখ-শান্তি কিংবা শাস্তি ভোগ করবে? এ সম্পর্কে ইসলামের দিকনির্দেশনাই বা কী?

হ্যাঁ, মৃত্যুর পর কবর থেকেই কর্মকাণ্ডের ওপর ভিত্তি করে সুখ-শান্তি কিংবা শাস্তি ভোগ করবে মানুষ। মৃত্যুর পর কবরের জিজ্ঞাসাবাদ, সেখানের সুখ-শান্তি এবং শাস্তিভোগ ইত্যাদি মুমিন মুসলমানের ঈমান বা বিশ্বাসের মানদণ্ড। কবরের সুখ-শান্তি ও শাস্তির ব্যাপারে কুরআন-সুন্নায় অসংখ্য প্রমাণ পাওয়া যায়। আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমে ঘোষণা করেন-
‘আল্লাহ মুমিনদের দুনিয়ার জীবন ও পরকালে সুদৃঢ় বাক্য দ্বারা শক্তিশালী করবেন। অপরদিকে আল্লাহ জালিমদের পথভ্রষ্ট করবেন। তাঁর যা ইচ্ছা তিনি তা-ই করেন।’ (সুরা ইবরাহিম : আয়াত ২৭)

এ আয়াত দু’টি বিষয় সুস্পষ্ট। একটি হলো আল্লাহ মুমিন বান্দাকে কবরে জিজ্ঞাসাবাদের সময় সুদৃঢ় বাক্য দ্বারা সঠিক উত্তর দেয়ার জন্য শক্তিশালী করবেন। তারা মুক্তি পাবে। আর যারা সঠিক উত্তর দিতে পারবে না, তারাই জালিম বা পথভ্রষ্ট। কাজেই কবরে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে এ বিষয়টি সুস্পষ্ট। এ প্রসঙ্গে হাদিসে এসেছে-
হাদিসের বিখ্যাত গ্রন্থ বুখারির বর্ণনায় হজরত বারা ইবনে আজেব রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, কবরে একজন মুসলিমকে যখন জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে, তখন তিনি সাক্ষ্য দিয়ে বলবেন, ‘আল্লাহ ছাড়া কোনো ইলাহ নেই এবং মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আল্লাহরই রাসুল।’

কবরের জিজ্ঞাসাবাদ ও সেখানেই সুখ-শান্তি ও শাস্তির বিষয়টি হাদিস দ্বারাই প্রমাণিত। অন্য এক বর্ণনায় এসেছে-
হজরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘কোনো ব্যক্তিকে কবরে রেখে তার স্বজনরা যখন চলে যায়, সে (মৃতব্যক্তি) তখন তাদের চলার শব্দ শুনতে পায়। এমন সময় দুই জন ফেরেশতা আসেন এবং তাকে উঠিয়ে বসান। এরপর হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দিকে ইঙ্গিত দিয়ে প্রশ্ন করেন- এ ব্যক্তি সম্পর্কে তোমার মতামত কি ছিল?
মৃতব্যক্তি যদি মুমিন হয় তবে সঙ্গে সঙ্গেই বলবে- ‘আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, তিনি আল্লাহর বান্দা ও তাঁর রাসুল। তখন তাকে বলা হবে, জাহান্নামে তোমার স্থানটি লক্ষ্য কর এবং এ যন্ত্রণাময় স্থানের পরিবর্তে আল্লাহ তাআলা তোমাকে জান্নাতের সুখময় জায়গা উপহার দিয়েছেন। তখন সে দুটি স্থানই অবলোকন করবে।
তারপর মৃতব্যক্তি যদি কাফের বা মুনাফিক হয় তবে তাকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে- তুমি এ ব্যক্তির সম্পর্কে কি ধারণা পোষণ করতে? উত্তরে সে বলবে- আমি তো মনে করতে পারছি না। তবে লোকে যা বলে আমিও তাই বলতাম। তখন তাকে বলা হবে- তুমি জাননি এবং কুরআনও পাঠ করনি। তারপর তাকে লোহার হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করা হবে; তখন সে এত উচ্চ স্বরে চিৎকার করতে থাকবে যে, জ্বীন ও মানুষ ছাড়া সবাই (সব প্রাণী) সে চিৎকার শুনতে পাবে।’ (বুখারি ও মুসলিম)

মৃত্যুর পর কবরেই যে সুখ কিংবা আজাব হয়, তা হাদিসের অন্য একটি বর্ণনা থেকেও প্রমাণিত। হাদিসে এসেছে-
হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, একদিন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দুইটি কবরের পাশ দিয়ে হেটে যাওয়ার সময় বললেন, ‘এ কবরে যে দুইজনকে রাখা হয়েছে, তারা শাস্তি ভোগ করছে। তবে তাদের কোনো কবিরা গোনাহের জন্য শাস্তি দেয়া হচ্ছে না। বরং তাদের একজন পেশাবের সময় গোপনীয়তা ও সতর্কতা অবলম্বন করতো না। আর অপরজন চোগলখুরী করতো।’ (বুখারি)

সুতরাং এ বিষয়টি সুস্পষ্ট যে, কবরের সুখ-শান্তি এবং শাস্তি সত্য। তা মানুষকে কবরে দাফনের পরপরই শুরু হয়। কেননা রাসুলে আরাবি অন্য একটি হাদিসে সুস্পষ্টভাবে এ ঘোষণা দিয়েছেন এভাবে-
হজরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু এ হাদিসটিও রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণনা করেছেন- ‘আমি যদি এ আশংকা না করতাম যে, তোমাদের দাফন করবে (হবে) না। তবে আমি আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করতাম; যাতে তিনি তোমাদের কবরের আজাব বা শাস্তি শুনান; যা আমি শুনতে পাই।’ (মুসলিম)

কবরের আজাব থেকে বাঁচার দোয়া
কবরের শাস্তি সত্য। সে কারণেই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কবরের শাস্তি থেকে বাঁচার জন্য বেশি বেশি আল্লাহর কাছে সাহায্য প্রার্থনার কথা বলেছেন। তিনি কবরের আজাব থেকে বাঁচার ভাষা ও দোয়া শিখিয়েছেন। হাদিসে এসেছে-
হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাদের সবাইকে কুরআন শেখানোর মতোই এ দোয়াটিও শিখিয়েছেন। তাহলো-
اللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنْ عَذَابِ جَهَنَّمَ ، وَ أَعُوذُ بِكَ مِنْ عَذَابِ الْقَبْرِ، وَ أَعُوذُ بِكَ مِنْ شَرِّ فِتْنَةِ الْمَسِيحِ الدَّجَّالِ، وَ أَعُوذُ بِكَ مِنْ فِتْنَةِ الْمَحْيَا وَالْمَمَاتِ ،
উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা আউজুবিকা মিন আজাবি ঝাহান্নাম। ওয়া আউজুবিকা মিন আজাবিল ক্ববর। ওয়া আউজুবিকা মিন ফিতনাতিল মাসিহিদ দাজ্জাল। ওয়া আউজুবিকা মিন ফিতনাতিল মাহইয়া ওয়াল মামাতি।’
অর্থ : হে আল্লাহ! আপনার কাছে জাহান্নামের শাস্তি, কবরের আজাব (শাস্তি), দাজ্জালের ফেতনা-ফাসাদ থেকে আশ্রয় প্রার্থনা করছি। সঙ্গে সঙ্গে জন্ম-মৃত্যুর ফেতনা থেকেও তোমার কাছে আশ্রয় কামনা করি।’ (বুখারি ও মুসলিম)

এভাবে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কবরের আজাব ও ফেতনা থেকে বেঁচে থাকতে আরও অনেক দোয়া করতেন।

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, কবরের আজাব থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করা। কেননা পরকালের প্রথম মনজিলে যদি কবরের আজাব থেকে মুক্তি পাওয়া যায়; তবে আশা করা যায়, পরবর্তী মনজিলগুলোও আল্লাহ তাআলা নিজ দয়ায় নাজাত দান করবেন।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে মৃত্যু পরবর্তী জীবন ও কবরের আজাব থেকে আশ্রয় চাওয়া ও নাজাত পাওয়ার তাওফিক দান করুন। কবরের সুখ-শান্তি ও শাস্তির বিষয়ে বিশ্বাস স্থাপন করে পরিপূর্ণ মুমিন হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন। সূএ:জাগোনিউজ২৪.কম,

Facebook Comments Box
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ‘খালেদার জন্মদিন নিয়ে বিভ্রান্তির জবাব বিএনপির পক্ষ থেকে এখনো পাইনি’

» দেশবাসীকে রাষ্ট্রপতির ঈদ শুভেচ্ছা

» করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিএনপিকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না: তথ্যমন্ত্রী

» মিতু হত্যা মামলা: শাকু ৪ দিনের রিমান্ডে

» আ.লীগ নেতারা কে কোথায় ঈদ করবেন

» আজও ব্যাংক খোলা থাকছে যেসব এলাকায়

» বঙ্গবাজারে পাইকারি বিক্রি কমলেও রয়েছে খুচরা ক্রেতার চাপ

» দীপিকা নাকি কারিনা?

» টেস্ট র‌্যাংকিংয়ে শীর্ষে ভারত, ৫ রেটিং পয়েন্ট হারিয়েছে বাংলাদেশ

» ঈদের দিনেও গাজায় ইসরায়েলের হামলা অব‌্যাহত, নিহত বেড়ে ৬৭

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

মৃত্যুর পর সুখ-শান্তি কিংবা শাস্তি কখন শুরু হবে?

পরকালের প্রথম মনজিল হলো কবর। কবর থেকেই কি মানুষ তার কৃতকর্মের সুখ-শান্তি কিংবা শাস্তি ভোগ করবে? এ সম্পর্কে ইসলামের দিকনির্দেশনাই বা কী?

হ্যাঁ, মৃত্যুর পর কবর থেকেই কর্মকাণ্ডের ওপর ভিত্তি করে সুখ-শান্তি কিংবা শাস্তি ভোগ করবে মানুষ। মৃত্যুর পর কবরের জিজ্ঞাসাবাদ, সেখানের সুখ-শান্তি এবং শাস্তিভোগ ইত্যাদি মুমিন মুসলমানের ঈমান বা বিশ্বাসের মানদণ্ড। কবরের সুখ-শান্তি ও শাস্তির ব্যাপারে কুরআন-সুন্নায় অসংখ্য প্রমাণ পাওয়া যায়। আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমে ঘোষণা করেন-
‘আল্লাহ মুমিনদের দুনিয়ার জীবন ও পরকালে সুদৃঢ় বাক্য দ্বারা শক্তিশালী করবেন। অপরদিকে আল্লাহ জালিমদের পথভ্রষ্ট করবেন। তাঁর যা ইচ্ছা তিনি তা-ই করেন।’ (সুরা ইবরাহিম : আয়াত ২৭)

এ আয়াত দু’টি বিষয় সুস্পষ্ট। একটি হলো আল্লাহ মুমিন বান্দাকে কবরে জিজ্ঞাসাবাদের সময় সুদৃঢ় বাক্য দ্বারা সঠিক উত্তর দেয়ার জন্য শক্তিশালী করবেন। তারা মুক্তি পাবে। আর যারা সঠিক উত্তর দিতে পারবে না, তারাই জালিম বা পথভ্রষ্ট। কাজেই কবরে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে এ বিষয়টি সুস্পষ্ট। এ প্রসঙ্গে হাদিসে এসেছে-
হাদিসের বিখ্যাত গ্রন্থ বুখারির বর্ণনায় হজরত বারা ইবনে আজেব রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, কবরে একজন মুসলিমকে যখন জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে, তখন তিনি সাক্ষ্য দিয়ে বলবেন, ‘আল্লাহ ছাড়া কোনো ইলাহ নেই এবং মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আল্লাহরই রাসুল।’

কবরের জিজ্ঞাসাবাদ ও সেখানেই সুখ-শান্তি ও শাস্তির বিষয়টি হাদিস দ্বারাই প্রমাণিত। অন্য এক বর্ণনায় এসেছে-
হজরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘কোনো ব্যক্তিকে কবরে রেখে তার স্বজনরা যখন চলে যায়, সে (মৃতব্যক্তি) তখন তাদের চলার শব্দ শুনতে পায়। এমন সময় দুই জন ফেরেশতা আসেন এবং তাকে উঠিয়ে বসান। এরপর হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দিকে ইঙ্গিত দিয়ে প্রশ্ন করেন- এ ব্যক্তি সম্পর্কে তোমার মতামত কি ছিল?
মৃতব্যক্তি যদি মুমিন হয় তবে সঙ্গে সঙ্গেই বলবে- ‘আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, তিনি আল্লাহর বান্দা ও তাঁর রাসুল। তখন তাকে বলা হবে, জাহান্নামে তোমার স্থানটি লক্ষ্য কর এবং এ যন্ত্রণাময় স্থানের পরিবর্তে আল্লাহ তাআলা তোমাকে জান্নাতের সুখময় জায়গা উপহার দিয়েছেন। তখন সে দুটি স্থানই অবলোকন করবে।
তারপর মৃতব্যক্তি যদি কাফের বা মুনাফিক হয় তবে তাকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে- তুমি এ ব্যক্তির সম্পর্কে কি ধারণা পোষণ করতে? উত্তরে সে বলবে- আমি তো মনে করতে পারছি না। তবে লোকে যা বলে আমিও তাই বলতাম। তখন তাকে বলা হবে- তুমি জাননি এবং কুরআনও পাঠ করনি। তারপর তাকে লোহার হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করা হবে; তখন সে এত উচ্চ স্বরে চিৎকার করতে থাকবে যে, জ্বীন ও মানুষ ছাড়া সবাই (সব প্রাণী) সে চিৎকার শুনতে পাবে।’ (বুখারি ও মুসলিম)

মৃত্যুর পর কবরেই যে সুখ কিংবা আজাব হয়, তা হাদিসের অন্য একটি বর্ণনা থেকেও প্রমাণিত। হাদিসে এসেছে-
হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, একদিন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দুইটি কবরের পাশ দিয়ে হেটে যাওয়ার সময় বললেন, ‘এ কবরে যে দুইজনকে রাখা হয়েছে, তারা শাস্তি ভোগ করছে। তবে তাদের কোনো কবিরা গোনাহের জন্য শাস্তি দেয়া হচ্ছে না। বরং তাদের একজন পেশাবের সময় গোপনীয়তা ও সতর্কতা অবলম্বন করতো না। আর অপরজন চোগলখুরী করতো।’ (বুখারি)

সুতরাং এ বিষয়টি সুস্পষ্ট যে, কবরের সুখ-শান্তি এবং শাস্তি সত্য। তা মানুষকে কবরে দাফনের পরপরই শুরু হয়। কেননা রাসুলে আরাবি অন্য একটি হাদিসে সুস্পষ্টভাবে এ ঘোষণা দিয়েছেন এভাবে-
হজরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু এ হাদিসটিও রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণনা করেছেন- ‘আমি যদি এ আশংকা না করতাম যে, তোমাদের দাফন করবে (হবে) না। তবে আমি আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করতাম; যাতে তিনি তোমাদের কবরের আজাব বা শাস্তি শুনান; যা আমি শুনতে পাই।’ (মুসলিম)

কবরের আজাব থেকে বাঁচার দোয়া
কবরের শাস্তি সত্য। সে কারণেই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কবরের শাস্তি থেকে বাঁচার জন্য বেশি বেশি আল্লাহর কাছে সাহায্য প্রার্থনার কথা বলেছেন। তিনি কবরের আজাব থেকে বাঁচার ভাষা ও দোয়া শিখিয়েছেন। হাদিসে এসেছে-
হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাদের সবাইকে কুরআন শেখানোর মতোই এ দোয়াটিও শিখিয়েছেন। তাহলো-
اللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنْ عَذَابِ جَهَنَّمَ ، وَ أَعُوذُ بِكَ مِنْ عَذَابِ الْقَبْرِ، وَ أَعُوذُ بِكَ مِنْ شَرِّ فِتْنَةِ الْمَسِيحِ الدَّجَّالِ، وَ أَعُوذُ بِكَ مِنْ فِتْنَةِ الْمَحْيَا وَالْمَمَاتِ ،
উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা আউজুবিকা মিন আজাবি ঝাহান্নাম। ওয়া আউজুবিকা মিন আজাবিল ক্ববর। ওয়া আউজুবিকা মিন ফিতনাতিল মাসিহিদ দাজ্জাল। ওয়া আউজুবিকা মিন ফিতনাতিল মাহইয়া ওয়াল মামাতি।’
অর্থ : হে আল্লাহ! আপনার কাছে জাহান্নামের শাস্তি, কবরের আজাব (শাস্তি), দাজ্জালের ফেতনা-ফাসাদ থেকে আশ্রয় প্রার্থনা করছি। সঙ্গে সঙ্গে জন্ম-মৃত্যুর ফেতনা থেকেও তোমার কাছে আশ্রয় কামনা করি।’ (বুখারি ও মুসলিম)

এভাবে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কবরের আজাব ও ফেতনা থেকে বেঁচে থাকতে আরও অনেক দোয়া করতেন।

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, কবরের আজাব থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করা। কেননা পরকালের প্রথম মনজিলে যদি কবরের আজাব থেকে মুক্তি পাওয়া যায়; তবে আশা করা যায়, পরবর্তী মনজিলগুলোও আল্লাহ তাআলা নিজ দয়ায় নাজাত দান করবেন।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে মৃত্যু পরবর্তী জীবন ও কবরের আজাব থেকে আশ্রয় চাওয়া ও নাজাত পাওয়ার তাওফিক দান করুন। কবরের সুখ-শান্তি ও শাস্তির বিষয়ে বিশ্বাস স্থাপন করে পরিপূর্ণ মুমিন হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন। সূএ:জাগোনিউজ২৪.কম,

Facebook Comments Box
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com