মাংসের দাম লাগামহীন: গরুর কেজি ৭০০, খাসি হাজার

রাজধানীর বাজারে ৭০০ টাকার নিচে গরুর মাংস নেই। আর চট্টগ্রামে এই মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭৫০ টাকা কেজি। একই সঙ্গে বাজারে বেড়েছে খাসি ও মুরগির মাংসের দাম।

 

গতকাল বৃহস্পতিবার ও আজ শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) সকালে রাজধানীর বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ৭০০ টাকার নিচে গরুর মাংস বিক্রি হয়নি। খাসির মাংস কেজিতে ৫০ টাকা বেড়ে বিক্রি হয়েছে এক হাজার টাকা। সোনালি মুরগির কেজি ৩১০ টাকা এবং ব্রয়লার মুরগি কেজি ১৭০ থেকে ১৭৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

 

ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে গত সপ্তাহের তুলনায় সব ধরনের মাংসের দাম বেড়েছে। ঈদ উপলক্ষে গরুর মাংসের দাম আরো বাড়তে পারে। কারণ হিসেবে তাঁরা বলছেন, ঈদ উপলক্ষে বাজারে গরুপ্রতি দাম বেড়েছে পাঁচ থেকে ১০ হাজার টাকা। এ কারণে মাংসের দামও বেড়েছে।

 

মধ্য বাড্ডার মাদরাসা মার্কেট শরীফ গোশত বিতানের ব্যবসায়ী মো. শরীফ বলেন, ‘গরুর মাংস ৭০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। গরুর দাম বেড়ে যাওয়ায় ৭০০ টাকা কেজির নিচে মাংস বিক্রি করলে আমাদের লস হয়।

 

কারওয়ান বাজারের কিচেন মার্কেটের খাসির মাংস বিক্রেতা মো. জালাল উদ্দিন বলেন, ‘খাসির মাংস বিক্রি করছি কেজি এক হাজার টাকা। সামনে ঈদ, এ কারণে দাম কিছুটা বেড়েছে। আর আমাদেরও বেশি দামে কিনে আনতে হচ্ছে।

 

একই মার্কেটের গরুর মাংস বিক্রেতা নবীন হোসেন বলেন, ‘গরুর দাম বাড়ার কারণে গরুর মাংসের দামও বেড়েছে।

 

কুড়িল ইয়ার হোসেন গোশত বিতানের ব্যবসায়ী ইয়ার হোসেন বলেন, ‘এখন গরুর মাংস কেজি ৭০০ থেকে ৭২০ টাকায় বিক্রি করছি। তবে ঈদের দু-এক দিন আগে গরুর মাংসের দাম আরো বাড়তে পারে। কারণ গরুর বাজার খুবই চড়া। যদি আমাদের আরো বেশি দামে গরু কিনতে হয় তাহলে আরো বেশি দামে বিক্রি করতে হবে।

 

বাড্ডায় শরীফ গোশত বিতানে গরুর মাংস কিনতে আসা সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘কোনো উপলক্ষ পেলেই মাংস ব্যবসায়ীরা মাংসের দাম বাড়িয়ে দেন। গত সপ্তাহেও ৬৫০ টাকা কেজি মাংস কিনেছি, বাজার ঘুরেও আজ ৭০০ টাকার নিচে গরুর মাংস পাইনি। সব ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে মাংসের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন।’

 

এদিকে এক সপ্তাহের ব্যবধানে মুরগির দাম কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা বেড়েছে। কারওয়ান বাজারের আল্লার দান চিকেন ব্রয়লার হাউসের ব্যবসায়ী মো. সুমন বলেন, ‘এক সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা বেড়ে সোনালি মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩১০ টাকা এবং ব্রয়লার বিক্রি হচ্ছে কেজি ১৭০ থেকে ১৭৫ টাকায়।

 

গত শবেবরাতে এক লাফে ১০০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে গরুর মাংসের দাম। সেই থেকে এখনো চড়া দামেই বিক্রি হচ্ছে গরুর মাংস।

এছাড়া চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন বাজারে গতকাল বৃহস্পতিবার গরুর মাংস বিক্রি হয়েছে ৭৫০ টাকা কেজি। তবে হাড় ছাড়া গরুর মাংস সাড়ে ৮০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে।

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» দুর্নীতিবাজ-বিপথগামীরা যুবলীগে আসতে পারবে না: মাইনুল হোসেন খান নিখিল

» সিসি ক্যামেরার আওতায় আসবে পুরো রাজধানী: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

» ২৩ সালের আগেই হবে ক্ষমতার পরিবর্তন হবে: নুর

» জয়পুরহাটে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামী আটক

» খোমিনি স্টাইলে বিপ্লবের দুঃস্বপ্ন দেখছে বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

» ভোজনে পটু যে ৪ রাশির মানুষ

» কোরবানি ও আকিকা একসঙ্গে দেওয়া যাবে?

» ৩৫৩ বোতল ফেনসিডিলসহ দুই মাদক কাবারি গ্রেফতার

» চিকেন কাবাব তৈরির রেসিপি

» পিরিয়ডের সময় যেসব কাজ ভুলেও করবেন না

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

মাংসের দাম লাগামহীন: গরুর কেজি ৭০০, খাসি হাজার

রাজধানীর বাজারে ৭০০ টাকার নিচে গরুর মাংস নেই। আর চট্টগ্রামে এই মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭৫০ টাকা কেজি। একই সঙ্গে বাজারে বেড়েছে খাসি ও মুরগির মাংসের দাম।

 

গতকাল বৃহস্পতিবার ও আজ শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) সকালে রাজধানীর বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ৭০০ টাকার নিচে গরুর মাংস বিক্রি হয়নি। খাসির মাংস কেজিতে ৫০ টাকা বেড়ে বিক্রি হয়েছে এক হাজার টাকা। সোনালি মুরগির কেজি ৩১০ টাকা এবং ব্রয়লার মুরগি কেজি ১৭০ থেকে ১৭৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

 

ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে গত সপ্তাহের তুলনায় সব ধরনের মাংসের দাম বেড়েছে। ঈদ উপলক্ষে গরুর মাংসের দাম আরো বাড়তে পারে। কারণ হিসেবে তাঁরা বলছেন, ঈদ উপলক্ষে বাজারে গরুপ্রতি দাম বেড়েছে পাঁচ থেকে ১০ হাজার টাকা। এ কারণে মাংসের দামও বেড়েছে।

 

মধ্য বাড্ডার মাদরাসা মার্কেট শরীফ গোশত বিতানের ব্যবসায়ী মো. শরীফ বলেন, ‘গরুর মাংস ৭০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। গরুর দাম বেড়ে যাওয়ায় ৭০০ টাকা কেজির নিচে মাংস বিক্রি করলে আমাদের লস হয়।

 

কারওয়ান বাজারের কিচেন মার্কেটের খাসির মাংস বিক্রেতা মো. জালাল উদ্দিন বলেন, ‘খাসির মাংস বিক্রি করছি কেজি এক হাজার টাকা। সামনে ঈদ, এ কারণে দাম কিছুটা বেড়েছে। আর আমাদেরও বেশি দামে কিনে আনতে হচ্ছে।

 

একই মার্কেটের গরুর মাংস বিক্রেতা নবীন হোসেন বলেন, ‘গরুর দাম বাড়ার কারণে গরুর মাংসের দামও বেড়েছে।

 

কুড়িল ইয়ার হোসেন গোশত বিতানের ব্যবসায়ী ইয়ার হোসেন বলেন, ‘এখন গরুর মাংস কেজি ৭০০ থেকে ৭২০ টাকায় বিক্রি করছি। তবে ঈদের দু-এক দিন আগে গরুর মাংসের দাম আরো বাড়তে পারে। কারণ গরুর বাজার খুবই চড়া। যদি আমাদের আরো বেশি দামে গরু কিনতে হয় তাহলে আরো বেশি দামে বিক্রি করতে হবে।

 

বাড্ডায় শরীফ গোশত বিতানে গরুর মাংস কিনতে আসা সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘কোনো উপলক্ষ পেলেই মাংস ব্যবসায়ীরা মাংসের দাম বাড়িয়ে দেন। গত সপ্তাহেও ৬৫০ টাকা কেজি মাংস কিনেছি, বাজার ঘুরেও আজ ৭০০ টাকার নিচে গরুর মাংস পাইনি। সব ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে মাংসের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন।’

 

এদিকে এক সপ্তাহের ব্যবধানে মুরগির দাম কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা বেড়েছে। কারওয়ান বাজারের আল্লার দান চিকেন ব্রয়লার হাউসের ব্যবসায়ী মো. সুমন বলেন, ‘এক সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা বেড়ে সোনালি মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩১০ টাকা এবং ব্রয়লার বিক্রি হচ্ছে কেজি ১৭০ থেকে ১৭৫ টাকায়।

 

গত শবেবরাতে এক লাফে ১০০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে গরুর মাংসের দাম। সেই থেকে এখনো চড়া দামেই বিক্রি হচ্ছে গরুর মাংস।

এছাড়া চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন বাজারে গতকাল বৃহস্পতিবার গরুর মাংস বিক্রি হয়েছে ৭৫০ টাকা কেজি। তবে হাড় ছাড়া গরুর মাংস সাড়ে ৮০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে।

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com