বাগান নয় যেন এক টুকরো ভালোবাসা

প্রকৃতি ও গাছপালা প্রত্যেকটা মানুষকে কাছে টানে। প্রতিটি মানুষ প্রকৃতি, গাছপালা, ফুল-ফলের সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে ভালোবাসে। এর মধ্যে কিছু মানুষ সেই সৌন্দর্য্য গড়ে তুলে নিজের হাতে। এমনই একজন গাছ প্রেমী ও সৌখিন মানুষ দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা শিরীন বকুল। তিনি উপজেলার রামভদ্রপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা। ফুলবাড়ী উপজেলার বাসুদেবপুর এলাকায় নিজ বাসার ছোট্ট একটি ছাদে তিনি প্রায় বছর দুয়েক হলো বাগান শুরু করেছেন।

সরেজমিনে তার ওই ছাদ বাগানে যেতেই সবুজের সমারোহ দেখে চোখ জুড়িয়ে যায়। দেখে মনে হলো- বাগান নয় যেন এক টুকরো ভালোবাসা। ছাদের যেদিকে চোখ যায় শুধু গাছ আর গাছ। ফুলে ফুলে ছেয়ে গেছে ছাদের সাজানো বাগান। বাড়ির চারপাশের বেলকুনিতেও ঝুলছে ঝুলন লতা। ফুটেছে নানান রঙের ফুল।

তার এই বাগানে রয়েছে প্রায় ১০০ জাতের ফুল। লিলিয়াম, এমারিলিলাস লিলি সহ নানান জাতের লিলি,নানান রকম শোভাবর্ধন করা পাতা বাহারও রয়েছে। ফলগাছের মধ্যে রয়েছে আম, লাল আমলকী, মালটা, তেঁতুল, লিচু, আনার, লেবুসহ ৫০টি জাতের ফলগাছ। এছাড়াও বিভিন্ন জাতের সবজি চাষ করেছেন। সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে শিরীন বকুলের সংগ্রহে রয়েছে প্রায় ৩০ জাতের পর্তুলিকা যা সাধারণত আমরা ঘাসফুল নামে চিনে থাকি।

তিনি জানান, শখ পূরণের পাশাপাশি করোনার সময় ঘরে বসে অনলাইনের মাধ্যমে অর্ডার নিয়ে এই পর্তুলিকা বিক্রয় করে বেশ কিছু টাকাও আয় করেছেন তিনি।

তিনি আরও জানান, তার প্রত্যেকটা গাছ সংগ্রহের পেছনে রয়েছে অনেক ত্যাগ, কষ্ট আর শ্রম। যখন যেখানেই তিনি যান সেখানেই তার পছন্দের গাছটি খোঁজেন। কখনো বাসে, কখনো ট্রেনে করে বিভিন্ন জায়গা থেকে তিনি গাছ কিনে আনেন। এ পর্যন্ত তিনি তার বাগানে প্রায় এক লাখে টাকা খরচ করেছেন।

শিরীন বকুল জানান, শুধু বাসায় নন স্কুলেও একইভাবে গাছ লাগানোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। স্কুল বন্ধ না থাকলে এতদিনে তিনি স্কুলকেও সবুজে ঘেরা ছায়ানীড় করে তুলতেন। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে স্কুলের এ পরিকল্পনাকে বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করবেন বলে জানান তিনি। শিরীন বকুলের স্বপ্ন এই স্কুলের বাগান ভিজিট করতে একদিন শায়েখ সিরাজ স্যার আসবেন।

বাগান বিষয়ে হঠাৎ এত আগ্রহ কেন? এই প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, ছোট বেলা থেকেই তিনি যেখানে যতটুকু জায়গা পেতেন গাছ লাগিয়ে দিতেন।

তিনি বলেন, ‘আমি মানুষকে গাছ দিতে ভালোবাসি, তাই দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষকে নিজের টাকা খরচ করেও গাছ পাঠিয়ে দেই। যদিও অনেকে তার মধ্যে অপরিচিত। মাঝে মাঝে শিক্ষার্থীদের মধ্যেও বৃক্ষপ্রেম জাগাতে গাছ উপহার দিয়ে থাকি।

তিনি সকলের উদ্দেশে বলেন, ‘আসুন আমরা বেশি বেশি গাছ লাগাই, বাগান করি, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য সবুজের সমারোহে গড়ে তুলি। ঢাকাটাইমস

Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ঈদুল আজহার নামাজও মসজিদে আদায় করতে হবে

» এই পাপীদের দায় রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক শক্তিকে নিতে হবে

» ময়মনসিংহে ডিবি’র অভিযানে মানবপাচারকারী প্রেফতার

» বরিশালে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে অর্থ আদায়, তিন নারী আটক

» ডা. সাবরিনা সাময়িক বরখাস্ত

» সেই সাবরিনার এক স্ট্যাটাস নিয়ে তুলকালাম

» লালপুরের ওয়ালিয়ায় বর্ষন না হতেই ‘বন্যা’, পানি বন্দি ৫’শতাধিক মানুষ, ভোগান্তি চরমে!

» কান্সারে আক্রান্ত এসএসসি পরিক্ষার্থী সামিমা আক্তারকে আর্থিক অনুধান প্রদান

» এনজিও ফাউন্ডেশনের অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে পানির ট্যাংক বিতরণ

» পাঁচবিবির সেই আব্বাস আলীর পাশে ইউএনও নাদিম সারোয়ার

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মাকসুদা লিসা।

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

বাগান নয় যেন এক টুকরো ভালোবাসা

প্রকৃতি ও গাছপালা প্রত্যেকটা মানুষকে কাছে টানে। প্রতিটি মানুষ প্রকৃতি, গাছপালা, ফুল-ফলের সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে ভালোবাসে। এর মধ্যে কিছু মানুষ সেই সৌন্দর্য্য গড়ে তুলে নিজের হাতে। এমনই একজন গাছ প্রেমী ও সৌখিন মানুষ দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা শিরীন বকুল। তিনি উপজেলার রামভদ্রপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা। ফুলবাড়ী উপজেলার বাসুদেবপুর এলাকায় নিজ বাসার ছোট্ট একটি ছাদে তিনি প্রায় বছর দুয়েক হলো বাগান শুরু করেছেন।

সরেজমিনে তার ওই ছাদ বাগানে যেতেই সবুজের সমারোহ দেখে চোখ জুড়িয়ে যায়। দেখে মনে হলো- বাগান নয় যেন এক টুকরো ভালোবাসা। ছাদের যেদিকে চোখ যায় শুধু গাছ আর গাছ। ফুলে ফুলে ছেয়ে গেছে ছাদের সাজানো বাগান। বাড়ির চারপাশের বেলকুনিতেও ঝুলছে ঝুলন লতা। ফুটেছে নানান রঙের ফুল।

তার এই বাগানে রয়েছে প্রায় ১০০ জাতের ফুল। লিলিয়াম, এমারিলিলাস লিলি সহ নানান জাতের লিলি,নানান রকম শোভাবর্ধন করা পাতা বাহারও রয়েছে। ফলগাছের মধ্যে রয়েছে আম, লাল আমলকী, মালটা, তেঁতুল, লিচু, আনার, লেবুসহ ৫০টি জাতের ফলগাছ। এছাড়াও বিভিন্ন জাতের সবজি চাষ করেছেন। সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে শিরীন বকুলের সংগ্রহে রয়েছে প্রায় ৩০ জাতের পর্তুলিকা যা সাধারণত আমরা ঘাসফুল নামে চিনে থাকি।

তিনি জানান, শখ পূরণের পাশাপাশি করোনার সময় ঘরে বসে অনলাইনের মাধ্যমে অর্ডার নিয়ে এই পর্তুলিকা বিক্রয় করে বেশ কিছু টাকাও আয় করেছেন তিনি।

তিনি আরও জানান, তার প্রত্যেকটা গাছ সংগ্রহের পেছনে রয়েছে অনেক ত্যাগ, কষ্ট আর শ্রম। যখন যেখানেই তিনি যান সেখানেই তার পছন্দের গাছটি খোঁজেন। কখনো বাসে, কখনো ট্রেনে করে বিভিন্ন জায়গা থেকে তিনি গাছ কিনে আনেন। এ পর্যন্ত তিনি তার বাগানে প্রায় এক লাখে টাকা খরচ করেছেন।

শিরীন বকুল জানান, শুধু বাসায় নন স্কুলেও একইভাবে গাছ লাগানোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। স্কুল বন্ধ না থাকলে এতদিনে তিনি স্কুলকেও সবুজে ঘেরা ছায়ানীড় করে তুলতেন। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে স্কুলের এ পরিকল্পনাকে বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করবেন বলে জানান তিনি। শিরীন বকুলের স্বপ্ন এই স্কুলের বাগান ভিজিট করতে একদিন শায়েখ সিরাজ স্যার আসবেন।

বাগান বিষয়ে হঠাৎ এত আগ্রহ কেন? এই প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, ছোট বেলা থেকেই তিনি যেখানে যতটুকু জায়গা পেতেন গাছ লাগিয়ে দিতেন।

তিনি বলেন, ‘আমি মানুষকে গাছ দিতে ভালোবাসি, তাই দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষকে নিজের টাকা খরচ করেও গাছ পাঠিয়ে দেই। যদিও অনেকে তার মধ্যে অপরিচিত। মাঝে মাঝে শিক্ষার্থীদের মধ্যেও বৃক্ষপ্রেম জাগাতে গাছ উপহার দিয়ে থাকি।

তিনি সকলের উদ্দেশে বলেন, ‘আসুন আমরা বেশি বেশি গাছ লাগাই, বাগান করি, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য সবুজের সমারোহে গড়ে তুলি। ঢাকাটাইমস

Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মাকসুদা লিসা।

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com