দ্বৈতনীতি

তারিক সামিন:সুইটির বয়স বিশ বৎসর। ইতিহাস বিষয় নিয়ে ২য় বর্ষে অনার্স পড়ছে। মাঝারি উচ্চতা, হালকা-পাতলা চেহারা, টানাটানা চোখ, লম্বাটে মুখমণ্ডল, চোখা থুতনি, হাসলে দারুণ লাগে ওকে।

ফেসবুকে প্রোফাইল দেখছিল সোহেলের। সোহেল মডেলিং আর নাটকে আগ্রহী। ছেলেটা স্টাইলিস্ট। বয়স ২৪ বছর। মাঝারি উচ্চতা, গায়ের রং শ্যামলা, পেটানো স্বাস্থ্য, লম্বাটে মুখ। ছয় দিন আগে সোহেলের সাথে ফেসবুকে পরিচয়। ঘণ্টার পর ঘণ্টা চ্যাটিং, মেসেজ আর ফোনে কথা হয় ওদের। ছেলেটা এরই মধ্যে পাগল হয়ে গেছে ওর জন্য। সোহেল সহজ-সরল, দেখতে হ্যান্ডসাম। কিন্তু কথা বলে আঞ্চলিক ভাষায়।

দাঁত দিয়ে ডান হাতের নখ কামড়াতে কামড়াতে ভাবছিল সুইটি। এমন সময় মোবাইল ফোনটা বেজে উঠলো। সোহেল কল করেছে।
হ্যালো, ফোন রিসিভ করে বললো সুইটি।
হ্যালো, জান তুমি কেমন আছ?
ভালো, আপনি?
তোমাকে না দেখলে ক্যামনে ভালো থাকি। মনে হইতাছে মইরা যাবো। খুব আবেগ সোহেলের গলায়।
মরে যান। আপনার মরাই উচিত।
তুমি কি নিষ্ঠুর, আমার জন্য এতটুকু মায়া হয় না তোমার!
আচ্ছা, আপনি এখন কোথায়? খুব আগ্রহ ভরে জিজ্ঞাসা করলো সুইটি।
আমার রুমে, ক্যানো?
আপনার রুমমেট নাই?
না। আজিম ভাই ট্যুরে গেছে। পাঁচ দিন পরে ফিরবে।
আর কেউ নাই?
না, কে থাকবে?
রান্না কে করে?
বুয়া।
সে কখন আসে?
সকাল আটটায়। এসব কেন জিজ্ঞাসা করছো জান? অবাক সুরে বললো সোহেল।
এমনিতেই জিজ্ঞাসা করছিলাম। বামহাতে মাথার চুলগুলোর উপর আঙুল চালিয়ে আচড়াচ্ছিল সুইটি।
জান, দেখা করবা? জিজ্ঞাসা করলো সোহেল।
কোথায়?
যমুনা ফিউচার পার্কে।
না, কেউ যদি দেখে ফেলে?
দেখলে সমস্যা কি? বলবা আমি তোমার হবু বর।
ইস! বর। বউ পালতে টাকা লাগে। কবে প্রতিষ্ঠিত হবেন তার কোন ঠিক আছে?
তাহলে দূরে কোথাও? আশুলিয়ার দিকে যাই। আহত সুরে বললো সোহেল।
না থাক। আপনার বাসাটা আমার দেখতে ইচ্ছে করছে। কিন্তু পুরুষ মানুষ আমি বিশ্বাস করি না।
জান, তুমি আমারে ওমন ভাবলা!
হুম! আপনাকে অবশ্য বিশ্বাস করি আমি।
থ্যাংক ইউ! এখন আসবা? খুশি হয়ে জিজ্ঞাসা করলো সোহেল।
না, দেখি। যাবো হয়তো একদিন।
আসো না জানু! তোমাকে দেখার জন্য মনটা খুব অস্থির হয়ে আছে। খুব অনুনয় করে বললো সোহেল।
জানাবো, বাই। ফোন কেটে দিল সুইটি। জাগোনিউজ

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» যশোরের শার্শায় ১ হাজার ৫০০ বোতল ফেনসিডিল জব্দ

» রাজধানীর জুরাইনে গ্যাস লাইনের লিকেজ থেকে আগুন

» অগ্নিকাণ্ডে হতাহতে শোকের ঘোষণা আসবে: প্রধানমন্ত্রী

» সকল কেমিক্যাল ও রাসায়নিক পদার্থ খুব দ্রুত নিরাপদ স্থানে সরানো হবে : ওবায়দুল কাদের

» এ কেমন বর্বরতা!

» শরীয়তপুরে আড়াই বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ,১জন আটক

» বরিশালে জমির বিরোধের সংঘর্ষে নিহত ১

» ডাকসু নির্বাচনে ছাত্রদলের মনোনয়ন বিতরণ চলছে

» রাসায়নিকের গুদাম না সরানো দুঃখজনক: প্রধানমন্ত্রী

» লিভার সিরোসিস কখন হয়?

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,

উপদেষ্টা -আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক

ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিল

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০,০১৯১১৪৯০৫০৫

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

দ্বৈতনীতি

তারিক সামিন:সুইটির বয়স বিশ বৎসর। ইতিহাস বিষয় নিয়ে ২য় বর্ষে অনার্স পড়ছে। মাঝারি উচ্চতা, হালকা-পাতলা চেহারা, টানাটানা চোখ, লম্বাটে মুখমণ্ডল, চোখা থুতনি, হাসলে দারুণ লাগে ওকে।

ফেসবুকে প্রোফাইল দেখছিল সোহেলের। সোহেল মডেলিং আর নাটকে আগ্রহী। ছেলেটা স্টাইলিস্ট। বয়স ২৪ বছর। মাঝারি উচ্চতা, গায়ের রং শ্যামলা, পেটানো স্বাস্থ্য, লম্বাটে মুখ। ছয় দিন আগে সোহেলের সাথে ফেসবুকে পরিচয়। ঘণ্টার পর ঘণ্টা চ্যাটিং, মেসেজ আর ফোনে কথা হয় ওদের। ছেলেটা এরই মধ্যে পাগল হয়ে গেছে ওর জন্য। সোহেল সহজ-সরল, দেখতে হ্যান্ডসাম। কিন্তু কথা বলে আঞ্চলিক ভাষায়।

দাঁত দিয়ে ডান হাতের নখ কামড়াতে কামড়াতে ভাবছিল সুইটি। এমন সময় মোবাইল ফোনটা বেজে উঠলো। সোহেল কল করেছে।
হ্যালো, ফোন রিসিভ করে বললো সুইটি।
হ্যালো, জান তুমি কেমন আছ?
ভালো, আপনি?
তোমাকে না দেখলে ক্যামনে ভালো থাকি। মনে হইতাছে মইরা যাবো। খুব আবেগ সোহেলের গলায়।
মরে যান। আপনার মরাই উচিত।
তুমি কি নিষ্ঠুর, আমার জন্য এতটুকু মায়া হয় না তোমার!
আচ্ছা, আপনি এখন কোথায়? খুব আগ্রহ ভরে জিজ্ঞাসা করলো সুইটি।
আমার রুমে, ক্যানো?
আপনার রুমমেট নাই?
না। আজিম ভাই ট্যুরে গেছে। পাঁচ দিন পরে ফিরবে।
আর কেউ নাই?
না, কে থাকবে?
রান্না কে করে?
বুয়া।
সে কখন আসে?
সকাল আটটায়। এসব কেন জিজ্ঞাসা করছো জান? অবাক সুরে বললো সোহেল।
এমনিতেই জিজ্ঞাসা করছিলাম। বামহাতে মাথার চুলগুলোর উপর আঙুল চালিয়ে আচড়াচ্ছিল সুইটি।
জান, দেখা করবা? জিজ্ঞাসা করলো সোহেল।
কোথায়?
যমুনা ফিউচার পার্কে।
না, কেউ যদি দেখে ফেলে?
দেখলে সমস্যা কি? বলবা আমি তোমার হবু বর।
ইস! বর। বউ পালতে টাকা লাগে। কবে প্রতিষ্ঠিত হবেন তার কোন ঠিক আছে?
তাহলে দূরে কোথাও? আশুলিয়ার দিকে যাই। আহত সুরে বললো সোহেল।
না থাক। আপনার বাসাটা আমার দেখতে ইচ্ছে করছে। কিন্তু পুরুষ মানুষ আমি বিশ্বাস করি না।
জান, তুমি আমারে ওমন ভাবলা!
হুম! আপনাকে অবশ্য বিশ্বাস করি আমি।
থ্যাংক ইউ! এখন আসবা? খুশি হয়ে জিজ্ঞাসা করলো সোহেল।
না, দেখি। যাবো হয়তো একদিন।
আসো না জানু! তোমাকে দেখার জন্য মনটা খুব অস্থির হয়ে আছে। খুব অনুনয় করে বললো সোহেল।
জানাবো, বাই। ফোন কেটে দিল সুইটি। জাগোনিউজ

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ,

উপদেষ্টা -আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক

ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিল

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০,০১৯১১৪৯০৫০৫

Design & Developed BY ThemesBazar.Com