<script async src=”https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js”></script>
<!– ccf –>
<ins class=”adsbygoogle”
style=”display:block”
data-ad-client=”ca-pub-6746894633655595″
data-ad-slot=”3307490317″
data-ad-format=”auto”
data-full-width-responsive=”true”></ins>
<script>
(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
</script>

<script async src=”https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js”></script>
<!– ccf –>
<ins class=”adsbygoogle”
style=”display:block”
data-ad-client=”ca-pub-6746894633655595″
data-ad-slot=”3307490317″
data-ad-format=”auto”
data-full-width-responsive=”true”></ins>
<script>
(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
</script>

টাকা ছাড়া মিলছে না বিনামূল্যের পাঠ্যবই.

নেত্রকোনার খালিয়াজুড়িতে মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতে টাকা ছাড়া মিলছে না বিনামূল্যের পাঠ্যবই। সেশন ফি’র অজুহাতে নতুন বইয়ের ঘ্রাণ থেকে বঞ্চিত হাওরপারের বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষার্থীরা। টাকা দিতে না পারায় বই না নিয়েই খালি হাতে ফিরতে হয়েছে তাদের। এ নিয়ে স্থানীয় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা যায়, উপজেলার সব কয়টি বিদ্যালয়ে বিনামূল্যে পাঠ্যবই বিতরণের সময় প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে সেশন ফি, মাসিক বেতন ও অন্যান্য ফি’র অজুহাতে ৭শ’ টাকা থেকে এক হাজার পর্যন্ত আদায় করছে। তবে ওই টাকার কোনো রশিদ অভিভাবকদের দেওয়া হচ্ছে না।

এছাড়াও শিক্ষা অফিসের কথা বলে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বিদ্যালয়গুলো জমা নিচ্ছে পুরাতন বছরের বই। যারা টাকা দিচ্ছে ওই সব শিক্ষার্থীদের বই দিচ্ছে।

উপজেলা সদরের পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী মোঃ সেকুল মিয়ার বাবা মোঃ মোশারফ হোসেন জানান, বিদ্যালয়ের সেশন ফি’র টাকা পরিশোধ না করায় তার ছেলেকে বই দেওয়া হয়নি।

একই শ্রেণির শিক্ষার্থী আকরাম হোসেন ও তামিমুল জানান, সেশন ফি’র টাকা পরিশোধ করার পর তাকে বই দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া আরো কয়েকজন অভিভাবক ও শিক্ষার্থীর এ বিষয়ে অভিযোগ জানালে ক্ষতি হতে পারে এ ভয়ে নাম প্রকাশ করতে চায়নি।

খালিয়াজুড়ি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রবীন্দ্র চন্দ্র বিশ্বাস জানান, শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বই বিতরণের জন্য টাকা নেওয়া হচ্ছে না। তাদের সেশন ফি, ভর্তি ফি বাবদ টাকা নেওয়া হচ্ছে। রিসিট পরে দেওয়া হবে।

কুতুবপুর পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আজমান মিয়া টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, শিক্ষার্থীর সেশন ফি নেওয়া হচ্ছে।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ এভিএম জাহিদ হোসেন জানান, বইগুলো বিনামূল্যে বিতরণের জন্য দেওয়া হয়েছে। এর সঙ্গে বিদ্যালয়ের সেশন ফি ও মাসিক বেতনের কোনো সম্পর্ক নেই। বিষয়টি তদন্ত করা হবে।

তিনি আরো জানান, পুরাতন বই নেওয়ার ব্যাপারে কোনো নির্দেশনা এখনো হাতে পাননি। অতি উৎসাহী হয়ে শিক্ষার্থীদের নিকট হতে পুরোনো বই নেওয়া ঠিক হয়নি।

খালিয়াজুড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার এএইচএম আরিফুল ইসলাম জানান, সরকারের দেওয়া বিনামূল্যের নতুন বই বিতরণের দিন সেশন ফি বা ভর্তি ফি বাবদ টাকা নেওয়া যাবে না। এছাড়া ফি আদায়ের জন্য বই আটকিয়ে রাখার সুযোগ নেই। কোনো বিদ্যালয়ে এমনটা ঘটনা ঘটলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সূএ:পূর্বপশ্চিমবিডি

Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» অবৈধভাবে ডিএনসিসির বিভিন্ন স্থাপনা দখল করে রাখা কাউকে ছাড় দেয়া হবে না

» আরেকটি নতুন সিনেমায় চুক্তিবদ্ধ হলেন অভিনেত্রী জয়া

» করোনার টিকা দিতে ঢামেক হাসপাতালে ৪ বুথ.

» সেরাম ইনস্টিটিউটে আগুনে পাঁচজনের মৃত্যু,

» ঢাকার কোনো বাসাবাড়িতে নতুন দারোয়ান-গৃহকর্মী নিয়োগ দিলে পুলিশকে জানানোর আহ্বান

» ত্রিশালের এমপি করোনায় আক্রান্ত

» ফুলপুরে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের মাঝে নতুন বাসগৃহ হস্তান্তর বিষয়ে প্রেস ব্রিফিং

» ইসলামপুরে অরক্ষিত রেল ক্রসিংয়ে প্রাণ হারালো ওয়ার্ড বয়

» উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে সবার আগে খাদ্য উৎপাদন করতে হবে..আ.ন.ম ফয়জুল হক-ডিসি

» অর্ধলক্ষ মানুষের প্রত্যাশিত এরা বরাক নদীতে সেতুর কাজ শুরু

<script async src=”https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js”></script>
<!– ccf –>
<ins class=”adsbygoogle”
style=”display:block”
data-ad-client=”ca-pub-6746894633655595″
data-ad-slot=”3307490317″
data-ad-format=”auto”
data-full-width-responsive=”true”></ins>
<script>
(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
</script>

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

টাকা ছাড়া মিলছে না বিনামূল্যের পাঠ্যবই.

নেত্রকোনার খালিয়াজুড়িতে মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতে টাকা ছাড়া মিলছে না বিনামূল্যের পাঠ্যবই। সেশন ফি’র অজুহাতে নতুন বইয়ের ঘ্রাণ থেকে বঞ্চিত হাওরপারের বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষার্থীরা। টাকা দিতে না পারায় বই না নিয়েই খালি হাতে ফিরতে হয়েছে তাদের। এ নিয়ে স্থানীয় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা যায়, উপজেলার সব কয়টি বিদ্যালয়ে বিনামূল্যে পাঠ্যবই বিতরণের সময় প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে সেশন ফি, মাসিক বেতন ও অন্যান্য ফি’র অজুহাতে ৭শ’ টাকা থেকে এক হাজার পর্যন্ত আদায় করছে। তবে ওই টাকার কোনো রশিদ অভিভাবকদের দেওয়া হচ্ছে না।

এছাড়াও শিক্ষা অফিসের কথা বলে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বিদ্যালয়গুলো জমা নিচ্ছে পুরাতন বছরের বই। যারা টাকা দিচ্ছে ওই সব শিক্ষার্থীদের বই দিচ্ছে।

উপজেলা সদরের পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী মোঃ সেকুল মিয়ার বাবা মোঃ মোশারফ হোসেন জানান, বিদ্যালয়ের সেশন ফি’র টাকা পরিশোধ না করায় তার ছেলেকে বই দেওয়া হয়নি।

একই শ্রেণির শিক্ষার্থী আকরাম হোসেন ও তামিমুল জানান, সেশন ফি’র টাকা পরিশোধ করার পর তাকে বই দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া আরো কয়েকজন অভিভাবক ও শিক্ষার্থীর এ বিষয়ে অভিযোগ জানালে ক্ষতি হতে পারে এ ভয়ে নাম প্রকাশ করতে চায়নি।

খালিয়াজুড়ি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রবীন্দ্র চন্দ্র বিশ্বাস জানান, শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বই বিতরণের জন্য টাকা নেওয়া হচ্ছে না। তাদের সেশন ফি, ভর্তি ফি বাবদ টাকা নেওয়া হচ্ছে। রিসিট পরে দেওয়া হবে।

কুতুবপুর পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আজমান মিয়া টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, শিক্ষার্থীর সেশন ফি নেওয়া হচ্ছে।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ এভিএম জাহিদ হোসেন জানান, বইগুলো বিনামূল্যে বিতরণের জন্য দেওয়া হয়েছে। এর সঙ্গে বিদ্যালয়ের সেশন ফি ও মাসিক বেতনের কোনো সম্পর্ক নেই। বিষয়টি তদন্ত করা হবে।

তিনি আরো জানান, পুরাতন বই নেওয়ার ব্যাপারে কোনো নির্দেশনা এখনো হাতে পাননি। অতি উৎসাহী হয়ে শিক্ষার্থীদের নিকট হতে পুরোনো বই নেওয়া ঠিক হয়নি।

খালিয়াজুড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার এএইচএম আরিফুল ইসলাম জানান, সরকারের দেওয়া বিনামূল্যের নতুন বই বিতরণের দিন সেশন ফি বা ভর্তি ফি বাবদ টাকা নেওয়া যাবে না। এছাড়া ফি আদায়ের জন্য বই আটকিয়ে রাখার সুযোগ নেই। কোনো বিদ্যালয়ে এমনটা ঘটনা ঘটলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সূএ:পূর্বপশ্চিমবিডি

Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।(দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : [email protected]

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com