ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের তান্ডবে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে ঝিনাইদহের আম চাষিদের স্বপ্ন

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ৬ নং গান্না ইউনিয়নের কাশিম নগর গ্রামের প্রায় শত ভাগই আম চাষি।ঐ গ্রামে আড়াই হাজার থেকে তিন হাজার বিঘা জমিতে আম চাষ করে দেশের ঢাকা, রাজশাহী, বরিশাল,চট্রগ্রাম,মাদারিপুর,খুলনা,যশোরসহ বিভিন্ন জেলাতে আম রপ্তানি করে চাষিরা প্রতি বছর প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ কোটি টাকা আয় করেন।
এবারও দেশের মাটিতে আম রপ্তানির প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন জেলার সদর উপজেলার গান্না ইউনিয়নের কাশিম নগর গ্রামের চাষিরা । কিন্তু বুধবার রাতে ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে চাষিদের ৩ হাজার বিঘা জমিতে করা আমরুপালি সহ বিভিন্ন জাতের আমের বাগান। গাছে আর কোনো আম নেই। সব ঝরে গেছে। পুরো গ্রামের চিত্র একই। সংরক্ষণের সুযোগ না থাকায় ঝরে পড়া আম গাছের নিচে মাটিতেই পড়ে আছে।চাষিরা বলছেন এই আম কেনার মত কেউ নেই।গাছের নিচে থেকে আম পরিস্কার করতেও এখন অনেক টাকার জন খরচ লাগবে।
আম্ফান সব কিছু তছনছ করে দেওয়ার পরের দিন বৃহস্পতিবার স্থানীয় বাজারে ঝরে পড়া আম বিক্রি হয়েছে কেজিতে দুই থেকে তিন টাকা করে। কৃষকের চোখেমুখে অন্ধকার। ঋণ নিয়ে আমের ব্যবসার ওপর তাঁদের জীবন-জীবিকা নির্ভরশীল। পুরো কাশিম নগর বাগানের নিচে মণকে মণ বিভিন্ন জাতের আম পড়ে আছে। কেনার মানুষ নেই। একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী পরিচালক বলছিলেন, কাশিম নগরে বাগানের পর বাগান গাছের নিচে আম পড়ে আছে। আর মাত্র ১০ থেকে ১৫ দিন সময় পেলে আমগুলো পূর্ণতা পেত।
প্রায় তিন মাস ধরে করোনাভাইরাস কৃষকের জীবন বিপর্যস্ত করে তুলেছে, নতুন করে ঘূর্ণিঝড় আম্ফান এসে কৃষকের পুরো কোমর ভেঙে দিয়েছে। আম্ফান যে ক্ষতি করে দিয়ে গেল, তা কাটিয়ে উঠতে কত দিন লাগবে, তা কেউ বলতে পারছে না। এদিকে সারা দেশে আমের কী পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, মিডিয়াতে তার একটি ধারণা দিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান। তিনি বলেন, সারা দেশে ১৫০ কোটি টাকার সমপরিমাণ আমের ক্ষতি হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের মেম্বার রিপন হোসেন বলেন, আমার ওয়ার্ডের প্রায় শত ভাগ চাষি আম চাষের উপর নির্ভর করে জিবিকা নির্বাহ করে।বিভিন্ন ব্যাংক এবং এনজিও থেকে টাকা ঋণ নিয়ে তারা এই আম চাষ করে থাকে।ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের তাণ্ডবে এবার আম চাষিদের যে ক্ষতি হয়েছে তাতে চাষিদের সোজা হয়ে দাঁড়াতে কয়েক বছর কেটে যেতে পারে ।তিনি আরও বলেন, কাশিম নগর গ্রামে আড়াই হাজার থেকে তিন হাজার বিঘা জমিতে চাষিরা আম চাষ করে থাকেন।তাতে প্রতি বছরে প্রাই ৩০ থেকে ৩৫ কোটি টাকা চাষিরা আয় করেন।তিনি চাষিদের পক্ষে সরকারের কাছে এই ক্ষতির ভর্তুকি দাবি করেন।
এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি অফিসার মুফাখ্খারুল ইসলাম বলেন, আমরা উপ-কৃষি অফিসারদের মাধ্যমে প্রতি ইউনিয়নে ইউনিয়নে খোঁজ নিয়ে একটি তালিকা করে জেলা কৃষি অফিসে পাঠিয়েছি।জেলা অফিস থেকে তারা মন্ত্রণালয়ে পাঠাবে এরপর ওখান থেকে যে নির্দেশনা আসে সে অনুযায়ী আমরা পদক্ষেপ নিতে পারবো ।
Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ইসলামপুরে বন্যায় পানিবন্দি ২ লাখ মানুষ: সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

» খুবই চতুর, ধুরন্ধর ও অর্থলিপ্সু সাহেদ : র‌্যাব ডিজি

» ‘নিত্য দিনের জীবনযাপন’

» ‘গণপরিবহন নয়, পণ্য পরিবহন বন্ধ থাকবে’

» নেতিবাচক প্রতিবেদন আসা অনলাইন পোর্টাল প্রয়োজনে বন্ধ : তথ্যমন্ত্রী

» ৭ দিনের মধ্যে ওয়েব সিরিজের আপত্তিকর দৃশ্য সরানোর নির্দেশ

» ইন্দোনেশিয়ায় বন্যা-ভূমিধসে ১৬ মৃত্যু, নিখোঁজ ২৩

» সীমান্তে ৫১ ভরি স্বর্ণসহ নারী আটক

» নতুন আঙ্গিকে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মসূচি শুরু হচ্ছে ঢাকা দক্ষিণে

» প্রেমিকার জন্য কবিতা লিখে ট্রলের শিকার দেব

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মাকসুদা লিসা।

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের তান্ডবে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে ঝিনাইদহের আম চাষিদের স্বপ্ন

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ৬ নং গান্না ইউনিয়নের কাশিম নগর গ্রামের প্রায় শত ভাগই আম চাষি।ঐ গ্রামে আড়াই হাজার থেকে তিন হাজার বিঘা জমিতে আম চাষ করে দেশের ঢাকা, রাজশাহী, বরিশাল,চট্রগ্রাম,মাদারিপুর,খুলনা,যশোরসহ বিভিন্ন জেলাতে আম রপ্তানি করে চাষিরা প্রতি বছর প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ কোটি টাকা আয় করেন।
এবারও দেশের মাটিতে আম রপ্তানির প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন জেলার সদর উপজেলার গান্না ইউনিয়নের কাশিম নগর গ্রামের চাষিরা । কিন্তু বুধবার রাতে ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে চাষিদের ৩ হাজার বিঘা জমিতে করা আমরুপালি সহ বিভিন্ন জাতের আমের বাগান। গাছে আর কোনো আম নেই। সব ঝরে গেছে। পুরো গ্রামের চিত্র একই। সংরক্ষণের সুযোগ না থাকায় ঝরে পড়া আম গাছের নিচে মাটিতেই পড়ে আছে।চাষিরা বলছেন এই আম কেনার মত কেউ নেই।গাছের নিচে থেকে আম পরিস্কার করতেও এখন অনেক টাকার জন খরচ লাগবে।
আম্ফান সব কিছু তছনছ করে দেওয়ার পরের দিন বৃহস্পতিবার স্থানীয় বাজারে ঝরে পড়া আম বিক্রি হয়েছে কেজিতে দুই থেকে তিন টাকা করে। কৃষকের চোখেমুখে অন্ধকার। ঋণ নিয়ে আমের ব্যবসার ওপর তাঁদের জীবন-জীবিকা নির্ভরশীল। পুরো কাশিম নগর বাগানের নিচে মণকে মণ বিভিন্ন জাতের আম পড়ে আছে। কেনার মানুষ নেই। একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী পরিচালক বলছিলেন, কাশিম নগরে বাগানের পর বাগান গাছের নিচে আম পড়ে আছে। আর মাত্র ১০ থেকে ১৫ দিন সময় পেলে আমগুলো পূর্ণতা পেত।
প্রায় তিন মাস ধরে করোনাভাইরাস কৃষকের জীবন বিপর্যস্ত করে তুলেছে, নতুন করে ঘূর্ণিঝড় আম্ফান এসে কৃষকের পুরো কোমর ভেঙে দিয়েছে। আম্ফান যে ক্ষতি করে দিয়ে গেল, তা কাটিয়ে উঠতে কত দিন লাগবে, তা কেউ বলতে পারছে না। এদিকে সারা দেশে আমের কী পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, মিডিয়াতে তার একটি ধারণা দিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান। তিনি বলেন, সারা দেশে ১৫০ কোটি টাকার সমপরিমাণ আমের ক্ষতি হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের মেম্বার রিপন হোসেন বলেন, আমার ওয়ার্ডের প্রায় শত ভাগ চাষি আম চাষের উপর নির্ভর করে জিবিকা নির্বাহ করে।বিভিন্ন ব্যাংক এবং এনজিও থেকে টাকা ঋণ নিয়ে তারা এই আম চাষ করে থাকে।ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের তাণ্ডবে এবার আম চাষিদের যে ক্ষতি হয়েছে তাতে চাষিদের সোজা হয়ে দাঁড়াতে কয়েক বছর কেটে যেতে পারে ।তিনি আরও বলেন, কাশিম নগর গ্রামে আড়াই হাজার থেকে তিন হাজার বিঘা জমিতে চাষিরা আম চাষ করে থাকেন।তাতে প্রতি বছরে প্রাই ৩০ থেকে ৩৫ কোটি টাকা চাষিরা আয় করেন।তিনি চাষিদের পক্ষে সরকারের কাছে এই ক্ষতির ভর্তুকি দাবি করেন।
এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি অফিসার মুফাখ্খারুল ইসলাম বলেন, আমরা উপ-কৃষি অফিসারদের মাধ্যমে প্রতি ইউনিয়নে ইউনিয়নে খোঁজ নিয়ে একটি তালিকা করে জেলা কৃষি অফিসে পাঠিয়েছি।জেলা অফিস থেকে তারা মন্ত্রণালয়ে পাঠাবে এরপর ওখান থেকে যে নির্দেশনা আসে সে অনুযায়ী আমরা পদক্ষেপ নিতে পারবো ।
Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মাকসুদা লিসা।

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com