একটা ভালো খবর…

আব্দুন নূর তুষার:কনভ্যালেসেন্ট প্লাজমা থেরাপী হলো, এরই মধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী যারা সুস্থ হয়ে গেছেন, তাদের শরীর থেকে রক্তরস বা রক্তের জলীয় অংশ প্লাজমা নিয়ে গুরুতর অসুস্থ রোগীকে দেওয়া।

ইটালী,ইউকে, আমেরিকার নিউইয়র্ক, ভারতে এই চিকিৎসায় ভালো ফলাফল পাওয়া গেছে বলে চিকিৎসকরা বলেছেন।

এটা এখনো কোনো প্রমাণিত চিকিৎসা নয় তবে অধিকাংশ ট্রায়ালে রোগীর শরীরে কোনো গুরুতর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা যায় নাই। অধিকাংশ ট্রায়ালে রোগীদের উল্লেখ করার মতো উন্নতি হয়েছে বলে বলা হয়েছে। একটি ট্রায়ালে ৪৩ শতাংশ মৃত্যুর হার কমে গেছে বলেও বলা হয়েছে।

প্রথম দিকে সেরে যাওয়া রোগী পাওয়া যায় না বলে প্লাজমা থেরাপী করা সম্ভব হয় না। কারণ প্লাজমা দেবে কে? কিন্তু ধীরে ধীরে পুরো সেরে গেছেন এমন রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকলে যথেষ্ট ডোনার বা প্লাজমা দাতা পাওয়া যায় ও চিকিৎসাটি দিয়ে ফলাফল গবেষণা করা ও রোগ সারানো দুটোই করা যায়।

সুখের সংবাদ হলো বাংলাদেশে প্লাজমা চিকিৎসা শুরু হয়েছে এবং এই নিয়ে একই সাথে গবেষণাও করা হবে। ঢাকা মেডিকেল কলেজের ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগের দুজন চিকিৎসক কাশফিয়া ও মামুন এই কাজটি শুরু করেছেন। তাদের তত্ত্বাবধায়ক, বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক মাজহারুল হক তপন ।

কমিটিতে যারা কাজ করেছেন- প্রফেসর ডা. এম এ খান, প্রফেসর ডা. মাজহারুল হক তপন, প্রফেসর ডা. আহমেদুল কবির, প্রফেসর ডা. সাইফ উল্লাহ মুন্সী, প্রফেসর ডা. মোজাফফর হোসেন

এই প্রটোকল তৈরি করে প্রিন্সিপাল ইনভেস্টিগেটর হিসেবে থাকছেন প্রফেসর ডা মাজহারুল হক তপন। কো- ইনভেস্টিগেটর হিসেবে থাকছেন- প্রফেসর ডা. এম এ খান, প্রফেসর ডা. আহমেদুল কবির, প্রফেসর ডা. সাইফ উল্লাহ মুন্সী, প্রফেসর ডা. মো. মোজাফফর হোসেন, ডা. কাশফিয়া ইসলাম, ডা. পঙ্কজ কান্তি দত্ত, ডা. মাফরুহা আকতার,ডা. এবিএম আল মামুন।

কনভালেসেন্ট প্লাজমা এন্টিবডি টাইট্রেশন করতে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন কিওর অ্যামন্ড স্মাইল বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের স্বত্বাধিকারী ডা ফাতেমা তুজ জোহরা ক্যামেলিয়া। ডোনার পুল গঠনে সর্বাত্মক সহযোগিতা করছে FDSR

একজনের থেকে ৪০০ মিলি প্লাজমা নেওয়া হবে। ২০০ মিলি এক ডোজ। প্রথম দিন ২০০ মিলি দেওয়া হবে। সর্বোচ্চ এক ঘন্টার মধ্যে পরিসঞ্চালন করতে হবে। প্রয়োজন হলে তৃতীয় দিন আরো এক ডোজ মানে ২০০ মিলি দিতে হতে পারে যদি উপসর্গের উন্নতি না হয়।

আপনাদের মধ্যে যারা সেরে গেছেন তারা এই মহৎ কাজটি করতে পারেন। এটা সম্পুর্ণ নিরাপদ। ২০০ থেকে ৪০০ মিলিলিটার প্লাজমা দান করলে আপনার শরীরের কোন ক্ষতি হবে না বরং একজন রোগীর জীবন রক্ষা হতে পারে। শুধু তাই নয় এই গবেষণাটি পৃথিবীর একটি বিগ ট্রায়ালেও পরিনত হতে পারে যার মধ্যে আপনি অবদান রাখতে পারেন।

প্রাপ্তবয়ষ্ক ছেলে বা গর্ভবতী নন এমন প্রাপ্তবয়স্ক মেয়ে দাতা, যার কোভিড ১৯ ইনফেকশন হয়েছিল এবং সেরে গেছেন, তারা এই প্লাজমা দিতে পারেন। প্লাজমা কেবল রক্তের জলীয় অংশ, সেখানে লোহিত কণিকা থাকবে না। ফলে শরীরের রক্ত কমে যাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নাই।

এটা দিলে সাথে অনেকগুলো রক্ত পরীক্ষাও ফ্রিতে হয়ে যাবে। গ্রুপিং থেকে শুরু করে হেপাটাইটিসসহ অনেকগুলো রোগের পরীক্ষা করে আপনার প্লাজমা নেওয়া হবে। ফলে আপনার কিছু উপকারও হবে। যারা এরই মধ্যে আক্রান্ত হয়ে সেরে গেছেন তারা চাইলে আরেকজনের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসতে পারেন। যোগাযোগ করতে হবে- ডা. কাশফিয়া ইসলাম, সহকারী অধ্যাপক, ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগ . কক্ষ নং ২৩৮, ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল ,ডা এ বি এম আল মামুন, রেজিস্ট্রার, ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগ , ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল, ফোন – 01711349834 , ০১৭১১২৪৯৮৩৪

আশা করছি দৃষ্টান্ত স্থাপন করবেন আমাদের সেরে যাওয়া রোগীরা। প্লাজমা দিয়ে কোভিড যুদ্ধে অন্য একজনকে বাঁচিয়ে প্রমাণ করবেন

সকলের তরে সকলে আমরা প্রত্যেকে আমরা পরের তরে।

লেখক: গণমাধম্য ব্যক্তিত্ব ও চিকিৎসক

ঢাকাটাইমস

Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» করোনা চিকিৎসায় নিয়োজিত ডাক্তার ও নার্সদের সঙ্গে ডিএনসিসি মেয়রের ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়

» বঙ্গভবনে ঈদের নামাজ আদায় করলেন রাষ্ট্রপতি

» এক সেলুন থেকেই করোনায় আক্রান্ত ১৪০ জন

» খালেদা জিয়ার ঈদ উদযাপন বাসায় ভাইবোনেরা, ফোনে নাতি-নাতনিরা

» ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে শেখ হাসিনাকে মোদীর ফোন

» ভাইরাস রোগ থেকে মুক্তি কামনায় ঐতিহাসিক ষাটগম্বুজ মসজিদে ঈদের জামাত

» এরশাদের ‘পল্লীনিবাস’ লকডাউন ঘোষণা

» ঈদের নামাজ শেষে ফেরার পথে ইউপি সদস্যকে গুলি করে হত্যা

» ঈদে অসহায়ের পাশে থাকুন, অমানিশা কেটে আসবে নতুন সূর্য: তথ্যমন্ত্রী

» প্রাইভেট কারে অভিনব পন্থায় লুকায়িত ১০ হাজার পিস ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার

 

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

একটা ভালো খবর…

আব্দুন নূর তুষার:কনভ্যালেসেন্ট প্লাজমা থেরাপী হলো, এরই মধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী যারা সুস্থ হয়ে গেছেন, তাদের শরীর থেকে রক্তরস বা রক্তের জলীয় অংশ প্লাজমা নিয়ে গুরুতর অসুস্থ রোগীকে দেওয়া।

ইটালী,ইউকে, আমেরিকার নিউইয়র্ক, ভারতে এই চিকিৎসায় ভালো ফলাফল পাওয়া গেছে বলে চিকিৎসকরা বলেছেন।

এটা এখনো কোনো প্রমাণিত চিকিৎসা নয় তবে অধিকাংশ ট্রায়ালে রোগীর শরীরে কোনো গুরুতর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা যায় নাই। অধিকাংশ ট্রায়ালে রোগীদের উল্লেখ করার মতো উন্নতি হয়েছে বলে বলা হয়েছে। একটি ট্রায়ালে ৪৩ শতাংশ মৃত্যুর হার কমে গেছে বলেও বলা হয়েছে।

প্রথম দিকে সেরে যাওয়া রোগী পাওয়া যায় না বলে প্লাজমা থেরাপী করা সম্ভব হয় না। কারণ প্লাজমা দেবে কে? কিন্তু ধীরে ধীরে পুরো সেরে গেছেন এমন রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকলে যথেষ্ট ডোনার বা প্লাজমা দাতা পাওয়া যায় ও চিকিৎসাটি দিয়ে ফলাফল গবেষণা করা ও রোগ সারানো দুটোই করা যায়।

সুখের সংবাদ হলো বাংলাদেশে প্লাজমা চিকিৎসা শুরু হয়েছে এবং এই নিয়ে একই সাথে গবেষণাও করা হবে। ঢাকা মেডিকেল কলেজের ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগের দুজন চিকিৎসক কাশফিয়া ও মামুন এই কাজটি শুরু করেছেন। তাদের তত্ত্বাবধায়ক, বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক মাজহারুল হক তপন ।

কমিটিতে যারা কাজ করেছেন- প্রফেসর ডা. এম এ খান, প্রফেসর ডা. মাজহারুল হক তপন, প্রফেসর ডা. আহমেদুল কবির, প্রফেসর ডা. সাইফ উল্লাহ মুন্সী, প্রফেসর ডা. মোজাফফর হোসেন

এই প্রটোকল তৈরি করে প্রিন্সিপাল ইনভেস্টিগেটর হিসেবে থাকছেন প্রফেসর ডা মাজহারুল হক তপন। কো- ইনভেস্টিগেটর হিসেবে থাকছেন- প্রফেসর ডা. এম এ খান, প্রফেসর ডা. আহমেদুল কবির, প্রফেসর ডা. সাইফ উল্লাহ মুন্সী, প্রফেসর ডা. মো. মোজাফফর হোসেন, ডা. কাশফিয়া ইসলাম, ডা. পঙ্কজ কান্তি দত্ত, ডা. মাফরুহা আকতার,ডা. এবিএম আল মামুন।

কনভালেসেন্ট প্লাজমা এন্টিবডি টাইট্রেশন করতে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন কিওর অ্যামন্ড স্মাইল বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের স্বত্বাধিকারী ডা ফাতেমা তুজ জোহরা ক্যামেলিয়া। ডোনার পুল গঠনে সর্বাত্মক সহযোগিতা করছে FDSR

একজনের থেকে ৪০০ মিলি প্লাজমা নেওয়া হবে। ২০০ মিলি এক ডোজ। প্রথম দিন ২০০ মিলি দেওয়া হবে। সর্বোচ্চ এক ঘন্টার মধ্যে পরিসঞ্চালন করতে হবে। প্রয়োজন হলে তৃতীয় দিন আরো এক ডোজ মানে ২০০ মিলি দিতে হতে পারে যদি উপসর্গের উন্নতি না হয়।

আপনাদের মধ্যে যারা সেরে গেছেন তারা এই মহৎ কাজটি করতে পারেন। এটা সম্পুর্ণ নিরাপদ। ২০০ থেকে ৪০০ মিলিলিটার প্লাজমা দান করলে আপনার শরীরের কোন ক্ষতি হবে না বরং একজন রোগীর জীবন রক্ষা হতে পারে। শুধু তাই নয় এই গবেষণাটি পৃথিবীর একটি বিগ ট্রায়ালেও পরিনত হতে পারে যার মধ্যে আপনি অবদান রাখতে পারেন।

প্রাপ্তবয়ষ্ক ছেলে বা গর্ভবতী নন এমন প্রাপ্তবয়স্ক মেয়ে দাতা, যার কোভিড ১৯ ইনফেকশন হয়েছিল এবং সেরে গেছেন, তারা এই প্লাজমা দিতে পারেন। প্লাজমা কেবল রক্তের জলীয় অংশ, সেখানে লোহিত কণিকা থাকবে না। ফলে শরীরের রক্ত কমে যাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নাই।

এটা দিলে সাথে অনেকগুলো রক্ত পরীক্ষাও ফ্রিতে হয়ে যাবে। গ্রুপিং থেকে শুরু করে হেপাটাইটিসসহ অনেকগুলো রোগের পরীক্ষা করে আপনার প্লাজমা নেওয়া হবে। ফলে আপনার কিছু উপকারও হবে। যারা এরই মধ্যে আক্রান্ত হয়ে সেরে গেছেন তারা চাইলে আরেকজনের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসতে পারেন। যোগাযোগ করতে হবে- ডা. কাশফিয়া ইসলাম, সহকারী অধ্যাপক, ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগ . কক্ষ নং ২৩৮, ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল ,ডা এ বি এম আল মামুন, রেজিস্ট্রার, ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগ , ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল, ফোন – 01711349834 , ০১৭১১২৪৯৮৩৪

আশা করছি দৃষ্টান্ত স্থাপন করবেন আমাদের সেরে যাওয়া রোগীরা। প্লাজমা দিয়ে কোভিড যুদ্ধে অন্য একজনকে বাঁচিয়ে প্রমাণ করবেন

সকলের তরে সকলে আমরা প্রত্যেকে আমরা পরের তরে।

লেখক: গণমাধম্য ব্যক্তিত্ব ও চিকিৎসক

ঢাকাটাইমস

Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



 

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com