ইসলামী নিয়মে রাস্তায় টাকা পেলে করণীয় কি? জেনে নিন

ইসলামী নিয়মে রাস্তায় টাকা পেলে- রাস্তায় টাকা-পয়সা পাওয়া গেলে খোঁজা খুঁজির পরও মালিকের সন্ধান না পেলে কি করা যায়। এ ব্যাপারে অনেকেই বলে থাকেন ওই টাকা মসজিদে দিয়ে দেওয়া যায়।

কিন্তু বিজ্ঞ আলেমরা বলছেন, রাস্তা-ঘাটে পাওয়া টাকা-পয়সার ক্ষেত্রে শরীয়তের বিধান হল, যদি টাকার পরিমাণ এত কম হয় যে, মালিক তা অনুসন্ধান করবে না বলে মনে হয় তবে কোনো ফকীরকে তা সদকা করে দিবে।

আর যদি অনেক টাকা বা মূল্যবান কোনো বস্তু পাওয়া যায় এবং মালিক এর খোঁজে থাকবে বলে মনে হয় তাহলে ঐ স্থান ও আশপাশ এবং নিকটবর্তী জন-সমাগমের স্থানে

(যথা মসজিদের সামনে, বাজারে, স্টেশনে ইত্যাদিতে) প্রাপ্তির ঘোষণা দিতে থাকবে এবং প্রকৃত মালিক পেলে তার কাছে হস্তান্তর করে দিবে।

কিন্তু এরপরও যদি মালিক না পাওয়া যায় এবং মালিকের সন্ধান পাওয়া যাবে না বলে প্রবল ধারণা হয় তাহলে তা কোনো গরীব-মিসকীনকে সদকা করে দিবে। প্রাপক দরিদ্র হলে সে নিজেও তা রেখে দিতে পারবে।

আর কুড়িয়ে পাওয়া টাকা মসজিদে দেওয়া যাবে না। কেউ মসজিদে দিয়ে দিতে বললে সেটা ঠিক নয়।

সূত্র: ফাতাওয়া হিন্দিয়া ২/২৮৯; আদ্দুররুল মুখতার ৪/২৭৮; ফাতহুল কাদীর ২/২০৮; আলমুহীতুল বুরহানী ৮/১৭১

আরও পড়ুন…শুধু তিন শ্রেণির মানুষের রয়েছে আংটি পরার অনুমতি…

হজরত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াল্লাম- এর আমল থেকে যতটুক বোঝ যায়, তা হলো পুরুষের জন্য শুধু রুপার আংটি ব্যবহার করা জায়েজ। তবে কোনো কারণ ছাড়া আংটি না পরাই ভালো। কারণ আমাদের মহানবী (সা.) প্রয়োজনের থাকায় আংটি ব্যবহার করেছেন।

প্রয়োজন সৃষ্টি হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনি কোনো আংটি ব্যবহার করেননি। তাই কোনো কোনো তাবেঈ থেকে বর্ণিত আছে যে, কেবলমাত্র তিন শ্রেণির মানুষই আংটি পরিধান করবে। এক. রাজা-বাদশা। দুই.বিচরক। তিন. বেকুফ। বেকুফ বলতে সেই ব্যক্তিকে বোঝানো হয়েছে যে বিনা প্রয়োজনে আংটি ব্যবহার করে। (ফতওয়ায়ে শামী)

হজরত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পিতল এবং লোহার আংটি ব্যবহার করতে নিষেধ করেছেন। (আবু দাউদ) তবে লোহার উপর যদি রুপার পাত মোড়ানো থাকে তাহলে সেটা ব্যবহার করা যেতে পারে।

উল্লেখ্য, এই বিধান নারী-পুরুষ উভয়ের জন্যই। (ফতওয়ায়ে শামী)

পুরুষের জন্য নিয়ম হলো আংটির অলংকিত দিকটি ভিতরের দিকে রাখতে হবে। তবে মেয়েরা বাইরের দিকেও রাখতে পারবে। (ফতওয়ায়ে শামী)

পুরুষের জন্য রুপার তৈরি আংটি ছাড়া অন্য কোনো আংটি ব্যবহার করা জায়েজ নেই। তবে ইচ্ছা করলে রুপার আংটিতে পাথর কিংবা কাচ স্থাপন করতে পারে। (দুররে মুখতার)

অবশ্য রুপার আংটির ক্ষেত্রেও রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শর্ত দিয়েছেন, তা হলো আংটি সাড়ে চার মাশার চাইতে ওজনে কম হতে হবে। (আবু দাউদ) আর এটাই হানাফি ফকিহগণের মত। (মিরকাত)

Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» নরসিংদীর পলাশে প্রাণ ফ্যক্টরীতে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতকরণে পলাশ থানার ওসির পরিদর্শন

» এশিয়া কাপ স্থগিত

» বড় কর্তা ঘুষ চাইলে আমাকে জানাবেন: আইজিপি

» কেশবপুর সংসদীয় আসনে উপ-নির্বাচন উপলক্ষ্যে চিনাটোলা বাজারে আ’লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত

» উন্নয়নের সার্থে নির্বার্হী কর্মকর্তা হিসেবে আপনাদের সার্বিক সহযোগিতা চাই- মণিরামপুরে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় কালে ইউএনও সৈয়দ জাকির হাসান

» শৈলকুপায় প্রধানমন্ত্রীর পাকাঘর পেয়ে আত্মহারা আদিবাসীরা

» সোনালী স্বপ্ন দেখছেন রাজগঞ্জের পাট চাষিরা

» ১৬৮ কোটি টাকা আত্মসাতের মূল হোতাকে গ্রেফতার করেছে নারায়ণগঞ্জের সিআইডি

» গাবতলী প্রেসক্লাবে ছেলের পক্ষে ফারুকের মায়ের সংবাদ সম্মেলন

» ঘরেই মিষ্টি দই বানানোর সহজ পদ্ধতি

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মাকসুদা লিসা।

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...

ইসলামী নিয়মে রাস্তায় টাকা পেলে করণীয় কি? জেনে নিন

ইসলামী নিয়মে রাস্তায় টাকা পেলে- রাস্তায় টাকা-পয়সা পাওয়া গেলে খোঁজা খুঁজির পরও মালিকের সন্ধান না পেলে কি করা যায়। এ ব্যাপারে অনেকেই বলে থাকেন ওই টাকা মসজিদে দিয়ে দেওয়া যায়।

কিন্তু বিজ্ঞ আলেমরা বলছেন, রাস্তা-ঘাটে পাওয়া টাকা-পয়সার ক্ষেত্রে শরীয়তের বিধান হল, যদি টাকার পরিমাণ এত কম হয় যে, মালিক তা অনুসন্ধান করবে না বলে মনে হয় তবে কোনো ফকীরকে তা সদকা করে দিবে।

আর যদি অনেক টাকা বা মূল্যবান কোনো বস্তু পাওয়া যায় এবং মালিক এর খোঁজে থাকবে বলে মনে হয় তাহলে ঐ স্থান ও আশপাশ এবং নিকটবর্তী জন-সমাগমের স্থানে

(যথা মসজিদের সামনে, বাজারে, স্টেশনে ইত্যাদিতে) প্রাপ্তির ঘোষণা দিতে থাকবে এবং প্রকৃত মালিক পেলে তার কাছে হস্তান্তর করে দিবে।

কিন্তু এরপরও যদি মালিক না পাওয়া যায় এবং মালিকের সন্ধান পাওয়া যাবে না বলে প্রবল ধারণা হয় তাহলে তা কোনো গরীব-মিসকীনকে সদকা করে দিবে। প্রাপক দরিদ্র হলে সে নিজেও তা রেখে দিতে পারবে।

আর কুড়িয়ে পাওয়া টাকা মসজিদে দেওয়া যাবে না। কেউ মসজিদে দিয়ে দিতে বললে সেটা ঠিক নয়।

সূত্র: ফাতাওয়া হিন্দিয়া ২/২৮৯; আদ্দুররুল মুখতার ৪/২৭৮; ফাতহুল কাদীর ২/২০৮; আলমুহীতুল বুরহানী ৮/১৭১

আরও পড়ুন…শুধু তিন শ্রেণির মানুষের রয়েছে আংটি পরার অনুমতি…

হজরত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াল্লাম- এর আমল থেকে যতটুক বোঝ যায়, তা হলো পুরুষের জন্য শুধু রুপার আংটি ব্যবহার করা জায়েজ। তবে কোনো কারণ ছাড়া আংটি না পরাই ভালো। কারণ আমাদের মহানবী (সা.) প্রয়োজনের থাকায় আংটি ব্যবহার করেছেন।

প্রয়োজন সৃষ্টি হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনি কোনো আংটি ব্যবহার করেননি। তাই কোনো কোনো তাবেঈ থেকে বর্ণিত আছে যে, কেবলমাত্র তিন শ্রেণির মানুষই আংটি পরিধান করবে। এক. রাজা-বাদশা। দুই.বিচরক। তিন. বেকুফ। বেকুফ বলতে সেই ব্যক্তিকে বোঝানো হয়েছে যে বিনা প্রয়োজনে আংটি ব্যবহার করে। (ফতওয়ায়ে শামী)

হজরত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পিতল এবং লোহার আংটি ব্যবহার করতে নিষেধ করেছেন। (আবু দাউদ) তবে লোহার উপর যদি রুপার পাত মোড়ানো থাকে তাহলে সেটা ব্যবহার করা যেতে পারে।

উল্লেখ্য, এই বিধান নারী-পুরুষ উভয়ের জন্যই। (ফতওয়ায়ে শামী)

পুরুষের জন্য নিয়ম হলো আংটির অলংকিত দিকটি ভিতরের দিকে রাখতে হবে। তবে মেয়েরা বাইরের দিকেও রাখতে পারবে। (ফতওয়ায়ে শামী)

পুরুষের জন্য রুপার তৈরি আংটি ছাড়া অন্য কোনো আংটি ব্যবহার করা জায়েজ নেই। তবে ইচ্ছা করলে রুপার আংটিতে পাথর কিংবা কাচ স্থাপন করতে পারে। (দুররে মুখতার)

অবশ্য রুপার আংটির ক্ষেত্রেও রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শর্ত দিয়েছেন, তা হলো আংটি সাড়ে চার মাশার চাইতে ওজনে কম হতে হবে। (আবু দাউদ) আর এটাই হানাফি ফকিহগণের মত। (মিরকাত)

Facebook Comments
Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মাকসুদা লিসা।

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

 

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com