৬ ঘণ্টায় চালের বস্তায় বেড়েছে ৪০০ টাকা!

কারো পৌষ মাস, কারো সর্বনাশ এমন ঘটনা ঘটেছে গাইবান্ধায়। সরকার যখন দেশের করোনাভাইরাস মোকাবেলা নিয়ে ব্যস্ত। ঠিক তখনি গাইবান্ধায় হঠাৎ বেড়েছে চালের দাম। দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ৬ ঘণ্টায় ৫০ কেজি চালের বস্তায় বেড়েছে ২শ টাকা থেকে ৫শ টাকা। রাত ৮টার পরে আর টাকা দিয়েও মিলছে না চালেন বস্তা।

সাধারণ মানুষের অভিযোগ, সকালের থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ৬ ঘণ্টায় বস্তা প্রতি বেরেছে ৪শ থেকে ৫শ টাকা। তবে প্রশাসন জানালেন, ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা নেয়ার কথা।

সরেজমিনে সাঘাটা উপজেলার বোনারপাড়া বাজারের দেখা যায়, সাধারণ মানুষ চাল কিনতে গিয়ে বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছে। বস্তা প্রতি চালের দাম বেড়েছে ২০০ থেকে ৫০০ টাকা।

সাধারণ ক্রেতারা অভিযোগ করলেও খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, বেশি দামে কিনতে হচ্ছে বলেই বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। তাদের অভিযোগ, পাইকাররা চালের দাম বেশি নিচ্ছেন বলে তারা বেশি দামে বিক্রি করছে।

বোনারপাড়া বাজারের কাঠ ব্যবসায়ী মতিয়ার রহমান জানান, সকালে ৫০ কেজি চালের বস্তার দাম ছিল ১৬৩০ টাকা। সন্ধ্যায় সেই চাল ২০০০ টাকায় কিনতে হচ্ছে। টাকা দিয়ে মিলছে বিআর-২৮ ও গাঞ্জিয়া ধানের চাল। করোনাভাইরাস নিয়ে দেশের মানুষ ভয়ে আছে বলেই চাল ব্যবস্যায়ীরা সিন্ডিকেট করে দাম বৃদ্ধি করেছে।

স্কুলশিক্ষক তৌহিদুল ইসলাম জানান, চালের বাজারে এসে মাথা ঘুরে যাচ্ছে। হঠাৎ চালের দাম বৃদ্ধিতে আমাদের পরিবার সমস্যায় পরবে। আমাদের তো সবসময় কিনে খেতে হয়। করোনাভাইরাসে মানুষের পাশে দাঁড়ানো তো দূরের কথা, উল্টো চাল ব্যবস্যায়ীরা সিন্ডেকেট করেছে। এভাবে যদি চালের দাম বাড়তে থাকে, তাহলে মানুষদের অনাহারে দিন কাটাতে হবে।

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সোনাইডাঙ্গা গ্রামের আব্দুল কাদের জানান, চালের দাম বেড়ে যাওয়ায় অনেক বিপাকে পড়তে হচ্ছে। সারাদিন দিনমজুর হিসেবে যা টাকা ইনকাম হয়, তা দিয়ে সংসার চালানো অনেক কষ্টকর। তারপরও যদি এভাবে চালের দাম বাড়তে থাকে, তাহলে আগামীতে জীবন ধারণ করা অনেক কষ্ট করা হবে।

তিনি বলেন, সরকার যদি দ্রুত সময়ে ব্যবস্থা গ্রহণ না করে, আগামীতে আমাদের মতো দিনমজুরদের ভাগ্যে দুর্দশা নেমে আসবে। দেখা যাবে কোরনাভাইরাসে নয়, বরং না খেয়ে মরতে হবে।

সদর উপজেলার বাদিয়াখালী এলাকার যুবক আব্দুল বাকি জানান, হঠাৎ চালের দাম বেড়ে যাওয়ায় নিম্ন আয়ের মানুষ বিপদে পড়েছে। ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে যদি চালের বাজার নিয়ন্ত্রণ করা না যায়, তাহলে ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে সাধারণ মানুষদের বিপদে ফেলবে। তাই সরকারকে চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা নেওয়া জরুরি।

দাম বাড়ানোর বিষয়ে বোনারপাড়া বাজারের খুচরা চাল ব্যবসায়ী নুরুজ্জামান জানান, আড়ৎ থেকে চাল বেশি দামে কিনতে হয়েছে, সেজন্য চাল বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। আমরা যদি কম দামে চাল কিনতাম, তাহলে কম দামে বিক্রি করতাম।

আরেক ব্যবসায়ী ইউসুফ আলী জানান, বড় বড় চালের ব্যবস্যায়ীরা দোকান বন্ধ রাখার ফলে দুপুর থেকে বিকালের মধ্যেই চালের বস্তা প্রতি ১০০ থেকে ৪০০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে।

এ বিষয়ে সাঘাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর বাংলাদেশ জার্নালকে জানান, চালের বাজার নিয়ে ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট করার কোনো সুযোগ নেই। ভ্রাম্যমাণ আদালত চালিয়ে চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। কেউ যদি চাল মজুদ রাখার চেষ্টা করে, তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।বাংলাদেশ জার্নাল

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» আড্ডা-অহেতুক ঘোরাফেরা : ফার্মগেটে ২৫ জনকে জরিমানা

» কুমিল্লায় ইয়াবাসহ কারারক্ষী আটক

» আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আরও কঠোর হওয়ার নির্দেশ

» মাশরাফির উদ্যোগে ভ্রাম্যমাণ চিকিৎসা সেবা শুরু

» বিএনপি নেতারা দূর্যোগেও ফায়দা লোটার অপতৎপরতায় লিপ্ত : ওবায়দুল কাদের

» ‘মৃত ব্যক্তির শরীরে করোনাভাইরাস বাঁচতে পারে না, নির্ভয়ে দাফন করুন’

» কাঁচা বাজার ও সুপার শপ সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে বন্ধের নির্দেশ ডিএমপির

» অসহায় মানুষের ঘরে ঘরে খাদ্য পৌঁছে দিচ্ছেন এ্যাড.মিলন এম পি

» দুই হাজার পরিবারের মধ্যে তাহিরপুর কয়লা আমদানিকারক গ্রুপের খাদ্য সহায়তা বিতরন

» হোমনায় পুলিশের সহায়তায় সাশ্রয়ীমূল্যে নিত্যপন্যের ভ্রাম্যমান দোকানের উদ্বোধন 

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

৬ ঘণ্টায় চালের বস্তায় বেড়েছে ৪০০ টাকা!

কারো পৌষ মাস, কারো সর্বনাশ এমন ঘটনা ঘটেছে গাইবান্ধায়। সরকার যখন দেশের করোনাভাইরাস মোকাবেলা নিয়ে ব্যস্ত। ঠিক তখনি গাইবান্ধায় হঠাৎ বেড়েছে চালের দাম। দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ৬ ঘণ্টায় ৫০ কেজি চালের বস্তায় বেড়েছে ২শ টাকা থেকে ৫শ টাকা। রাত ৮টার পরে আর টাকা দিয়েও মিলছে না চালেন বস্তা।

সাধারণ মানুষের অভিযোগ, সকালের থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ৬ ঘণ্টায় বস্তা প্রতি বেরেছে ৪শ থেকে ৫শ টাকা। তবে প্রশাসন জানালেন, ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা নেয়ার কথা।

সরেজমিনে সাঘাটা উপজেলার বোনারপাড়া বাজারের দেখা যায়, সাধারণ মানুষ চাল কিনতে গিয়ে বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছে। বস্তা প্রতি চালের দাম বেড়েছে ২০০ থেকে ৫০০ টাকা।

সাধারণ ক্রেতারা অভিযোগ করলেও খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, বেশি দামে কিনতে হচ্ছে বলেই বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। তাদের অভিযোগ, পাইকাররা চালের দাম বেশি নিচ্ছেন বলে তারা বেশি দামে বিক্রি করছে।

বোনারপাড়া বাজারের কাঠ ব্যবসায়ী মতিয়ার রহমান জানান, সকালে ৫০ কেজি চালের বস্তার দাম ছিল ১৬৩০ টাকা। সন্ধ্যায় সেই চাল ২০০০ টাকায় কিনতে হচ্ছে। টাকা দিয়ে মিলছে বিআর-২৮ ও গাঞ্জিয়া ধানের চাল। করোনাভাইরাস নিয়ে দেশের মানুষ ভয়ে আছে বলেই চাল ব্যবস্যায়ীরা সিন্ডিকেট করে দাম বৃদ্ধি করেছে।

স্কুলশিক্ষক তৌহিদুল ইসলাম জানান, চালের বাজারে এসে মাথা ঘুরে যাচ্ছে। হঠাৎ চালের দাম বৃদ্ধিতে আমাদের পরিবার সমস্যায় পরবে। আমাদের তো সবসময় কিনে খেতে হয়। করোনাভাইরাসে মানুষের পাশে দাঁড়ানো তো দূরের কথা, উল্টো চাল ব্যবস্যায়ীরা সিন্ডেকেট করেছে। এভাবে যদি চালের দাম বাড়তে থাকে, তাহলে মানুষদের অনাহারে দিন কাটাতে হবে।

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সোনাইডাঙ্গা গ্রামের আব্দুল কাদের জানান, চালের দাম বেড়ে যাওয়ায় অনেক বিপাকে পড়তে হচ্ছে। সারাদিন দিনমজুর হিসেবে যা টাকা ইনকাম হয়, তা দিয়ে সংসার চালানো অনেক কষ্টকর। তারপরও যদি এভাবে চালের দাম বাড়তে থাকে, তাহলে আগামীতে জীবন ধারণ করা অনেক কষ্ট করা হবে।

তিনি বলেন, সরকার যদি দ্রুত সময়ে ব্যবস্থা গ্রহণ না করে, আগামীতে আমাদের মতো দিনমজুরদের ভাগ্যে দুর্দশা নেমে আসবে। দেখা যাবে কোরনাভাইরাসে নয়, বরং না খেয়ে মরতে হবে।

সদর উপজেলার বাদিয়াখালী এলাকার যুবক আব্দুল বাকি জানান, হঠাৎ চালের দাম বেড়ে যাওয়ায় নিম্ন আয়ের মানুষ বিপদে পড়েছে। ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে যদি চালের বাজার নিয়ন্ত্রণ করা না যায়, তাহলে ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে সাধারণ মানুষদের বিপদে ফেলবে। তাই সরকারকে চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা নেওয়া জরুরি।

দাম বাড়ানোর বিষয়ে বোনারপাড়া বাজারের খুচরা চাল ব্যবসায়ী নুরুজ্জামান জানান, আড়ৎ থেকে চাল বেশি দামে কিনতে হয়েছে, সেজন্য চাল বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। আমরা যদি কম দামে চাল কিনতাম, তাহলে কম দামে বিক্রি করতাম।

আরেক ব্যবসায়ী ইউসুফ আলী জানান, বড় বড় চালের ব্যবস্যায়ীরা দোকান বন্ধ রাখার ফলে দুপুর থেকে বিকালের মধ্যেই চালের বস্তা প্রতি ১০০ থেকে ৪০০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে।

এ বিষয়ে সাঘাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর বাংলাদেশ জার্নালকে জানান, চালের বাজার নিয়ে ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট করার কোনো সুযোগ নেই। ভ্রাম্যমাণ আদালত চালিয়ে চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। কেউ যদি চাল মজুদ রাখার চেষ্টা করে, তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।বাংলাদেশ জার্নাল

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com