৩৬ বছর জেল খাটার পর তারা নির্দোষ

যুক্তরাষ্ট্রের মেরিল্যান্ড অঙ্গরাজ্যে ১৯৮৪ সালে এক বৃটিশ পর্যটককে খুনের দায়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পেয়েছিলেন ৩ ব্যক্তি। এর ৩৬ বছর পর জানা গেল তারা নির্দোষ ছিলেন। জেল থেকে মুক্তিও পেয়েছেন আলফ্রেড চেস্টনাট, অ্যান্ড্রু স্টুয়ার্ট ও র‌্যানসম ওয়াটকিনস নামে তিন কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তি। সোমবার তাদের মামলা পুনঃপর্যবেক্ষণ শেষে বাল্টিমোরের একজন বিচারক তাদের মুক্তির আদেশ দেন।

বিবিসি’র খবরে বলা হয়, বাল্টিমোরের কনভিকশন ইনটিগ্রিটি ইউনিটের কাছে অন্যতম আসামি চেস্টনাট চিঠি লেখার পর এ বছর খুনের এই মামলার কার্যক্রম পুনরায় শুরু হয়। গত বছর চেস্টনাট এই মামলার নতুন প্রমাণ খুঁজে পান। তারই ভিত্তিতে তারা নির্দোষ বলে প্রমাণিত হন। খবরে বলা হয়, বাল্টিমোরের একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে ফেরার পথে ডেউইট ডাকেট নামে ১৪ বছর বয়সী কিশোরকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এরপর ১৯৮৩ সালের নভেম্বর এই তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ওই সময় ডেউইট হত্যাকাণ্ডের ঘটনা সংবাদ মাধ্যমে ফলাও করে প্রচার করা হয়। সেবার বাল্টিমোরের কোনো সরকারি বিদ্যালয়ের প্রথম কোনো শিক্ষার্থী গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা গিয়েছিলেন।

তবে এখন বাল্টিমোরের রাজ্য কৌঁসুলি ম্যারিলিন মোজবি বলেন, এই তিন আসামি তখন অপ্রাপ্তবয়স্ক ছিলেন। তখন পুলিশ ও কৌঁসুলিদের ভুল তদন্তের কারণেই তাদের সাজা হয়। এক বিবৃতিতে তার কার্যালয় থেকে বলা হয়, তখন পুলিশের গোয়েন্দারা অন্য অপ্রাপ্তবয়স্ক সাক্ষীদের শিখিয়ে ও জোর করে এই তিনজনের বিরুদ্ধে ব্যবহার করে।
কৌঁসুলিরা আরো জানান, তদন্তের প্রথম দিকে একাধিক সাক্ষী অন্য আরেক ব্যক্তিকে খুনি হিসেবে চিহ্নিত করেছিলেন। কিন্তু পুলিশ তখন ওই সাক্ষ্য অগ্রাহ্য করে ও সংশ্লিষ্ট বক্তব্য গোপন রাখে। এ ছাড়া যাদের সাক্ষ্য নেয়া হয়েছিল তারাও ছবিতে এই তিন ব্যক্তিকে চিহ্নিত করতে পারেননি। প্রত্যেক সাক্ষীই তাদের বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করেছেন।

ম্যারিলিন মোজবি বলেন, আমি মনে করি না, আজ বিজয়ের দিন। এটি ট্র্যাজেডি। এর দায় আমাদের নিতে হবে।
এই খুনের ঘটনার অন্য সন্দেহভাজন ২০০২ সালে মারা যায়। মামলার নথিপত্র এক বিচারকের আদেশের ভিত্তিতে গোপন রাখা হয়। কিন্তু গত বছর অনুরোধের মাধ্যমে সেই নথিপত্র পেয়ে যান চেস্টনাট।
মামলার অপর আসামি ওয়াটকিনস বলেন, এই সাজা কখনই হওয়া উচিত ছিল না। আমাদের লড়াই এখানেই শেষ নয়। আপনারা আমাদের আরো বক্তব্য শুনবেন।

তবে ভুলবশত সাজাপ্রাপ্ত হলে  মেরিল্যান্ডে কেউ ক্ষতিপূরণ দাবি করতে পারে না। কিন্তু এখন তা পরিবর্তনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তবে বর্তমানে অন্য বিভাগের মাধ্যমে এ ধরনের মামলায় ক্ষতিপূরণ দেয়া হয়। অক্টোবর মাসে ভুলক্রমে সাজা পাওয়া ৫ ব্যক্তিকে ৯০ লাখ ডলার ক্ষতিপূরণ দিয়েছে সংস্থাটি।

মানবজমিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» রামগঞ্জে প্রবাসীদের উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ 

» কমিটি গঠন নিয়ে তালবাহানা: লক্ষ্মীপুরে আওয়ামী লীগের সম্মেলন স্থগিত!

» তারাকান্দায় আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস পালিত

» আগৈলঝাড়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান

» ফুলপুরে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস পালনে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

» লালমনিরহাটে তৃণমূলের ভরসা এ্যাড. মতিয়ার

» আশুলিয়ায় গ্যাস হিটার বিস্ফোরণে এক নারী শ্রমিক নিহত

» ১৫ বছর ঘরবন্দি এক্স-রে মেশিন, গ্যারেজে অ্যাম্বুলেন্স

» মানবাধিকার হরণকারীরাই বড় ডাকাত : ড. কামাল

» ১৬ ডিসেম্বর থেকে ‘জয় বাংলা’ জাতীয় স্লোগান

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

৩৬ বছর জেল খাটার পর তারা নির্দোষ

যুক্তরাষ্ট্রের মেরিল্যান্ড অঙ্গরাজ্যে ১৯৮৪ সালে এক বৃটিশ পর্যটককে খুনের দায়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পেয়েছিলেন ৩ ব্যক্তি। এর ৩৬ বছর পর জানা গেল তারা নির্দোষ ছিলেন। জেল থেকে মুক্তিও পেয়েছেন আলফ্রেড চেস্টনাট, অ্যান্ড্রু স্টুয়ার্ট ও র‌্যানসম ওয়াটকিনস নামে তিন কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তি। সোমবার তাদের মামলা পুনঃপর্যবেক্ষণ শেষে বাল্টিমোরের একজন বিচারক তাদের মুক্তির আদেশ দেন।

বিবিসি’র খবরে বলা হয়, বাল্টিমোরের কনভিকশন ইনটিগ্রিটি ইউনিটের কাছে অন্যতম আসামি চেস্টনাট চিঠি লেখার পর এ বছর খুনের এই মামলার কার্যক্রম পুনরায় শুরু হয়। গত বছর চেস্টনাট এই মামলার নতুন প্রমাণ খুঁজে পান। তারই ভিত্তিতে তারা নির্দোষ বলে প্রমাণিত হন। খবরে বলা হয়, বাল্টিমোরের একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে ফেরার পথে ডেউইট ডাকেট নামে ১৪ বছর বয়সী কিশোরকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এরপর ১৯৮৩ সালের নভেম্বর এই তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ওই সময় ডেউইট হত্যাকাণ্ডের ঘটনা সংবাদ মাধ্যমে ফলাও করে প্রচার করা হয়। সেবার বাল্টিমোরের কোনো সরকারি বিদ্যালয়ের প্রথম কোনো শিক্ষার্থী গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা গিয়েছিলেন।

তবে এখন বাল্টিমোরের রাজ্য কৌঁসুলি ম্যারিলিন মোজবি বলেন, এই তিন আসামি তখন অপ্রাপ্তবয়স্ক ছিলেন। তখন পুলিশ ও কৌঁসুলিদের ভুল তদন্তের কারণেই তাদের সাজা হয়। এক বিবৃতিতে তার কার্যালয় থেকে বলা হয়, তখন পুলিশের গোয়েন্দারা অন্য অপ্রাপ্তবয়স্ক সাক্ষীদের শিখিয়ে ও জোর করে এই তিনজনের বিরুদ্ধে ব্যবহার করে।
কৌঁসুলিরা আরো জানান, তদন্তের প্রথম দিকে একাধিক সাক্ষী অন্য আরেক ব্যক্তিকে খুনি হিসেবে চিহ্নিত করেছিলেন। কিন্তু পুলিশ তখন ওই সাক্ষ্য অগ্রাহ্য করে ও সংশ্লিষ্ট বক্তব্য গোপন রাখে। এ ছাড়া যাদের সাক্ষ্য নেয়া হয়েছিল তারাও ছবিতে এই তিন ব্যক্তিকে চিহ্নিত করতে পারেননি। প্রত্যেক সাক্ষীই তাদের বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করেছেন।

ম্যারিলিন মোজবি বলেন, আমি মনে করি না, আজ বিজয়ের দিন। এটি ট্র্যাজেডি। এর দায় আমাদের নিতে হবে।
এই খুনের ঘটনার অন্য সন্দেহভাজন ২০০২ সালে মারা যায়। মামলার নথিপত্র এক বিচারকের আদেশের ভিত্তিতে গোপন রাখা হয়। কিন্তু গত বছর অনুরোধের মাধ্যমে সেই নথিপত্র পেয়ে যান চেস্টনাট।
মামলার অপর আসামি ওয়াটকিনস বলেন, এই সাজা কখনই হওয়া উচিত ছিল না। আমাদের লড়াই এখানেই শেষ নয়। আপনারা আমাদের আরো বক্তব্য শুনবেন।

তবে ভুলবশত সাজাপ্রাপ্ত হলে  মেরিল্যান্ডে কেউ ক্ষতিপূরণ দাবি করতে পারে না। কিন্তু এখন তা পরিবর্তনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তবে বর্তমানে অন্য বিভাগের মাধ্যমে এ ধরনের মামলায় ক্ষতিপূরণ দেয়া হয়। অক্টোবর মাসে ভুলক্রমে সাজা পাওয়া ৫ ব্যক্তিকে ৯০ লাখ ডলার ক্ষতিপূরণ দিয়েছে সংস্থাটি।

মানবজমিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com