সরকারি আড়াই হাজার গাছের আম বিক্রি হলো ৫৫ হাজার টাকায়

কুঁজা রাজা নামে পরিচিত চাঁপাই নবাবগঞ্জে একটি সরকারি আম বাগানের প্রায় ২ হাজার ৫শ’ গাছের আম বিক্রি করা হয়েছে মাত্র ৫৫ হাজার টাকায়। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা। গতকাল  দুপুরে প্রকাশ্য ডাকের মাধ্যমে আম গাছগুলো চলতি মৌসুমের জন্য বিক্রি করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করে কানসাট ইউনিয়ন পরিষদের তহসিলদার মো. নুরুল ইসলাম জানান, কানসাট রাজার বাগানের প্রায় ২৫শ’ গাছের আম ফল প্রকাশ্য নিলাম ডাকের মাধ্যমে ৫৫ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়েছে। সর্বচ্চ দামে বাগানটি কিনে নেন স্থানীয় আম ব্যববসায়ী আবদুল আলিম নামে এক ব্যক্তি। জানা গেছে, কানসাট মৌজার পার কানসাট ও মোবারকপুর ইউনিয়নের স্বীকারপুর মৌজায় প্রায় ৩২ একর ৯৮ জমি রয়েছে। সেখানে ছোট-বড় মিলিয়ে প্রায় আড়াই হাজার আম গাছ রয়েছে। এ ছাড়া পাকিস্তানি আমলেরও বেশকিছু আম গাছ টিকে আছে এখনও। বাগানটি পরিচর্যা ও দেখভালের অভাবে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। অনেক গাছ মরে পড়ে রয়েছে। তার পরেও বাগানের দায়িত্বে থাকা স্থানীয় জেলা প্রশাসক কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি। এরপরও ২০১৬-১৭ ও ১৮ সালের তিন বছরের জন্য প্রায় ৫৪ লাখ টাকায় বাগানটি টেন্ডার নেন পার কানসাট এলাকার সোহবুল ইসলাম নামে এক আম ব্যবসায়ী। তারপর হতেই নামেমাত্র মূল্যে বাগানটি বিক্রি করে আসছে জেলা প্রশাসন। বাগানের পাশের বাসিন্দারা অভিযোগ করে বলেন, প্রশাসনের গাফিলতির কারণে বাগানটি আজ ধ্বংস হতে চলেছে। এক শ্রেণির অসাধু ব্যক্তি রাতের আঁধারে বাগানের আম গাছ কেটে নিয়ে যায়। এ ছাড়া সময়মতো বাগানটি পরিচর্যা না করায় অনেক গাছ মরে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। যদি সময়মতো এখনও বাগানটি পরিচর্যা করা হয়-তবে আগের যৌবনে ফিরে আসবে ঐতিহ্যবাহী এই কুঁজা রাজার বাগানটি। সরকারের আয় হবে কোটি কোটি টাকা। তাদের দাবি-প্রশাসন যদি বাগানটি আম মৌসুমের আগে নিলামে বিক্রি করে তবে বিপুল পরিমাণ টাকা আয় করা সম্ভব।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে চাঁপাই নবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসক এজেডএম নূরুল হক বলেন, বর্তমান সময়ে আমের মূল্য না পাওয়ায় কেউ বাগান লিজ নিতে চাইনি। তবে আগামী মৌসুমের আগেই লিজ দেয়ার আশ্বাস দেন তিনি। তিনি আরো বলেন, কুঁজা রাজার বৃহৎ বাগানটি শিগগিরই পরিদর্শন করে রক্ষণাবেক্ষণের ব্যবস্থা নেয়া হবে। মানবজমিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ওভারিয়ান সিস্ট নাকি টিউমার | কখন কী করা উচিত?

» নবজাতকের জন্ডিস | প্রকারভেদ, কেন হয় ও করণীয় কী?

» পাবলিক পরীক্ষায় পাস নম্বর ৪০!

» দান সদকাহ বিষয়ে রাসুল (সা.) যা বলেন

» পঞ্চম ধাপে ২৩ উপজেলায় ভোট গ্রহণ কাল, ৬টি উপজেলায় থাকছে ইভিএম পদ্ধতি

» অনলাইনে হ্যাকাররা তৎপর

» রাজধানীতের শিশু কন্যাকে হত্যা করে মায়ের আত্মহত্যার চেষ্টা

» বাড়ির দরজা খোলা পেয়ে কিশোরীকে ধর্ষণ

» ব্যালেন্স জানতে খরচ হবে ৪০ পয়সা

» বিভিন্ন পণ্য ও সেবার খরচ বেড়েছে যে কারণে

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক

ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিল

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০,০১৯১১৪৯০৫০৫

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

সরকারি আড়াই হাজার গাছের আম বিক্রি হলো ৫৫ হাজার টাকায়

কুঁজা রাজা নামে পরিচিত চাঁপাই নবাবগঞ্জে একটি সরকারি আম বাগানের প্রায় ২ হাজার ৫শ’ গাছের আম বিক্রি করা হয়েছে মাত্র ৫৫ হাজার টাকায়। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা। গতকাল  দুপুরে প্রকাশ্য ডাকের মাধ্যমে আম গাছগুলো চলতি মৌসুমের জন্য বিক্রি করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করে কানসাট ইউনিয়ন পরিষদের তহসিলদার মো. নুরুল ইসলাম জানান, কানসাট রাজার বাগানের প্রায় ২৫শ’ গাছের আম ফল প্রকাশ্য নিলাম ডাকের মাধ্যমে ৫৫ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়েছে। সর্বচ্চ দামে বাগানটি কিনে নেন স্থানীয় আম ব্যববসায়ী আবদুল আলিম নামে এক ব্যক্তি। জানা গেছে, কানসাট মৌজার পার কানসাট ও মোবারকপুর ইউনিয়নের স্বীকারপুর মৌজায় প্রায় ৩২ একর ৯৮ জমি রয়েছে। সেখানে ছোট-বড় মিলিয়ে প্রায় আড়াই হাজার আম গাছ রয়েছে। এ ছাড়া পাকিস্তানি আমলেরও বেশকিছু আম গাছ টিকে আছে এখনও। বাগানটি পরিচর্যা ও দেখভালের অভাবে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। অনেক গাছ মরে পড়ে রয়েছে। তার পরেও বাগানের দায়িত্বে থাকা স্থানীয় জেলা প্রশাসক কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি। এরপরও ২০১৬-১৭ ও ১৮ সালের তিন বছরের জন্য প্রায় ৫৪ লাখ টাকায় বাগানটি টেন্ডার নেন পার কানসাট এলাকার সোহবুল ইসলাম নামে এক আম ব্যবসায়ী। তারপর হতেই নামেমাত্র মূল্যে বাগানটি বিক্রি করে আসছে জেলা প্রশাসন। বাগানের পাশের বাসিন্দারা অভিযোগ করে বলেন, প্রশাসনের গাফিলতির কারণে বাগানটি আজ ধ্বংস হতে চলেছে। এক শ্রেণির অসাধু ব্যক্তি রাতের আঁধারে বাগানের আম গাছ কেটে নিয়ে যায়। এ ছাড়া সময়মতো বাগানটি পরিচর্যা না করায় অনেক গাছ মরে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। যদি সময়মতো এখনও বাগানটি পরিচর্যা করা হয়-তবে আগের যৌবনে ফিরে আসবে ঐতিহ্যবাহী এই কুঁজা রাজার বাগানটি। সরকারের আয় হবে কোটি কোটি টাকা। তাদের দাবি-প্রশাসন যদি বাগানটি আম মৌসুমের আগে নিলামে বিক্রি করে তবে বিপুল পরিমাণ টাকা আয় করা সম্ভব।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে চাঁপাই নবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসক এজেডএম নূরুল হক বলেন, বর্তমান সময়ে আমের মূল্য না পাওয়ায় কেউ বাগান লিজ নিতে চাইনি। তবে আগামী মৌসুমের আগেই লিজ দেয়ার আশ্বাস দেন তিনি। তিনি আরো বলেন, কুঁজা রাজার বৃহৎ বাগানটি শিগগিরই পরিদর্শন করে রক্ষণাবেক্ষণের ব্যবস্থা নেয়া হবে। মানবজমিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক

ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিল

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০,০১৯১১৪৯০৫০৫

Design & Developed BY ThemesBazar.Com