শাহজালাল ব্যাংক এক বছরে খেলাপি ঋণ বাড়ল ৪৮ শতাংশ

দেশের ব্যাংকগুলোর মন্দ ঋণ কমানোর জন্য সরকারের নানা উদ্যোগের মধ্যেই বেসরকারি শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকে হু হু করে বাড়ছে খেলাপি ঋণ। গত এক বছরে এই ব্যাংকে খেলাপি ঋণ বেড়েছে প্রায় ৪৮ শতাংশ।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে নতুন অর্থমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে আ হ ম মুস্তফা কামাল ঘোষণা দেন, ব্যাংকের খেলাপি ঋণ আর এক টাকাও বাড়বে না। মন্ত্রীর ঘোষণা বাস্তবায়নের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ও অর্থ মন্ত্রণালয় নানা ধরনের উদ্যোগ নেয়। এরই অংশ হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংক, সরকারি ব্যাংকের চেয়ারম্যান, এমডি, বেসরকারি ব্যাংক মালিকদের সংগঠন বিএবি, এমডিদের সংগঠন এবিবির সঙ্গে কয়েক দফা বৈঠক করেন অর্থমন্ত্রী।

এই উদ্যোগের ধারাবাহিকতায় এখন ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্ট দিয়ে সর্বোচ্চ ১০ বছরের জন্য পুনঃতফসিল সুবিধা দেওয়া হয়। ঋণের ধরন বিবেচনা করে পরিশোধে এক বছরের জন্য গ্রেস পিরিয়ডেরও ব্যবস্থা করেছেন।

কিন্তু বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রকাশিত এক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে দেখা যায়, খেলাপি ঋণ কমিয়ে আনতে সরকারের নেওয়া ব্যবস্থার কোনো প্রতিফলন নেই শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকে। বরং দিন দিন বেড়েই চলেছে এর খেলাপি ঋণের পরিমাণ।

আরও নানা ক্ষেত্রে ব্যাংকটির অনিয়ম বেরিয়ে আসছে। খাদ্যনিরাপত্তা ও গ্রামীণ অর্থনীতিতে অর্থ সরবরাহ বাড়ানোর জন্য কৃষিঋণের ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলোর যে বাধ্যবাধকতা রয়েছে তার কোনো তোয়াক্কা করেনি শাহজালাল ব্যাংক। চলতি অর্থবছরের জন্য তাদের ৩৩৩ কোটি টাকার লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে তিন মাসে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) বিতরণ করেছে মাত্র ৬ কোটি ৪৯ লাখ টাকা।

ঋণ সম্পর্কিত বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন থেকে দেখা যায়, চলতি বছরের গত জুন শেষে শাহজালাল ব্যাংকের খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ১১৬১ কোটি ৩৭ লাখ টাকা, যা ২০১৭ সালের জুনে ছিল ৬৩৯ কোটি ৬৫ লাখ টাকা। শতাংশীয় হিসাবে বৃদ্ধি ৮১ দশমিক ৫৬ শতাংশ।

বছরভিত্তিক হিসাবে ২০১৭ সালের জুন থেকে ১৫২ কোটি ৪৬ লাখ টাকা বেড়ে ২০১৮ জুন পর্যন্ত খেলাপি ঋণ দাঁড়ায় ৭৯২ কোটি ১১ লাখ টাকা, যা শতাংশীয় হিসাবে প্রায় ২৪ শতাংশ।

এ থেকে গত এক বছরে ৩৬৯ কোটি ২৬ লাখ টাকা বেড়ে খেলাপি ঋণের প্রবৃদ্ধি ঘটে প্রায় দ্বিগুণ- ৫০ শতাংশ। চলতি বছরের জুন শেষে মোট খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ১১৬১ কোটি ৩৭ লাখ টাকা।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, ব্যাংকগুলোর ঋণের ঝুঁকি বিবেচনা করে তার বিপরীতে প্রভিশন সংরক্ষণ করতে হয়। চলতি জুন শেষে ব্যাংকের প্রভিশন ঘাটতি ১০০ কোটি ৩৩ লাখ টাকা। কিন্তু প্রয়োজনীয় প্রভিশন রাখতে ব্যর্থ হয়েছে শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক।

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, একদিকে খেলাপি ঋণ বেড়ে গেছে, অন্যদিকে বিশেষ সুবিধায় নিয়মিত ঋণগুলো ঠিকমতো আদায় হচ্ছে না। ফলে প্রভিশন ঘাটতি বাড়ছে।

খেলাপি ঋণ কমাতে না পারার পেছনে ব্যাংকগুলোতে সুশাসনের ঘাটতি দেখছেন সাবেক গভর্নর। বলেন, ‘সরকার খেলাপিদের একের পর এক সুবিধা দিয়ে যাচ্ছে, কিন্তু খেলাপি ঋণ কমাতে পারছে না। এর কারণ ব্যাংকগুলোতে জবাবদিহি নেই, সুশাসনের অভাব।’

খেলাপি ঋণ কমাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কার্যকর উদ্যোগ নেয়া ছাড়া কোনো পথ নেই উল্লেখ করে সালেহ উদ্দিন বলেন, আগামীতে খেলাপি যেন আর না বাড়ে সে জন্য ব্যাংকগুলোকে দেখেশুনে ঋণ দিতে হবে। অনৈতিকভাবে যাতে পুনঃতফসিল সুবিধা নিতে না পারে তা তদারক করতে হবে। একই সঙ্গে যেসব বেসরকারি ব্যাংক প্রভিশন ঘাটতিতে রয়েছে সেখানে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজরদারি জরুরি বলে মনে করেন সাবেক এ গভর্নর।

খেলাপি ঋণের সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশ ব্যাংক এরই মধ্যে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘আমরা ব্যাংকগুলোর সঙ্গে নিয়মিত আলোচনা করে যাচ্ছি।’

এদিকে বিভিন্ন ব্যাংকের অনিয়ম-দুর্নীতি তদন্তে নেমেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর মধ্যে শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক অন্যতম।

সরকারি নানা সুবিধার পরও এভাবে খেলাপি ঋণ বৃদ্ধি প্রসঙ্গে জানতে ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালককে ফোন করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

ঢাকাটাইমস

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» সাভারে অগ্নিকান্ডে ১৮ ঘর পুড়ে ছাই

» রাজগঞ্জে পল্লী বন্ধু এইচ এম এরশাদ স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্টের ২য় খেলায় যশোর খড়কি ফুটবল ক্লাব জয়ী

» হঠাৎ কলকাতার আকাশে টাকার বৃষ্টি!

» আজিমপুর করবস্থানের ভাইরাল কিছু ছবি নিয়ে প্রশ্ন

» বর্তমান সরকারের রাজনৈতিক সফলতা থাকলেও ঐকমত্য নেই : মনিরুল

» আওয়ামী লীগের অভ্যর্থনা উপ-কমিটির সভা কাল

» হুন সেনকে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে চাপ অব্যাহত রাখার অনুরোধ

» রাবিতে ১৪শ কেজির ভাস্কর্যে ৯০৮ কেজি তামাই গায়েব!

» ৪ বছর পর দ্বিতীয় বিয়ের খবর জানালেন মম

» বগুড়ায় বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে চিকিৎসককে কুপিয়ে হত্যা

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

শাহজালাল ব্যাংক এক বছরে খেলাপি ঋণ বাড়ল ৪৮ শতাংশ

দেশের ব্যাংকগুলোর মন্দ ঋণ কমানোর জন্য সরকারের নানা উদ্যোগের মধ্যেই বেসরকারি শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকে হু হু করে বাড়ছে খেলাপি ঋণ। গত এক বছরে এই ব্যাংকে খেলাপি ঋণ বেড়েছে প্রায় ৪৮ শতাংশ।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে নতুন অর্থমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে আ হ ম মুস্তফা কামাল ঘোষণা দেন, ব্যাংকের খেলাপি ঋণ আর এক টাকাও বাড়বে না। মন্ত্রীর ঘোষণা বাস্তবায়নের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ও অর্থ মন্ত্রণালয় নানা ধরনের উদ্যোগ নেয়। এরই অংশ হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংক, সরকারি ব্যাংকের চেয়ারম্যান, এমডি, বেসরকারি ব্যাংক মালিকদের সংগঠন বিএবি, এমডিদের সংগঠন এবিবির সঙ্গে কয়েক দফা বৈঠক করেন অর্থমন্ত্রী।

এই উদ্যোগের ধারাবাহিকতায় এখন ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্ট দিয়ে সর্বোচ্চ ১০ বছরের জন্য পুনঃতফসিল সুবিধা দেওয়া হয়। ঋণের ধরন বিবেচনা করে পরিশোধে এক বছরের জন্য গ্রেস পিরিয়ডেরও ব্যবস্থা করেছেন।

কিন্তু বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রকাশিত এক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে দেখা যায়, খেলাপি ঋণ কমিয়ে আনতে সরকারের নেওয়া ব্যবস্থার কোনো প্রতিফলন নেই শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকে। বরং দিন দিন বেড়েই চলেছে এর খেলাপি ঋণের পরিমাণ।

আরও নানা ক্ষেত্রে ব্যাংকটির অনিয়ম বেরিয়ে আসছে। খাদ্যনিরাপত্তা ও গ্রামীণ অর্থনীতিতে অর্থ সরবরাহ বাড়ানোর জন্য কৃষিঋণের ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলোর যে বাধ্যবাধকতা রয়েছে তার কোনো তোয়াক্কা করেনি শাহজালাল ব্যাংক। চলতি অর্থবছরের জন্য তাদের ৩৩৩ কোটি টাকার লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে তিন মাসে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) বিতরণ করেছে মাত্র ৬ কোটি ৪৯ লাখ টাকা।

ঋণ সম্পর্কিত বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন থেকে দেখা যায়, চলতি বছরের গত জুন শেষে শাহজালাল ব্যাংকের খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ১১৬১ কোটি ৩৭ লাখ টাকা, যা ২০১৭ সালের জুনে ছিল ৬৩৯ কোটি ৬৫ লাখ টাকা। শতাংশীয় হিসাবে বৃদ্ধি ৮১ দশমিক ৫৬ শতাংশ।

বছরভিত্তিক হিসাবে ২০১৭ সালের জুন থেকে ১৫২ কোটি ৪৬ লাখ টাকা বেড়ে ২০১৮ জুন পর্যন্ত খেলাপি ঋণ দাঁড়ায় ৭৯২ কোটি ১১ লাখ টাকা, যা শতাংশীয় হিসাবে প্রায় ২৪ শতাংশ।

এ থেকে গত এক বছরে ৩৬৯ কোটি ২৬ লাখ টাকা বেড়ে খেলাপি ঋণের প্রবৃদ্ধি ঘটে প্রায় দ্বিগুণ- ৫০ শতাংশ। চলতি বছরের জুন শেষে মোট খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ১১৬১ কোটি ৩৭ লাখ টাকা।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, ব্যাংকগুলোর ঋণের ঝুঁকি বিবেচনা করে তার বিপরীতে প্রভিশন সংরক্ষণ করতে হয়। চলতি জুন শেষে ব্যাংকের প্রভিশন ঘাটতি ১০০ কোটি ৩৩ লাখ টাকা। কিন্তু প্রয়োজনীয় প্রভিশন রাখতে ব্যর্থ হয়েছে শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক।

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, একদিকে খেলাপি ঋণ বেড়ে গেছে, অন্যদিকে বিশেষ সুবিধায় নিয়মিত ঋণগুলো ঠিকমতো আদায় হচ্ছে না। ফলে প্রভিশন ঘাটতি বাড়ছে।

খেলাপি ঋণ কমাতে না পারার পেছনে ব্যাংকগুলোতে সুশাসনের ঘাটতি দেখছেন সাবেক গভর্নর। বলেন, ‘সরকার খেলাপিদের একের পর এক সুবিধা দিয়ে যাচ্ছে, কিন্তু খেলাপি ঋণ কমাতে পারছে না। এর কারণ ব্যাংকগুলোতে জবাবদিহি নেই, সুশাসনের অভাব।’

খেলাপি ঋণ কমাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কার্যকর উদ্যোগ নেয়া ছাড়া কোনো পথ নেই উল্লেখ করে সালেহ উদ্দিন বলেন, আগামীতে খেলাপি যেন আর না বাড়ে সে জন্য ব্যাংকগুলোকে দেখেশুনে ঋণ দিতে হবে। অনৈতিকভাবে যাতে পুনঃতফসিল সুবিধা নিতে না পারে তা তদারক করতে হবে। একই সঙ্গে যেসব বেসরকারি ব্যাংক প্রভিশন ঘাটতিতে রয়েছে সেখানে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজরদারি জরুরি বলে মনে করেন সাবেক এ গভর্নর।

খেলাপি ঋণের সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশ ব্যাংক এরই মধ্যে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘আমরা ব্যাংকগুলোর সঙ্গে নিয়মিত আলোচনা করে যাচ্ছি।’

এদিকে বিভিন্ন ব্যাংকের অনিয়ম-দুর্নীতি তদন্তে নেমেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর মধ্যে শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক অন্যতম।

সরকারি নানা সুবিধার পরও এভাবে খেলাপি ঋণ বৃদ্ধি প্রসঙ্গে জানতে ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালককে ফোন করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

ঢাকাটাইমস

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com