রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে তালা

ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়। অচল হয়ে পড়েছে প্রশাসনিক কার্যক্রম।

পদোন্নতি নীতিমালা বাস্তবায়নসহ তিন দফা দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারিরা  প্রশাসনিক ভবনে তালা লাগিয়ে কর্মবিরতি শুরু করেছে।

তবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বলছে এই অন্দোলনের কোন যৌক্তিকতা নেই। যারা তালা লাগিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মচারীবান্ধব পদোন্নতি নীতিমালা বাস্তবায়ন, ৪৪ মাসের বকেয়া বেতন-ভাতা পরিশোধ ও ১০ম গ্রেডপ্রাপ্ত ২৫ কর্মকর্তার পদমর্যাদা প্রদানসহ মাস্টার রোল কর্মচারীদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে তারা এই কর্মসূচি পালন করছে।

মঙ্গলবার সকালে ক্যাম্পাসে গিয়ে দেখা গেছে, কর্মচারীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সব কার্যক্রম বন্ধ রেখে প্রশাসনিক ভবনের দুই গেটে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন।

কর্মচারিরা অভিযোগে জানান, কয়েকজন কর্মচারিকে ৪৪ মাস থেকে বেতন-ভাতা দেওয়া হচ্ছেনা। ২৮৮ জনকে বকেয়া পরিশোধ করলেও ৫৮ জন কর্মচারীর বকেয়া পাওনা আছে। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বক্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়। কারণ ২৮৮ জনের বকেয়া দেওয়ার ক্ষেত্রে মামলার কোনো প্রশ্ন ওঠেনি। তাই ৫৮ জনের ক্ষেত্রে মামলার প্রশ্ন তোলা অযৌক্তিক। বকেয়া বেতনের ৫৮ জন কর্মচারির বিরুদ্ধে কোন মামলা নেই।  বিষয়টি  আগেই চিঠির মাধ্যমে ইউজিসি’কে জানিয়েছেন রেজিস্ট্রার। ৫৮ জনের বকেয়া আটকে রেখে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির অপচেষ্টা করা হচ্ছে।

কর্মচারী সমন্বয় পরিষদের সমন্বয়ক মাহবুবার রহমান বলেন, ‘আমরা অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতির ঘোষণা দিয়েছিলাম। কিন্তু প্রশাসন কোন সহযোগিতা বা আলোচনার ইঙ্গিত না দেওয়ায় বাধ্য হয়ে তালা দিয়েছি। দাবী আদায় অথবা কার্যকর কোন পদক্ষেপ নেওয়া না হলে আমরা তালা খুলবো না।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের মুখপাত্র তবিবুর রহমান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মচারি সমন্বয় পরিষদ নামে কোন সংগঠন নেই। ওই ব্যানারে যারা আন্দোলন করছে তার কোন যৌক্তিকতা নেই। যে দাবিতে তারা আন্দোলন করছে সেই দাবিগুলো মিমাংসার পথে। যেহেতু তারা প্রশাসনিক ভবনে তালা লাগিয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতিমালা অনুযায়ি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» প্রেম পিয়াসা ভালবাসা

» রোহিঙ্গা ইস্যু: গাম্বিয়ার মামলা লড়বে মিয়ানমার, নেতৃত্ব দিবেন সু চি

» খুলনায় ঘের ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা,১জন আটক

» মোহাম্মদপুরে ডিবি পরিচয়ে চাঁদা আদায়, আটক ১

» মধ্যরাত পর্যন্ত রুদ্ধদ্বার বৈঠক, শর্তজুড়ে দিয়ে ধর্মঘট প্রত্যাহার

» যমুনায় ধরা পড়লো ৬৫ কেজি ওজনের বাঘাইড়

» বাজারে ধর্মঘটের উত্তাপ

» ১০ গ্রামবাসীর ভরসা ‘নৌকা’

» বাঁকখালী নদী ৫০০ প্রভাবশালীর দখলে

» আমেরিকার মুদি দোকানে বিক্রি হচ্ছে গরুর গোবরের কেক!

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে তালা

ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়। অচল হয়ে পড়েছে প্রশাসনিক কার্যক্রম।

পদোন্নতি নীতিমালা বাস্তবায়নসহ তিন দফা দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারিরা  প্রশাসনিক ভবনে তালা লাগিয়ে কর্মবিরতি শুরু করেছে।

তবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বলছে এই অন্দোলনের কোন যৌক্তিকতা নেই। যারা তালা লাগিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মচারীবান্ধব পদোন্নতি নীতিমালা বাস্তবায়ন, ৪৪ মাসের বকেয়া বেতন-ভাতা পরিশোধ ও ১০ম গ্রেডপ্রাপ্ত ২৫ কর্মকর্তার পদমর্যাদা প্রদানসহ মাস্টার রোল কর্মচারীদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে তারা এই কর্মসূচি পালন করছে।

মঙ্গলবার সকালে ক্যাম্পাসে গিয়ে দেখা গেছে, কর্মচারীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সব কার্যক্রম বন্ধ রেখে প্রশাসনিক ভবনের দুই গেটে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন।

কর্মচারিরা অভিযোগে জানান, কয়েকজন কর্মচারিকে ৪৪ মাস থেকে বেতন-ভাতা দেওয়া হচ্ছেনা। ২৮৮ জনকে বকেয়া পরিশোধ করলেও ৫৮ জন কর্মচারীর বকেয়া পাওনা আছে। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বক্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়। কারণ ২৮৮ জনের বকেয়া দেওয়ার ক্ষেত্রে মামলার কোনো প্রশ্ন ওঠেনি। তাই ৫৮ জনের ক্ষেত্রে মামলার প্রশ্ন তোলা অযৌক্তিক। বকেয়া বেতনের ৫৮ জন কর্মচারির বিরুদ্ধে কোন মামলা নেই।  বিষয়টি  আগেই চিঠির মাধ্যমে ইউজিসি’কে জানিয়েছেন রেজিস্ট্রার। ৫৮ জনের বকেয়া আটকে রেখে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির অপচেষ্টা করা হচ্ছে।

কর্মচারী সমন্বয় পরিষদের সমন্বয়ক মাহবুবার রহমান বলেন, ‘আমরা অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতির ঘোষণা দিয়েছিলাম। কিন্তু প্রশাসন কোন সহযোগিতা বা আলোচনার ইঙ্গিত না দেওয়ায় বাধ্য হয়ে তালা দিয়েছি। দাবী আদায় অথবা কার্যকর কোন পদক্ষেপ নেওয়া না হলে আমরা তালা খুলবো না।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের মুখপাত্র তবিবুর রহমান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মচারি সমন্বয় পরিষদ নামে কোন সংগঠন নেই। ওই ব্যানারে যারা আন্দোলন করছে তার কোন যৌক্তিকতা নেই। যে দাবিতে তারা আন্দোলন করছে সেই দাবিগুলো মিমাংসার পথে। যেহেতু তারা প্রশাসনিক ভবনে তালা লাগিয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতিমালা অনুযায়ি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com