ম্যাজিস্ট্রেট নয়শ

মামলার তদবির করতে গিয়ে অভিনয়ের সবটাই ছিল পরিপাটি কিন্তু বিধিবাম! ‘সারেন্ডার’ বলতেই বেরিয়ে এলো থলের বেড়াল। ‘সারেন্ডার’ না বলে ‘স্যালেন্ডার’ উচ্চারণ করতেই ধরা পড়েন নিজেকে ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় দেওয়া প্রতারক জুয়েল রানা। গত ৭ এপ্রিল ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে ঘটে এ ঘটনা। আদালতের নাজির সাকিলুর রহমান জানান, ওই প্রতারকের কাছ থেকে ভুয়া প্রবেশপত্র জব্দ করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে প্রতারণা ও জালিয়াতির অভিযোগ এনে কোতোয়ালি থানায় মামলা করা হয়েছে।

জানা যায়, টাঙ্গাইলের সদর থানার বিশাদ বেটকা মুন্সিপাড়ার আবদুর রউফের ছেলে জুয়েল রানা। জুয়েল নিজেকে ম্যাজিস্ট্রেট (সহকারী জজ) পরিচয় দিয়ে মুখ্য মহানগর হাকিম (সিএমএম) জাহিদুল কবিরের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের জন্য আসেন। সিএমএম তাঁকে খাস কামরায় ডেকে পাঠান। তিনি নিজেকে ১২তম জুডিশিয়াল সার্ভিস পরীক্ষায় নিয়োগের সুপারিশপ্রাপ্ত বলে জানান।

একপর্যায়ে জুয়েল রানা মামলার আসামির জামিনের বিষয়ে কথা বলতে শুরু করেন। কথোপকথনের সময় তিনি ‘সারেন্ডার’ না বলে ‘স্যালেন্ডার’ শব্দ উচ্চারণ করেন। সিএমএমের এতে সন্দেহ হয়। কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা করছেন জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কথা বলেন। এরপর ১২তম জুডিশিয়াল সার্ভিসের পরীক্ষার রোল কত তা জানতে চাইলে পকেট থেকে একটি প্রবেশপত্র বের করে দেন। তাতে রোল নম্বর লেখা ৮২০৩।

ওই রোল নম্বর যাচাই করে দেখা যায়, ওই রোল নম্বরের পরীক্ষার্থীর নাম ছিল আবদুল্লাহ আল নোমান। তিনি নর্দান ইউনিভার্সিটির ছাত্র। বাড়ি কক্সবাজার জেলায়। পরে জেরার এক পর্যায়ে সোহাগ স্বীকার করে যে, প্রতারণার জন্যই আবদুল্লাহ আল নোমানের রোল নম্বর ব্যবহার করে সেখানে নিজের নাম, পিতার নাম ও ঠিকানা বসিয়ে ব্যবহার করছেন। পরে সোহাগকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে তার বিরুদ্ধে আরও তিনটি প্রতারণা মামলায় রয়েছে।

রাজধানীর মিরপুর থেকে বাদশা আলমগীর (৪৫) নামে এক ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেটকে আটক করেছে পুলিশ। মিরপুর সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজের সামনে থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মিরপুরের সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজের সামনে জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাস থামিয়ে কাগজ দেখতে চান বাদশা আলমগীর। তখন বাসচালক কাগজ দেখাতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে মারধর করেন তিনি। এ সময় ঘটনাস্থলের পাশে দায়িত্বরত পুলিশ এসে তার পরিচয় জানতে চাইলে বেরিয়ে আসে বাদশা আলমগীর একজন ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেট। পরে তাকে আটক করা হয়। এ বিষয়ে পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, দুপুরে বাদশা আলমগীর নামে এক ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেটকে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এমন ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেটের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এভাবে সচেতন থাকলে এই সংখ্যা কমতে বাধ্য। বাংলাদেশ প্রতিদিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের সঙ্গে জাপার শীর্ষ নেতাদের বৈঠক

» বিএনপি নিজেরাই নিজেদের অবৈধ বলছে: তথ্যমন্ত্রী

» পরিবাগে বহুতল ভবনে আগুন

» বাহুবলে প্রাথমিক বৃত্তিতে ব্যাপক দুর্নীতি : নিজ সন্তানের খাতা নিজেই দেখলেন শিক্ষক 

» কয়েক হাজার টাকায় বাঁচতে পারে নুরানির জীবন

» কালের আবর্তে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী ‘হারিকেন’

» হানিফ পরিবহনের চাপায় মণিরামপুরের দুই মেধাবী স্কুল ছাত্র নিহত, কাঠের গুড়ি ফেলে ঘন্টাব্যাপী সড়ক অবরোধ

» টসে হেরে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ

» বিষাক্ত যন্ত্রণা, আর কোনো পরিবারের সঙ্গে যেন এমনটা না হয়: সোহেল তাজ

» মিমের নতুন রেকর্ড

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক

ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিল

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০,০১৯১১৪৯০৫০৫

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

ম্যাজিস্ট্রেট নয়শ

মামলার তদবির করতে গিয়ে অভিনয়ের সবটাই ছিল পরিপাটি কিন্তু বিধিবাম! ‘সারেন্ডার’ বলতেই বেরিয়ে এলো থলের বেড়াল। ‘সারেন্ডার’ না বলে ‘স্যালেন্ডার’ উচ্চারণ করতেই ধরা পড়েন নিজেকে ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় দেওয়া প্রতারক জুয়েল রানা। গত ৭ এপ্রিল ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে ঘটে এ ঘটনা। আদালতের নাজির সাকিলুর রহমান জানান, ওই প্রতারকের কাছ থেকে ভুয়া প্রবেশপত্র জব্দ করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে প্রতারণা ও জালিয়াতির অভিযোগ এনে কোতোয়ালি থানায় মামলা করা হয়েছে।

জানা যায়, টাঙ্গাইলের সদর থানার বিশাদ বেটকা মুন্সিপাড়ার আবদুর রউফের ছেলে জুয়েল রানা। জুয়েল নিজেকে ম্যাজিস্ট্রেট (সহকারী জজ) পরিচয় দিয়ে মুখ্য মহানগর হাকিম (সিএমএম) জাহিদুল কবিরের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের জন্য আসেন। সিএমএম তাঁকে খাস কামরায় ডেকে পাঠান। তিনি নিজেকে ১২তম জুডিশিয়াল সার্ভিস পরীক্ষায় নিয়োগের সুপারিশপ্রাপ্ত বলে জানান।

একপর্যায়ে জুয়েল রানা মামলার আসামির জামিনের বিষয়ে কথা বলতে শুরু করেন। কথোপকথনের সময় তিনি ‘সারেন্ডার’ না বলে ‘স্যালেন্ডার’ শব্দ উচ্চারণ করেন। সিএমএমের এতে সন্দেহ হয়। কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা করছেন জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কথা বলেন। এরপর ১২তম জুডিশিয়াল সার্ভিসের পরীক্ষার রোল কত তা জানতে চাইলে পকেট থেকে একটি প্রবেশপত্র বের করে দেন। তাতে রোল নম্বর লেখা ৮২০৩।

ওই রোল নম্বর যাচাই করে দেখা যায়, ওই রোল নম্বরের পরীক্ষার্থীর নাম ছিল আবদুল্লাহ আল নোমান। তিনি নর্দান ইউনিভার্সিটির ছাত্র। বাড়ি কক্সবাজার জেলায়। পরে জেরার এক পর্যায়ে সোহাগ স্বীকার করে যে, প্রতারণার জন্যই আবদুল্লাহ আল নোমানের রোল নম্বর ব্যবহার করে সেখানে নিজের নাম, পিতার নাম ও ঠিকানা বসিয়ে ব্যবহার করছেন। পরে সোহাগকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে তার বিরুদ্ধে আরও তিনটি প্রতারণা মামলায় রয়েছে।

রাজধানীর মিরপুর থেকে বাদশা আলমগীর (৪৫) নামে এক ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেটকে আটক করেছে পুলিশ। মিরপুর সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজের সামনে থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মিরপুরের সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজের সামনে জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাস থামিয়ে কাগজ দেখতে চান বাদশা আলমগীর। তখন বাসচালক কাগজ দেখাতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে মারধর করেন তিনি। এ সময় ঘটনাস্থলের পাশে দায়িত্বরত পুলিশ এসে তার পরিচয় জানতে চাইলে বেরিয়ে আসে বাদশা আলমগীর একজন ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেট। পরে তাকে আটক করা হয়। এ বিষয়ে পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, দুপুরে বাদশা আলমগীর নামে এক ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেটকে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এমন ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেটের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এভাবে সচেতন থাকলে এই সংখ্যা কমতে বাধ্য। বাংলাদেশ প্রতিদিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক

ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিল

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০,০১৯১১৪৯০৫০৫

Design & Developed BY ThemesBazar.Com