ভান্ডারিয়ায় স্ক্র্যাচ কার্ডে পণ্য বিক্রির নামে চলছে জুয়া খেলা

একে সোহেল, পিরোজপুর প্রতিনিধিঃ ভান্ডারিয়া উপজেলা ১ নং ভিটাবাড়িয়া ইউনিয়নের কাপালির হাট বাজারে কাপালির হাট হাই স্কুলের শহীদ মিনারের পাশে একটি ঘরে স্ক্র্যাচ কার্ড দিয়ে পণ্য বিক্রির নামে জুয়া খেলা চলছে। স্থানীয় এক প্রভাবশালী ব্যক্তির ছত্রছায়ায় মাদারিপুর জেলার ১১/১২ জন যুবক এই জুয়ার ব্যবসা পরিচালনা করছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও), থানার ওসি কারোই অনুমতি না নিয়ে তাঁরা এ প্রক্রিয়ায় পণ্য বিক্রি করছেন। তাদের কাছে নেই কোন বৈধ্য কাগজপত্র এমনি ব্যবস্যা পরিচালনা করার ট্রেড লাইসেন্স। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, কাপালির হাট হাই স্কুল সংলঘ আধাপাকা দুটি কক্ষে সার্ভিস ফর অল (সেফা) কোম্পানি লিমিটেড নামের একটি ভুয়া প্রতিষ্ঠান স্ক্র্যাচ কার্ডের মাধ্যমে পণ্য বিক্রি করছে। নি¤œ মানের ইলেকট্রনিকস ও ক্রোকারিজ পণ্য সহ নানা ররকম পণ্য বিক্রী করা হচ্ছে। কার্ডে হেড অফিসের ঠিকানা ৮৮/৪ উত্তর যাত্রাবাড়ি, ঢাকা-১২০৪ উল্লেখ করা হয়েছে। উপজেলার ভিটাবাড়িয়া গ্রামের পুরো মাঠপর্যায়ে নানা কৌশলে এই প্রতারক চক্র স্ক্র্যাচ কার্ড কিনতে সাধারণ মানুষকে উদ্বুদ্ধ করে আসছেন। আয়োজকদের দেওয়া তথ্য ও ব্যানার-ফেস্টুনে লেখা নিয়ম অনুসারে, গ্রাহক বা ক্রেতাকে প্রথমে প্রতিষ্ঠানটির সদস্য হতে ৫০ টাকার একটি কার্ড কিনতে হয়। স্ক্র্যাচ কার্ড ঘষলে যে পণ্যের নাম বের হবে তা নিতে ১৩৯৯ টাকা দিতে হবে। আর ক্র্যাচ কার্ডে কোনো পণ্যের নাম না উঠলে ১০০ টাকা ফেরত দেওয়া হয় গ্রাহককে। অভিযোগ মতে, ঘষে পাওয়া পণ্যের দাম ৩০০ থেকে ৫০০ টাকার বেশি নয়। অথচ পাঁচ হাজার থেকে ৩০ হাজার টাকা মূল্যেরও লোভনীয় পণ্য রাখা হয়েছে। দামি পণ্য কারো ‘ভাগ্যে’ জোটে না। স্থানীয় ব্যবসায়ী নজরুল, রিপন, কাইয়ুম জানান গ্রামের মানুষ লোভে পড়ে এ কার্ড কিনতে ভিড় করছে। দামী পণ্য পাওয়ার আশায় স্কুলের ছাত্র ছাত্রী সহ স্থানীয় লোকজন এই কার্ড কিনে প্রতারিত হচ্ছে। সার্ভিস ফর অল (সেফা) কোম্পানি লিমিটেড এর ব্যবস্থাপক পরিচয়দানকারী মো. সুমন বলেন, ভান্ডারিয়া ইউএনও, ওসি অনুমতি নিয়েই আমরা পণ্য বিক্রয় করছি। এটা জুয়া খেলা নয়। এটা স্ক্র্যাচ কার্ড দিয়ে পণ্য বিক্রয়কেন্দ্র।’ অনুমতিপত্র দেখতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ওই সব ঢাকা হেড অফিসে জমা আছে।’ তাঁর ও প্রতিষ্ঠানটির মোবাইল ফোন নম্বর চাইলে বলেন, ‘হেড অফিসের নিষেধ আছে।’ এ বিষয়ে ভান্ডারিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মাকসুদুর রহমানকে সেল ফোনে আবহিত করলে তিনি জানান এটা কর ও সুল্ক বিভাগ কে আবহতি করা হবে।

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» বিপিএল লস প্রজেক্ট, আগামী বছর থাকবো কিনা চিন্তা করছি : নাফিসা

» এক গানেই ২ কোটি টাকা পারিশ্রমিক নিলেন জ্যাকলিন

» ঘুষের নাম বড় বাবু, স্কুল প্রতি ১০ হাজার টাকা

» পঙ্গু হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্সের মৃত্যু

» খালেদা জিয়া গ্রেনেড হামলার দায় এড়াতে পারেন না: প্রধানমন্ত্রী

» ২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলার বিচার দাবিতে নীলফামারীতে বিক্ষোভ সমাবেশ

» নিসু ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে মনিরামপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি লিটন ও সম্পাদক মোতাহারকে নাগরিক সংবর্ধনা

» জয়পুরহাটে ট্রাকের ধাক্কায় স্কুলছাত্রের মৃত্যু

» শেখ হাসিনাকে হত্যা করে আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বহীন করতে চেয়েছিলো তারা: চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মনি

» শ্রীপুরে সন্তানের অত্যাচারে বাড়ি ছাড়লেন মা, নির্যাতন থেকে বাঁচার জন্য পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগ

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক

ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিল

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০,০১৯১১৪৯০৫০৫

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

ভান্ডারিয়ায় স্ক্র্যাচ কার্ডে পণ্য বিক্রির নামে চলছে জুয়া খেলা

একে সোহেল, পিরোজপুর প্রতিনিধিঃ ভান্ডারিয়া উপজেলা ১ নং ভিটাবাড়িয়া ইউনিয়নের কাপালির হাট বাজারে কাপালির হাট হাই স্কুলের শহীদ মিনারের পাশে একটি ঘরে স্ক্র্যাচ কার্ড দিয়ে পণ্য বিক্রির নামে জুয়া খেলা চলছে। স্থানীয় এক প্রভাবশালী ব্যক্তির ছত্রছায়ায় মাদারিপুর জেলার ১১/১২ জন যুবক এই জুয়ার ব্যবসা পরিচালনা করছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও), থানার ওসি কারোই অনুমতি না নিয়ে তাঁরা এ প্রক্রিয়ায় পণ্য বিক্রি করছেন। তাদের কাছে নেই কোন বৈধ্য কাগজপত্র এমনি ব্যবস্যা পরিচালনা করার ট্রেড লাইসেন্স। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, কাপালির হাট হাই স্কুল সংলঘ আধাপাকা দুটি কক্ষে সার্ভিস ফর অল (সেফা) কোম্পানি লিমিটেড নামের একটি ভুয়া প্রতিষ্ঠান স্ক্র্যাচ কার্ডের মাধ্যমে পণ্য বিক্রি করছে। নি¤œ মানের ইলেকট্রনিকস ও ক্রোকারিজ পণ্য সহ নানা ররকম পণ্য বিক্রী করা হচ্ছে। কার্ডে হেড অফিসের ঠিকানা ৮৮/৪ উত্তর যাত্রাবাড়ি, ঢাকা-১২০৪ উল্লেখ করা হয়েছে। উপজেলার ভিটাবাড়িয়া গ্রামের পুরো মাঠপর্যায়ে নানা কৌশলে এই প্রতারক চক্র স্ক্র্যাচ কার্ড কিনতে সাধারণ মানুষকে উদ্বুদ্ধ করে আসছেন। আয়োজকদের দেওয়া তথ্য ও ব্যানার-ফেস্টুনে লেখা নিয়ম অনুসারে, গ্রাহক বা ক্রেতাকে প্রথমে প্রতিষ্ঠানটির সদস্য হতে ৫০ টাকার একটি কার্ড কিনতে হয়। স্ক্র্যাচ কার্ড ঘষলে যে পণ্যের নাম বের হবে তা নিতে ১৩৯৯ টাকা দিতে হবে। আর ক্র্যাচ কার্ডে কোনো পণ্যের নাম না উঠলে ১০০ টাকা ফেরত দেওয়া হয় গ্রাহককে। অভিযোগ মতে, ঘষে পাওয়া পণ্যের দাম ৩০০ থেকে ৫০০ টাকার বেশি নয়। অথচ পাঁচ হাজার থেকে ৩০ হাজার টাকা মূল্যেরও লোভনীয় পণ্য রাখা হয়েছে। দামি পণ্য কারো ‘ভাগ্যে’ জোটে না। স্থানীয় ব্যবসায়ী নজরুল, রিপন, কাইয়ুম জানান গ্রামের মানুষ লোভে পড়ে এ কার্ড কিনতে ভিড় করছে। দামী পণ্য পাওয়ার আশায় স্কুলের ছাত্র ছাত্রী সহ স্থানীয় লোকজন এই কার্ড কিনে প্রতারিত হচ্ছে। সার্ভিস ফর অল (সেফা) কোম্পানি লিমিটেড এর ব্যবস্থাপক পরিচয়দানকারী মো. সুমন বলেন, ভান্ডারিয়া ইউএনও, ওসি অনুমতি নিয়েই আমরা পণ্য বিক্রয় করছি। এটা জুয়া খেলা নয়। এটা স্ক্র্যাচ কার্ড দিয়ে পণ্য বিক্রয়কেন্দ্র।’ অনুমতিপত্র দেখতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ওই সব ঢাকা হেড অফিসে জমা আছে।’ তাঁর ও প্রতিষ্ঠানটির মোবাইল ফোন নম্বর চাইলে বলেন, ‘হেড অফিসের নিষেধ আছে।’ এ বিষয়ে ভান্ডারিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মাকসুদুর রহমানকে সেল ফোনে আবহিত করলে তিনি জানান এটা কর ও সুল্ক বিভাগ কে আবহতি করা হবে।

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক

ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিল

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০,০১৯১১৪৯০৫০৫

Design & Developed BY ThemesBazar.Com