বিদেশফেরতদের জন্য আতঙ্কে ব্যাংকাররা

করোনাভাইরাসের প্রভাব বিশ্বের ১৮৩ দেশের মতো বাংলাদেশেও পড়ছে। গতকাল পর্যন্ত ৩৯ জন আক্রন্ত এবং পাঁচজন মৃত্যুবরণ করেছে এদেশে। সরকার জনসমগম এড়ানো ও বিদেশফেরতদের কোয়ারেন্টাইনে যাওয়া বাধ্যতামূলক করলেও অনেকে মানছে না। এতে করে করোনার ঝুঁকিরা মধ্যে রয়েছে এদেশের মানুষ। বিশেষ করে ব্যাংকারদের ঝুঁকি বা আতঙ্ক বেড়েছে। কারণ সরকার সব সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করলেও ব্যাংক খোলা রেখেছে।

গতকাল বেশকিছু ব্যাংকারদের সঙ্গে কথা বলে এসব জানা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মো. শাহিন হোসেন প্রধান নামে এক কম্পিউটার ব্যবসায়ী গত শুক্রবার সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফিরেছেন। তিনি কম্পিউটার আমদানির জন্য গত এক সপ্তাহ সিঙ্গাপুর অবস্থান করেছেন। দেশে ফিরেই তিনি কোয়ারেন্টাইনে না গিয়ে দিব্যি ঘুরে বেড়ান। এরই ধারাবাহিকতায় গত রবিবার লেনদেন-সংক্রান্ত কাজে সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকে যান শাহিন। সেখানে বৈদেশিক লেনদের জন্য তার পাসপোর্ট বের করলে দ্বায়িত্ব কর্মকর্তা নিশ্চিত হন তিনি সদ্য বিদেশফেরত। এরপর তার সঙ্গে তর্কবিতর্কের এক পর্যায়ে শাখা ব্যবস্থাপক বিষয়টি সমাধান আনেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে শাহিন হোসেন ঢাকা টাইমসকে জানান, ‘ব্যবসায়ী কাজে প্রায় বিদেশে যায়। এরই ধারাবাহিকতায় কিছুদিন আগেও গিয়েছি। গত শুক্রবার দেশে ফিরেছি।’

দেশে ফিরে কোয়ারেন্টাইনে না গিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন কেন জানতে চাইলে তিনি জানান, ‘আমার ব্যবসায়িক বেশকিছু কাজ ব্যাংকে ছিল এ কারণে গিয়েছিলাম। এখন হোম কোয়ারেন্টাইনে আছি। একটু বাসা থেকে বের হয়নি।’

বেশ কয়েকজন ব্যাংকার ঢাকা টাইমসকে জানান, ‘আমরা সরকারি ছুটির মধ্যেও অফিস করব, এতে কোনো আপত্তি নেই। কিন্তু আমরা খুবই আতঙ্কে রয়েছি। কারণ গ্রাহকরা বিদেশ থেকে এসেই ব্যাংকে আসছেন। আবার অনেক ব্যাংকরারও বিদেশ থেকে ফিরে অফিস করছেন। এটা সচেনতার অভাব। সচেনতা না বাড়লে আমরা তথা আমাদের দেশের মানুষ ঝুঁকিতে পড়বেন।’

এদিকে, রাজশাহীর পুঠিয়ায় গত ১৯ মার্চ ভারত থেকে বাংলাদেশে এসে ব্যাংকের কাজ চালিয়ে যাচ্ছিলেন এখন ব্যাংক কর্মকর্তা। অথচ নিয়ম অনুযায়ী তার ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার কথা ছিল। গত সোমবার ওই ব্যাংক কর্মকর্তাকে ব্যাংক থেকে ধরে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠিয়েছে রাজশাহী পুঠিয়া উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুমানা আফরোজ।

সিটি ব্যাংকের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান জানান, দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার চলমান রাখতে আমি ক্লান্তিকালীন সময়েও অফিস করব। দেশের মানুষ অর্থের সংকটে যেন না পড়ে এ জন্য। তবে দেশের জনগণকে সচেতন হতে হবে।

তিনি বলেন, সরকার এ ক্লান্তিকালীন সময়ে দেশের মানুষের স্বার্থে ১০ দিনের ছুটির ব্যবস্থা করেছেন। কিন্তু মঙ্গলবারের চিত্র দেখে মনে হলো এটি ঈদ বা কোনো আনন্দ উৎসবের ছুটি। এখনো মানুষ সচেতন না। তারা ঈদের ছুটির আমেজের মতো গ্রামে ফিরে যাচ্ছেন গাদাগাদি করে। কিন্তু একবারও ভাবেনি এখানে কেউ আকান্ত থাকতে পারে।

আতঙ্কের প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের এক শীর্ষ কর্মকর্তা ঢাকা টাইমসকে জানান, বিদেশ থেকে ফিরে হোম কোয়ারেন্টাইনে ১৪ দিন না থেকে ব্যাংকে আসা বা ঘুরে বেড়ানো অবশ্যই অন্যদের জন্য আতঙ্কের বিষয়। প্রসাশন কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে কাজ করছেন এটি আরও নিশ্চিত করতে হবে। অন্যথায় ব্যাংকারসহ দেশের মানুষ সহজেই এ ভাইরাসে আক্রান্ত হবে।

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» আড্ডা-অহেতুক ঘোরাফেরা : ফার্মগেটে ২৫ জনকে জরিমানা

» কুমিল্লায় ইয়াবাসহ কারারক্ষী আটক

» আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আরও কঠোর হওয়ার নির্দেশ

» মাশরাফির উদ্যোগে ভ্রাম্যমাণ চিকিৎসা সেবা শুরু

» বিএনপি নেতারা দূর্যোগেও ফায়দা লোটার অপতৎপরতায় লিপ্ত : ওবায়দুল কাদের

» ‘মৃত ব্যক্তির শরীরে করোনাভাইরাস বাঁচতে পারে না, নির্ভয়ে দাফন করুন’

» কাঁচা বাজার ও সুপার শপ সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে বন্ধের নির্দেশ ডিএমপির

» অসহায় মানুষের ঘরে ঘরে খাদ্য পৌঁছে দিচ্ছেন এ্যাড.মিলন এম পি

» দুই হাজার পরিবারের মধ্যে তাহিরপুর কয়লা আমদানিকারক গ্রুপের খাদ্য সহায়তা বিতরন

» হোমনায় পুলিশের সহায়তায় সাশ্রয়ীমূল্যে নিত্যপন্যের ভ্রাম্যমান দোকানের উদ্বোধন 

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

বিদেশফেরতদের জন্য আতঙ্কে ব্যাংকাররা

করোনাভাইরাসের প্রভাব বিশ্বের ১৮৩ দেশের মতো বাংলাদেশেও পড়ছে। গতকাল পর্যন্ত ৩৯ জন আক্রন্ত এবং পাঁচজন মৃত্যুবরণ করেছে এদেশে। সরকার জনসমগম এড়ানো ও বিদেশফেরতদের কোয়ারেন্টাইনে যাওয়া বাধ্যতামূলক করলেও অনেকে মানছে না। এতে করে করোনার ঝুঁকিরা মধ্যে রয়েছে এদেশের মানুষ। বিশেষ করে ব্যাংকারদের ঝুঁকি বা আতঙ্ক বেড়েছে। কারণ সরকার সব সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করলেও ব্যাংক খোলা রেখেছে।

গতকাল বেশকিছু ব্যাংকারদের সঙ্গে কথা বলে এসব জানা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মো. শাহিন হোসেন প্রধান নামে এক কম্পিউটার ব্যবসায়ী গত শুক্রবার সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফিরেছেন। তিনি কম্পিউটার আমদানির জন্য গত এক সপ্তাহ সিঙ্গাপুর অবস্থান করেছেন। দেশে ফিরেই তিনি কোয়ারেন্টাইনে না গিয়ে দিব্যি ঘুরে বেড়ান। এরই ধারাবাহিকতায় গত রবিবার লেনদেন-সংক্রান্ত কাজে সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকে যান শাহিন। সেখানে বৈদেশিক লেনদের জন্য তার পাসপোর্ট বের করলে দ্বায়িত্ব কর্মকর্তা নিশ্চিত হন তিনি সদ্য বিদেশফেরত। এরপর তার সঙ্গে তর্কবিতর্কের এক পর্যায়ে শাখা ব্যবস্থাপক বিষয়টি সমাধান আনেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে শাহিন হোসেন ঢাকা টাইমসকে জানান, ‘ব্যবসায়ী কাজে প্রায় বিদেশে যায়। এরই ধারাবাহিকতায় কিছুদিন আগেও গিয়েছি। গত শুক্রবার দেশে ফিরেছি।’

দেশে ফিরে কোয়ারেন্টাইনে না গিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন কেন জানতে চাইলে তিনি জানান, ‘আমার ব্যবসায়িক বেশকিছু কাজ ব্যাংকে ছিল এ কারণে গিয়েছিলাম। এখন হোম কোয়ারেন্টাইনে আছি। একটু বাসা থেকে বের হয়নি।’

বেশ কয়েকজন ব্যাংকার ঢাকা টাইমসকে জানান, ‘আমরা সরকারি ছুটির মধ্যেও অফিস করব, এতে কোনো আপত্তি নেই। কিন্তু আমরা খুবই আতঙ্কে রয়েছি। কারণ গ্রাহকরা বিদেশ থেকে এসেই ব্যাংকে আসছেন। আবার অনেক ব্যাংকরারও বিদেশ থেকে ফিরে অফিস করছেন। এটা সচেনতার অভাব। সচেনতা না বাড়লে আমরা তথা আমাদের দেশের মানুষ ঝুঁকিতে পড়বেন।’

এদিকে, রাজশাহীর পুঠিয়ায় গত ১৯ মার্চ ভারত থেকে বাংলাদেশে এসে ব্যাংকের কাজ চালিয়ে যাচ্ছিলেন এখন ব্যাংক কর্মকর্তা। অথচ নিয়ম অনুযায়ী তার ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার কথা ছিল। গত সোমবার ওই ব্যাংক কর্মকর্তাকে ব্যাংক থেকে ধরে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠিয়েছে রাজশাহী পুঠিয়া উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুমানা আফরোজ।

সিটি ব্যাংকের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান জানান, দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার চলমান রাখতে আমি ক্লান্তিকালীন সময়েও অফিস করব। দেশের মানুষ অর্থের সংকটে যেন না পড়ে এ জন্য। তবে দেশের জনগণকে সচেতন হতে হবে।

তিনি বলেন, সরকার এ ক্লান্তিকালীন সময়ে দেশের মানুষের স্বার্থে ১০ দিনের ছুটির ব্যবস্থা করেছেন। কিন্তু মঙ্গলবারের চিত্র দেখে মনে হলো এটি ঈদ বা কোনো আনন্দ উৎসবের ছুটি। এখনো মানুষ সচেতন না। তারা ঈদের ছুটির আমেজের মতো গ্রামে ফিরে যাচ্ছেন গাদাগাদি করে। কিন্তু একবারও ভাবেনি এখানে কেউ আকান্ত থাকতে পারে।

আতঙ্কের প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের এক শীর্ষ কর্মকর্তা ঢাকা টাইমসকে জানান, বিদেশ থেকে ফিরে হোম কোয়ারেন্টাইনে ১৪ দিন না থেকে ব্যাংকে আসা বা ঘুরে বেড়ানো অবশ্যই অন্যদের জন্য আতঙ্কের বিষয়। প্রসাশন কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে কাজ করছেন এটি আরও নিশ্চিত করতে হবে। অন্যথায় ব্যাংকারসহ দেশের মানুষ সহজেই এ ভাইরাসে আক্রান্ত হবে।

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com