ফের মুসার অর্থপাচার মামলার প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ পেছালো

মুসা বিন শমসের ওরফে প্রিন্স মুসার বিরুদ্ধে অর্থপাচারের অভিযোগে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের করা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ ফের পেছাল। আগামী ৪ আগস্ট প্রতিবেদন দাখিলের পরবর্তী তারিখ ধার্য করেছেন আদালত।

রোববার (০৭ জুলাই) এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য ছিল। কিন্তু এদিন মামলার তদন্ত সংস্থা প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেনি। এজন্য ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দেবদাস চন্দ্র অধিকারী প্রতিবেদন দাখিলের নতুন এ তারিখ ঠিক করেন।

এরা আগে গত ৩০ এপ্রিল আদালত তদন্তকারী কর্মকর্তাকে ২৯ মে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল। কিন্তু ২৯ মে প্রতিবেদন জমা না দেওয়ায় ৭ জুলাই নতুন দিন ধার্য করা হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের ২১ মার্চ মুসার ছেলের শ্বশুর বাড়ি থেকে শুল্কফাঁকির একটি গাড়ি উদ্ধার করেন শুল্ক গোয়েন্দারা। এরপর মুসাকে কাকরাইলে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের কার্যালয়ে তলব করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে মুসা বিন শমসের লিখিতভাবে জানান, সুইস ব্যাংকে তার ৯৬ হাজার কোটি টাকা গচ্ছিত আছে। তবে তিনি এই টাকার কোনো ব্যাংক হিসাব বা বৈধ উৎস দেখাতে পারেননি।

পরে তদন্ত ও জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে রাজস্ব বিভাগের কাছে মুসার বিরুদ্ধে শুল্কফাঁকি ও অর্থপাচারের অভিযোগে মামলার অনুমতি চাওয়া হয়। সেই অনুমতি পাওয়ার পর ওই বছরের ৩১ জুলাই শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা (এআরও) মো. জাকির হোসেন গুলশান থানায় মুদ্রাপাচার প্রতিরোধ আইনে ওই মামলা দায়ের করেন। মামলায় মুসা ছাড়াও আসামি করা হয় আরো তিনজনকে। তারা হলেন- মো. ফারুক-উজ-জামান চৌধুরী (যার নামে গাড়ি নিবন্ধিত), বিআরটিএ ভোলা জেলা সার্কেলের সহকারী পরিচালক প্রকৌশলী আইয়ুব আলী আনছারী ও মেসার্স অটো ডিফাইন নামে গাড়ি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের মালিক মো. ওয়াহিদুর রহমান।

পূর্বপশ্চিমবিডি

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ভারতে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে নিষিদ্ধ হল মোবাইল

» রাবি শিক্ষার্থীর ওপর দুর্বৃত্তদের হামলা, প্রতিবাদে মহাসড়ক অবরোধ

» মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সীমিত বলেই নৃশংস ঘটনা ঘটছে

» নতুন মিশনে পপি

» নিষিদ্ধ জালে মাছ শিকার

» শাপলার বিকি বিল

» জুড়ীর গৌরীপুর সড়কের কাজে অনিয়মের অভিযোগ

» কুলাউড়া সদর ইউনিয়ন দেড় যুগেও চালু হয়নি নিজস্ব ভবন

» প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও প্রতিবেদকের বক্তব্য

» জমি দখল করাই তাদের কাজ

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

ফের মুসার অর্থপাচার মামলার প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ পেছালো

মুসা বিন শমসের ওরফে প্রিন্স মুসার বিরুদ্ধে অর্থপাচারের অভিযোগে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের করা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ ফের পেছাল। আগামী ৪ আগস্ট প্রতিবেদন দাখিলের পরবর্তী তারিখ ধার্য করেছেন আদালত।

রোববার (০৭ জুলাই) এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য ছিল। কিন্তু এদিন মামলার তদন্ত সংস্থা প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেনি। এজন্য ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দেবদাস চন্দ্র অধিকারী প্রতিবেদন দাখিলের নতুন এ তারিখ ঠিক করেন।

এরা আগে গত ৩০ এপ্রিল আদালত তদন্তকারী কর্মকর্তাকে ২৯ মে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল। কিন্তু ২৯ মে প্রতিবেদন জমা না দেওয়ায় ৭ জুলাই নতুন দিন ধার্য করা হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের ২১ মার্চ মুসার ছেলের শ্বশুর বাড়ি থেকে শুল্কফাঁকির একটি গাড়ি উদ্ধার করেন শুল্ক গোয়েন্দারা। এরপর মুসাকে কাকরাইলে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের কার্যালয়ে তলব করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে মুসা বিন শমসের লিখিতভাবে জানান, সুইস ব্যাংকে তার ৯৬ হাজার কোটি টাকা গচ্ছিত আছে। তবে তিনি এই টাকার কোনো ব্যাংক হিসাব বা বৈধ উৎস দেখাতে পারেননি।

পরে তদন্ত ও জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে রাজস্ব বিভাগের কাছে মুসার বিরুদ্ধে শুল্কফাঁকি ও অর্থপাচারের অভিযোগে মামলার অনুমতি চাওয়া হয়। সেই অনুমতি পাওয়ার পর ওই বছরের ৩১ জুলাই শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা (এআরও) মো. জাকির হোসেন গুলশান থানায় মুদ্রাপাচার প্রতিরোধ আইনে ওই মামলা দায়ের করেন। মামলায় মুসা ছাড়াও আসামি করা হয় আরো তিনজনকে। তারা হলেন- মো. ফারুক-উজ-জামান চৌধুরী (যার নামে গাড়ি নিবন্ধিত), বিআরটিএ ভোলা জেলা সার্কেলের সহকারী পরিচালক প্রকৌশলী আইয়ুব আলী আনছারী ও মেসার্স অটো ডিফাইন নামে গাড়ি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের মালিক মো. ওয়াহিদুর রহমান।

পূর্বপশ্চিমবিডি

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com