জাতীয় চিড়িয়াখানায় বাঘ-বাঘিনীর প্রেম

জাতীয় চিড়িয়াখানায় দর্শকের নজর কাড়ছে যুগল বাঘ কদম-শিউলির প্রণয়। রয়েল বেঙ্গল টাইগারের নতুন যুগল এ দুই বন্যপ্রাণী। একেবারে পাশাপাশি থাকার কারণে বাঘ কদম আর বাঘিনী শিউলির মধ্যে অন্যরকম এক সখ্যতা গড়ে উঠেছে। দুই প্রাণীরই নামকরণ করা হয়েছে ফুলের নামে। চলতি বছরের জুলাই মাসে সাউথ আফ্রিকার পৃথক দুটি প্রদেশ থেকে দরপত্রের মাধ্যমে এদের কেনা হয়। বর্তমানে এই বাঘ ও বাঘিনীর বয়স সাড়ে তিন বছর। বাংলাদেশে আনার পর এদের রাজধানীর মিরপুর জাতীয় চিড়িয়াখানার কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়। এরপর কোয়ারেন্টাইন পিরিয়ড শেষ হলে গত সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি এদের পাশাপাশি খাঁচায় রাখা হয়। ফলে এদের মধ্যে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। বিষয়টি চিড়িয়াখানার কিউরেটর ডা. এস এম নজরুল ইসলামের নজরে আসে। তিনি তখন সপ্তাহের রবিবার সারা দিন এদের এক খাঁচায় রাখেন। এ বাঘ যুগলের দেখভালের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে জু-কিপার আবদুর রশিদ নামে এক কর্মচারীকে। চিড়িয়াখানা সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কদম ও শিউলি একই খাঁচার দুটো আলাদা কক্ষে থাকে। চিড়িয়াখানার প্রধান আকর্ষণ এখন এই দুই বাঘ। এদের প্রণয় দৃশ্য দর্শকদের দারুণ খোরাক জোগাচ্ছে। তাছাড়া দুই বাঘও বেশ আমোদে। খেলা আর খুনসুটিতে মেতে থাকছে সারাক্ষণ। দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা খাঁচার মাঝখানের দরজা খুলে দেওয়ার জন্য কাছে আসতেই তাদের দিকে ছুটে আসে বাঘ দুটো। তখন খাঁচা ঘিরে দাঁড়ানো দর্শকদের মধ্যে থাকে বিস্ময় আর আতঙ্ক। তারা রুদ্ধশ্বাসে ভাবতে থাকেন- এই বুঝি কর্মচারীর হাত কামড়ে ছিঁড়ে নিল! কিন্তু তেমন কিছুই ঘটে না। বরং দেখা যায় দুই বাঘই দরজা খুলে দেওয়ার জন্য কর্মচারীর হাত চাটতে থাকে, যেন তাকে খুশি করতে চায়। গতকাল জু-কিপার রশিদ বলেন, ‘বাঘ দুটো খুব মিশুক। সারাক্ষণই খেলায় ব্যস্ত থাকে। একটি আরেকটির সঙ্গে এমনভাবে খুনসুটি করে যে, দেখলে মনে হয় মারামারি করছে। কিন্তু আসলে এসব ওদের ভাব-বিনিময়। অনেকটা প্রেম করার মতো।’ সরেজমিন দেখা গেছে, বেলা ১১টায় প্রায় দেড় হাজার দর্শক ভিড় করেছেন কদম-শিউলির প্রণয় দেখতে। দর্শকদের ভিড় বাড়তে থাকলে হঠাৎ তড়াক করে লাফ দিয়ে ওঠে শিউলি। লেজ তুলে খাঁচার বাইরে প্রস্রাব করে দেয়। মুহূর্তে খাঁচার সামনেটা ফাঁকা হয়ে যায়। দর্শকের মাঝে হুল্লোড় পড়ে যায়।

চিড়িয়াখানার এক কর্মী বলেন, বাঘ এভাবে নিজের সীমানা নির্ধারণ করে। বুঝিয়ে দেয় ওই এলাকায় অন্য কারও প্রবেশ নিষেধ। বাঘ দুটো এ সময় মজা করতে থাকে। দর্শক ভিড় করে দেখেন। পুরুষ বাঘটি চার পা আকাশের দিকে তুলে দিয়ে ডিগবাজি খায়, আর তার ওপর দিয়ে লাফিয়ে যায় বাঘিনী। আবার কিছুক্ষণ পর বাঘটি উঠে গিয়ে ঘাড় কামড়ে ধরে বাঘিনীর। তবে এ কামড় অন্যকিছু নয়, আদরের, সোহাগের।বাংলাদেশ প্রতিদিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» বিজয় মানে ১৬ই ডিসেম্বর

» বাঙ্গালী জাতির জন্য বানিয়াচঙ্গ উপজেলাবাসী জন্য এক কলঙ্কজনক অধ্যায় বানিয়াচঙ্গ পল্লী বিদ্যুৎ অফিস :: স্থানীয়দের মধ্যে ক্ষোভ

» চলচ্চিত্রে মুক্তিযুদ্ধ

» বরগুনায় গণপূর্তের জমিতে দরপত্র ছাড়াই পৌরসভার সড়ক নির্মাণ

» উঠে আসছে না নতুন নেতৃত্ব কেন্দ্রে কর্তৃত্ব হারাচ্ছে সিলেট আওয়ামী লীগ

» মুক্তিযুদ্ধের অবিস্মরণীয় স্মৃতি

» মহান বিজয় দিবস আজ

» বিজয়ের স্মৃতি ও বঙ্গবন্ধু

» টানটান উত্তেজনা আওয়ামী লীগে

» ‘মুজিববর্ষে’ বাজারে আসছে ২০০ টাকার নোট

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

জাতীয় চিড়িয়াখানায় বাঘ-বাঘিনীর প্রেম

জাতীয় চিড়িয়াখানায় দর্শকের নজর কাড়ছে যুগল বাঘ কদম-শিউলির প্রণয়। রয়েল বেঙ্গল টাইগারের নতুন যুগল এ দুই বন্যপ্রাণী। একেবারে পাশাপাশি থাকার কারণে বাঘ কদম আর বাঘিনী শিউলির মধ্যে অন্যরকম এক সখ্যতা গড়ে উঠেছে। দুই প্রাণীরই নামকরণ করা হয়েছে ফুলের নামে। চলতি বছরের জুলাই মাসে সাউথ আফ্রিকার পৃথক দুটি প্রদেশ থেকে দরপত্রের মাধ্যমে এদের কেনা হয়। বর্তমানে এই বাঘ ও বাঘিনীর বয়স সাড়ে তিন বছর। বাংলাদেশে আনার পর এদের রাজধানীর মিরপুর জাতীয় চিড়িয়াখানার কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়। এরপর কোয়ারেন্টাইন পিরিয়ড শেষ হলে গত সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি এদের পাশাপাশি খাঁচায় রাখা হয়। ফলে এদের মধ্যে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। বিষয়টি চিড়িয়াখানার কিউরেটর ডা. এস এম নজরুল ইসলামের নজরে আসে। তিনি তখন সপ্তাহের রবিবার সারা দিন এদের এক খাঁচায় রাখেন। এ বাঘ যুগলের দেখভালের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে জু-কিপার আবদুর রশিদ নামে এক কর্মচারীকে। চিড়িয়াখানা সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কদম ও শিউলি একই খাঁচার দুটো আলাদা কক্ষে থাকে। চিড়িয়াখানার প্রধান আকর্ষণ এখন এই দুই বাঘ। এদের প্রণয় দৃশ্য দর্শকদের দারুণ খোরাক জোগাচ্ছে। তাছাড়া দুই বাঘও বেশ আমোদে। খেলা আর খুনসুটিতে মেতে থাকছে সারাক্ষণ। দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা খাঁচার মাঝখানের দরজা খুলে দেওয়ার জন্য কাছে আসতেই তাদের দিকে ছুটে আসে বাঘ দুটো। তখন খাঁচা ঘিরে দাঁড়ানো দর্শকদের মধ্যে থাকে বিস্ময় আর আতঙ্ক। তারা রুদ্ধশ্বাসে ভাবতে থাকেন- এই বুঝি কর্মচারীর হাত কামড়ে ছিঁড়ে নিল! কিন্তু তেমন কিছুই ঘটে না। বরং দেখা যায় দুই বাঘই দরজা খুলে দেওয়ার জন্য কর্মচারীর হাত চাটতে থাকে, যেন তাকে খুশি করতে চায়। গতকাল জু-কিপার রশিদ বলেন, ‘বাঘ দুটো খুব মিশুক। সারাক্ষণই খেলায় ব্যস্ত থাকে। একটি আরেকটির সঙ্গে এমনভাবে খুনসুটি করে যে, দেখলে মনে হয় মারামারি করছে। কিন্তু আসলে এসব ওদের ভাব-বিনিময়। অনেকটা প্রেম করার মতো।’ সরেজমিন দেখা গেছে, বেলা ১১টায় প্রায় দেড় হাজার দর্শক ভিড় করেছেন কদম-শিউলির প্রণয় দেখতে। দর্শকদের ভিড় বাড়তে থাকলে হঠাৎ তড়াক করে লাফ দিয়ে ওঠে শিউলি। লেজ তুলে খাঁচার বাইরে প্রস্রাব করে দেয়। মুহূর্তে খাঁচার সামনেটা ফাঁকা হয়ে যায়। দর্শকের মাঝে হুল্লোড় পড়ে যায়।

চিড়িয়াখানার এক কর্মী বলেন, বাঘ এভাবে নিজের সীমানা নির্ধারণ করে। বুঝিয়ে দেয় ওই এলাকায় অন্য কারও প্রবেশ নিষেধ। বাঘ দুটো এ সময় মজা করতে থাকে। দর্শক ভিড় করে দেখেন। পুরুষ বাঘটি চার পা আকাশের দিকে তুলে দিয়ে ডিগবাজি খায়, আর তার ওপর দিয়ে লাফিয়ে যায় বাঘিনী। আবার কিছুক্ষণ পর বাঘটি উঠে গিয়ে ঘাড় কামড়ে ধরে বাঘিনীর। তবে এ কামড় অন্যকিছু নয়, আদরের, সোহাগের।বাংলাদেশ প্রতিদিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com