আল কোরআনের ফজিলত ও মর্যাদা

আল কোরআন সৃষ্টিজগতের স্রষ্টা আল্লাহর পক্ষ থেকে নাজিল হয়েছে। আল্লাহ বলেন, ‘এ কিতাব অবতীর্ণ হয়েছে পরাক্রমশালী, প্রজ্ঞাময় আল্লাহর পক্ষ থেকে।’ সূরা জুমার, আয়াত ১। আল কোরআন পূর্ববর্তী কিতাবের সত্যয়নকারী। ‘আর আমি তোমার প্রতি কিতাব নাজিল করেছি যথাযথভাবে, এর আগের কিতাবের সত্যয়নকারী ও এর ওপর তদারককারীরূপে।’ সূরা মায়েদা, আয়াত ৪৮। কোরআন লওহে মাহফুজে লিপিবদ্ধ। কোরআনুল কারিমে বলা হয়েছে, ‘বরং এটা মহান কোরআন, লওহে মাহফুজে লিপিবদ্ধ।’ সূরা বুরুজ, আয়াত ২১-২২। অপবিত্র অবস্থায় কোরআন স্পর্শ করা নিষেধ। কোরআনুল কারিমে বলা হয়েছে, ‘নিশ্চয়ই এটা সম্মানিত কোরআন, যা আছে এক গোপন কিতাবে, যারা পাক-পবিত্র, তারা ছাড়া অন্য কেউ একে স্পর্শ করবে না, এটা সৃষ্টিকুলের রবের পক্ষ থেকে অবতীর্ণ।’ সূরা ওয়াকিয়া, আয়াত ৭৭-৮০।

কোরআন শব্দটি কারউন শব্দ থেকে নিষ্পন্ন হয়েছে। এর ধাতুগত অর্থ দুটি। ১. জমা করা। এর তাৎপর্য হলো এ কিতাবের মধ্যে অতীতের সমস্ত আসমানি কিতাবের মূল শিক্ষা একত্রিত হয়েছে। এর মধ্যেই পৃথিবীর প্রলয় দিন অবধি মানবজাতির প্রয়োজনীয় শিক্ষা ও হেদায়াত সন্নিবেশিত হয়েছে। দেখুন আল মুফরাদাতু ফি গারিবিল কোরআন, ৪১১ পৃষ্ঠা। ২. বার বার পাঠ করা বা পঠিত গ্রন্থ। এই পবিত্র কিতাবটি কোটি কোটি মানুষ প্রতিনিয়ত অধ্যয়ন করছে। পাঠ করছে। এত অধিক পঠিত কিতাব দুনিয়ায় আর একটিও নেই। দেখুন আল ইতকান ফি উলুমিল কোরআন, প্রথম খন্ড, ৫১ পৃষ্ঠা।

আল কোরআন হলো মানুষের শ্রেষ্ঠত্বের মাপকাঠি। হজরত উসমান ইবনে আফফান (রা.) থেকে বর্ণিত। রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘তোমাদের মাঝে ওই ব্যক্তি সর্বোত্তম, যে কোরআন শেখে ও অন্যকে শিক্ষা দেয়।’ বুখারি, তিরমিজি। হজরত জাবির ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) থেকে বর্ণিত। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘সর্বশ্রেষ্ঠ বাণী হলো আল্লাহর বাণী। আর সর্বশ্রেষ্ঠ পথ হলো মুহাম্মদের দেখানো নুরানি পথ।’ বুখারি, মুসলিম। কোরআনের প্রতিটি হরফ পাঠ করলে ১০টি নেকি লাভ করা যায়। হজরত ইবনে মাসউদ (রা.) থেকে বর্ণিত। রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর কিতাবের একটি হরফ পাঠ করল, এতে সে ১০টি নেকির অধিকারী। (তিনি আরও বলেন,) আমি বলছি না যে, আলিফ-লাম-মিম একটি হরফ। বরং আলিফ একটি হরফ, লাম একটি হরফ এবং মিম একটি হরফ।’ তিরমিজি, মুসতাদরাক আলাস সহিহাইন।

আল কোরআন তিলাওয়াতের এত ফজিলত হওয়ার কারণে অতীতের উম্মতে মুহাম্মদী বেশি বেশি কোরআন তিলাওয়াত করত। হজরত উসমান (রা.) তিন দিনে এক খতম কোরআন পড়তেন। ইমাম বুখারি (রহ.)ও তিন দিনে এক খতম কোরআন পড়তেন বলে জীবনীকাররা উল্লেখ করেছেন। আমাদের মাজহাবের ইমাম হজরত আবু হানিফা (রহ.) প্রতি রাতে এক খতম কোরআন পড়তেন বলে বর্ণিত আছে।

আল কোরআন পাঠকারীর পিতা-মাতাকে কিয়ামতের ময়দানে হাশরে নুরের টুপি পরানো হবে। হজরত মুয়াজ আল জুহানি (রা.) থেকে বর্ণিত। রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি কোরআন পড়ে এবং এর ওপর আমল করে, তার মাতা-পিতাকে কিয়ামতের দিন এমন একটি নুরের টুপি পরানো হবে, যার জ্যোতি দুনিয়ার সূর্যের জ্যোতি অপেক্ষা অধিক হবে।’ আবু দাউদ, মুসতাদরাক আলাস সহিহাইন।

আরেকটি হাদিস থেকে জানা যায়, কোরআন তার পাঠকারীর জন্য কিয়ামতের দিন সুপারিশ করবে। তাই রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের বেশি বেশি কোরআন তিলাওয়াতের নির্দেশ দিয়েছেন। আবু উমামা আল বাহিলি (রা.) থেকে বর্ণিত। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘তোমরা কোরআন তিলাওয়াত কর। কেননা, কিয়ামতের দিন কোরআন তার তিলাওয়াতকারীর জন্য সুপারিশ করবে।’ মুসলিম, মুসনাদে আহমাদ। আমাদের প্রত্যেকের অবশ্যকর্তব্য নিয়মিত কোরআন পড়া, আল কোরআনের চর্চা করা। নয় তো আমাদের অন্তর বিরান ঘরের মতো হয়ে যাবে।

লেখক : খতিব, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর আবাসিক এলাকা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, ঢাকা। বিডি-প্রতিদিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» গাংগিনারপাড় এলাকা ও স্টেশন রোডে অভিযান মামলাঃ ৫ টি জরিমানাঃ ১৬ হাজার

» মা হচ্ছেন ‘কাঁটা লাগা’ তারকা শেফালি

» প্রকাশ হল আইপিএল সূচি

» দুটি আইনে রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষর

» ২১ ফেব্রুয়ারি জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত থাকবে

» বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী

» রাজধানীতে ট্রেনের ধাক্কায় দুই যুবক নিহত

» কারাগারে ধারণক্ষমতা ৪৬ হাজার, কারাবন্দি ৮৮ হাজার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

» মঙ্গলবার থেকে শহীদ মিনারে কোনো অনুষ্ঠান করা যাবে না

» রাজগঞ্জে ওয়াজ মাহফিল থেকে মামুন নামের এক প্রধান বক্তাকে আটক করেছে পুলিশ

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

আল কোরআনের ফজিলত ও মর্যাদা

আল কোরআন সৃষ্টিজগতের স্রষ্টা আল্লাহর পক্ষ থেকে নাজিল হয়েছে। আল্লাহ বলেন, ‘এ কিতাব অবতীর্ণ হয়েছে পরাক্রমশালী, প্রজ্ঞাময় আল্লাহর পক্ষ থেকে।’ সূরা জুমার, আয়াত ১। আল কোরআন পূর্ববর্তী কিতাবের সত্যয়নকারী। ‘আর আমি তোমার প্রতি কিতাব নাজিল করেছি যথাযথভাবে, এর আগের কিতাবের সত্যয়নকারী ও এর ওপর তদারককারীরূপে।’ সূরা মায়েদা, আয়াত ৪৮। কোরআন লওহে মাহফুজে লিপিবদ্ধ। কোরআনুল কারিমে বলা হয়েছে, ‘বরং এটা মহান কোরআন, লওহে মাহফুজে লিপিবদ্ধ।’ সূরা বুরুজ, আয়াত ২১-২২। অপবিত্র অবস্থায় কোরআন স্পর্শ করা নিষেধ। কোরআনুল কারিমে বলা হয়েছে, ‘নিশ্চয়ই এটা সম্মানিত কোরআন, যা আছে এক গোপন কিতাবে, যারা পাক-পবিত্র, তারা ছাড়া অন্য কেউ একে স্পর্শ করবে না, এটা সৃষ্টিকুলের রবের পক্ষ থেকে অবতীর্ণ।’ সূরা ওয়াকিয়া, আয়াত ৭৭-৮০।

কোরআন শব্দটি কারউন শব্দ থেকে নিষ্পন্ন হয়েছে। এর ধাতুগত অর্থ দুটি। ১. জমা করা। এর তাৎপর্য হলো এ কিতাবের মধ্যে অতীতের সমস্ত আসমানি কিতাবের মূল শিক্ষা একত্রিত হয়েছে। এর মধ্যেই পৃথিবীর প্রলয় দিন অবধি মানবজাতির প্রয়োজনীয় শিক্ষা ও হেদায়াত সন্নিবেশিত হয়েছে। দেখুন আল মুফরাদাতু ফি গারিবিল কোরআন, ৪১১ পৃষ্ঠা। ২. বার বার পাঠ করা বা পঠিত গ্রন্থ। এই পবিত্র কিতাবটি কোটি কোটি মানুষ প্রতিনিয়ত অধ্যয়ন করছে। পাঠ করছে। এত অধিক পঠিত কিতাব দুনিয়ায় আর একটিও নেই। দেখুন আল ইতকান ফি উলুমিল কোরআন, প্রথম খন্ড, ৫১ পৃষ্ঠা।

আল কোরআন হলো মানুষের শ্রেষ্ঠত্বের মাপকাঠি। হজরত উসমান ইবনে আফফান (রা.) থেকে বর্ণিত। রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘তোমাদের মাঝে ওই ব্যক্তি সর্বোত্তম, যে কোরআন শেখে ও অন্যকে শিক্ষা দেয়।’ বুখারি, তিরমিজি। হজরত জাবির ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) থেকে বর্ণিত। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘সর্বশ্রেষ্ঠ বাণী হলো আল্লাহর বাণী। আর সর্বশ্রেষ্ঠ পথ হলো মুহাম্মদের দেখানো নুরানি পথ।’ বুখারি, মুসলিম। কোরআনের প্রতিটি হরফ পাঠ করলে ১০টি নেকি লাভ করা যায়। হজরত ইবনে মাসউদ (রা.) থেকে বর্ণিত। রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর কিতাবের একটি হরফ পাঠ করল, এতে সে ১০টি নেকির অধিকারী। (তিনি আরও বলেন,) আমি বলছি না যে, আলিফ-লাম-মিম একটি হরফ। বরং আলিফ একটি হরফ, লাম একটি হরফ এবং মিম একটি হরফ।’ তিরমিজি, মুসতাদরাক আলাস সহিহাইন।

আল কোরআন তিলাওয়াতের এত ফজিলত হওয়ার কারণে অতীতের উম্মতে মুহাম্মদী বেশি বেশি কোরআন তিলাওয়াত করত। হজরত উসমান (রা.) তিন দিনে এক খতম কোরআন পড়তেন। ইমাম বুখারি (রহ.)ও তিন দিনে এক খতম কোরআন পড়তেন বলে জীবনীকাররা উল্লেখ করেছেন। আমাদের মাজহাবের ইমাম হজরত আবু হানিফা (রহ.) প্রতি রাতে এক খতম কোরআন পড়তেন বলে বর্ণিত আছে।

আল কোরআন পাঠকারীর পিতা-মাতাকে কিয়ামতের ময়দানে হাশরে নুরের টুপি পরানো হবে। হজরত মুয়াজ আল জুহানি (রা.) থেকে বর্ণিত। রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি কোরআন পড়ে এবং এর ওপর আমল করে, তার মাতা-পিতাকে কিয়ামতের দিন এমন একটি নুরের টুপি পরানো হবে, যার জ্যোতি দুনিয়ার সূর্যের জ্যোতি অপেক্ষা অধিক হবে।’ আবু দাউদ, মুসতাদরাক আলাস সহিহাইন।

আরেকটি হাদিস থেকে জানা যায়, কোরআন তার পাঠকারীর জন্য কিয়ামতের দিন সুপারিশ করবে। তাই রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের বেশি বেশি কোরআন তিলাওয়াতের নির্দেশ দিয়েছেন। আবু উমামা আল বাহিলি (রা.) থেকে বর্ণিত। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘তোমরা কোরআন তিলাওয়াত কর। কেননা, কিয়ামতের দিন কোরআন তার তিলাওয়াতকারীর জন্য সুপারিশ করবে।’ মুসলিম, মুসনাদে আহমাদ। আমাদের প্রত্যেকের অবশ্যকর্তব্য নিয়মিত কোরআন পড়া, আল কোরআনের চর্চা করা। নয় তো আমাদের অন্তর বিরান ঘরের মতো হয়ে যাবে।

লেখক : খতিব, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর আবাসিক এলাকা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, ঢাকা। বিডি-প্রতিদিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সাবেক ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বিশেষ প্রতিনিধি:মাকসুদা লিসা

 

 

 

১১২৫ পূর্ব মনিপুর , মিরপুর -২ ঢাকা -১২১৬

আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন:ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com