আর্থিক সংকটে থেমে যাচ্ছে মীমের উচ্চ শিক্ষার স্বপ্ন

নিজের লেখাপড়ার ফাঁকে গ্রামে গ্রামে ঘুরে প্রাইভেট পড়িয়ে শিক্ষাযুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছেন মেধাবী শিক্ষার্থী মানসুরা মীম। তিনি এ বছর এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হন।

মীম পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার ধুলাসার ইউনিয়নের চর চাপলী গ্রামের রিকশাচালক নাসির হাওলাদারে মেয়ে। প্রাইভেট পড়িয়ে জমানো টাকা দিয়ে আলহাজ জালালউদ্দিন কলেজে এইচএসসিতে ভর্তি হলেও আর্থিক সংকটে উচ্চ শিক্ষার স্বপ্ন অধরাই থেকে যাচ্ছে তার।

স্থানীয় ও পরিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মীমের ঘরে অসুস্থ মা জাকিয়া বেগম মৃত্যুশয্যায়। প্রায় দুই মাস হাসপাতালে ভর্তি রেখে চিকিৎসা করানো হলেও আর্থিক সংকটে এখন ঘরে বসে কোনো রকম চিকিৎসা চলছে। বাবা রিকশা চালিয়ে যা উপার্জন করেন তা দিয়ে অসুস্থ মায়ের ওষুধ, দু’মুঠো ভাত যোগাড় ও পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ুয়া ভাই আলাইহীমের লেখাপড়ার খরচ চালিয়ে মীমকে কলেজে পড়ানো তার পক্ষে অসম্ভব হয়ে পড়েছে।
মাত্র ১০ বছর বয়সে তার সহপাঠীরা যখন বই খাতা নিয়ে স্কুলে যেতো, ঠিক সেই সময়ে তাকে যেতে হয়েছে সুতার কারখানায়। দিনরাত দুই বছর সুতার কারখানায় কাজ করার ফলে ৬ষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণিতে পড়া হয়নি তার। ক্ষুধা ও দারিদ্রতার সাথে যুদ্ধ করে দুই বছরের জমানো টাকা দিয়ে পরিবারের অসম্মতিতে অষ্টম শ্রেণিতে ভর্তি হয় মীম। এরপর সে এ বছর এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়। কিন্তু আর্থিক সংকটের কারণে মেধাবী এ মীমের স্বপ্ন হয়তো থেমে যাবে উচ্চ শিক্ষা শুরুর মাঝ সিড়িতে।

শিক্ষার্থী মানসুরা মীম কান্না ভেজা কণ্ঠে জানান, পড়াশুনার অদম্য ইচ্ছা না থাকলে হয়তো এখন আমি কোনো কারখানার শ্রমিক থাকতাম। শিক্ষা জীবনের দুই বছর ঝরে গেছে কারখানায় কাজ করে। ইচ্ছে আছে ডাক্তার হওয়ার। কিন্তু কে পূরণ করবে আমার স্বপ্ন। আমার বাবা রিকশা চালায়, মা ঘরে অসুস্থ, মৃত্যুশয্যায়। কলেজে ভর্তি হয়েছি কিন্তু বই, খাতা কিনতে পারিনি।

মীমের মা জাকিয়া বেগম বলেন, মীমের মতো এতো কষ্ট করে কেউ পড়বে না। ক্লাস ফাইভ পাশ করার পর সিক্সে ভর্তি করাতে পারিনি টাকার অভাবে। দুই বছর ঢাকায় সুতার কারখানার কাজ করে ১০ বছর বয়সে সংসারের হাল ধরেছে। এতো কষ্ট করেও ভালোভাবে পাশ করেছে।

চাপলী গ্রামের স্কুল শিক্ষক মো. নুরুন্নবী জানান, মীম খুবই মেধাবী। কিন্তু ওর পরিবারে ঠিকমতো চুলো জ্বলে না।

বিডি প্রতিদিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» সিরাজগঞ্জের তাড়াশে ৫০০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার

» কামরাঙ্গীরচর খালে ময়লা ফেলে দখলের পাঁয়তারা

» প্রাথমিক শিক্ষকদের সমাবেশে পুলিশের বাধা

» আবরারের রুমমেট মিজান পাঁচদিনের রিমান্ডে

» রাঙ্গামাটিতে বিএনপি নেতাকে গুলি করে হত্যা

» দক্ষিণ আফ্রিকায় ডাকাতের দেয়া আগুনে বাংলাদেশির মৃত্যু

» বৃহস্পতিবার আজারবাইজান যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

» সাভারে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে কিশোর গ্রেপ্তার

» পবিত্র আখেরি চাহার শোম্বা আজ

» ৯ কাউন্সিলরকে ডিএনসিসির শোকজ

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

আর্থিক সংকটে থেমে যাচ্ছে মীমের উচ্চ শিক্ষার স্বপ্ন

নিজের লেখাপড়ার ফাঁকে গ্রামে গ্রামে ঘুরে প্রাইভেট পড়িয়ে শিক্ষাযুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছেন মেধাবী শিক্ষার্থী মানসুরা মীম। তিনি এ বছর এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হন।

মীম পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার ধুলাসার ইউনিয়নের চর চাপলী গ্রামের রিকশাচালক নাসির হাওলাদারে মেয়ে। প্রাইভেট পড়িয়ে জমানো টাকা দিয়ে আলহাজ জালালউদ্দিন কলেজে এইচএসসিতে ভর্তি হলেও আর্থিক সংকটে উচ্চ শিক্ষার স্বপ্ন অধরাই থেকে যাচ্ছে তার।

স্থানীয় ও পরিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মীমের ঘরে অসুস্থ মা জাকিয়া বেগম মৃত্যুশয্যায়। প্রায় দুই মাস হাসপাতালে ভর্তি রেখে চিকিৎসা করানো হলেও আর্থিক সংকটে এখন ঘরে বসে কোনো রকম চিকিৎসা চলছে। বাবা রিকশা চালিয়ে যা উপার্জন করেন তা দিয়ে অসুস্থ মায়ের ওষুধ, দু’মুঠো ভাত যোগাড় ও পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ুয়া ভাই আলাইহীমের লেখাপড়ার খরচ চালিয়ে মীমকে কলেজে পড়ানো তার পক্ষে অসম্ভব হয়ে পড়েছে।
মাত্র ১০ বছর বয়সে তার সহপাঠীরা যখন বই খাতা নিয়ে স্কুলে যেতো, ঠিক সেই সময়ে তাকে যেতে হয়েছে সুতার কারখানায়। দিনরাত দুই বছর সুতার কারখানায় কাজ করার ফলে ৬ষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণিতে পড়া হয়নি তার। ক্ষুধা ও দারিদ্রতার সাথে যুদ্ধ করে দুই বছরের জমানো টাকা দিয়ে পরিবারের অসম্মতিতে অষ্টম শ্রেণিতে ভর্তি হয় মীম। এরপর সে এ বছর এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়। কিন্তু আর্থিক সংকটের কারণে মেধাবী এ মীমের স্বপ্ন হয়তো থেমে যাবে উচ্চ শিক্ষা শুরুর মাঝ সিড়িতে।

শিক্ষার্থী মানসুরা মীম কান্না ভেজা কণ্ঠে জানান, পড়াশুনার অদম্য ইচ্ছা না থাকলে হয়তো এখন আমি কোনো কারখানার শ্রমিক থাকতাম। শিক্ষা জীবনের দুই বছর ঝরে গেছে কারখানায় কাজ করে। ইচ্ছে আছে ডাক্তার হওয়ার। কিন্তু কে পূরণ করবে আমার স্বপ্ন। আমার বাবা রিকশা চালায়, মা ঘরে অসুস্থ, মৃত্যুশয্যায়। কলেজে ভর্তি হয়েছি কিন্তু বই, খাতা কিনতে পারিনি।

মীমের মা জাকিয়া বেগম বলেন, মীমের মতো এতো কষ্ট করে কেউ পড়বে না। ক্লাস ফাইভ পাশ করার পর সিক্সে ভর্তি করাতে পারিনি টাকার অভাবে। দুই বছর ঢাকায় সুতার কারখানার কাজ করে ১০ বছর বয়সে সংসারের হাল ধরেছে। এতো কষ্ট করেও ভালোভাবে পাশ করেছে।

চাপলী গ্রামের স্কুল শিক্ষক মো. নুরুন্নবী জানান, মীম খুবই মেধাবী। কিন্তু ওর পরিবারে ঠিকমতো চুলো জ্বলে না।

বিডি প্রতিদিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com