আখাউড়ায় নির্ভয়ে চলে জুয়া

নির্ভয়ে জুয়া খেলা চলছে আখাউড়ায়। থানার পাশেই জমজমাট এই জুয়ার আসর। ঢাকায় ক্যাসিনোতে অভিযান, এত তোলপাড়ে এখানকার জুয়াড়িদের কোনো ডরভয় স্পর্শ করেনি। এ ছাড়াও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্নস্থানে রয়েছে জুয়ার আসর। আছে প্রভাবশালী
জুয়াড়ি। সদরের সংসদ সদস্য র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী জেলা শহরে দুটি জুয়ার আসরের তথ্য দেন ৫ই সেপ্টেম্বর পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলনে তার বক্তৃতায়। বিশ্বরোড এলাকায় রশিদ মার্কেট আর শহরের কে দাশ মোড়ের পেয়ারা টাওয়ারে জুয়া খেলা হয় জানিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে তৎপর হতে বলেন তিনি। এরপরই নড়েচড়ে বসে সদরের পুলিশ।

অভিযানও চালায় সেখানে। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সেলিম উদ্দিন বলেছেন- ওই দুটি জুয়ার আসরে তারা অভিযান চালিয়েছেন। কিন্তু রশিদ মার্কেটের আসরে কাউকে পাওয়া যায়নি। পিয়ারা মিয়া টাওয়ারেও সাদা পোশাকে পুলিশ নজর রাখছে। শহরের এক প্রভাবশালী জুয়ারী উত্তর পৈরতলায় তার বাড়িতে সপ্তাহের দু-দিন শুক্র ও শনিবার জুয়ার আসর বসান বলে সূত্র জানিয়েছে। এছাড়া মধ্যপাড়া ও জগতবাজারেও ওই জুয়ারী সময় সুযোগমতো আসর চালান। শহরের মেড্ডায় অগ্রণী সংসদে জমজমাট জুয়া খেলা চলছে এখনো। রাত ৯টার পরই এখানে জমে জুয়ার আসর। চলে গভীররাত পর্যন্ত। দূরদূরান্ত থেকে জুয়াড়িরা আসে এখানে গাড়িতে করে। বিএনপি দলীয় এক জনপ্রতিনিধি, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের এক নেতা এই জুয়ার আসরের প্রধান। মদও চলে এই আসরে। শহরের মধ্যপাড়া ব্রাদার্স ক্লাবেও তাসের নামে জুয়া খেলা হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। এদিকে বিজয়নগর উপজেলার কয়েক স্থানেও বসছে জুয়ার আসর। উপজেলার সবচেয়ে বড় জুয়ার আসর বসে চম্পকনগরের বাদেহাড়িয়া নামকস্থানে। সেখানকার কালিশ্বর মন্দিরের পেছনে জাহাঙ্গীরের বাড়িতে এই জুয়ার আসরে হবিগঞ্জ ও মাধবপুর থেকে লোকজন আসে জুয়া খেলতে। শাহজাহান ও ঝন্টু এই জুয়ার আসরটি চালান। মাঝেমধ্যে কালিরবাজারেও জুয়ার আসরটি স্থানান্তরিত হয়। এছাড়া হরষপুর, চতুরপুর, পাহাড়পুর ও আউলিয়াবাজারে তাস খেলার নামে চলে জুয়া খেলা। পত্তন ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান ইউপি সদস্য সেলিম মিয়া, ফারুক মিয়া, তিতাস এবং বাড়িউড়ার সাবেক ইউপি সদস্য ফতেহ আলী মনিপুর আতকাপাড়া গ্রাম, চাওড়াখোলাসহ বিভিন্নস্থানে চালাচ্ছেন জুয়ার আসর। এছাড়া সরাইল উপজেলার বিভিন্নস্থানেও জুয়ার আসর বসে। পাকশিমুল, রসুলপুর, উচালিয়াপাড়ার মোড়ে সময় সুযোগে জুয়ার আসর বসায় স্থানীয় জুয়াড়িরা। তবে ঢাকায় ক্যাসিনোতে অভিযান শুরুর পর জেলার বিভিন্নস্থানে জুয়াড়িরা কিছুটা ভয়ভীতির মধ্যে থাকলেও নির্ভয়ে জুয়া খেলা চলছে আখাউড়ায় রেলওয়ে থানা সংলগ্ন  রেলওয়ে ক্লাব (লাল হোসেন ইনস্টিটিউট) ও রেলওয়ে শ্রমিক লীগের অফিসে। সন্ধ্যা থেকে মধ্য রাত পর্যন্ত তাস খেলার নামে চলে এখানে জমজমাট জুয়ার আসর। রেলওয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারী, রাজনৈতিক দলের কর্মী এবং  রেলওয়ে কলোনি ও পার্শ্ববর্তী এলাকার প্রভাবশালীরা এখানে জুয়া খেলে। জুয়ার খেলার পাশাপাশি এখানে চলে মাদক সেবনও। রেলওয়ে ক্লাবের দু-একজন নেতার মদদে স্থানীয় প্রভাবশালীরা চালাচ্ছে এই অপকর্ম। থানা থেকে মাত্র ২০ গজ দূরে এসব অনৈতিক কাজকর্ম চললেও রহস্যজনক কারণে নীরব পুলিশ। তারা কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। এছাড়াও রেলওয়ে রানিং রুম সংলগ্ন কোয়ার্টারে অবৈধভাবে দখল করা একটি বাসায় সন্ধ্যার পর জুয়ার আসর বসে। এই বাসাটি এক সাংবাদিকের দখলে। প্রতিদিন লক্ষাধিক টাকার জুয়া খেলা হয় এখানে।
রেলওয়ে পূর্ব কলোনির কয়েকটি বাসায় গড়ে উঠেছে মাদকের আস্তানা। এসব বাসায় মাদক কেনাবেচনা হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু প্রভাবশালীদের ভয়ে কেউ কিছু বলতে পারছে না। স্থানীয় এক প্রভাবশালী জনপ্রতিনিধির চাচাতো ভাই শ্রমিকলীগ নেতা লাকসু খলিফা বাইপাস এলাকায় রেলওয়ের একটি বাসা দখল করে চালাচ্ছেন নানা অপকর্ম । তার এখানেও মদ, গাজা, ইয়াবা বেচাকেনা ও জুয়ার আসর চলে রাতভর। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে তাদের অভিযান চলমান রয়েছে। রোববার সদর, বিজয়নগর ও আখাউড়ায় অভিযান চালানো হয়।মানবজমিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» তোফায়েল ভাই অভিবাদন

» পেয়ারার যত গুণ

» মৃত্যুর জন্য যে শহরে যান মানুষ!

» মজাদার বাদাম মাটন কোরমা রেসিপি

» যেভাবে চিনবেন পদ্মার ইলিশ

» ইমামের পেছনে সুরা ফাতেহা পড়লে কি গুনাহ হবে?

» ‘আধ্যাত্মিক গুরুর’ ছেলের অফিসে ২০ কোটি ডলার, ৯০ কেজি সোনা!

» সংবাদ সম্মেলনে না থাকার কারণ জানালেন মাশরাফি

» বাংলাদেশ-ভারত টেস্ট দেখতে কলকাতা যাচ্ছেন শেখ হাসিনা

» নারী ও শিশু নির্যাতনের গল্পে তানহা তাসনিয়া

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

আখাউড়ায় নির্ভয়ে চলে জুয়া

নির্ভয়ে জুয়া খেলা চলছে আখাউড়ায়। থানার পাশেই জমজমাট এই জুয়ার আসর। ঢাকায় ক্যাসিনোতে অভিযান, এত তোলপাড়ে এখানকার জুয়াড়িদের কোনো ডরভয় স্পর্শ করেনি। এ ছাড়াও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্নস্থানে রয়েছে জুয়ার আসর। আছে প্রভাবশালী
জুয়াড়ি। সদরের সংসদ সদস্য র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী জেলা শহরে দুটি জুয়ার আসরের তথ্য দেন ৫ই সেপ্টেম্বর পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলনে তার বক্তৃতায়। বিশ্বরোড এলাকায় রশিদ মার্কেট আর শহরের কে দাশ মোড়ের পেয়ারা টাওয়ারে জুয়া খেলা হয় জানিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে তৎপর হতে বলেন তিনি। এরপরই নড়েচড়ে বসে সদরের পুলিশ।

অভিযানও চালায় সেখানে। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সেলিম উদ্দিন বলেছেন- ওই দুটি জুয়ার আসরে তারা অভিযান চালিয়েছেন। কিন্তু রশিদ মার্কেটের আসরে কাউকে পাওয়া যায়নি। পিয়ারা মিয়া টাওয়ারেও সাদা পোশাকে পুলিশ নজর রাখছে। শহরের এক প্রভাবশালী জুয়ারী উত্তর পৈরতলায় তার বাড়িতে সপ্তাহের দু-দিন শুক্র ও শনিবার জুয়ার আসর বসান বলে সূত্র জানিয়েছে। এছাড়া মধ্যপাড়া ও জগতবাজারেও ওই জুয়ারী সময় সুযোগমতো আসর চালান। শহরের মেড্ডায় অগ্রণী সংসদে জমজমাট জুয়া খেলা চলছে এখনো। রাত ৯টার পরই এখানে জমে জুয়ার আসর। চলে গভীররাত পর্যন্ত। দূরদূরান্ত থেকে জুয়াড়িরা আসে এখানে গাড়িতে করে। বিএনপি দলীয় এক জনপ্রতিনিধি, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের এক নেতা এই জুয়ার আসরের প্রধান। মদও চলে এই আসরে। শহরের মধ্যপাড়া ব্রাদার্স ক্লাবেও তাসের নামে জুয়া খেলা হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। এদিকে বিজয়নগর উপজেলার কয়েক স্থানেও বসছে জুয়ার আসর। উপজেলার সবচেয়ে বড় জুয়ার আসর বসে চম্পকনগরের বাদেহাড়িয়া নামকস্থানে। সেখানকার কালিশ্বর মন্দিরের পেছনে জাহাঙ্গীরের বাড়িতে এই জুয়ার আসরে হবিগঞ্জ ও মাধবপুর থেকে লোকজন আসে জুয়া খেলতে। শাহজাহান ও ঝন্টু এই জুয়ার আসরটি চালান। মাঝেমধ্যে কালিরবাজারেও জুয়ার আসরটি স্থানান্তরিত হয়। এছাড়া হরষপুর, চতুরপুর, পাহাড়পুর ও আউলিয়াবাজারে তাস খেলার নামে চলে জুয়া খেলা। পত্তন ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান ইউপি সদস্য সেলিম মিয়া, ফারুক মিয়া, তিতাস এবং বাড়িউড়ার সাবেক ইউপি সদস্য ফতেহ আলী মনিপুর আতকাপাড়া গ্রাম, চাওড়াখোলাসহ বিভিন্নস্থানে চালাচ্ছেন জুয়ার আসর। এছাড়া সরাইল উপজেলার বিভিন্নস্থানেও জুয়ার আসর বসে। পাকশিমুল, রসুলপুর, উচালিয়াপাড়ার মোড়ে সময় সুযোগে জুয়ার আসর বসায় স্থানীয় জুয়াড়িরা। তবে ঢাকায় ক্যাসিনোতে অভিযান শুরুর পর জেলার বিভিন্নস্থানে জুয়াড়িরা কিছুটা ভয়ভীতির মধ্যে থাকলেও নির্ভয়ে জুয়া খেলা চলছে আখাউড়ায় রেলওয়ে থানা সংলগ্ন  রেলওয়ে ক্লাব (লাল হোসেন ইনস্টিটিউট) ও রেলওয়ে শ্রমিক লীগের অফিসে। সন্ধ্যা থেকে মধ্য রাত পর্যন্ত তাস খেলার নামে চলে এখানে জমজমাট জুয়ার আসর। রেলওয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারী, রাজনৈতিক দলের কর্মী এবং  রেলওয়ে কলোনি ও পার্শ্ববর্তী এলাকার প্রভাবশালীরা এখানে জুয়া খেলে। জুয়ার খেলার পাশাপাশি এখানে চলে মাদক সেবনও। রেলওয়ে ক্লাবের দু-একজন নেতার মদদে স্থানীয় প্রভাবশালীরা চালাচ্ছে এই অপকর্ম। থানা থেকে মাত্র ২০ গজ দূরে এসব অনৈতিক কাজকর্ম চললেও রহস্যজনক কারণে নীরব পুলিশ। তারা কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। এছাড়াও রেলওয়ে রানিং রুম সংলগ্ন কোয়ার্টারে অবৈধভাবে দখল করা একটি বাসায় সন্ধ্যার পর জুয়ার আসর বসে। এই বাসাটি এক সাংবাদিকের দখলে। প্রতিদিন লক্ষাধিক টাকার জুয়া খেলা হয় এখানে।
রেলওয়ে পূর্ব কলোনির কয়েকটি বাসায় গড়ে উঠেছে মাদকের আস্তানা। এসব বাসায় মাদক কেনাবেচনা হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু প্রভাবশালীদের ভয়ে কেউ কিছু বলতে পারছে না। স্থানীয় এক প্রভাবশালী জনপ্রতিনিধির চাচাতো ভাই শ্রমিকলীগ নেতা লাকসু খলিফা বাইপাস এলাকায় রেলওয়ের একটি বাসা দখল করে চালাচ্ছেন নানা অপকর্ম । তার এখানেও মদ, গাজা, ইয়াবা বেচাকেনা ও জুয়ার আসর চলে রাতভর। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে তাদের অভিযান চলমান রয়েছে। রোববার সদর, বিজয়নগর ও আখাউড়ায় অভিযান চালানো হয়।মানবজমিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com