অনলাইন ক্যাসিনো কারবারিরা লাপাত্তা

চলমান ক্যাসিনো বিরোধী অভিযানে অনলাইনে ব্যবসা করেন এমন শতাধিক ক্যাসিনো ডন লাপাত্তা। অনলাইন ক্যাসিনো গুরু সেলিম প্রধান গ্রেপ্তারের পর তারা এখন আত্মগোপনে। কেউ কেউ পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন বিদেশে। পলাতক থাকা অনেক ক্যাসিনো ডন সেলিম প্রধানের মতো শূণ্য থেকে বনে গেছেন কোটিপতি। গড়ে তুলেছেন দেশে ও বিদেশে সম্পদের পাহাড়। অবৈধভাবে বিদেশে পাচার করেছেন কোটি কোটি টাকা। তবে বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন বিভাগের কঠোর কড়াকড়ির কারণে তারা বিদেশে যেতে পারছেন না। আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা স্থল ও আকাশপথে নজরদারি রেখেছেন।

অনলাইন ক্যাসিনোর ডন হিসাবে খ্যাত দেশ ও বিদেশে অবস্থানরত শতাধিক বাংলাদেশিকে চিহ্নিত করেছে র‌্যাবের সাইবার ক্রাইম সেল। তাদের ব্যাপারে চুলচেরা বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে সেলিম প্রধানের মতো দুই ক্যাসিনো কিং মো. আশরাফুল ও সুজনের গুলশান অফিসে অভিযান চালিয়েছে র‌্যাবের গোয়েন্দা টিমের একটি দল। কিন্তু তার আগেই তারা অফিসের গুরুত্বপূর্ণ মালামাল নিয়ে সটকে পড়েছে। তবে গোয়েন্দা বিভাগের এক সদস্য আশরাফুলকে আটকের ব্যাপারে নিশ্চিত করলেও র‌্যাবের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা তাকে আটকের বিষয়টি নিয়ে কিছু বলেননি।

র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন্স) কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার গতকাল  জানান, অনলাইন ক্যাসিনোর সঙ্গে জড়িত যারাই আমাদের কাছে সনাক্ত হয় তাদেরই আমরা ধরে ফেলছি। আমাদের নজরে আসলে অবশ্যই আমরা তাদের আইনের আওতায় আনবো। চলমান অপারেশন অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।
র‌্যাবের গোয়েন্দা বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ঢাকায় যখন ক্যাসিনো বিরোধী অপারেশন শুরু হয় তখন কিছু অনলাইন ক্যাসিনো ডন পরিস্থিতি বুঝে গাঢাকা দিয়েছে। অনেক অনলাইন ক্যাসিনো ডন রাজধানীর ঢাকার অভিজাত এলাকা গুলশান ও বনানী এলাকায় আলিশান অফিস তৈরি করে রাতদিন অবৈধ ক্যাসিনোর কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছিলো। পরিস্থিতি টের পেয়ে অনেকেই অফিসে তালা লাগিয়ে পালিয়েছে। কেউ দ্রুত তাদের কম্পিউটারের মূল সার্ভার ও মালামাল নিয়ে লাপাত্তা হয়ে গেছে। র‌্যাবের গোয়েন্দা বিভাগ ওই অফিসের মালিক ও কর্মকর্তা কর্মচারীদের ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করছেন।

র‌্যাবের গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, অনলাইনে ক্যাসিনো পরিচালনাকারীদের অধিকাংশই বিদেশ ফেরত নাগরিক। তারা ইউরোপের অনলাইন ক্যাসিনোর জন্য বিখ্যাত দেশ মাল্টা থেকে এবং থাইল্যান্ডে অনলাইন ক্যাসিনোর বিষয়ে অভিজ্ঞতা অর্জন করে দেশে এসে ক্যাসিনো পরিচালনা করেছেন। এর আগে আটক সেলিম প্রধান দীর্ঘদিন জাপান ও থাইল্যান্ডে ছিলেন। সেখানে এক উত্তর কোরীয় নাগরিকের কাছে অনলাইন ক্যাসিনোর ধারণা পেয়ে তিনি দেশে এসে অবৈধ অনলাইন ক্যাসিনো পরিচালনা করে বিদেশে টাকা পাচার করছিলেন। যারা লাপাত্তা অবস্থায় রয়েছে তাদেরও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে এমন ডাটা পেয়েছে র‌্যাবের সাইবার ক্রাইম সেল। র‌্যাবের গোয়েন্দা বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, গত বছর ফেবু্রয়ারিতে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) নির্দেশে অনলাইন ক্যাসিনোর ১৭৬টি সাইট বন্ধ করে দেয়া হয়। এগুলোর অধিকাংশই মূল ডোমেনের মালিক হচ্ছেন বিদেশিরা। ওই সাইডগুলো হচ্ছে, বেট এশিয়া ৩৬৫, বেটওয়ে ডটকম, বেটফ্রিড ডটকম, ডাফাবেট ডটকম, বেটফেয়ার ডটকম, সাইট ৩৬৫ ডটকম, ৮৮ স্পোর্টস ডটকম, ইউনিবেট ডটকম, বেট ভিক্টর ডটকম, নেটবেট ডটকম, টাইটান বেট ডটকম ও উইনার ডটকম। ওই সাইডগুলোর কর্তা ব্যক্তিরা তাদের সাইডকে আরও জনপ্রিয় করার জন্য বাংলাদেশে কিছু প্রতিনিধি অনলাইনের মাধ্যমে নিয়োগ দেন। পরে এসব প্রতিনিধিরাই ক্যাসিনোর সঙ্গে জড়িত হয়ে যায়। আবার তারা বিদেশি সাইটের অভিজ্ঞতা থেকে নিজেরাই সাইট খুলে রমরমা ক্যাসিনো পরিচালনা করছেন। তারা এক একটি গেটওয়ের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছেন।মানবজমিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» যুক্তরাজ্যে কন্টেইনার থেকে ৩৯ লাশ উদ্ধার

» গ্রামীণ জনগণ প্রকৃত উপজেলার সুফল থেকে বঞ্চিত: জি এম কাদের

» রাজধানীতে টানা দুই ঘণ্টা বৃষ্টি

» শিক্ষকরা ছত্রভঙ্গ, আহত ১০

» পদ হারিয়ে কাওসার বললেন, রাজনীতি করলে ভুল-ত্রুটি থাকতেই পারে

» জরিপভিত্তিক সংস্থাগুলোর প্রতিবেদনের সঙ্গে একমত নই: তথ্যমন্ত্রী

» শায়েস্তাগঞ্জে কালোবাজারীর দখলে ট্রেনের টিকেট

» কাশ্মীরের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন আমেরিকা!

» গাছ কেটে ভাইরাল হওয়া সেই নারী আটক

» একজন নেতার জন্য ১৪ দল ভাঙতে পারে না: ওবায়দুল কাদের

উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
পরীক্ষামূলক প্রচার...
,

অনলাইন ক্যাসিনো কারবারিরা লাপাত্তা

চলমান ক্যাসিনো বিরোধী অভিযানে অনলাইনে ব্যবসা করেন এমন শতাধিক ক্যাসিনো ডন লাপাত্তা। অনলাইন ক্যাসিনো গুরু সেলিম প্রধান গ্রেপ্তারের পর তারা এখন আত্মগোপনে। কেউ কেউ পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন বিদেশে। পলাতক থাকা অনেক ক্যাসিনো ডন সেলিম প্রধানের মতো শূণ্য থেকে বনে গেছেন কোটিপতি। গড়ে তুলেছেন দেশে ও বিদেশে সম্পদের পাহাড়। অবৈধভাবে বিদেশে পাচার করেছেন কোটি কোটি টাকা। তবে বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন বিভাগের কঠোর কড়াকড়ির কারণে তারা বিদেশে যেতে পারছেন না। আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা স্থল ও আকাশপথে নজরদারি রেখেছেন।

অনলাইন ক্যাসিনোর ডন হিসাবে খ্যাত দেশ ও বিদেশে অবস্থানরত শতাধিক বাংলাদেশিকে চিহ্নিত করেছে র‌্যাবের সাইবার ক্রাইম সেল। তাদের ব্যাপারে চুলচেরা বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে সেলিম প্রধানের মতো দুই ক্যাসিনো কিং মো. আশরাফুল ও সুজনের গুলশান অফিসে অভিযান চালিয়েছে র‌্যাবের গোয়েন্দা টিমের একটি দল। কিন্তু তার আগেই তারা অফিসের গুরুত্বপূর্ণ মালামাল নিয়ে সটকে পড়েছে। তবে গোয়েন্দা বিভাগের এক সদস্য আশরাফুলকে আটকের ব্যাপারে নিশ্চিত করলেও র‌্যাবের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা তাকে আটকের বিষয়টি নিয়ে কিছু বলেননি।

র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন্স) কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার গতকাল  জানান, অনলাইন ক্যাসিনোর সঙ্গে জড়িত যারাই আমাদের কাছে সনাক্ত হয় তাদেরই আমরা ধরে ফেলছি। আমাদের নজরে আসলে অবশ্যই আমরা তাদের আইনের আওতায় আনবো। চলমান অপারেশন অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।
র‌্যাবের গোয়েন্দা বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ঢাকায় যখন ক্যাসিনো বিরোধী অপারেশন শুরু হয় তখন কিছু অনলাইন ক্যাসিনো ডন পরিস্থিতি বুঝে গাঢাকা দিয়েছে। অনেক অনলাইন ক্যাসিনো ডন রাজধানীর ঢাকার অভিজাত এলাকা গুলশান ও বনানী এলাকায় আলিশান অফিস তৈরি করে রাতদিন অবৈধ ক্যাসিনোর কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছিলো। পরিস্থিতি টের পেয়ে অনেকেই অফিসে তালা লাগিয়ে পালিয়েছে। কেউ দ্রুত তাদের কম্পিউটারের মূল সার্ভার ও মালামাল নিয়ে লাপাত্তা হয়ে গেছে। র‌্যাবের গোয়েন্দা বিভাগ ওই অফিসের মালিক ও কর্মকর্তা কর্মচারীদের ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করছেন।

র‌্যাবের গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, অনলাইনে ক্যাসিনো পরিচালনাকারীদের অধিকাংশই বিদেশ ফেরত নাগরিক। তারা ইউরোপের অনলাইন ক্যাসিনোর জন্য বিখ্যাত দেশ মাল্টা থেকে এবং থাইল্যান্ডে অনলাইন ক্যাসিনোর বিষয়ে অভিজ্ঞতা অর্জন করে দেশে এসে ক্যাসিনো পরিচালনা করেছেন। এর আগে আটক সেলিম প্রধান দীর্ঘদিন জাপান ও থাইল্যান্ডে ছিলেন। সেখানে এক উত্তর কোরীয় নাগরিকের কাছে অনলাইন ক্যাসিনোর ধারণা পেয়ে তিনি দেশে এসে অবৈধ অনলাইন ক্যাসিনো পরিচালনা করে বিদেশে টাকা পাচার করছিলেন। যারা লাপাত্তা অবস্থায় রয়েছে তাদেরও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে এমন ডাটা পেয়েছে র‌্যাবের সাইবার ক্রাইম সেল। র‌্যাবের গোয়েন্দা বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, গত বছর ফেবু্রয়ারিতে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) নির্দেশে অনলাইন ক্যাসিনোর ১৭৬টি সাইট বন্ধ করে দেয়া হয়। এগুলোর অধিকাংশই মূল ডোমেনের মালিক হচ্ছেন বিদেশিরা। ওই সাইডগুলো হচ্ছে, বেট এশিয়া ৩৬৫, বেটওয়ে ডটকম, বেটফ্রিড ডটকম, ডাফাবেট ডটকম, বেটফেয়ার ডটকম, সাইট ৩৬৫ ডটকম, ৮৮ স্পোর্টস ডটকম, ইউনিবেট ডটকম, বেট ভিক্টর ডটকম, নেটবেট ডটকম, টাইটান বেট ডটকম ও উইনার ডটকম। ওই সাইডগুলোর কর্তা ব্যক্তিরা তাদের সাইডকে আরও জনপ্রিয় করার জন্য বাংলাদেশে কিছু প্রতিনিধি অনলাইনের মাধ্যমে নিয়োগ দেন। পরে এসব প্রতিনিধিরাই ক্যাসিনোর সঙ্গে জড়িত হয়ে যায়। আবার তারা বিদেশি সাইটের অভিজ্ঞতা থেকে নিজেরাই সাইট খুলে রমরমা ক্যাসিনো পরিচালনা করছেন। তারা এক একটি গেটওয়ের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছেন।মানবজমিন

Facebook Comments
Share

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



উপদেষ্টা – আনোয়ার হোসেন জীবন, উপশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

উপদেষ্টা – মো: মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তরঃ (দপ্তর সম্পাদক)

উপদেষ্টা -মাকসুদা লিসা

সম্পাদক ও প্রকাশক :মো সেলিম আহম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত,সম্পাদক : শেখ মোঃ আতাহার হোসেন সুজন

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ মো: শফিকুল ইসলাম আরজু

নির্বাহী সম্পাদকঃ আনিসুল হক বাবু

সহযোগী সম্পাদকঃ মোঃ ফারুক হোসেন

বার্তা সম্পাদক :এ.এইচ.এম.শাহ্জাহান

 

 

 

 

ই-মেইল : dhakacrimenewsbd@gmail.com

মোবাইল : ০১৫৩৫১৩০৩৫০

Design & Developed BY ThemesBazar.Com